ঢাকা বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর ৩, ২০২০
হযরত ইমাম হোসাইন(আঃ) এঁর শাহাদত স্মরণে
  • সংকলন ও গ্রন্থনায়-আলহাজ্ব গোলাম জিলানী কাদেরী
  • ২০২০-০৯-০১ ০১:০২:১১

“যারা আল্লাহর রাস্তায় নিহত হন তোমরা তাদের মৃত বলো না, তাঁরা জীবিত, আপন প্রতিপালকের কাছ থেকে জীবিকা প্রাপ্ত।” (সুরা আলে ইমরান, ১৬৯)। “বনু উমাইয়া ইসলামকে ধ্বংস স্তুপে পরিণত করবে।” (আল হাদীস)

  ওয়াসিয়ে রাসুল হযরত আলী(আঃ) ফরমান-“আল্লাহ্ তা’য়ালা শেষ বিচারের দিন শহীদানদের এরূপ জাঁক-জমকপূর্ণ জৌলুস সহকারে সকলের কাছে উপস্থিত করাবেন যা দেখে বেহেশতে উপবেশনকারী নবী-রাসুলগণও শহীদানদের প্রতি সম্মান, শ্রদ্ধা করার জন্য সেদিন নীচে নেমে আসবেন।”
  মহান আল্লাহ্ তা’য়ালা শহীদগণের এমন মর্যাদা দান করেছেন যে, তাঁদের কবর শরীফ এবং তাঁর আশেপাশের মাটিও অতি পবিত্র। বর্ণিত আছে যে, নবীর দুলালী খাতুনে জান্নাত সৈয়েদা হযরত ফাতেমা (আঃ) এঁর প্রিয় দাদাজান সৈয়েদেনা হযরত হামজা (আঃ) এঁর পবিত্র মাজারের মাটি দিয়ে তাসবীহ্ বানিয়েছিলেন। 
  রাসুলুল্লাহ্(সাঃ) এঁর দেহজাত ফুল, বেহেশ্তের যুবকদের নেতা, হেদায়েতের আলোক বর্তিকা সৈয়েদেনা হযরত ইমাম হোসায়ন ইবনে আলী (আঃ) ইসলাম রক্ষার্থে ফাসেক, লম্পট, দুশ্চরিত্র ইয়াজিদ ইবনে মাবিয়ার বিরুদ্ধে বীরের মতো লড়াই করে পরিবারের প্রায় সকল সদস্যসহ দুঃখ-কষ্ট, বালা-মুসিবতে ঘেরা সেই ভয়ংকর, ভয়ানক, উষ্ণ মরুভূমি কারবালা নামক স্থানে (কুফা হতে আনুমানিক ৪২ মাইল দূরে প্রাচীন ব্যাবিলন নগরীর কাছে) ৬৬০ খৃঃ ৬১ হিঃ ১০ই মহররম শাহাদত বরণ করেন। সেদিন যদি তিনি ইয়াজিদের ফাসেকি কর্মকান্ডের প্রতিবাদ না করতেন, তা হলে সে ইসলামের সত্য সুন্দর দিক উল্টিয়ে আইয়ামে জাহেলিয়াতে রূপান্তরিত করতো। তাতে আমরা প্রকৃত ইসলামের স্বাদ থেকে বঞ্চিত হতাম। তাই প্রতিটি মুমিন নর-নারীর কর্তব্য হযরত ইমাম হোসায়ন শহীদে কারবালা (আঃ) এঁর জন্য শোক পালন করা, তাঁর স্মরণে মর্শিয়া করা অবশ্য কর্তব্য। কারণ জালিমের জুলুমকে ঘৃণা করা, সেই সাথে হযরত ইমাম হোসায়ন (আঃ)কে মহব্বত করা সুন্নতে রাসুল (সাঃ)। 
