ঢাকা মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ৬, ২০২২
কবি সুফিয়া কামাল
  • নমিতা দাস
  • ২০২২-১১-২০ ০০:৫১:৩৬

সাম্য 
কবি সুফিয়া কামাল
সতেকের সাথে সতেক হও
মিলায়ে একত্রিত। 
সব দেশে সব কালে কালে সবে
হয়েছে সমুন্নত। 
বিপুল পৃথিবী, প্রসারিত পথ
যাত্রীরা সেই পথে,
চলে কর্মের আহ্বানে কোন
অনন্ত কাল হতে
মানব জীবন শ্রেষ্ঠ, কঠোর
কর্মে সে মহীয়ান
সংগ্রামে আর সাহসে প্রজ্ঞা
আলোকে দীপ্তিমান।
পায়ের তলার মাটিতে, আকাশে
সমুখে, সিন্ধ জলে
বিজয় কেতন উড়ায়ে মানুষ
চলিছে দলে দলে।
  সুফিয়া কামাল ১৯১১ সালের ২০শে জুন বরিশালের শায়েস্তাবাদের রাহাত মঞ্জিলে মামা বাড়ীতে জন্মগ্রহণ করেন। সেই সময় স্কুল কলেজে পড়ার কোন সুযোগ ছিল না। পারিবারিক নানা উত্থান-পতনের মধ্যে স্ব-শিক্ষায় হয়েছেন কবি। ১৯১৮ সালে বেগম রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেনের সঙ্গে তার দেখা হয়েছিল। সুফিয়া কামালের সভা জায়গা করে নেয় রোকেয়ার কথা ও কাজ। ১৯২৬ সালে সুফিয়া কামালের প্রথম কবিতা ‘বাসন্তী’ সে সময়ের প্রভাবশালী সাময়িকী সওগাতে প্রকাশিত হয়। ১৯৩৭ সালে তার গল্পের সংকলন ‘কেয়ার কাঁটা’ প্রকাশিত হয়। ১৯৩৮ সালে তার প্রথম কাব্যগ্রন্থ ‘সাঁঝের মায়া’র মুখবন্ধ লেখেন বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলাম। দেশ বিভাগের আগে কিছুকাল তিনি নারীদের জন্য প্রকাশিত সাময়িকী বেগমের সম্পাদক ছিলেন। 
  ১৯৪৭ সালে দেশ বিভাগের পর সুফিয়া কামাল পরিবারসহ ঢাকায় চলে আসেন। ভাষা আন্দোলনে তিনি সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেন। ১৯৫৬ সালে শিশুদের সংগঠন ‘কচিকাঁচার মেলা’ প্রতিষ্ঠা করেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম হোস্টোলকে রোকেয়া হল নামকরণের দাবী জানান। ১৯৬১ সালে তিনি ছায়ানটের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন। ১৯৬৯ সালে মহিলা সংগ্রামে কমিটির সভাপতি নির্বাচিত হয়ে গণঅভ্যুত্থানে অংশ নেন। ১৯৭০ সালে মহিলা পরিষদ গঠন করেন। ১৯৭১ সালের মার্চে অসহযোগ আন্দোলনের নারীদের মিছিলে নেতৃত্ব দেন। 
  সুফিয়া কামাল ৫০টিরও বেশী পুরস্কার অর্জন করেন। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য কয়েকটি হলো পাকিস্তান সরকারের তমখা-ই-ইমতিয়াজ (১৯৬১), সেটি তিনি প্রত্যাখান করেন। ১৯৬৯ বাংলা একাডেমী পুরস্কার (১৯৬২), সোভিয়েত লেলিন পদক পুরস্কার, একুশে পদক (১৯৭৬), মুক্তধারা পুরস্কার (১৯৮২), বেগম রোকেয়া পদক (১৯৯৬), স্বাধীনতা দিবস পদক (১৯৯৭)। তিনি বলেছেন পৃথিবীর অনেক মহৎ কাজের পেছনেই ছিল মানুষের সম্মিলিত প্রচেষ্টা, অসীম সাহস, সম্মিলিত সাধনা ও সংগ্রামের মধ্যে দিয়েই মানুষ এই পৃথিবীতে তার বিজয় ঘোষণা করেছে। এই জন্য ধর্ম, বর্ণ, গোত্র ও শ্রেণী ভেদে সকল মানুষের মধ্যে সম্প্রীতি ও সৌহার্দ্যরে পরিবেশ সৃষ্টি করতে হবে। 
 এই মহিয়সী নারী কবি ও সাহিত্যিক ছিলেন। তার শৈশবের স্মৃতি বিজড়িত কবিতা। 
ক) কবিতার নাম পল্লী স্মৃতি ঃ 
বহুদিন পরে মনে পরে আজি পল্লী মায়ের কোল
ঝাউ-শাখে যেথা বনলতা বাধি হরষে খেয়েছি দোল
ফুলের কাঁটার আঘাত সহিয়া কাঁচাপাকা কুল খেয়ে
অমৃতের স্বাদ লাভিয়াছি যেন গাঁয়ের দুলালী মেয়ে
চৈত্র নিশির চাঁদিমায় বসি শুনিয়াছি রূপকথা
মনে বাজিয়াছে সুয়ো-দুয়োরাণীর দুঃখিনী মায়ের ব্যথা,
তবু বলিয়াছি মার গলা ধরে, মাগো সেই ‘কথা’ বল
রাজার দুলালে পাষাণ করিতে, ডাইনী করেছিল ছল ?
