ঢাকা বুধবার, অক্টোবর ২৭, ২০২১
কোরবানি নাকি লকডাউন? দারিদ্রতা কি বলে?
  • আরিফুর রহমান
  • ২০২১-০৭-১৫ ০০:৪৯:৪৪

প্রাণিসম্পদ বিভাগের তথ্য অনুযায়ী দেশে প্রায় এক কোটি পশু (বিশেষ করে গরু) কোরবানির জন্য খামারি/কৃষকরা উৎপাদন করেছেন।

  খামারিদের কথা বাদ দিলে আনুমানিক প্রায় ৮০ লাখ দরিদ্র পরিবার (প্রায় প্রতিটি পরিবারই একটি করে পশু কোরবানির জন্য লালন করে) এই কোরবানির পশু উৎপাদনের সঙ্গে জড়িত। সারাবছর কোরবানির কথা মাথায় রেখে পশু খামারিরা বা দরিদ্র কৃষকেরা এই এক কোটি পশু উৎপাদন করেছেন। 

  আসুন, খামারিদের কথা বাদ দিয়ে আমরা পশু উৎপাদনকারী ৮০ লাখ দরিদ্র মানুষের কথা মাথায় রেখে চিন্তা করি। ধরে নিই প্রতিটা কোরবানির পশুর গড় উৎপাদন ব্যয় ৬০ হাজার টাকা এবং একজন কৃষক ৫ হাজার টাকা লাভ করবে। তাহলে কোরবানি উপলক্ষে ৮০ লাখ পরিবার পাচ্ছে (৮০,০০,০০০ × ৬৫,০০০) টাকা অর্থাৎ ৫২ হাজার কোটি টাকা। যা বিত্তশালীদের পকেট থেকে দরিদ্র অসহায়দের পকেটে যাচ্ছে। 

  আবার এই এক কোটি পশুকে গ্রাম বা প্রান্তিক অঞ্চল থেকে বিভিন্ন শহরে এনে বিক্রি করার জন্য ব্যবসায়ী গ্রুপ তৈরি হবে; যাদেরকে আমরা বলি ব্যাপারী। তাদের সংখ্যাটি আনুমানিক ৭ বা ৮ লাখ হবে(ধরি প্রতিটা ব্যাপারী ১০-১৫টি গরুর ব্যবসা করবে)। ব্যাপারীরা যদি প্রতিটি পশু থেকে ১হাজার টাকাও লাভ করে তাও তাদের পকেটে যায় (১০০০০০০০ × ১০০০) টাকা অর্থাৎ ১হাজার কোটি টাকা। যা বিত্তশালীদের পকেট থেকে দরিদ্রদের পকেটে যাবে। 

  আবার এসব পশু পরিবহনের সঙ্গে যদি ১০ লাখ ট্রাক বা পিকআপ জড়িত থাকে, তাহলে একজন চালক আর একজন সহকারী মিলে প্রায় ২০ লাখ লোক জড়িত। তাদের প্রতিজনের পকেটে গড়ে ১৫০০ টাকা গেলেও মোট (২০০০০০০ × ১৫০০) টাকা অর্থাৎ ৩০০ কোটি টাকা। এই টাকাটিও বিত্তশালীদের পকেট থেকে দরিদ্রদের পকেটে যাবে। 

  এবার আসুন, এই ১ কোটি পশুর মধ্যে প্রায় ২০ লাখ পশু শহর এলাকায় কোরবানি হবে; যার জন্য ১জন কসাই লাগবে। একটি গরু কোরবানি করতে যদি ১জন কসাই ৫ হাজার টাকাও নেন তাহলে কসাইদের (দরিদ্রদের) পকেটে যাচ্ছে (২০০০০০০ × ৫০০০) টাকা অর্থাৎ ১হাজার কোটি টাকা। আর বাকি ৮০ লাখ গরু গ্রাম অঞ্চলে কোরবানি হলেও প্রতিটি গরুর পেছনে গড়ে ২জন করে শ্রমিক কাজ করবে। যার গড় মজুরি ১হাজার টাকা। তাহলে এই প্রান্তিক শ্রমিকদের পকেটে যাচ্ছে (১৬০০০০০০ × ১০০০) টাকা অর্থাৎ ১ হাজার ৬০০ কোটি টাকা। 

  এবার আসুন চামড়া নিয়ে কথা বলি। কোরবানি একটি ধমীয় বিষয় এবং সে রীতি অনুযায়ী চামড়া বিক্রির টাকাটি যায় গরীব-মিসকিনদের পকেটে। আরো সুনির্দিষ্ট করে বললে অনেক এতিমখানা বা লিল্লাহ বোর্ডিং চলে এই চামড়া বিক্রির টাকা দিয়ে। লকডাউনে আমি-আপনি বাসায় আছি, আরাম-আয়েশে খাচ্ছি। কিন্তু, এতিমখানার যে শিশুটির বাবা-মা নেই, কেউ তার দায়িত্ব নিতে নারাজ। তার তো এতিমখানা ছাড়া আর কোথাও যাবার জায়গা নেই। এই করোনার মধ্যেও সে এতিমখানাতেই আছে। আপনাদের সহযোগিতায় তার জীবন চলছে। এখন প্রতিটা পশুর চামড়ার দাম যদি আমি গড়ে ১হাজার টাকা ধরি। তাহলে এতিমখানা বা গরীব মিসকিনদের পকেটে যাচ্ছে (১০০০০০০০ × ১০০০) টাকা অর্থাৎ আরো ১হাজার কোটি টাকা। 