  হযরত মুহাম্মদ মুস্তফা (সাঃ) এঁর আনীত ইসলাম যেমন সকল মুসলমানদের জন্য পালনীয়, ঠিক তেমনি হযরত ইমাম হোসায়ন (আঃ) এঁর শাহাদত স্মরণে, তাঁর মহব্বতে শোক পালন করাও অবশ্য কর্তব্য। বেহেশতের যুবা পুরুষদের সরদার হযরত ইমাম হোসায়ন (আঃ) তাগুত শক্তির কাছে মাথা নত করেননি। কারণ যিঁনি নবী পাক (সাঃ) এঁর বুকে লালিত-পালিত, যার কাছে ওহি নাযেল হতো তাঁর প্রিয় নাতি লম্পট, শরাবী ইয়াজিদের কাছে নতি স্বীকার করতে পারেন না। তাই দেখা যায়, হযরত ইমাম হোসায়ন শহীদে কারবালা (আঃ) এঁর পবিত্র মাজার বিশ্বের অগণিত মুমিন মুসলমানদের কাছে অতি শ্রদ্ধেয় এক তীর্থস্থান। কোটি কোটি মানুষ তাঁর মুসিবত স্মরণে অশ্রু ঝরায়। অপরদিকে, বাহিক্যভাবে বিজয় লাভ করার পরও পাপিষ্ঠ, নরাধম ইয়াজিদ ইবনে মাবিয়া বিন আবু সুফিয়ান একটি ঘৃণিত চরিত্র। তার কবরের চিহ্ন নাই। কোন বিবেকবান লোক তাদের সন্তানদের নাম ইয়াজিদ রাখে না।
  নফসে রাসূল সৈয়েদেনা হযরত আলী(আঃ) এরশাদ করেন-“আল্লাহ্ তা’য়ালা আলে মুহাম্মদ (সাঃ)কে (তাঁর) জিম্মাদাররূপে স্থাপন করেছেন। তারা হলেন দূর্গ-যেখানে আল্লাহ্র অনুশাসন নিরাপত্তা লাভ করে এবং সেখান হতে তার বিস্তার বিশদভাবে ব্যক্ত হয়ে থাকে। তাঁরা আল্লাহ্র সৃষ্ট জ্ঞানের উৎস মুখ, আল্লাহ্র দেয়া শিক্ষার আশ্রয় স্থল, স্বর্গীয় কিতাবের আশ্রয় দাতা এবং তার ধর্ম রক্ষার জন্য পর্বতের মতো দূর্গসমূহ। প্রথম অবস্থায় ইসলাম ছিল দুর্বল এবং অসহায়। একে রক্ষার জন্য তাঁরা এগিয়ে এসেছিলেন। অধার্মিক দ্বারা বেষ্টিত ইসলাম ছিল সন্ত্রস্ত্র। তাঁরা এটাকে শক্ত ও শক্তিশালী করেছিলেন। 
  পবিত্র কোরআনে এরশাদ হয়-“লোকেরা কি তাদের হিংসা করে-যাদেরকে আল্লাহ্ নিজ কল্যাণ ও করুনায় সিক্ত করেছেন ? আমি অবশ্যই ইব্রাহীমের পরিবারকে গ্রন্থ ও জ্ঞান দান করেছি এবং তাদেরকে বৃহৎ সাম্রাজ্য দান করেছি।” (সুরা নিছা, আয়াত-৫৪)।
  হ্যাঁ, উমাইয়া গোষ্ঠী তথা মাবিয়া এজিদ গং রাসুল (সাঃ) এঁর পবিত্র বংশধরদের হিংসা করে। এই হিংসায় তারা যুগ যুগ ধরে জ্বলে ছাড়খাড় হয়েছে আর আলে রাসুলের বিরুদ্ধে বিষোদগার করেছে, শত্রুতা করেছে আজীবন। ইসলামের দূর্গ, খুঁটি স্বরূপ আলে রাসুলের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করে এসব পবিত্র দূর্গকে ধ্বংস করার চেষ্টা করেছে। যার জন্য এগারো ইমাম পাককে নৃশংসভাবে শহীদ করেছে।
