ঢাকা মঙ্গলবার, জানুয়ারী ৩১, ২০২৩
কাতারের নিরাপত্তা ব্যবস্থায় খেলা দেখতে আসা সমর্থকরা অভিভূত
  • কাতারের দোহা থেকে তাইফুর রহমান
  • ২০২২-১২-০৬ ০০:১০:৩৮

আর্জেন্টিনা থেকে কলম্বিয়া, ইথিওপিয়া থেকে সৌদি আরব, বিশ্বকাপ ফুটবল খেলা দেখতে আসা নারী ভক্ত সমর্থকরা কাতারের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়ে খুবই সন্তুষ্টি প্রকাশ করছে। 
  ইউরোপ আমেরিকার মতো পশ্চিমা দেশ, যারা কাতারে বিশ্বকাপ আয়োজনে ঘোর বিরোধী ছিল, সেসব দেশের নারীরাও প্রশংসা করেছেন কাতারের নিরাপত্তা ব্যবস্থার।
  এলেস্তা নামে এক আর্জেন্টাইন সমর্থক বলেন, এখানে এসে আমার ভিন্ন কিছুর অভিজ্ঞতা হলো, আমি মাঝ রাতেও রাস্তা দিয়ে নির্বিঘ্নে হাঁটতে পারছি। যা আমি নিজ দেশে পারি না। কাতারে রাত ১০টায় অনেক ম্যাচ খেলা হচ্ছে। ফলের রাতে আমাকে বাইরে দিয়ে ঘুরতে হচ্ছে। এখানে নিরাপত্তা ব্যবস্থা খুবই চমৎকার এবং তারা খুব আন্তরিক। 
  স্পেন সমর্থক গঞ্জিলা বলেন, কাতারের একটি মাঠে আমি আমার হাতব্যাগ ফেলে আসি। রুমে এসে টের পাই আমার হাতব্যাগ হারিয়ে গিয়েছে। পরবর্তীতে আমি আমার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করে কাতারের পুলিশ হটলাইনে কল করি তারা আমাকে তিন ঘন্টার মদ্ধে ব্যক্তি খুঁজে বের করে দেয়। মজার ব্যাপার হচ্ছে কাতারে দর্শকরা যে সমস্ত এলাকায় ঘোরাফেরা করে তার সবটাতেই সিসি ক্যামেরা স্থাপন করা আছে, ফলে সিসি ক্যামেরার মাধ্যমে পুলিশ এটি আমাকে উদ্ধার করে দিয়েছে। আমি খুবই আনন্দিত, কেননা ব্যাগটিতে আমার পাসপোর্ট, টাকা-পয়সারসহ প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ছিলো। 
  মরক্কো সমর্থক ডালিয়া বলেন এখানকার পাবলিক প্লেসে অনেক পুরুষের আনাগোনা। তবে কেউ আমাদেরকে অসম্মান করেনি। এখানকার নিরাপত্তা ব্যবস্থা সব সময় খুব চমৎকার ছিল। কাতার বিশ্বকাপ আমার জন্য দারুণ একটি অভিজ্ঞতা। 
  আরব বিশ্বের প্রথমবারের মতো ফিফা বিশ্বকাপে কাতারে প্রায় ১৭ লাখের বেশি লোক নিয়ে আসা যাওয়া করছে। এখনো পর্যন্ত আইন-শৃঙ্খলা পরিবেশের কোনো ব্যত্যয় ঘটেনি। কাতার সরকার তার সবটা উজাড় করে দিয়ে কাজ করে যাচ্ছে।
  উল্লেখ্য, গত ২০শে নভেম্বর কাতারে শুরু হয়েছে ফিফা বিশ্বকাপ ফুটবল। কাতার বিশ্বকাপে ৮টি স্টেডিয়ামে খেলা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। আগামী ১৮ই ডিসেম্বর লুসাইল আইকনিক স্টেডিয়াম স্টেডিয়ামে ফাইনাল ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে। এ স্টেডিয়ামে দর্শক ধারণ ক্ষমতা ৮০ হাজার। এবারের বিশ্বকাপের সবচেয়ে বড় লুসাইল আইকনিক স্টেডিয়ামে বেশ কয়েকটি ম্যাচ ছাড়াও প্রথম সেমিফাইনাল অনুষ্ঠিত হবে। দোহার ১৫ কিলোমিটার উত্তরে দুই লাখ জনসংখ্যার পরিকল্পিত একটি শহর লুসাইল। বিশ্বকাপের পর এই স্টেডিয়ামটিকে সামাজিক বিভিন্ন কর্মকান্ডের বড় একটি স্থান হিসেবে পরিবর্তিত করার পরিকল্পনা রয়েছে। এ কারণে ৮০ হাজার ধারণক্ষমতা সম্পন্ন স্টেডিয়ামটির বেশীরভাগ আসন উঠিয়ে অন্যত্র দান করা হবে।

 

 রাজবাড়ী সদরে মাসব্যাপী বালক  অনুর্ধ্ব-১৫ ফুটবল প্রশিক্ষণ শুরু
৩৬বছর পর ফিফা বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনা
কাতারে একই দিনে ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার ম্যাচ॥দুঃসংবাদ দিল আবহাওয়া দপ্তর
সর্বশেষ সংবাদ