ঢাকা মঙ্গলবার, মে ১৮, ২০২১
গোয়ালন্দে ওসির হস্তক্ষেপে তালাবদ্ধ নিজ ঘরে প্রবেশ করলো সেই গৃহবধু
  • মইনুল হক মৃধা
  • ২০২১-০৪-১১ ০১:০৪:১১
গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি আব্দুল্লাহ আল তায়াবীর গতকাল শনিবার দুপুরে দৌলতদিয়া হোসেন মন্ডল পাড়ায় গিয়ে নির্যাতিত গৃহবধু শাবনুরকে তার ঘরে ঢুকতে সহায়তা করেন -মাতৃকণ্ঠ।

“৭দিন ধরে ঘরে তালা দিয়ে প্রবেশ বন্ধ॥গোয়ালন্দ ঘাট থানায় অভিযোগ॥দৌলতদিয়ায় এক গৃহবধুর সঞ্চিত টাকা হাতিয়ে নিয়ে স্বামী ও শ্বাশুড়ী কর্তৃক তাড়ানোর পাঁয়তারা” শিরোনামে গতকাল ১০ই এপ্রিল রাজবাড়ীর বহুল পরিচিত দৈনিক মাতৃকণ্ঠে সচিত্র সংবাদ প্রকাশিত হয়। এরপর তোলপার শুরু হয় সর্বত্র।

  প্রকাশিত সংবাদের পর গতকাল শনিবার দুপুর ২টার দিকে গোয়ালন্দ ঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) আব্দুল্লাহ আল তায়াবীর ঘটনাস্থল গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া হোসেন মন্ডল পাড়ায় গিয়ে ওই নির্যাতিত গৃহবধু শাবনুর (২১)কে তার ঘরে ঢুকতে সহায়তা করেন। ৮দিন আগে তাকে তাকে ঘর থেকে বের করে বাইরে তালা লাগিয়ে দেয় স্বামী-শ্বাশুড়ীসহ বাড়ির কয়েকজন।

  এ সময় দৌলতদিয়া মডেল হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক মুহম্মদ সহিদুল ইসলাম, থানার এসআই মুরাদ হোসেনসহ সাংবাদিক ও এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন। সবার উপস্থিতিতে গৃহবধুর শ্বাশুড়ি মোমেনা বেগম নিজ হাতে ঘরের তালা খুলে দিয়ে পুত্রবধু শাবনুরকে তার ঘরে ঢুকতে দেন। তবে গৃহবধুর স্বামী মিন্টু ফকির(২৭) পুলিশ আসার খবরে পালিয়ে যান।

  এ সময় মিন্টুর স্ত্রী শাবনুর জানায়, তার বাবার বাড়ি ঝিনাইদহ জেলায়। বিগত ৬ বছর আগে সে পাচারকারী চক্রের খপ্পরে পড়ে দৌলতদিয়া যৌনপল্লীতে আসে। তারপর হতেই মিন্টুর সাথে তার সম্পর্ক গড়ে ওঠে। দিনের পর দিন মিন্টু তার সাথে মেলামেশা করতে থাকে। গত বছরের জুন মাসে তাদের বিয়ে হয়। এর আগে মিন্টু বিগত ৫বছরে তার স্ত্রীর কাছ থেকে অন্তত ২৫ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়ে নিজের বাড়ি ঘর ও অন্যান্য সম্পদ করে। সম্প্রতি ঠুনকো অভিযোগে মিন্টু তাকে গোপনে এক তরফা ভাবে কথিত তালাক দিয়ে তার ঘরে তালা ঝুলিয়ে দেয়। 

  গৃহবধু আরো জানায়, মিন্টু আমাকে বিয়ে করে বাড়ীতে নিয়ে যাবার কথা বলে টানা ৫বছর আমার কাছ থেকে সব ধরনের সুযোগ সুবিধা নিয়েছে। আমিও সরল বিশ্বাসে একটা সংসার পাবার আশায় তার জন্য সবকিছু করি। জীবনের সমস্ত সঞ্চয় অন্তত ২৫ লাখ টাকা ধাপে ধাপে তার হাতে তুলে দেই। সে আমার টাকায় তাদের নিচু খাল ভরাট করে এবং সেখানে পাকা করে ঘর তুলে। এরপর সে আমাকে পতিতালয় থেকে গ্রামে নিয়ে এসে সমাজের মাতব্বরদের উপস্থিতিতে বিয়ে করে। প্রায় দেড় বছর সংসার করার পর সে গর্ভবতী হলে বাচ্চা ডেলিভারী করাতে মায়ের বাড়ীতে যান। সেখানে আদ্বীন ক্লিনিকে তার পেট থেকে মৃত বাচ্চা ডেলিভারী হয়। সে সময় তার কোন খোঁজ খবর নেয়নি স্বামী মিন্টু ফকির ও তার পরিবারের অন্য কেউ। এক মাস মায়ের বাড়ী থাকার পর সে গত ২রা এপ্রিল তার স্বামীর কাছে চলে আসে। বাড়ীতে আসার পর মিন্টু ২দিন তার সাথে থাকার পর বলে আমি তোমার তালাক দিয়েছি এই বাড়ীতে তুমি থাকতে পারবে না এই বলে ঘর থেকে ঘাড় ধাক্কা দিয়ে বের করে দিয়ে ঘরে তালা ঝুলিয়ে দেয়।

  এলাকার কয়েকজন প্রতিবেশী বলেন, তারা জীবন ভরে খেটে একটি ঘর তুলতে পারেন না। অথচ মিন্টু কিছু দিনের মধ্যে গর্ত ভরাট করে পাকা ঘর বাড়ী করেছে ভেকু কিনেছে। ওর বাপ কয়েক বছর আগে টাকার অভাবে বিনা চিকিৎসায় মারা গেছে। এখন তাদের খুব ভালো অবস্থা। সামান্য দর্জির কাজ করে এটা সম্ভব না। মিন্টু যা কিছু করেছে ওর বউয়ের টাকায়। 

  এ প্রসঙ্গে গোয়ালন্দ ঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল্লাহ আল তায়াবীর জানান, নির্যাতিত গৃহবধু থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। তাছাড়া দৈনিক মাতৃকণ্ঠসহ কয়েকটি পত্রিকার সংবাদ পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নজরে আসলে তারাও এ বিষয়ে  প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য আমাকে নির্দেশ দেন।

  তিনি আরো বলেন, এভাবে একটা অসহায় মেয়েকে কথিত তালাকের নামে বাড়ির বাইরে বের করে দেয়া যায় না। এটা অন্যায় ও অমানবিক। থানা পুলিশ মেয়েটির পাশে আছে। আমার উপস্থিতির খবরে মেয়েটির স্বামী মিন্টু ফকির পালিয়ে যায়। তবে তার শ্বাশুড়ী পুত্রবধুকে মেনে নিয়ে স্বাভাবিকভাবে সংসার করার বিষয়ে আমাকে আশ্বস্ত করেছেন।

গোয়ালন্দে নিজ গৃহে ওড়না পেঁচিয়ে গৃহবধুর আত্মহত্যা
পাংশা পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর বাদশা মন্ডলের বাড়ীতে প্রতিপক্ষের তান্ডব
পাংশায় ‘ঢেঁকিপাড়ার কানন’ কাব্যগ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন
সর্বশেষ সংবাদ