ঢাকা শনিবার, জুলাই ২০, ২০২৪
রাজবাড়ীতে তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন বিষয়ক প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত
  • আসহাবুল ইয়ামিন রয়েন
  • ২০২৪-০৬-২০ ১৫:৪৫:৩৫

রাজবাড়ী জেলা প্রশাসনের আয়োজনে ও জাতীয় তামাক সেলের সহযোগিতায় গতকাল ২০শে জুন সকালে কালেক্টরেটের সম্মেলন কক্ষে তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন বাস্তবায়নে কমিটির সদস্য ও কর্তৃত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন বিষয়ক প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

 জেলা প্রশাসক আবু কায়সার খানের সভাপতিত্বে এবং অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক(সার্বিক) সিদ্ধার্থ ভৌমিকের সঞ্চালনা ও কি-নোট পাওয়ার পয়েন্ট উপস্থাপনায় প্রশিক্ষণে প্রধান অতিথি হিসেবে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের যুগ্ম-সচিব রোকেয়া বেগম। 

 প্রশিক্ষণে বিশেষ অতিথি হিসেবে রাজবাড়ী পুলিশ সুপারের প্রতিনিধি অতিরিক্ত পুলিশ সুপার(ক্রাইম এন্ড অপস্) মুকিত সরকার, সিভিল সার্জন ডাঃ মোহাম্মদ ইব্রাহিম টিটন, প্রশিক্ষণের প্রধান বক্তা হিসেবে বাংলাদেশ ক্যান্সার সোসাইটির সভাপতি অধ্যাপক ডাঃ গোলাম মহিউদ্দিন ফারুক, জেলা শিশু বিষয়ক কর্মকর্তা আলীমুর রেজা, জেলা ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক কাজী রকিবুল হাসান, জেলা বিএমএ’র সাধারণ সম্পাদক ডাঃ আব্দুর রহিম বক্স, জেলা বার এসোসিয়েশনের সভাপতি এডঃ খন্দোকার হাবিবুর রহমান বাচ্চু, রাজবাড়ী প্রেসক্লাবের সভাপতি খান মোঃ জহুরুল হক, জেলা ক্যান্সার সোসাইটির সভাপতি এডঃ দেবাহুতী চক্রবর্তী, এনজিও রাসের নির্বাহী পরিচালক লুৎফর রহমান লাবু প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। 

 এ সময় জেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনারগণ, বিভিন্ন সরকারী দপ্তরের কর্মকর্তাগণ, জেলা তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন বাস্তবায়ন কমিটির সদস্যগণসহ সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত ছিলেন।

 প্রশিক্ষণের প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের যুগ্ম সচিব রোকেয়া বেগম বলেন, সরকার তামাক থেকে প্রস্তুতকৃত দ্রব্য নিয়ন্ত্রণের লক্ষ্য তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন প্রণয়ন করেছেন। আর এই আইন ও তামাক জাতীয় দ্রব্য ব্যবহারের ক্ষতিকারক দিক সম্পর্কে সকলকে সচেতন করা জন্য আজকে এই প্রশিক্ষণের আয়োজন করা হয়েছে। মূলত তামাক থেকে দেশের যে পরিমাণ রাজস্ব আয় হয়, তার থেকে সার্বিক দিক বিচারে আমাদের ক্ষতি হয় অনেক বেশী। বিশেষ করে তামাক জাতীয় দ্রব্য ব্যবহারের ফলে আমাদের বিভিন্ন জটিল রোগে আক্রান্ত হয়ে যে পরিমাণ আর্থিক ক্ষতি হয় সেটা কল্পনাতীত। এই তামাক দ্রব্যের ব্যবহার শূন্যের কোঠায় নামিয়ে আনতে সরকারের পাশাপাশি আমাদের সকলকে একসাথে কাজ করতে হবে। যার আওতায় আমরা যারা জেলা তামাক নিয়ন্ত্রণ কমিটির সদস্য আছি তাদের প্রত্যেকে তামাক জাতীয় দ্রব্য নিয়ন্ত্রণে সু-নিদিষ্ট দায়িত্ব পালন করাসহ জেলা প্রশাসনকে নিয়মিত মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা ও যার যার প্রতিষ্ঠানে তামাক জাতীয় দ্রব্যের ব্যবহার না করার উপর বিশেষ নির্দেশনা প্রদান করতে হবে। প্রয়োজনে আমাদের গ্রাম অঞ্চলে সংস্থার উঠান বৈঠকে তামাক জাতীয় দ্রব্য ব্যবহারের ক্ষতিকার দিকগুলো তুলে ধারার মাধ্যমে প্রত্যেককে ধোয়াহীন তামাক ব্যবহার না করা সম্পর্কে সচেতন করতে হবে। তবে হয়ত ২০৪০ সালের মধ্যে আমরা বাংলাদেশ থেকে পুরাপুরি তামাক নির্মূল করতে সক্ষম হব বলে তিনি উল্লেখ করেন।

