ঢাকা মঙ্গলবার, মে ২৮, ২০২৪
ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারং শিক্ষাকে বিএসসি সমমান মর্যাদার দাবীতে রাজবাড়ীতে সংবাদ সম্মেলন
  • স্টাফ রিপোর্টার
  • ২০২৪-০৫-১৪ ১৬:২৪:৫২

কারিগরি শিক্ষাকে মর্যাদা প্রদান ও সমাজের গ্রহণযোগ্যতা বৃদ্ধির প্রয়াসে শিক্ষা মন্ত্রণালয় ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারং শিক্ষাকে বিএসসি(পাস) সমমান মর্যাদা প্রদানের উদ্যোগ গ্রহণের প্রেক্ষিতে ডিগ্রি ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনের যুক্তিহীন বিরোধিতা ও বিদ্বেষী কার্যক্রমের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেছে ইনস্টিটিউশন অব ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স, বাংলাদেশ(আইডিইবি) রাজবাড়ী জেলা শাখা।

 গতকাল ১৩ই মে বিকালে রাজবাড়ী শহরের অনুপম পৌর সুপার মার্কেটের ২য় তলায় আইডিইবির জেলা কার্যালয়ে এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

 সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে আইডিইবির জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক আব্দুল লতিফ বলেন, চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের প্রযুক্তিগত ও বৈশ্বিক কর্মবাজারে চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় দক্ষ মানবসম্পদ উন্নয়নে সরকার কারিগরি ও বৃত্তিমূলক শিক্ষায় ভর্তির হার ২০৩০ সালে ৩০% ও ২০৪০ সালের মধ্যে ৫০-৬০% এ উন্নীত করার পরিকল্পনা নিয়েছে। এই উদ্যোগ বাস্তবায়নে কারিগরি ও বৃত্তিমূলক শিক্ষাকে শিক্ষার মূলস্রোতধারায় নিয়ে আসার ঘোষণা দিয়ে ৬ষ্ঠ থেকে ৮ম শ্রেণী পর্যন্ত ১০০ নম্বরের একটি করে কারিগরি বিষয় বাধ্যতামূলক করে শিক্ষা দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। অন্যদিকে সকল মাধ্যমিক ও দাখিল মাদ্রাসায় ৯ম-১০ম শ্রেণীতে ন্যূনতম ২টি করে টেকনোলজিতে এসএসসি(ভোক) কোর্স চালু করার সিদ্ধান্ত নিয়ে কারিগরি শিক্ষক নিয়োগ দেয়ার উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন। এছাড়া ইতিমধ্যে পুরাতন ৬৪টি টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজের সাথে যুক্ত হয়েছে ১০০টি নতুন টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজ চালু করেছে। অবশিষ্ট ৩২৯টি উপজেলায় ৩২৯টি টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজ স্থাপনের জন্য ২০ হাজার ৫শত কোটি টাকার দ্বিতীয় বৃহত্তম মেগাপ্রকল্প গ্রহণ করে কাজ শুরু করেছে।

 লিখিত বক্তব্যে আরো বলা হয়, সভ্যতার ক্রমবিবর্তনে বিজ্ঞান-প্রযুক্তি নির্ভর কারিগরি শিক্ষা ও পেশা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে এ কথা সকলেই জানেন। স্বাধীনতা উত্তর বিগত ৫৩ বছরে বাংলাদেশের যে অগ্রগতি ও জীবনমানে পরিবর্তন রয়েছে, সেখানে কারিগরি শিক্ষা সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গের অবদান গুরুত্বপূর্ণ। এই কারিগরি শিক্ষা সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গ প্রকৌশল কর্মক্ষেত্রে ডেস্ক ও ফিল্ড ইঞ্জিনিয়ারিং-এ কাজ করে থাকেন। যেখানে ডিজাইন, প্ল্যানিং, গবেষণায় ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে বিএসসি ইঞ্জিনিয়াররা ডেস্কে এবং এক্সিকিউশন, সুপারভিশন , অপারেশন, পরিচালক ও মেইনটেন্যান্স কাজে ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারগণ কাজ করে যাচ্ছেন। দেশের ইঞ্জিনিয়ারিং কর্মকান্ডের ৮৫% কাজ এদেশের ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারগণ করে থাকেন। যা  মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা একাধিকবার বলেছেন।