  ইমাম পাক শিখিয়ে গেছেন বাহিক্যভাবে বিজয় অর্জন বড় কথা নয়, বরং সত্য পথে থেকে হকের সাক্ষ্য দেয়াই বড় কথা। আরো বড় কথা হলো তিনি জগৎবাসীকে চোখে আঙ্গুল দিয়ে হক ও বাতিলের সীমারেখা অংকন করে গেছেন। তাই দেখা যায়, হযরত ইমাম হোসায়ন (আঃ) এমন সময় শাহাদতের বেদীতে আরোহন করেছিলেন যখন মানুষ ইসলামের আচার-আচরণ, নিয়ম-কানন বাহিক্যভাবে পালন করলেও ইসলামের মূল আদর্শ হতে বিচ্যুত হয়ে পড়েছিল। তৎকালীন গভীর নিদ্রায় বিভোর মুসলিম উম্মাকে জাগ্রত করার জন্য নিজে এবং তাঁর আহলে বায়েত গর্বিত সঙ্গী-সাথীগণসহ, পবিত্র শিশুদের রক্ত ও মহিলাদের মজলুমিয়াত দ্বারা সবোর্চ্চ ত্যাগ স্বীকারের সিদ্ধান্তে তিনি ছিলেন অটল। তিনি এ মহান আনজাম দেয়ার প্রাক্কালে এরশাদ করেন-“আল্লাহ্র শপথ, আল্লাহ্র সন্তুষ্টি বা পছন্দই আমাদের আহলে বায়েতের সন্তুষ্টি বা পছন্দ।” “বলুন, আমার নামাজ, আমার কোরবানী, আমার জীবন ও আমার মৃত্যু জগৎসমূহের রব আল্লাহ্র জন্য, যাঁর কোন শরীক নাই। আমি তাতেই আদিষ্ট হয়েছি এবং (এ আদেশের সামনে) আত্মসমর্পণকারীদের মধ্যে আমিই প্রথম।” (সূরা আন্ আম, ১৬২)।
  হযরত ইমাম হোসায়ন (আঃ) ছিলেন এ আয়াত পাকের পূর্ণতম দৃষ্টান্ত। ইরাক যাবার প্রাক্কালে তিনি যে জ্বালাময়ী খোৎবা দেন তা এরূপঃ-“হে জনতা, নিঃসন্দেহে আমি দুনিয়াকে পীঠ দেখিয়েছি এবং বিদায় বার্তা জানিয়েছি, পরকালকে কবুল করে নিয়েছি আর কল্যাণের পথে তাকেই মর্যাদা দিয়েছি। তোমরা কী দেখতে পাচ্ছো না যে, সত্যভিত্তিক কার্যকলাপ চলছে না এবং মিথ্যা ও বাতিলকে পরিত্যাগ করা হচ্ছে না ? মুমিনের জন্য আল্লাহ্র সাথে সাক্ষাতের আকাঙ্খা পোষণের এটাই উপযুক্ত সময়।” তিনি আরো এরশাদ করেন-“নিশ্চয়ই আমি মৃত্যুবরণ (শাহাদত)কে সৌভাগ্য ছাড়া অন্য কিছু মনে করি না এবং জালিমের সাথে বেঁচে থাকা শুধু অপমানজনকই মনে করি।” 
