ঢাকা মঙ্গলবার, জানুয়ারী ৩১, ২০২৩
প্রধান বিচারপতি পদক পেলেন টাঙ্গাইলের চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সাউদ হাসান
  • স্টাফ রিপোর্টার
  • ২০২২-১২-৩১ ২২:৩৫:৪০

সততা, নিষ্ঠা ও আন্তরিকতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করায় প্রথমবারের মত প্রবর্তিত প্রধান বিচারপতি পদক পেয়েছেন টাঙ্গাইলের চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সাউদ হাসান।

  গত ১৮ই ডিসেম্বর রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্ট প্রতিষ্ঠার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিকট থেকে তিনি এ পদক গ্রহণ করেন।  

  প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিচারপতি ওবায়দুল হাসান স্বাগত বক্তব্য রাখেন। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক, ভারতীয় সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি মুকেশ কুমার রশিক ভাই শাহ এবং বাংলাদেশ আইন কমিশনের চেয়ারম্যান ও বাংলাদেশের সাবেক প্রধান বিচারপতি এবিএম খায়রুল হক উপস্থিত ছিলেন।

  সততা, নিষ্ঠা ও আন্তরিকতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করায় চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সাউদ হাসানকে এই পুরস্কার দেয়া হয়। তিনি অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ সমমর্যাদার বিচারকগণের মধ্যে ‘প্রধান বিচারপতি পদক-২০২২ প্রাপ্ত হন।

  অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিম্ন আদালতের বিচারকদের মধ্যে ৬টি ক্যাটাগরিতে এই প্রথমবারের মত প্রবর্তিত প্রধান বিচারপতি পদক তুলে দেন।

  ৫টি ক্যাটাগরিতে বিচার বিভাগীয় কর্মকর্তা তথা নিম্ন আদালতের বিচারকদের ‘প্রধান বিচারপতি পদক’ দেওয়া হয়েছে। আর দলগতভাবে এ পদক পেয়েছেন ময়মনসিংহ জেলা ও দায়রা জজ আদালত।

  ব্যক্তিগতভাবে পদক প্রাপ্ত প্রত্যেককে ২২ ক্যারেট ১৬ গ্রাম স্বর্ণের পদক এবং দুই লাখ টাকার চেক এবং ময়মনসিংহ জেলাকে ২২ ক্যারেট ১৬ গ্রাম স্বর্ণের পদক এবং ৫ লাখ টাকার চেক দেওয়া হয়েছে।

  চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সাউদ হাসান গোপালগঞ্জ জেলার সদর উপজেলার আড়পাড়া গ্রামের মরহুম আলহাজ আব্দুল ওয়াদুদ মোল্লা ও মিসেস আনোয়ারা বেগমের সর্ব কনিষ্ঠ সন্তান। তিনি আড়পাড়া ইসলামিয়া উচ্চ বিদ্যালয় হতে এসএসসি এবং  ঢাকা কলেজ থেকে এইচএসসি পরীক্ষায় কৃতিত্বের সঙ্গে উত্তীর্ণ হন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় হতে এলএলবি(অনার্স), এলএলএম (প্রথম শ্রেণি) ডিগ্রি অর্জন করেন এই বিচারক। পরবর্তীতে তিনি আইসিআরসি স্কলারশিপ প্রাপ্ত হন এবং ভারতের নালসার ইউনিভার্সিটি অব ল’ হতে আন্তর্জাতিক মানবিক আইনে পিজিডিতে প্রথম স্থান অধিকার করেন সাউদ হাসান। তিনি আইন, বিচার, মানবাধিকার ও আইন গবেষণার উপর দেশে- বিদেশে প্রায় ৪৮টি প্রশিক্ষণে অংশগ্রহণ করেছেন। সাউদ হাসান আইন বিষয়ে তিনটি পেশাগত বইয়ের রচয়িতা এবং দেশি-বিদেশি আইন জার্নালে এ যাবৎ তার ৬টি আর্টিকেল প্রকাশিত হয়েছে।

  তিনি ঢাকা জজ কোর্ট এবং বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগে তালিকাভুক্ত আইনজীবী হিসেবে প্র্যাকটিস করেছেন। আইন বিষয়ে অধ্যাপনা করেছেন বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়েও। 

  তিনি তৃতীয় বিজেএস পরীক্ষার মাধ্যমে বাংলাদেশ জুডিশিয়াল সার্ভিসে ২০০৮ সালের ২২শে মে জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে রাজবাড়ী জেলায় যোগদান করেন। পরবর্তীতে বিভিন্ন জেলায় গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেন। বর্তমানে টাঙ্গাইলের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ পদে সততা, সুনাম ও দক্ষতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করছেন তিনি। 

  টাঙ্গাইলে চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে যোগদান করার পরে বিচারপ্রার্থী জনগণের বিচারিক সেবার মান উন্নয়ন, আদালতের সার্বিক পরিবেশের উন্নয়ন সাধন, স্বল্প সময়ে অধিকসংখ্যক মামলা নিষ্পতি, বৃক্ষরোপণসহ জেলার সামগ্রিক বিচার ব্যবস্থায় অভূতপূর্ব উন্নয়ন সাধন করেন। তিনি বিবাহিত এবং এক পুত্র ও এক কন্যা সন্তানের জনক। তার স্ত্রী মনিকা খান বাংলাদেশ জুডিশিয়াল সার্ভিসের একজন সদস্য এবং বর্তমানে তিনি টাঙ্গাইল জেলার লিগ্যাল এইড অফিসার(সিনিয়র সহকারী জজ) হিসেবে কর্মরত রয়েছেন। 

  পদক প্রাপ্তিতে তিনি বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী, প্রধান বিচারপতি এবং আইনমন্ত্রীসহ সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

চসিকের প্রকল্প পরিচালকের ওপর হামলার ঘটনায় ঢাকায় বঙ্গবন্ধু প্রকৌশলী পরিষদের প্রতিবাদ সমাবেশ
ভাঙ্গায় মোবাইল টাওয়ারের যন্ত্রাংশ পাচারকারী মামুনসহ জড়িতদের শাস্তির দাবীতে মানববন্ধন
ফরিদপুরে অম্বিকাপুরে ২১দিনব্যাপী জসীম পল্লী মেলা উদ্বোধন
সর্বশেষ সংবাদ