ঢাকা বুধবার, অক্টোবর ২৭, ২০২১
সৈয়েদেনা হযরত ইমাম হোসাইন শহীদে কারবালা(আঃ) এঁর ১০ মহররম স্মরণে-
  • আলহাজ্ব গোলাম জিলানী কাদেরী
  • ২০২১-০৮-২০ ০০:৪১:৫৬

“জানে মান নেছারম বনামে হোসাইন
মনোম গোলাম, গোলামানে হোসাইন”
খাজা গরীব নেওয়াজ (রহঃ)
অর্থাৎ আমি আমাকে সম্পূর্ণ উজার করে দিয়েছি
ইমাম হোসাইন (আঃ) এঁর পদতলে।
আমি তো কেবল তাঁরই গোলাম,
যে হয়েছে হোসাইন (আঃ) এঁর গোলাম।
খাজা গরীব নেওয়াজ মাইনুদ্দিন চিশতী (রহঃ)।
  রাসুলুল্লাহ(সাঃ) বলেন-“হে লোক সকল যে ব্যক্তি এমন অত্যাচার করবে যে হালালকে হারাম আর হারামকে হালাল করবে, আল্লাহর বান্দাদের সাথে শত্রুতা পোষন করবে, বিনাশ্রমে সম্পদ ভোগে মেতে উঠবে তবে মনে করবে সে শয়তানের আনুগত্য করছে।” 
  ইয়াজিদ ইবনে মারিয়া ছিল এমন ব্যক্তি যে সর্বদাই মদ্যপ অবস্থায় থাকতো। সে ছিল লম্পট, চরিত্রহীন। ইসলাম, ঈমান রক্ষা করার জন্য সৈয়েদেনা হযরত ইমাম হোসাইন বিন আলী (আঃ) ইয়াজিদের ফেৎনার বিরুদ্ধে নিজ জীবন উৎসর্গ করে ৬০ হিজরীর ১০ মহরম শাহাদত বরণ করে চির স্মরনীয় হয়ে আছেন, জালিম ও জুলুমের বিরুদ্ধে জেহাদ করে প্রিয় নানাজানের আনীত ইসলামকে বিকৃতির হাত হতে রক্ষা করেছেন।
  রাসুলুল্লাহ (সাঃ) এঁর প্রান প্রিয় দৌহত্র হযরত ইমাম হোসাইন (আঃ) বলেন-“ইয়াজিদের মত লোক যদি ‘মুহাম্মদী, ধর্মের রক্ষক হয় তাহলে এখানেই ইসলামের পরিসমাপ্তি।”
  ‘বিহারুল আনওয়াব’ হতে আল্লামা মজলিসি বর্ণনা করেন-“এক রাতে হযরত ইমাম হোসাইন (আঃ) ঘর হতে বের হয়ে তাঁর প্রিয় নানাজানের মদিনাস্থ মসজিদুল নাবাবী পবিত্র মাজারে হাজির হয়ে নানাজানকে সালাম দিয়ে বলেন- “নানাজান সাক্ষী থাকুন আপনার এ উম্মতের লোকজন আমাকে ত্যাগ করেছে, আমাকে অবহেলা করেছে আর আমাকে নিরাপত্তা দিতে অস্বীকার করেছে।
  তারপর তিনি রওজা মোবারত থেকে উঠে নামাজ পড়তে শুরু করেন এবং অনবরত সিজদাহ দিতে থাকেন ও রুকু করতে থাকেন। তারপর তিনি ভোর বেলায় বাসায় ফেরেন। দ্বিতীয়বার তিনি রাসূল (সাঃ) এঁর রওজায় গেলেন। রাতে নামাজ আদায় করে তিনি মহান খোদা তায়ালার দরবারে ফরিয়াদ করেন এভাবে”-“হে আল্লাহ, এটি হচ্ছে আপনার প্রিয় রাসুল (সাঃ) এঁর মাজার শরীফ আর আমি তাঁর দৌহিত্র হোসাইন বিন আলী। আপনি জানেন আমার উপর কি আপতিত হয়েছে। নিশ্চয়ই আমি সৎ কর্মশীলদের ভালবাসি আর খারাপকে ঘৃনা করি। হে গৌরবময় প্রভু, আমি এই কবর এবং এখানে যিঁনি আরাম করছেন তাঁর অধিকারের মাধ্যমে আরজ করছি মেহেরবানী করে আপনি আমার জন্য বের করে আনুন যা যা আপনার ও আপনার প্রিয় হাবিব (সাঃ) কর্তৃক অনুমোদিত। 