সাতশ সাপের পাহারা কাটায়ে পাতাল বাসিনী মেয়ে
রাজার ছেলেরে বাঁচায়ে কি করে ? পৌঁছিল দেশে যেয়ে।
খ) পুরনো স্মৃতি ঃ 
আমি থাকিতাম মাটি হয়ে লুটে দীঘি দরিয়ার কূলে 
দেখিত না কেহ, চিনিত না কেহ, মনে করিত না ভুলে ?
আজ বড় জ্বালা ! জানানো তো কোন, খরনিয়া
পরিণাম আর, আপন পরের নানান ভাবনা নিয়া।
তুমি বোন মোর ভালোবাসা নিয়ো, পাঠায়ো তোমার বই
মন ভালো নেই, লিখিতে পারিনা, এখন বিদায় লই।
গ) চিঠির জওয়াব ঃ
এতদিন বুজি কেটে গেল খরোতরো দুর্দিন?
আবার বাহুতে বাজবন্ধু, পায়ে মল নিবে রিনিঝিনি।
আবার জড়াবে সুঠাম তনুতে টিয়া ঠোঁটপাড় শাড়ী
একগাল পান মুখে দিয়ে যাবে বেড়াইতে ওই বাড়ী ?
সেখানে নতুন মাস্টার বউ এসেছে ক’মাস হল
বড় ভালো বউ গ্রাম মাঝে তার তারিয়া উঠেছে দলও।
ঘ)
আমাদের যুগে আমরা যখন খেলেছি পুতুল খেলা
তোমরা এ যুগে সেই বয়সেই লেখাপড়া কর মেলা।
আমরা যখন আকাশের তলে উড়ায়েছি শুধু ঘুড়ি
তোমরা এখন সেই বয়সে কলের জাহাজ চালাও গগন জুড়ি
উত্তর মেরু, দক্ষিণ মেরু, সব তোমাদের জানা
আমরা শুনেছি সেখানে রয়েছে জ্বিন পরী দেও-দানা
পাতালপুরির অজানা কাহিনী তোমরা শুনাও সবে
মেরুতে মেরুতে জানা পরিচয় কেমন করিয়া হবে।
  যে ক’জন মুসলিম নারী লেখকের অবদানে বাংলা সাহিত্য সমৃদ্ধ হয়েছে সুফিয়া কামাল তাদের অন্যতম প্রভাবশালী। ত্রিশ উত্তর কবিদের কালে অভিভূত হয়েও তিনি উচ্চারণ করতে সক্ষম হয়েছেন নিজস্ব এক কণ্ঠস্বর। তার পথ ছিল একান্তই সহজ-সরল নিরাভরণ এবং স্নিগ্ধময়। সামাজিক অসাম্য অবিচার আর শোষণের বিরুদ্ধে ছিল তার অবিচল অবস্থান। দীর্ঘ ৭০ বছরের কাব্য জীবনে সুফিয়া কামাল কেবল কাব্য চর্চাই করেননি বরং কবিতার রাজপথ ধরেই হয়ে উঠেছিলেন আমাদের আশা-আশ্বাস আর ভরসার প্রদীপ্ত এক উৎস। বস্তুত আমাদের জাতীয় জীবনে সুফিয়া কামাল এক প্রতিষ্ঠানের নাম সামাজিক অগ্রগতির ও নারী জাগরণের সংগ্রাম, অপরাজয়ের এক শক্তিশালী প্রতীক। তিনি মনে করেন নারী কোনো অবলা জীব নয়, পুরুষের মনোরঞ্জন তার একমাত্র কাজ তাহা মনে করেন না। তিনি মনে করেন নারীর মধ্যে আছে অনন্ত শক্তি, সুযোগ পেলে সেও দেখাতে পারে বিশ্ব-বিজয়ী রূপ। এ ভাবনায় ছিল তার গভীর প্রত্যয়।
জাগো-মাতা-বধূ 
তোমার ঘরের মাটির প্রদীপ আলো
জেগে আছো মাগো, আর কটা দিন জাগো,
আর নেই দেরী গভীর রাত্রী শেষ হয়ে এল
এবার প্রভাত ফেরী।
শোনা যায় ওই পূর্ব অচলে প্রভাত রবির কর
দিগন্ত ব্যাপিয়া আঁধার নামিয়ে অলিছে তিমির হয়
তোমার প্রাণের দ্বীপ্তিতে দ্বীপ জ্বেলেছে আঁধার রাতে
আলজিরিয়ার মুক্তি আলোক জ্বেলেছে তোমার হাতে।
যে নারী কল্যাণী
জয়া মাতা গৃহিণী তুলনা বিহীন
কেহ তাহারে ভুলিবে না।
  সুফিয়া কামাল নারীদের অন্দর মহল থেকে রাজপথে নিয়ে এসেছেন। ধন্য হে মহিয়সী নারী, জানাই সশ্রদ্ধ শ্রদ্ধা। এই মহিয়সী নারী ১৯৯৯ সালে ২০শে নভেম্বর মৃত্যুবরণ করেন। তাকে পূর্ণ রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় সমাহিত করা হয়। বাংলাদেশের নারীদের মধ্যে তিনিই এই সম্মান প্রথম অর্জন করেন।
(লেখক পরিচিতি ঃ প্রশিক্ষণ সম্পাদক, বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ, রাজবাড়ী জেলা শাখা)।

কবি সুফিয়া কামাল
ডাঃ আবুল হোসেন ঃ একজন আলোকিত মানুষ এবং মহৎ প্রাণের প্রতিকৃতি
মীর মশাররফ হোসেন ঃ অসাম্প্রদায়িক চেতনায় শাণিত বাংলা ভাষা ও সাহিত্য প্রেমিক
সর্বশেষ সংবাদ