ঢাকা মঙ্গলবার, জুলাই ২৩, ২০২৪
রাজবাড়ী সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ে বার্ষিক সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ
  • মীর সামসুজ্জামান
  • ২০২৪-০২-১২ ১৪:১৪:৩২

 রাজবাড়ী সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ে গতকাল ১২ই ফেব্রুয়ারী সকালে বার্ষিক সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে।

 রাজবাড়ীর জেলা প্রশাসক ও স্কুল পরিচালনা কমিটির সভাপতি আবু কায়সার খানের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য এবং তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রনালয়ের স্থায়ী কমিটির সভাপতি আলহাজ্ব কাজী কেরামত আলী বক্তব্য রাখেন।

 অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে পুলিশ সুপার জি.এম.আবুল কালাম আজাদ, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি হেদায়েত আলী সোহরাব বক্তব্য রাখেন। 

 বিদ্যালয়ের সিনিয়র শিক্ষক পদ্যুৎ কুমার দাসের সঞ্চালনায় স্বাগত বক্তা হিসেবে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ আজিজুর রহমান বক্তব্য রাখেন। এ সময় আমন্ত্রিত অতিথিগণ, অভিভাবকগণসহ বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীগণ উপস্থিত ছিলেন।

 প্রধান অতিথির বক্তব্যে রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব কাজী কেরামত আলী বলেন, রাজবাড়ী সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র হিসেবে তোমাদের প্রত্যেকের গর্ব করা উচিত। কারণ তোমরা রাজবাড়ীর সবচেয়ে ভালো স্কুলে লেখাপড়া করো। তাই তোমাদের কাছে আমাদের আশা ও প্রত্যাশা তোমরা ভালো রেজাল্ট করে স্কুলের আরও সুনাম বৃদ্ধি করবে ও বাবা মায়ের মুখ উজ্জ্বল করবে। আমাদের দেশে কারিগরি শিক্ষার অনেক প্রয়োজন। দেশের বাইরে সব কারিগরি শিক্ষার ওপর নির্ভরশীল। এখন সরকার নতুন কারিকুলামে কারিগরি শিক্ষার ওপর বেশি গুরুত্ব দিচ্ছে। বিশ্বের অন্যান্য দেশকে ফলো করেই আমরা নতুন কারিকুলাম প্রণয়ন করে এগিয়ে যাচ্ছি। জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ যেভাবে এগিয়ে যাচ্ছে বিশ্বের মধ্যে একটা রোল মডেল। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। আরও এগিয়ে যাবে। তোমরা আগামী দিনের ভবিষ্যত। তোমাদের জন্য আমাদের দোয়া রইলো। ভালো পড়াশোনা করে কেউ ডাক্তার হবে কেউ ইঞ্জিনিয়ার হবে এই স্বপ্ন তোমাদের মধ্যে থাকতে হবে। তবে সবার আগে তোমাদের মন দিয়ে পড়াশোনা করতে হবে। পাশাপাশি খেলাধুলা, সাংস্কৃতিক চর্চা অব্যাহত রাখতে হবে বলে তিনি শিক্ষার্থীদের পরামর্শ প্রদান করেন।

 সভাপতির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক আবু কায়সার খান বলেন, প্রধানমন্ত্রী ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে স্মার্ট বাংলাদেশ হিসেবে গড়ে তোলার রোড ম্যাপ দিয়েছেন। সেই রোড ম্যাপকে বাস্তবায়ন করতে হলে আমাদের দেহ মনে স্মার্ট হতে হবে। আমাদের লেখাপড়ার পাশাপশি খেলাধুলা ও সাংস্কৃতিক চর্চাও করতে হবে। এর মধ্য দিয়েই আমরা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু স্বপ্নের সোনার বাংলা নির্মাণ করতে পারবো ও ২০৪১ সালের মধ্যে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত স্মার্ট বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করতে পারবো। আমি আশা করি তোমরা আমাদের ভবিষ্যত প্রজন্ম ২০৪১ সালের সেই স্মার্ট বাংলাদেশের স্মার্ট নাগরিক হিসেবে নিজেদের প্রতিষ্ঠিত করবা।

 সভাপতির বক্তব্য শেষে বিদ্যালয়ের সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার তুলে দেন অতিথিরা। শেষে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের পরিবেশনায় মনোঙ্গ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠিত হয়।

 
 রাজবাড়ীতে পবিত্র আশুরা উপলক্ষ্যে আঞ্জুমান-ই-কাদেরীয়ার শোক মিছিল
রাজবাড়ীতে বিএনপি কার্যালয়ে কোটা সংস্কার আন্দোলনে সহিংসতায় নিহত শিক্ষার্থীদের গায়েবী জানাযা অনুষ্ঠিত
রাজবাড়ীতে ছাত্রদলের মিছিলে পুলিশের বাঁধা
সর্বশেষ সংবাদ