 সভাপতির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক আবু কায়সার খান বলেন, আমাদের দেশে তামাক জাতীয় দ্রব্যের ব্যবহার নিষিদ্ধ না বলে এর নিয়ন্ত্রণ করা বা এর থেকে জনগণকে দূরে রাখা একটি চ্যালেঞ্জিং ব্যাপার। আমাদের দেশের গ্রাম অঞ্চলের মহিলারা মনে করে ধুমপান ক্ষতিকর। কিন্তু তারা পানের সাথে যে তামাক পাতা, জদ্দা বা গুল খায় সেটা বেশী ক্ষতিকারক নয়। তাদের ধারণাটা পুরাপুরি ভূল। মূলত তারা যে তামাক পাতা, জদ্দা ও গুল খায় সেটি আরো বেশী ক্ষতিকর। মূলত তামাক থেকে যা তৈরী হয় সেগুলো সবই শরীরের জন্য ক্ষতিকর। আর সেই কারণে আমাদের তামাক থেকে তৈরী সবকিছু পরিহার করা উচিত। 

 তিনি তার বক্তব্যে আরো বলেন, বর্তমানে আমাদের দেশে দেখা যায় স্কুল পড়ুয়া শিক্ষার্থীর ধুমপান করে। আর এই ধুমপান নেশা থেকে পরবর্তীতে তারা মাদকাশক্ত হয়ে পড়ে। যা আমাদেও জন্য খুবই চিন্তার বিষয়। আর এর জন্য দায়ী আমাদের দেশের সিগারেট কোম্পনীগুলো ও এক শ্রেণীর তামাক উৎপাদনকারীরা। যারা তামাক উৎপাদনের ক্ষেত্রে বড় কৃষকদের অগ্রীম অর্থ প্রদান করে। যাতে কৃষকেরা তামাক চাষ করে। এক্ষেত্রে কৃষকরাও অগ্রীম অর্থ পাওয়ায় লাভবান হওয়ায় ও ফসল উৎপাদনে কোন ঝুঁকি না থাকায় তামাক উৎপাদনে বেশী আগ্রহী হয়। আমাদের কৃষি বিভাগসহ সকলের উচিত কৃষকরা যাতে তামাক উৎপাদন না করে সেই লক্ষ্যে কৃষকদের তামাকের ক্ষতিকারক দিক সম্পর্কে ভালোভাবে অবহিত করা। যা আমাদের তামাক নিয়ন্ত্রণে অনেক বেশী সহায়ক হবে। আর সেই সাথে সচেতনতা সৃষ্টি, আইনের প্রয়োগসহ তামাকের ক্ষতিকর দিক সম্পর্কে সকলকে জানানোর মাধ্যমে যদি এর ব্যবহার ধীরে ধীরে কমিয়ে আনা যায় তবেই আমরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী ২০৪০ সালের মধ্যে তামাকমুক্ত বাংলাদেশ ও ২০৪১ সালের মধ্যে স্মার্ট উন্নত বাংলাদেশ গড়ার মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে তুলতে পাড়ব।

 এছাড়াও তিনি তার বক্তব্যে রাজবাড়ীতে চলমান তামাক বিরোধী অভিযানের পাশাপাশি জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে কি কি কার্যক্রম করা হয়েছে সেই সকল বিভিন্ন বিষয় তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন।

 বক্তব্য পর্ব শেষে প্রশিক্ষণে অংশগ্রহণকারীগণ তামাক নিয়ন্ত্রণ আইনের, তামাক জাতীয় দ্রব্য ব্যবহারের ক্ষতিকারক দিক সম্পর্কে জণসচেতনা সৃষ্টি, তামাক জাতীয় পন্যে উৎপাদন কমিয়ে আনাসহ তামাক জাতীয় পন্যের বিজ্ঞাপন বন্ধে করনীয় বিভিন্ন বিষয়ে তাদের মতামত তুলে ধরেন।

 
 রাজবাড়ীতে পবিত্র আশুরা উপলক্ষ্যে আঞ্জুমান-ই-কাদেরীয়ার শোক মিছিল
রাজবাড়ীতে বিএনপি কার্যালয়ে কোটা সংস্কার আন্দোলনে সহিংসতায় নিহত শিক্ষার্থীদের গায়েবী জানাযা অনুষ্ঠিত
রাজবাড়ীতে ছাত্রদলের মিছিলে পুলিশের বাঁধা
সর্বশেষ সংবাদ