মিশরে জলবায়ু সম্মেলনের আলোচনায় মার্কিন প্রেসিডেন্ট বাইডেন উচ্চ প্রত্যাশার মুখোমুখি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক || ২০২২-১১-১২ ০০:১৭:০৬

image

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন গতকাল শুক্রবার মিশরে জাতিসংঘের জলবায়ু আলোচনা অংশ গ্রহণ করেছেন। 

  বৈশ্বিক উষ্ণায়নের বিরুদ্ধে বড় অভ্যন্তরীণ অর্জনের সাথে সশস্ত্র কিন্তু প্রাকৃতিক দুর্যোগের শিকার দেশগুলোর জন্য আরও কিছু করার চাপের মধ্যেতিনি এই সম্মেলনে অংশ নেন।

  বাইডেন মার্কিন মধ্যবর্তী নির্বাচনের তিন দিন পর শারম আল-শেখের লোহিত সাগরের রিসোর্টে কপ-২৭ জলবায়ু সম্মেলনে মাত্র কয়েক ঘন্টা সময় অবস্থান করবেন যা মার্কিন জলবায়ু নীতির ফলাফলের অর্থ কী হতে পারে তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

  মার্কিন নেতার জলবায়ু এজেন্ডাকে এই বছর একটি বড় উৎসাহ দেওয়া হয়েছিল যখন কংগ্রেস একটি যুগান্তকারী ব্যয় বিল, মুদ্রাস্ফীতি হ্রাস আইন পাস করেছিল। যার মধ্যে রয়েছে পরিচ্ছন্ন জ্বালানি এবং জলবায়ু উদ্যোগের জন্য ৩৬৯ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।

  কিন্তু কপ-২৭ উন্নয়নশীল দেশগুলোকে তাদের অর্থনীতিকে সবুজ করতে এবং ভবিষ্যতে জলবায়ু পরিবর্তনের ক্ষতিকর প্রভাবগুলোর জন্য প্রস্তুত করতে ধনী দেশগুলোকে সাহায্য বন্ধ করার প্রয়োজনীয়তার উপর আলোচনায় প্রাধান্য রয়েছে। একইসঙ্গে জলবায়ু পরিবর্তনের ক্ষতিকর প্রভাবে ইতোমধ্যেই যেসব দেশ ভয়াবহ ক্ষতির মুখোমুখি হয়েছে, তাদেরকে আর্থিক সহায়তা প্রদানের আহ্বান জানানো হয়েছে।

  উগান্ডার বিশিষ্ট জলবায়ু কর্মী ভ্যানেসা নাকাতে বলেছেন, ‘জলবায়ু ন্যায় বিচারের জন্য আমাদের লড়াইয়ে জলবায়ু নেতা হওয়ার জন্য বিশ্বের প্রয়োজন মার্কিন যুক্তরাষ্টকে’।

  ইউনিসেফের ২৫ বছর বয়সী শুভেচ্ছা দূত বলেছেন, ‘গ্রহের মানুষের এবং আগামী প্রজন্মের পাশে দাঁড়ানো প্রেসিডেন্ট বাইডেনের জন্য এটি একটি বার্তা।’

  অন্যান্য ১০০ জন বিশ্ব নেতা শীর্ষ সম্মেলনে ভাষণ দেওয়ার তিন দিন পর বাইডেন কপ-২৭-এ যোগ দিচ্ছেন।

  একজন ঊর্ধ্বতন মার্কিন কর্মকর্তা বলেছেন, বাইডেন ব্যয় বিলের পিছনে ‘ঐতিহাসিক মুহুতে’ এবং ২০০৫ থেকে ২০৩০ সালের মধ্যে গ্রিনহাউস গ্যাস নির্গমনকে ৫২ শতাংশ পর্যন্ত কমানোর লক্ষ্য নিয়ে মিশরে যাচ্ছেন ।

  এখন পর্যন্ত মিশর আলোচনায় মার্কিন জলবায়ু দূত জন কেরি কার্বন ক্রেডিট সিস্টেমের উপর ভিত্তি করে একটি পাবলিক-প্রাইভেট অংশীদারিত্ব উপস্থাপন করেছেন যার লক্ষ্য উন্নয়নশীল দেশগুলোতে নবায়নযোগ্য জ্বালানির রুপান্তরকে সমর্থন করা।

  বাইডেন চীনের সাথে সহযোগিতা পুনরুজ্জীবিত করার সুযোগ পেতে পারেন, যখন তিনি ইন্দোনেশিয়ায় আগামী সপ্তাহে অনুষ্ঠেয় জি-২০ গ্রুপের আলোচনার সময় শি জিনপিংয়ের সাথে দেখা করবে। অন্য একজন মার্কিন কর্মকর্তার সাথে বাইডেন বলেছেন, তিনি ‘জলবায়ু পরিবর্তনের বিষয়ে কীভাবে একসাথে কাজকে এগিয়ে নেওয়া’ নিয়ে আলোচনা করতে চাইবেন।

  মার্কিন হাউস স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি আগস্টে তাইওয়ান সফর করার পর বেইজিং ওয়াশিংটনের সাথে জলবাযু নিয়ে আলোচনা বন্ধ করে দেয়।

  বৈশ্বিক উষ্ণতা ১.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসে সীমাবদ্ধ রাখতে বিশ্বব্যাপী প্রচেষ্টার জন্য বিশ্বের দ’ুটি বৃহত্তম দূষণকারীর মধ্যে সহযোগিতা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ।

  কিন্তু রিপাবলিকানরা স্পষ্টতই প্রতিনিধি পরিষদের নিয়ন্ত্রণ নেয়ার কারণে বাইডেনের জলবায়ু আলোচনা ধাক্কা খেতে পারে। তবে ডেমোক্রেটদের সিনেট ধরে রাখার সুযোগ রয়েছে।

  বাইডেন প্রতি বছর ১০০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার প্রকল্পে ১১.৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলার অবদান রাখার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন যার মাধ্যমে ধনী দেশগুলো উন্নয়নশীলদের নবায়নযোগ্য জ্বালানি রুপান্তর করতে এবং জলবায়ু পরিবর্তনের বিরুদ্ধে সহনশীলতা তৈরি করতে সহায়তা করবে।

ঢাকা অফিস : ৩৪/১ ডি-২, হাটখোলা সড়ক (অভিসার সিনেমা হলের পিছনে), ঢাকা-১২০৩। ফোন অফিস : 0641-66666, বার্তা বিভাগ : 66333, রাজবাড়ী প্রেসক্লাব অফিস : 66660, বাসা : 65728, মোবাইল : 01713-489472, 01715-019375, 01715-621243, ই-মেইল : motin_rajbari@yahoo.com এবং matrikantha@gmail.com