  তারপর ইমাম কাঁদলেন ভোর পর্যন্ত, তারপর তিনি তাঁর পবিত্র মাথা পবিত্র করবের উপর রেখে কিছুক্ষণের জন্য ঘুমিয়ে পড়েন। তিনি স্বপ্নে দেখেন রাসুলুল্লাহ(সাঃ) তাঁর ডান ও বামে এবং এবং সামনের দিকে ফেরেশতাসহ অগ্রসর হচ্ছেন ও রাসুল (সাঃ) (ইমাম হোসাইনের) তাঁর মাথাকে তাঁর নিজ পবিত্র বুকে চেপে ধরলেন এবং তাঁর (ইমামের) দু’চোখের মাঝখানে চুমো দিলেন এবং বললেন “হে আমার প্রিয় সন্তান হোসাইন, আমি যেন দেখতে পাচ্ছি যে, তুমি রক্তে মাখা-মাখি হয়ে আছো আর কারবালায় আমার উম্মতের একটা দল তোমার মাথা কেটে ফেলেছে আর তুমি পিপাসার্ত কিন্তু তারা তোমাকে পানি দিচ্ছে না। হে আমার হোসাইন, বেহেশতে তোমার পিতা, মাতা, ভাই সবাই তোমার সাক্ষাতের প্রত্যাশী আর তুমি বেহেশতে এমন এক উচুঁ সম্মানীয় স্থানে অবস্থান করছো। তাই যদি তুমি শাহাদত বরণ না কর তবে সে স্থানে পৌঁছাবে না, এটাই আল্লাহর ইচ্ছা। 
  রাসুলুল্লাহ (সাঃ) উত্তরে বলেন “হে আমার সন্তান, তোমার উচিত শাহাদত লাভ করা, এর বিনিময়ে খোদা তায়ালা তোমাকে এক মহৎ (বৃহৎ) কাজের বিনিময়ে পুরস্কার দান করবেন যা তোমার জন্য মহান পুরস্কার হিসাবে বাছাই করে রেখেছেন, এটা তোমার অর্জন করা উচিত।” তারপর তিনি ঘুম থেকে জেগে ওঠেন এবং দুশ্চিন্তামুক্ত হয়ে স্বপ্নের কথা তাঁর আহলে বায়েতের মধ্যে (হযরত আব্দুল মোত্তালিব (আঃ) এর আওলাদদের কাছে বলেন)।”
  হযরত ইমাম হোসাইন (আঃ) এঁর শাহাদত বরণ হওয়া ছিল মহান খোদা তায়ালার অভিপ্রায় এর মাধ্যমে খোদা তায়ালার এক রহস্য এবং মহান উদ্দেশ্য ছিল যা অত্যন্ত গোপনীয়, যা তাঁর প্রিয় হাবিব (সাঃ) কে অবহিত করেছিলেন। পবিত্র কোরানে সুরা সাফফাতের-১০৭, ১০৮ আয়াতে সে বিষয়ে ইঙ্গিত দেয়া হয়েছে। যেমন-“ওয়া কাদায়নাহু জেবহিন আজিম ওয়া তারাকনা আলায়হে ফিল আখেরীন।” অর্থঃ এবং আমরা তার পরিবর্তে এক মহান কোরবানী দান করলাম এবং তা পরবর্তী বংশধরদের তা (কোরবানী) অর্পন করলাম। হুজুর আকরাম (সাঃ) দৌহিত্র হযরত ইমাম হোসাইন (আঃ) এর কারবালার শাহাদতের বিষয় আলোচনা আনতে হলে তাঁর পূর্ব পুরুষ হযরত ইব্রাহিম (আঃ) এঁর পুত্র হযরত ইসমাইল (আঃ) এঁর কোরবানীর বিষয়ে আমলে আনতে হবে। 
  “হোসায়নুল মিন্নি ওয়া আনা মিনাল হোসাইন।” অর্থঃ আমি হোসাইন হতে, হোসাইন আমা হতে। এ কথার তাৎপর্য অপরিসীম। তিনি তাঁর প্রিয় দৌহিত্র সম্বন্ধে বলেন-“আমার সন্তান হোসাইনের জন্য যে তার মুসিবতে শোক পালন করবে সে হাশরে কিয়ামতের দিন বিখ্যাত পয়গম্বরদের সাথে অবস্থান করবে।” পুনরায় বলেন-“যে (নয়ন) হোসাইনের জন্য কাঁদবে সে জান্নাতে প্রবেশ করবে।” পবিত্র কোরানে বর্ণিত “জেবহিন আজিম” অর্থাৎ মহান কোরবানী বলা হয়েছে। তার ব্যাখ্যায় আওলাদে রাসূল (সাঃ) হযরত জাফর বিন আস্সদিক (আঃ) ইসমাইল (আঃ) এঁর স্থগিত কোরবানী তাঁরই মহান বংশধর হযরত হোসাইন (আঃ) এঁর কোরবানীকেই বুঝিয়েছেন। 
