ঢাকা বৃহস্পতিবার, জুন ২৪, ২০২১
বিআরডিবি’র সাড়ে ৭হাজার পরিবার অভূক্ত ঃ প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা
  • প্রেস বিজ্ঞপ্তি
  • ২০২১-০৫-০৭ ০২:৪৩:২২

॥আব্দুর রাজ্জাক রাজু॥ স্বাধীনতা পরবর্তী বাংলাদেশে দারিদ্র্য বিমোচন, খাদ্যে স্বয়ং সম্পূর্ণতা অর্জন, কৃষি নির্ভর অর্থনীতির মাধ্যমে নারীর ক্ষমতায়ন, জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রন ও নিরক্ষরতা দূরীকরনে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হাতে গড়া একমাত্র অগ্রগন্য প্রতিষ্ঠান হিসেবে বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন বোর্ড (বিআরডিবি) একটি স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠান। স্বাধীনতাপূর্ব বাংলাদেশে তৎকালীন সময়ের একজন সিএসপিড ঃ আখতার হামিদ খান দ্বি-স্তর বিশিষ্ট সমবায় ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে গ্রামীণ জনপদের দরিদ্র কৃষক ও মহিলাদের সংগঠিত করে এসব কার্যক্রম শুরু করেন। স্বাধীনতার পর যা “সমন্বিত পল্লী উন্নয়ন কর্মসূচি(আইআরডিপি)” নামে সারা দেশে কার্যক্রম প্রসারিত করে। পরবর্তীতে ১৯৮২ সালে একটি অধ্যাদেশের মাধ্যমে আইআরডিপি’কে বিআরডিবি’তে রূপান্তর করা হয়। দেশের সার্বিক উন্নয়ন কর্মকান্ডে বিআরডিবি অগ্রগন্য ভূমিকা পালন করলেও শুরু থেকেই প্রতিষ্ঠানটি কাঠামোগত স্তরে বৈষম্যের নজির পরিলক্ষিত হয়। একদিকে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রনালয়ের পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় বিভাগ কর্তৃক নিয়োগকৃত তথা কথিত রাজস্বের কর্মকর্তা-কর্মচারী, অন্যদিকে উপজেলা পর্যায়ে স্থানীয় কেন্দ্রীয় সমিতি কর্তৃক নিয়োগকৃত কর্মচারীদের বেতন-ভাতা প্রাপ্তি থেকে শুরু করে সকল প্রকার সুযোগ সুবিধা থেকে এ বৈষম্য স্থায়ীভাবে রূপ নেয়। বিআরডিবি’র তথা কথিত রাজস্বের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা প্রদানের জন্য প্রতি অর্থ বছরে পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় বিভাগের বরাদ্দ থেকে একটি নির্দিষ্ট  অংকের টাকা প্রদান করা হয়। যা গ্রহনের বা খরচের জন্য কখনোই সরকারের রাজস্ব দপ্তর বা হিসাব রক্ষণ দপ্তরের প্রয়োজন হয় না। তাদের আয়-ব্যয়সহ সকল প্রকার আর্থিক লেনদেন নিজেদের স্বাক্ষরেই পরিচালনা করে থাকেন।
  বিআরডিবি’র মূলকার্যক্রম সঞ্চয় জমা ও ক্ষুদ্র ঋণের মাধ্যমে দরিদ্র সমবায়ীদের অর্থনৈতিক ভাবে স্বাবলম্বী করে তোলা। অথচ এ একই কাজ করার জন্য প্রতিষ্ঠানটি বছরের পর বছর বিভিন্ন নামে কখনো মন্ত্রণালয় হতে, আবার কখনো নিজের কৌশলে প্রকল্প/কর্মসূচি সৃষ্টি করেছে। নির্দিষ্ট মেয়াদের এ সকল প্রকল্পের বা কর্মসূচিতে জনবল নিয়োগ দিয়ে তাদের সাথে করেছে নানা ধরনের প্রতারনা। যেমন ঃ ১) নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখিত পদে নিয়োগ না দিয়ে ভিন্ন পদবীর পদে নিয়োগ, ২) জাতীয় বেতন স্কেলে নিয়োগ দিয়ে পরবর্তীতে তা সর্বসাকুল্য বেতনে পদায়ন, ৩) নির্দিষ্ট বেতন গ্রেডে নিয়োগ দিয়ে পরবর্তীতে তা নিম্নতর গ্রেডে অবনমিতকরা, ৪) প্রকল্পের নাম পরিবর্তন করে ভিন্ন নাম প্রবর্তন, ৫) প্রকল্প প্রনয়ন করে তা কর্মসূচি হিসেবে বাস্তবায়ন এবং সর্বপরি ৬) কর্মরত জনবলের বেতন-ভাতা প্রদান না করে “আয় থেকে দায় প্রথা” প্রবর্তনের মাধ্যমে নাগরিক হিসেবে তাদের সকল প্রকার মৌলিক অধিকার থেকে বঞ্চিত করা।