 বিএসসি ইঞ্জিনিয়ারগণ উচ্চ মাধ্যমিক উত্তীর্ণের পর ৪বছর মেয়াদী বিএসসি ইন ইঞ্জিনিয়ারিং এবং মাধ্যমিক উত্তীর্ণের পর ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারগণ ৪বছর মেয়াদী ডিপ্লোমা ইন ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্স সম্পন্ন করেন। এক্ষেত্রে সাধারণ শিক্ষার একাডেমিক পার্থক্য মাত্র ২বছর। দেশের বিভিন্ন শিক্ষা কমিশন ও শিক্ষানীতি প্রণয়ন কমিটি বিএসসি ইঞ্জিনিয়ারিং ও ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং উভয় শিক্ষাকে উচ্চ শিক্ষাভূক্ত বা টারশিয়ারী শিক্ষা হিসেবে গণ্য করেছেন। বিএসসি ইঞ্জিনিয়ার ও ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার উভয়ই ইঞ্জিনিয়ার, যা রাষ্ট্রীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত।

 ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারগণ বিএসসি(পাস) সমমান মর্যাদা পাওয়ার যোগ্যতা যৌক্তিকভাবেই রাখেন। কেননা, বিএসসি(পাস) কোর্সের গণিত, পদার্থ ও রসায়ন বিষয়গুলো ইঞ্জিনিয়ারিং শিক্ষা কোর্সে বিদ্যমান এবং অন্যান্য বিষয়গুলোর সাথে ইন্টার লিংক রয়েছে। এছাড়া বিএসসি (পাস) কোর্সের মোট কন্ট্রাক আওয়ার ও মোট ক্রেডিট আওয়ার এর তুলনায় ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্সের মোট ক্রেডিট ও মোট কন্ট্রাক্ট আওয়ার বেশী।

 বাংলাদেশে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্সটি এসএসসি পাস শিক্ষার্থীদের জন্য ৪বছর অর্থ্যাৎ ৮ সেমিস্টার, এইচএসসি (বিজ্ঞান) শিক্ষার্থীদের জন্য ৩বছর বা ৬ সেমিস্টার এবং এইচএসসি ভোকেশনাল শিক্ষার্থীদের জন্য ২বছর ৬মাস বা  ৫ সেমিস্টার। এই প্রোগ্রামে ন্যূনতম স্কুলিং ১৪ বছর। এইচএসসি ভোকেশনাল শিক্ষার্থীদের স্কুলিং ১৪ বছর ৬ মাস এবং এইচএসসি(বিজ্ঞান) শিক্ষার্থীদের জন্য ১৫ বছর। আন্তর্জাতিকভাবে বিভিন্ন দেশে ডিগ্রি প্রোগ্রামের ইয়ার অব স্কুলিং সর্বনিম্ন ১৪ বছর। ফাস্ট ট্রাক ডিগ্রি। পৃথিবীর অনেক দেশেই ডিগ্রি অর্জনের জন্য ১৪বছর স্কুলিং বিদ্যমান। তাই সকল দিক বিবেচনায় বিশেষ করে একাডেমিক বিষয় বিবেচনায় ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারদের বিএসসি (পাস) কোর্সের সমমান মর্যাদা প্রদানে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগ সময়োপযোগী। এক্ষেত্রে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং পাসের পর কোন অভিজ্ঞতার প্রয়োজন নেই বলে দেশের শিক্ষা সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞগণ মনে করে।

 ডিপ্লোমা  ইঞ্জিনিয়ারদের বিএসসি (পাস) সমমানের মর্যাদা প্রদান করা হলে আরও ভালো পেশাদার সুযোগে রূপান্তরিত হবে। আরও অন্তর্ভূক্তিমূলক পরিবেশ গড়ে তোলা সম্ভব হবে, যেখানে প্রতিটি গ্রেডে জ্ঞান ও দক্ষতা মূল্যবান হবে। এই সমতা আমাদের ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারদের জন্য জ্ঞানের অসংখ্য দরজা খুলে দেবে। 

 লিখিত বক্তব্যে আইডিইবির সাধারণ সম্পাদক আরো বলেন, ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার উপ-সহকারী প্রকৌশলী ও সমমানের পদে কর্মরত ডিপ্লোমা প্রকৌশলীদের পদোন্নতির কোটা ৩৩% হতে ৫০% এ উন্নীতকরণ করতে হবে এবং বাংলাদেশ ন্যাশনাল বিল্ডিং কোড (বিএনবিসি) ২০২০-এ সংযোজিত জনস্বার্থ পরিপন্থী ও ডিপ্লোমা প্রকৌশলীদের অবমূল্যায়নকর ধারা উপধারাসমূহ সংশোধনপূর্বক চুড়ান্ত করে গেজেট প্রকাশিত হয় নাই। উপরন্ত, ঢাকা মহানগর ইমারত নির্মাণ বিধিমালা ২০২৪ এ ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারদের অধিকার চরমভাবে ক্ষুন্ন করা অপকৌশল নিয়েছে।

 দেশের পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট, টিএসসি, টিটিসিতে চরম শিক্ষক সংকট ল্যাব ও ওয়ার্কশপ সংকট নিরসন করা হয়নি। অন্যদিকে মাধ্যমিক স্কুল পর্যায়ে প্রায় ২হাজার ২শত স্কুলে চালু এসএসসি(ভোক) এ কর্মরত প্রায় ১৫হাজার ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার শিক্ষকদের পদোন্নতিসহ বিরাজিত সমস্যারও কোন সমাধান হয় নাই।