  আলে রাসুল (সাঃ) এঁর মর্যাদায় হুজুর গওসুল আযম(আঃ) এঁর ২১ তম অধস্থন কামেল পীর সাজ্জাদা সীল হযরত ইরশাদ আলী আল কাদেরী (আঃ) তাঁর অসংখ্য মর্শিয়া যা হযরত ইমাম হোসাইন শহীদ কারবালার নিমিত্তে লিখেছেন তার মধ্য হতে সামান্য কয়টা মর্শিয়ার লাইন উল্লেখ করা হলো-যা থেকে এ কোরবানীর মহৎ উদ্দেশ্যে বোঝা যাবে। যেমন-“ছের কাটায়া শাহ্নে হামকো বাঁচানেকে লিয়ে/ হাশরে মে হাম আসিউকো বকশোওয়ানেকে লিয়ে”। পুনরায়
“এ্যয় ফওজে লায়িঁ জান মেরি নজর খোদা হ্যায়
তালেব হুঁ শাহাদত কা ম্যায় স্যর সার একেলা।”
মন্জুর হ্যায় মগফুর হো সব উম্মতে আছি
স্যর ইসলিয়ে দেতা হুঁ সিতামগার একেলা।
লেকিন হয় কোই সিররে খাফি জিসছে হুখামুস 
দেখলাদুঁ আভি কুদরতে কাহহার একেলো।”
  সুলতানুল হিন্দ্ হযরত খাজা মুঈনুদ্দিন চিশতি তাঁর দিউয়ানে লিখেছেন “হে হোসাইন, যে কাজ তুমি আনজাম দিয়েছো-তা দিয়ে মুস্তফার ফুুল বাগিচার বসন্ত এনে দিয়েছো। কোন পয়গম্বর যে কাজ করার সুযোগ পায়নি, খোদার কসম-হে হোসাইন, তুমি সে কাজ সম্পূর্ণ করেছো।” পুনরায় বলেন-“হোসাইন রাজা হোসাইন বাদশাহ হোসেইন দ্বীন, হোসেন আশ্রয়, মাথা দিয়েছে, দেয়নি তো হাত ইয়াজিদের হাতে। প্রকৃত পক্ষেই হোসাইন লা-ইলাহার বুনিয়াদ।” 
  ধৈর্য্য ও সবরের অগ্নি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ মহান আল্লাহর উপর নিবেদিত প্রাণ হযরত ইমাম হোসাইন (আঃ) নিজ জীবন উৎসর্গ করে দ্বীন (সত্য)কে প্রতিষ্ঠিত করে গেছেন। জনৈক উর্দ্ধুকবি বলেন-“কাটায়া ছেরকো সেজদেহমে এহিউম্মত কি খাতির/হোসাইন আগার সওখছে ছের না কাটাতে, তো হাম্ আজ সানছে ছের নহিউঠা সেককে।” ইয়াজিদ সেনাপতি ওমর ইবনেসা’দ সৈন্যবাহিনীকে বলে-তাড়া তাড়ি হোসাইনের ছের কেটে দে যেন আছরের নামাজ কাজা না হয়।” কত বড় নামাজী! যে নামাজে একটু পরেই বলবে-“হে আল্লাহ তুমি মুহম্মদ (সাঃ) ও তাঁর বংশের উপর কল্যাণ ও বরকত দান কর।”
  আমাদের জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বলেন-“ইসলাম তুমি দিয়ে কবর/ইসলাম বলে কর ফকর, মোনাফেক তুমি সেরা বেদ্বীন।”
  মোনাজাত ঃ “এলাহি বা হক্কে বনি ফাতেমা বার কাউলে ঈমান কুনাম হাতিমা, আগার দায়াতাম্ রাদ্কুনি র্ও কবুল, মান্ দাস্তো ও দামানে আলে রাসুল (সাঃ)।” -শেখ সাদী(রহঃ)। 
  অর্থ ঃ হে আল্লাহ্ নবী-কন্যা ফাতেমা(সাঃ আঃ) এঁর কলিজার টুকরাদের ওয়াছিলায় কালেমা “লা-ইলাহা ইল্লালল্লাহু মুহাম্মাদুর রাসূলুল্লাহ (সাঃ)ই যেন ২য় আমার জীবনের শেষ কথা। হে মালিক, এ মোনাজাত তুমি কবুল কর বা না কর সেটা তোমার মর্জি-মওলা, আমি তো দু’হাত দিয়ে আঁকরে ধরেছি আহ্লে বায়েতে(রাঃ) এঁর নাজাতের তরী।”

সিডও সনদের পূর্ণ অনুমোদন ও অভিন্ন পারিবারিক আইন প্রণয়নের দাবি
সৈয়েদেনা হযরত ইমাম হোসাইন শহীদে কারবালা(আঃ) এঁর ১০ মহররম স্মরণে-
আমার চোখে আমার বাবা
সর্বশেষ সংবাদ