ঢাকা শনিবার, মে ২৮, ২০২২
দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে লঞ্চে গাদাগাদি করে যাত্রী বহন॥স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষিত
  • মইনুল হক মৃধা
  • ২০২২-০১-১৭ ০০:৪৪:৪৬
দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটের লঞ্চগুলোতে গাদাগাদি করে ধারণ ক্ষমতার অতিরিক্ত যাত্রী বহন করা হচ্ছে। মানা হচ্ছে না কোন স্বাস্থ্যবিধি। ছবিটি গতকাল ১৬ই জানুয়ারী দুপুরে তোলা -মাতৃকণ্ঠ।

করোনার সংক্রমণ রোধে সরকারী বিধি-নিষেধ শুরুর পরও দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটের লঞ্চগুলোতে গাদাগাদি করে ধারণ ক্ষমতার অতিরিক্ত যাত্রী বহন করা হচ্ছে। মানা হচ্ছে না কোন স্বাস্থ্যবিধি। 
  গতকাল ১৬ই জানুয়ারী দুপুরে সরেজমিনে দৌলতদিয়া লঞ্চ ঘাট এলাকা ঘুরে দেখা যায়, লঞ্চ ঘাট থেকে ধারণ ক্ষমতার চেয়ে অতিরিক্ত যাত্রী নিয়ে লঞ্চগুলো পাটুরিয়ার উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাচ্ছে। একইভাবে পাটুরিয়া থেকেও গাদাগাদি করে যাত্রী বহন করে লঞ্চগুলো দৌলতদিয়া ঘাটে এসে ভিড়ছে। যাত্রীদের অধিকাংশের মুখেই মাস্ক নেই। অনেকের থাকলেও তা থুতনির নিচে ঝুলিয়ে রেখেছে। তবে এ সময় সাংবাদিকদের উপস্থিতি দেখে বিআইডব্লিউটিএ’র প্রতিনিধি ও লঞ্চ মালিক সমিতির লোকজনদের মাস্ক ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করার জন্য যাত্রীদের তাগিদ দিতে দেখা যায়।
  দৌলতদিয়া ঘাট থেকে পাটুরিয়ার উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাওয়া লঞ্চ মেসার্স একতা নেভিগেশনের যাত্রী খাইরুল ইসলাম কুষ্টিয়া থেকে গাজীপুর যাচ্ছিলেন। লঞ্চে ওঠার সময় তার থুতনির নীচে মাস্ক ঝুলতে দেখা যায়। এ সময় মাস্ক থুতনির নীচে থাকার কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘ফোনে কথা বলছিলাম-তাই মাস্ক নামিয়ে রেখেছিলাম।’
  পাটুরিয়া থেকে ছেড়ে আসা ছলিমাবাদ নামক লঞ্চটি দৌলতদিয়া ঘাটে ভেড়ার পর লঞ্চ থেকে নেমে হেঁটে যাচ্ছিলেন যশোরগামী সেকেন্দার শেখ। মুখে মাস্ক নেই কেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘বয়স হয়ে গেছে তো, মাস্ক পরার কথা মনে থাকে না।’ 
  লঞ্চ এমভি ফ্লাইং বার্ড এর আসন অনুযায়ী যাত্রী বহনের কথা প্রায় ৮০ জনের মতো। অথচ লঞ্চ ভর্তি যাত্রী বহন করা হয়েছে। লঞ্চের প্রধান মাস্টার শামচু সরদার  বলেন, ধারণ ক্ষমতার চেয়ে একটু বেশী যাত্রী এসেছে। সব মিলে প্রায় ১৪০ জনের মতো হবে। এত যাত্রী নেওয়ার কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘কিছু কিছু সময় যাত্রীরা জোর করে লঞ্চে উঠে পড়ে। এ জন্য কিছু যাত্রী বেশী হয়েছে।’
  দৌলতদিয়া লঞ্চ ঘাটে কর্তব্যরত বিআইডব্লিউটিএ’র ট্রাফিক সুপারভাইজার শিমুল মিয়া বলেন, সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে লঞ্চে ওঠার ক্ষেত্রে তারা তদারকি করছেন। লঞ্চগুলোতে যাতে ধারণ ক্ষমতার চেয়ে বেশী যাত্রী বহন না করা হয় সেদিওে খেয়াল রাখছেন। লঞ্চে ওঠার আগে হ্যান্ড স্যানিটাইজার দিয়ে যাত্রীদের হাত জীবাণুমুক্ত করার ও মাস্ক পরতে হবে বলে সতর্ক করা হচ্ছে। যে সব লঞ্চ স্বাস্থ্যবিধি না মেনে অতিরিক্ত যাত্রী বহন করবে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

 

নানা আয়োজনে রাজবাড়ী ব্লাড ডোনার্স ক্লাবের দ্বিতীয় প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত
পদ্মা সেতু হওয়ার পর ড.ইউনুসের মুখে কথা নেই---তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ
দুই দিনের সফরে রাজবাড়ীতে আসছেন বিভাগীয় কমিশনার
সর্বশেষ সংবাদ