  আমরা যদি কোরবানি উপলক্ষে বিত্তশালীদের কাছ থেকে প্রান্তিক দরিদ্র খেটে খাওয়া অসহায় মানুষদের পকেটে যাওয়া টাকার মোট হিসেব করি তাহলে দাঁড়ায় ৫৬ হাজার ৯০০ কোটি টাকা। এই করোনাকালীন সময়ে এ এক অবিশ্বাস্য প্রণোদনা।

আর খামারিরা যে ২০ লাখ কোরবানির পশু পালনের সঙ্গে জড়িত তাদের পকেটে যাচ্ছে (২০০০০০০ × ৬৫০০০) টাকা অর্থাৎ ১৩ হাজার কোটি টাকা।

  কোরবানি উপলক্ষে আনুমানিক ৬৫ হাজার ৯০০ কোটি টাকা দেশের বিত্তশালীদের কাছে থেকে পশু উৎপাদন ও লালনকারী এবং পশুখাদ্য ব্যবসায়ীর কাছে যাবে।

  ভাবা যায়!! এই করোনাকালীন সময়ে দেশের বিত্তশালীদের কাছ থেকে এই টাকাটি দেশের প্রান্তিক জনগোষ্ঠিীর কাছে যাবে। সরকার প্রদত্ত প্রণোদনা বা আর্থিক সাহায্য নিয়ে এদিক সেদিক করার সুযোগ থাকলেও কোরবানি উপলক্ষে এই টাকা বিনা বাঁধায় চলে যাবে প্রান্তিক অসহায় ও জীবনযুদ্ধে অবতীর্ণ জনগোষ্ঠীর কাছে।

  কোরবানির ঈদ তথা পশুর হাট যথাযথভাবে গড়ে ওঠা এবং কোরবানির পশু স্থানান্তরে যাতে কোনরকম বিঘ্ন না ঘটে সেজন্য সরকার লকডাউন শিথিল করেছেন। এজন্য সরকার সাধুবাদ পাবার দাবি রাখে। এই লকডাউন শিথিলতায় শুধুমাত্র প্রান্তিক পশু উৎপাদনকারীদেরই উপকার হবে না, দেশের আরো অন্যান্য সেক্টরের দরিদ্র ও অসহায় মানুষেরও স্বস্থির সুযোগ হবে এবং গ্রামীণ অর্থনীতি চাঙ্গা হবে।

  ধর্মীয় দৃষ্টিকোণ থেকে কোরবানির প্রভাব অসীম। একজন অর্থনীতির ছাত্র হিসেবে যদি বলি, কোরবানি যেভাবে অর্থনীতিকে নাড়া দেয় তা এককথায় অবিশ্বাস্য। আর করোনাকালীন এই সময়ে তা এক অসীম নেয়ামত। কেননা, বিত্তশালীদের কাছে থেকে টাকা দরিদ্র জনগোষ্ঠীর কাছে স্থানান্তরের এক নির্মোহ প্রক্রিয়ার নাম কোরবানি।

  বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর ২০১৯ সালের তথ্য মতে দেশে দারিদ্র্যের হার ২০.৫% এবং হত দারিদ্রের হার ১০.৫%। এই দরিদ্র ২০.৫% লোকের শরীরে আমিষের ঘাটতি প্রবল। তাছাড়া হতদরিদ্র যে ১০.৫% পরিবার আছে; যারা গরুর গোস্ত খাওয়া বলতে শুধুমাত্র কোরবানির সময় মানুষের সাহায্য থেকে পাওয়া গোস্তটুকুই বোঝেন, তাদের কথাও আমাদের ভাবতে হবে। 

  আসুন আমরা স্বাস্থ্যবিধি মনে চলি। অসচেতনভাবে চলাফেলা করে নিজের বিপদ নিজে ডেকে না আনি। সকলকে ঈদের অগ্রিম শুভেচ্ছা। লেখক ঃ আরিফুর রহমান, সিনিয়র সহকারী সচিব, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার। এমএসএস(অর্থনীতি), ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।

সিডও সনদের পূর্ণ অনুমোদন ও অভিন্ন পারিবারিক আইন প্রণয়নের দাবি
সৈয়েদেনা হযরত ইমাম হোসাইন শহীদে কারবালা(আঃ) এঁর ১০ মহররম স্মরণে-
আমার চোখে আমার বাবা
সর্বশেষ সংবাদ