  ২০১৫ সালে সরকার ঘোষিত জাতীয় বেতন স্কেল বাস্তবায়ন করায় কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সাকুল্য বেতন স্কেলে যে বেতন বৃদ্ধি পায় আয় থেকে দায় প্রথায় তা ১০০ ভাগ অর্জন করা সম্ভব হয় না। ফলে শুরু হয় তাদের মানবেতর জীবন যাপনের পালা। এই নির্যাতন থেকে পরিত্রান পেতে কর্মকর্তা-কর্মচারীরা ১লা সেপ্টেম্বর ২০১৯ হতে ৯ই জানুয়ারী ২০২০ পর্যন্ত লাগাতার শান্তিপূর্ণভাবে বিক্ষোভ, মানববন্ধন ও গণ অনশন কর্মসূচি পালন করে। অবশেষে ৯ই জানুয়ারী ২০২০ তারিখে স্থানীয় সরকার মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী, সচিব, ডিজি (বিআরডিবি) ও জাতীয় শ্রমিকলীগের নেতৃবৃন্দের সমন্বয়ে মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে ত্রি-পাক্ষিক বৈঠকে ২৬শে মার্চ ২০২০ তারিখের মধ্যে সকল দাবী দাওয়ার বাস্তবায়ন করা হবে মর্মে আশ^াস দিলে আন্দোলন কর্মসূচি স্থগিত করা হয়।
  ইতিমধ্যে মহাপরিচালক, বিআরডিবি সেপ্টেম্বর ২০১৯ মাসে বিআরডিবি’র মূল কাঠামোতে প্রকল্প/কর্মসূচির জনবল আত্মীকরণের প্রচেষ্টায় ১৩ হাজার ২২৫ টি পদ বৃদ্ধির জন্য জনপ্রশাসন মন্ত্রনালয়ে একটি প্রস্তাব পেশ করেন। যাতে পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী ও সচিবের সুপারিশ রয়েছে। প্রস্তাবের আলোকে বিআরডিবি’র মূলের কর্মকর্তাদের কূটকৌশলে প্রকল্প/কর্মসূচির জনবলের জন্য পদ বৃদ্ধি না করে বিগত ৪ঠা এপ্রিল ২০২১ তারিখে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় ৮টি বিভাগীয় অফিসসহ তা নিয়ন্ত্রনের জন্য ৫৯৬টি পদ সৃজনের অনুমোদন দিয়েছে। এতে করে সকল আশার বিপর্যয় ঘটায় প্রকল্প/কর্মসূচির জনবলের মধ্যে নতুনকরেহতাশা নেমেএসেছে। এমনিতেই ২০/২৫ বছর চাকুরী করে শেষ জীবনে বেতন-ভাতাহীন অবস্থায় পরিবার পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করে অনেকেই বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়ে বিনা চিকিৎসায় মারা যাচ্ছে। নতুন করে শেষ ভরসা বিআরডিবির মূল কাঠামোতে আত্মীকরণের সুযোগ বঞ্চিত হয়ে তারা আরোও মৃতঃপ্রায় অবস্থায় বসবাস করছে। এমনিতে ইপ্রকল্প/কর্মসূচির জনবল বিভিন্ন সময়ে তাদের অধিকার প্রাপ্তির জন্য মহামান্য আদালতের দ্বারস্থ হলে সর্বোচ্চ আদালত কর্র্তৃক বারং বার জনবলের পক্ষে রায় দিলেও বিআরডিবি তা উপেক্ষা করে চলেছে।
  বিগত প্রায় এক বছর মহামারী করোনায় যখন জনজীবন বিপর্যস্থ, তখন বিআরডিবি এসব কর্মরত কর্মকর্তা-কর্মচারী নূন্যতম বেতন-ভাতা না দিয়ে অমানবিক নির্যাতনের মাধ্যমে তাদের দিয়ে মাঠে কাজ করাচ্ছে। এমন কি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক বিগত করোনার প্রথম ঢেউয়ে প্রদত্ত প্রণোদনার টাকা নিয়েও বিআরডিবি নয় ছয় করেছে। আর কয়েক দিন পরেই পবিত্র ঈদুল ফিতর। বিআরডিবি প্রকল্প/ কর্মসূচিভূক্ত প্রায় ৭সাত হাজার পরিবারে চলছে কান্নার রোল। একদিকে দীর্ঘদিনের বেতন-ভাতাহীন মানবেতর জীবন, তার উপর করোনাকালীন সাময়ে ঈদুল ফিতর।
  দেশ যখন মধ্যম আয়ের স্তর হতে উন্নয়নশীল রাষ্ট্রের স্তরে ধাবিত হচ্ছে। ঠিক তখনই যাদের দিনরাত পরিশ্রমে দারিদ্যের কষাঘাত মুক্ত বাংলাদেশ বিনির্মাণের শ্রমিক বিআরডিবির প্রকল্প /কর্মসূচিভুক্ত সাড়ে ৭হাজার পরিবার অমানবিক অত্যাচার সহ্য করে মাসের পর মাস অভুক্ত থেকে মানবেতর জীবন যাপন করছে। তারা এখন সম্পূর্ণ ভাবে পারিবারিক, সামাজিক, শারীরিক ও অর্থনৈতিকভাবে বিপর্যস্থ। এ অবস্থা চলতে থাকলে জতির জনকের হাতে গড়া প্রতিষ্ঠানটি অচিরেই অস্তিত্ব সংকটে পড়বে। আর এই নির্মমতা হতে উত্তোরনের একমাত্র পথবিশ^ মানবতার মা, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার ইতিবাচক কঠোর হস্তক্ষেপ। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বিশেষ করে এই পরিবারগুলো বাঁচাবেন কী ? লেখক ঃ আব্দুর রাজ্জাক রাজু, সাংগঠনিক সম্পাদক, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, রাজবাড়ী সদর, রাজবাড়ী। মোবাইলঃ ০১৭১২-৫৪৬১০৪।
 

কবি নির্মলেন্দু গুণ ঃ জন্মদিনে শুভেচ্ছা
বিআরডিবি’র সাড়ে ৭হাজার পরিবার অভূক্ত ঃ প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা
শুকরিয়া/না-শুকরিয়া
সর্বশেষ সংবাদ