 কারিগরি ও বৃত্তিমূলক এ শিক্ষাকে জনপ্রিয় করার স্বার্থে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারদের মান ও মর্যাদা বৃদ্ধির লক্ষ্যে বিএসসি (পাস) কোর্সের সমমান মর্যাদা প্রদানে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগ অবিলম্বে বাস্তবায়ন করতে হবে।

 জাতীয় মেধার অপচয় রোধ ও প্রশাসনে শ্রেণী স্বার্থ দ্বন্দ্ব নিরসনে এবং রাষ্ট্রের অর্থ অপচয় রোধে প্রশাসনিক ক্যাডারে বিএসসি ইঞ্জিনিয়ারিং সনদধারীদের প্রবেশরোধে পেশা পরিবর্তনের আত্মঘাতি সিদ্ধান্ত রাষ্ট্রীয় আইনি কাঠামোর মাধ্যমে বন্ধ করতে হবে।

 প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুত ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারদের পদোন্নতি কোটা ৫০% এ উন্নীতকরণ, ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারদের প্রাথমিক নিযুক্তিতে অন্যান্য পেশাজীবীদের ন্যায় একটি স্পেশাল ইনক্রিমেন্ট এবং পরিকল্পনা ও নকশা বিভাগে কর্মরত ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার উপসহকারী প্রকৌশলীদেরকে সহকারী প্রকৌশলীদের ন্যায় ৩টি স্পেশাল ইনক্রিমেন্ট প্রদান এবং ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং উত্তীর্ণদের ক্রেডিট ভয়েভার দিয়ে ২বছরে ডিগ্রি ইঞ্জিনিয়ারিং সম্পন্ন করার সুযোগ প্রদানসহ ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং ছাত্র শিক্ষক পেশাজীবী সংগ্রাম পরিষদের ৪ দফা দাবী অবিলম্বে বাস্তবায়ন করতে হবে।

 উল্লেখিত এসব দাবী বাস্তবায়নের উদ্দেশ্যে আইডিবির পক্ষ থেকে সারাদেশে মাসব্যাপী কর্মসূচী ঘোষণা করা হয়েছে। কর্মসূচীগুলো আগামী ১২ থেকে ১৮ই মে পর্যন্ত আইডিইবি জেলা নির্বাহী কমিটির উদ্যোগে সকল পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের বাংলাদেশ কারিগরি ছাত্র পরিষদ বাংলাদেশ পলিটেকনিক শিক্ষক সমিতি, পেশাজীবী অন্যান্য সংগঠন, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ও সাংবাদিক সংগঠনসহ সমাজের গণ্যমান্য ব্যক্তিবের্গর সাথে মতবিনিময় ও জনগণকে  অবহতিকরণ।

 আগামী ১৯ থেকে ২৩শে মে জেলার সকল ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স সার্ভিস এসোসিয়েশনের উদ্যোগে স্ব স্ব প্রধান দপ্তরে প্রতিবাদ সভা ও শিক্ষামন্ত্রী সমীপে স্মারকলিপি প্রদান ও ২৯ মে জেলা শাখার উদ্যোগে ছাত্র শিক্ষক ও ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারদের সমন্বয়ে প্রতিবাদ সভা  এবং সভা শেষে বিক্ষোভ মিছিল ও জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে শিক্ষামন্ত্রী সমীপে স্মারকলিপি প্রদান করা হবে। 

 সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে আইডিইবির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সহ-সভাপতি কে এম আমিনুল ইসলাম ও রাজবাড়ী জেলা শাখার সভাপতি মোঃ মেহেদী মিল্লাত বক্তব্য রাখেন।

 এ সময় আইডিইবির জেলা শাখার সহ-সভাপতি নব কুমার দত্ত, আব্দুল্লাহ আল মামুন, অর্থ সম্পাদক মোঃ রায়হান উদ্দিন ও চাকুরী বিষয়ক সম্পাদক এস এম আল মাসুদসহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন।

 
ঘূর্ণিঝড় রিমালের প্রভাবে দৌলতদিয়ায় পানিতে ডুবে গেছে পন্টুন॥মহাসড়কে ট্রাকের দীর্ঘ লাইন
বালিয়াকান্দির সাংবাদিক রঘুনন্দন সিকদারের ৪র্থ মৃত্যু বার্ষিকী আজ
পাংশায় আনসার-ভিডিপি উন্নয়ন ব্যাংকে শ্রেণীকৃত ঋণ আদায় ক্যাম্প অনুষ্ঠিত
সর্বশেষ সংবাদ