  “হোসায়নুন মিন্নি ওয়া আনা মিনাল হোসায়ন।” মহানবী (সাঃ) কর্তৃক এ মহান উক্তি, যার অর্থ-আমি হোসায়ন হতে, হোসায়ন আমা হতে। এ কথার তাৎপর্য অপরিসীম। অথচ শয়তানের দল রাসুলুল্লাহ্ (সাঃ) এঁর এ উক্তির কোন মূল্যই দিল না। তারা ‘হোসায়ন রূপী’ মুহম্মদ (সাঃ)কেই হত্যা করলো করবালা প্রান্তরে। জনৈক উর্দু কবি তাদের উদ্দেশ্যে যথার্থই বলেছেন ঃ
“কলমা লাঁই পহড়হেঙ্গে রাসুলে আনামকা
কাটেঙ্গে সার হোসায়ন(আঃ) কা”।
  মহান খোদা তা’য়ালা পবিত্র কোরআনের সূরা সাফফাতের আয়াত ১০৭-১০৮ এরশাদ করেন “এবং আমরা তার পরিবর্তে এক মহান কোরবানী দান করলাম এবং পরবর্তী বংশধরদের তা(কোরবানী) অর্পণ করলাম।” উক্ত আয়াত পাক হযরত ইব্রাহীম(আঃ) এঁর পুত্র হযরত ইসমাইল(আঃ) সম্পর্কীয়। সাধারণ লোক বা অল্প জ্ঞানের লোকেরা হযরত ইসমাইল(আঃ) এঁর পরিবর্তে বেহেশত হতে প্রেরিত দুম্বা, যা মিনার ময়দানে জবেহ হয়েছিল তাকেই আফজাল বা ‘জেবহিন আজিম’ বলে আখ্যা দিয়ে থাকে। অথচ একটা পশু যে কখনোই একজন পয়গম্বর হতে উৎকৃষ্ট হতে পারে না তা তারা বুঝতে অক্ষম। আওলাদে রাসুল(সাঃ) সৈয়েদেনা হযরত ইমাম জাফর সাদেক(আঃ) এ আয়াত পাক নাজেলের প্রেক্ষাপট ব্যাখ্যা করেন এ ভাবে-যখন হযরত ইব্রাহীম(আঃ) তাঁর ছেলেকে আল্লাহ্র রাহে কোরবানী করতে বিফল হয়ে কাঁদছিলেন তখন হযরত জিব্রাইল(আঃ) এঁর মাধ্যমে খোদা তায়ালা তাঁর নবীকে কাঁদতে নিষেধ করেন। কারণ হযরত ইসমাইল (আঃ) “নূরে মুহম্মদী” বিচ্ছুরিত হচ্ছিল। তাই তাঁকে জবেহ করা যাবে না। এটাই আল্লাহ্র ইচ্ছা। তার পরিবর্তে নবী পাক (সাঃ) এঁর নয়ন মনি সৈয়দেনা হযরত ইমাম হোসায়ন (আঃ) কারবালা প্রান্তরে শাহাদতবরণ করে নবী পাক (সাঃ) এঁর প্রকৃত উম্মতকে সাফায়েতের কারণ হয়েছেন ইনশাল্লাহ্। এ মহান শাহাদতের তাৎপর্য ও গুরুত্ব অপরিসীম। হুজুর গওসুল আযম (আঃ) এঁর অধঃস্তন ২১তম সুযোগ্য সাজ্জাদানসী পীর সাহেব কিবলাহ্ সৈয়েদেনা ওয়া মওলানা হযরত এরশাদ আলী আল্ কাদেরী আল্ হাসাইনী ওয়াল হোসাইনী ওয়াল বাগদাদী ওয়াল মেদিনীপুরী ইমাম পাকের শানে বহু মর্শিয়া শরীফ লিখেছেন। তার মধ্য হতে মাত্র দু’লাইন উল্লেখ করছি। 
“সার কাটায়া শাহ্নে হামকো বাঁচানে কে লিয়ে
হাশরে হাম আসিউঁকো বকশো ওয়ানে কে লিয়ে।”

মীর মশাররফ হোসেনের সাহিত্য সাধনা ও শিল্প নৈপুণ্য
এক নক্ষত্রের পতন
হযরত ইমাম হোসাইন(আঃ) এঁর শাহাদত স্মরণে
সর্বশেষ সংবাদ