ঢাকা মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ৬, ২০২২
রাজবাড়ীর বানীবহ ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান লতিফের হত্যাকারীদের শাস্তির দাবীতে মানববন্ধন
  • স্টাফ রিপোর্টার
  • ২০২২-০৯-২৫ ০২:২০:২৬

রাজবাড়ী সদর উপজেলার বানীবহ ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি আব্দুল লতিফ মিয়ার হত্যাকারীদের দ্রুত গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবীতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।
   বানীবহ ইউনিয়নবাসীর ব্যানারে গতকাল ২৪শে সেপ্টেম্বর বিকালে বানীবহ বাজার এলাকায় রাজবাড়ী-বালিয়াকান্দি আঞ্চলিক সড়কের পাশে এই মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়। মানববন্ধন চলাকালে নিহত আব্দুল লতিফ মিয়ার স্ত্রী ও বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়া বানীবহ ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান শেফালী আক্তার, সাবেক চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক দপ্তর সম্পাদক শেখ গোলাম মোস্তফা বাচ্চু, রাজবাড়ী সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি রমজান আলী খান, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক এডঃ সফিকুল হোসেন সফিক, বানীবহ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি লুৎফর রহমান, সাধারণ সম্পাদক ইউনুস আলী মোল্লা, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাইয়ুম, প্রচার সম্পাদক হাফিজুর রহমান, বসন্তপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল মান্নান মিয়া, আব্দুল লতিফ মিয়ার ভাই আব্দুর রশিদ মিয়া, বানীবহ ইউনিয়ন পরিষদের ৫ নং ওয়ার্ডের সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন, ৩ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি আক্তার হোসেন, ব্যবসায়ী ফিরোজ আহমেদ প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। 
   আব্দুল লতিফ মিয়ার স্ত্রী শেফালী আক্তার বলেন, ২০২১ সালের ১১ই নভেম্বর রাতে আমার স্বামীকে গুলি করে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় আমি বাদী হয়ে ১৪ই নভেম্বর রাজবাড়ী থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করি। থানা পুলিশ, ডিবি হয়ে বর্তমানে পিবিআই মামলাটি তদন্ত করছে। পুলিশ ৮ জনকে গ্রেফতার করলেও তারা সবাই জামিনে মুক্ত রয়েছে। এ জন্য আমি ও আমার পরিবারের সদস্যরা নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছি। এই হত্যার সাথে যারা জড়িত-দ্রুত তাদের গ্রেফতার ও সর্বোচ্চ শাস্তি ফাঁসির দাবী জানাচ্ছি। এ ব্যাপারে আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। তিনি হস্তক্ষেপ করলে আমি ন্যায় বিচার পাবো বলে আশা করি। 
   সাবেক চেয়ারম্যান শেখ গোলাম মোস্তফা বাচ্চু বলেন, প্রায় ১ বছর হয়ে গেলেও লতিফ মিয়ার হত্যা মামলার তেমন অগ্রগতি নেই। কিছুদিন আগে দেখলাম খানখানাপুরের একটি হত্যার ঘটনার পর পরই হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটন হলো। কিন্তু দুঃখের বিষয় সাবেক চেয়ারম্যান ও ক্ষমতাসীন দলের নেতা হওয়া সত্ত্বেও লতিফ মিয়ার হত্যাকাণ্ডের প্রকৃত রহস্য উদঘাটিত হলো না। প্রথমে থানা পুলিশ, এরপর ডিবি হয়ে বর্তমানে মামলাটি পিবিআইতে রয়েছে বলে জানতে পেরেছি। কিন্তু মামলাটি কী অবস্থায় রয়েছে, কতদূর অগ্রগতি হয়েছে সে সম্পর্কে আমরা ঠিকমতো জানতে পারছি না। আমরা বানীবহ ইউনিয়নবাসী লতিফ হত্যায় জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানাচ্ছি। 
   দলীয় নেতাকর্মী, বানীবহ বাজারের ব্যবসায়ী, এলাকাবাসীসহ দল-মত নির্বিশেষে বিপুল সংখ্যক মানুষ মানববন্ধনে অংশগ্রহণ করেন। 
   উল্লেখ্য, ২০২১ সালের ১১ই নভেম্বর রাত সোয়া ১২টার দিকে বানীবহ ইউনিয়নের মহিষবাথান গ্রামের নিজ বাড়ীর কাছে অজ্ঞাতনামা কয়েকজন দুর্বৃত্ত আব্দুল লতিফ মিয়াকে গুলি করে ফেলে রেখে যায়। ওই সময় তিনি মোটর সাইকেলযোগে নিজ বাড়ীতে ফিরছিলেন। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে প্রথমে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে ও পরে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখান থেকে ঢাকায় নেয়ার পথে ভোর ৪টার দিকে মানিকগঞ্জের একটি হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়। 

ভ্রাম্যমাণ আদালতে রাজবাড়ীর দুইটি ইট ভাটাকে জরিমানা
দৌলতদিয়ায় পদ্মার চর থেকে অবৈধ মাটি-বালু উত্তোলন বন্ধ হচ্ছে না!
রাজবাড়ী জেলা মহিলা পরিষদের কার্যালয়ে শিশুদের চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণ
সর্বশেষ সংবাদ