ঢাকা মঙ্গলবার, জানুয়ারী ২৬, ২০২১
রাজবাড়ীর বসন্তপুর রেলওয়ে স্টেশনে যাওয়ার প্রধান রাস্তা দখল করে ব্যবসায়ীক কার্যক্রম॥দুর্ভোগে যাত্রীরা
  • আশিকুর রহমান
  • ২০২১-০১-১৪ ০১:৩১:৫৭
রাজবাড়ী সদর উপজেলার বসন্তপুর রেলওয়ে স্টেশনে যাওয়ার প্রধান রাস্তাটি দখল করে ব্যবসা পরিচালনা করায় ট্রেনের যাত্রীদের স্টেশনে পৌঁছাতে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে -মাতৃকণ্ঠ।

রাজবাড়ী সদর উপজেলার বসন্তপুর রেলওয়ে স্টেশনে যাওয়ার প্রধান রাস্তাটি দখল করে ব্যবসায়ীক কার্যক্রম পরিচালনা করছে আজিম শেখ ও উজ্জ্বল শেখ নামে দুই ব্যক্তি। এতে ট্রেনের যাত্রীদের স্টেশনে পৌঁছাতে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

  জানা গেছে, বসন্তপুর ইউনিয়নের বড় ভবানীপুর গ্রামের আজিম শেখ ও উজ্জল শেখ ফার্নিচার, প্লাস্টিক ও স্টীল সামগ্রীসহ বিভিন্ন ভ্যারাইটিজ মালামালের ব্যবসা করেন। এই ব্যবসার জন্যে তাদের ২০টিরও বেশী ভ্যানগাড়ী রয়েছে। এই ভ্যানগাড়ীতে করে তাদের নিয়োগকৃত শ্রমিকরা গ্রামে গ্রামে ঘুরে এ সকল মালামাল বিক্রি করেন। বসন্তপুর স্টেশন বাজারে রেলওয়ের জমি দখল করে তারা বড় আকারের ৫টি দোকান ঘর নির্মাণ করেছেন। এই দোকানগুলোতে তারা তাদের মালামাল রাখেন। তাদের দোকানের সামনে দিয়ে রেলওয়ে স্টেশনে যাওয়ার প্রধান রাস্তাটি বয়ে গেছে। প্রতিদিন সকাল পৌনে ৯টার দিকে তারা রেলওয়ে স্টেশনে যাওয়ার রাস্তাটির উপর ২০টিরও বেশী ভ্যান গাড়ী পার্কিং করে তাদের মালামাল লোড করা শুরু করেন। প্রায় ঘন্টাব্যাপী তারা তাদের এই কার্যক্রম চালান। বসন্তপুর রেলওয়ে স্টেশনে ট্রেন আসে সকাল সাড়ে ৯টার দিকে। অর্থাৎ, তারা যেই সময়ে রাস্তা আটকে রাখেন সেই মূহূর্তটি রাস্তা দিয়ে যাত্রীদের চলাচলের মুহূর্ত। তাদের এই রাস্তা আটকে রাখার কারণে যাত্রীদের চলাচলে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয়। আবার সন্ধ্যার পরও ট্রেন আসার আগ মুহূর্তে তাদের ভ্যানগাড়ীগুলো ফিরে এসে রাস্তা আটকে রাখে। সে সময়ও যাত্রীদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয়।

  গত ১২ই জানুয়ারী সকাল ৯টার দিকে ট্রেন আসার কিছুক্ষণ আগে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বসন্তপুর স্টেশন বাজার থেকে রেলওয়ে স্টেশনে যাওয়ার প্রধান সড়কটিতে ২০টিরও বেশী ভ্যান গাড়ী দিয়ে রাস্তাটি আটকে রাখা হয়েছে। ভ্যানগাড়ীর পাশাপাশি রাস্তার উপরে রয়েছে ফার্নিচার, প্লাস্টিক ও স্টীল সামগ্রীসহ বিভিন্ন ভ্যারাইটিজ মালামাল। আজিম ও উজ্জ্বলসহ তাদের প্রায় অর্ধশত শ্রমিক মালামালগুলো ভ্যান গাড়ীতে উঠাচ্ছেন। তাদের রাস্তা আটকে ব্যবসায়ীক কার্যক্রম চালানোর কারণে যাত্রীদের পায়ে হেঁটে রেলওয়ে স্টেশনে পৌঁছাতেই কষ্ট হচ্ছে। কোন যাত্রীর কোন ধরণের মালামাল রেলওয়ে স্টেশনে নিতে গেলে অটোরিক্সা বা রিক্সা ওই রাস্তাটি দিয়ে ঢোকার কোন সুযোগ নেই।

  ট্রেন যাত্রী আকমল হোসেন জানান, আজিম ও উজ্জ্বলসহ তাদের শ্রমিকরা প্রতিদিনই এই রাস্তাটি আটকে তাদের ব্যবসায়ীক কার্যক্রম চালায়। এটা যাত্রীদের উপর এক ধরণের অত্যাচার। তাদের এই অত্যাচার থেকে যাত্রীরা মুক্তি চায়। 

  নারী ট্রেন যাত্রী মাহমুদা আক্তারী বলেন, আমি রেলওয়ে স্টেশনে আসার সময় এই রাস্তাটি দিয়ে আসতে গিয়ে দেখি রাস্তাটি আটকে ভ্যানগাড়ীতে মালামাল উঠানো হচ্ছে। এমনভাবে রাস্তা আটকে শ্রমিকরা মালামাল উঠাচ্ছেন তাতে সেখান দিয়ে আসতে গেলে শ্রমিকদের শরীরে ঘেঁষাঘেঁষি করে আসতে হবে। এছাড়া শরীরে ভারী কোন মালামালের আঘাত লাগারও ভয় রয়েছে। যে কারণে আমি এই রাস্তা দিয়ে না এসে অন্য দিক দিয়ে ঘুরে স্টেশনে এসেছি। আমার মতো অনেকেই অন্য দিক দিয়ে ঘুরে স্টেশনে এসেছেন। যাত্রীদের চলাচলের রাস্তা দখল করে এভাবে ব্যবসায়ীক কার্যক্রম চালানোটা দুঃখজনক।

পাংশা পৌরসভার নির্বাচনে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির অপচেষ্টা কঠোর হস্তে দমন করা হবে
রাজবাড়ীতে উপকারভোগীদের মধ্যে ভিজিডি কার্ড বিতরণ করলেন এমপি কাজী কেরামত আলী
পুরুষাঙ্গের সাথে ইট বেঁধে নির্যাতনের অভিযোগে কালুখালীর সাওরাইল ইউপির চেয়ারম্যানসহ ২জন গ্রেফতার
সর্বশেষ সংবাদ