ঢাকা মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ৬, ২০২২
বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকারের অপশাসনের বিরুদ্ধে সম্মিলিতভাবে রুখে দাঁড়াতে হবে-----বিএনপি মহাসচিব
  • খালেদা ইয়াসমিন লিপি
  • ২০২২-১১-১৩ ০০:২৩:২৯

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, পথে পথে বাধা দিয়েও সরকার জনগণকে আটকাতে পারেনি। তারা সব বাধা উপেক্ষা করে মহাসমাবেশে চলে এসেছে। অতীতে কোনো স্বৈরাচার সরকারই দমন-পীড়ন চালিয়ে নিজেদের অস্তিত্ব রক্ষা করতে পারেনি। বর্তমান ক্ষমতাসীনরাও গায়ের জোরে ক্ষমতা আঁকড়ে রাখতে পারবে না। অচিরেই আওয়ামী লীগ সরকারের পতন হবে।

  গতকাল ১২ই নভেম্বর দুপুরে ফরিদপুরের কোমরপুরের আব্দুল আজিজ ইনস্টিটিউশনের মাঠে বিএনপির বিভাগীয় গণসমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। 

  মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, বর্তমান সরকার বলে আগামী বছর দেশে দুর্ভিক্ষ হবে। আর মিডিয়া বলে হবে। আপনারা দুর্ভিক্ষের কথা বলে জনগনের কাছ থেকে আপনাদের লুটপাটের কথা আড়াল করতে চাইছেন। কারণ আপনারা দেশের রিজার্ভ শুধু চিবিয়েই খাননি গিলে খেয়েছে।

  তিনি বলেন, ফরিদপুরের আজকের লাখো জমায়েত এই সমাবেশ বুঝিয়ে দিয়েছে আন্দোলন কি? সরকার পতনের ডাক শুরু হয়ে গেছে। আমরা আর ঘরে ফিরে যাব না। সরকার পতন করেই ঘরে ফিরবো। নিরপেক্ষ তত্বাবধায়ক সরকার বিএনপি ছাড়া নির্বাচনে যাব না। সরকার পতনের মাধ্যমে তত্ত্বাবধায়ক সরকার গঠন করবো, নতুন নির্বাচন কমিশন গঠন করবো, তারপর জাতীয় সরকার গঠন করবো। আর আমরাই এ দেশের গনতন্ত্র ফিরিয়ে দেব।

 বিএনপির মহাসচিব বলেন, আ’লীগ নাকি গণতন্ত্রকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দেবে। ভুতের মুখে রাম নাম। তাদের গণতন্ত্র মানে গুম, খুন, মামলা, হামলা করা। তাদের এতো ভয় কেন?  ক্যাসিনো সম্রাট মুক্তি পায় আর খালেদা জিয়াকে আটকে রাখা হয়। তারেক রহমানকে সাজিয়ে গুছিয়ে মিথ্যা মামলা দিয়ে রেখেছেন। দেশে আসতে দেওয়া হয় না। 

  তিনি বলেন, সরকার এই সমাবেশকে বাধাগ্রস্ত করার জন্য বাস মালিক-শ্রমিকদের সাথে আঁতাত করে তিন দিন আগে থেকেই বাস চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে। তাতে কী, গণসমাবেশে আসা জনগণকে তো আটকাতে পারেনি-তারা ছুটে এসেছে। দেশ-বিদেশে যখন আওয়ামী সরকারের বর্বর শাসনের বিরুদ্ধে ধিক্কার উঠেছে, দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে মানুষের যখন নাভিশ্বাস অবস্থা-তখন সরকার হতাশ হয়ে দমন-পীড়নের পথ বেছে নিয়েছে। সর্বত্র লুটপাট চালাচ্ছে। মেগা প্রজেক্ট থেকে মেগা চুরি করছে। তাদের অপশাসনের বিরুদ্ধে সম্মিলিতভাবে রুখে দাঁড়াতে হবে। 

  বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস বলেন, মানুষকে খাওয়ানোর পয়সা নাই কিন্তু ভোট চুরির জন্য ইভিএম কেনার পয়সা আছে। সরকার বিএনপিকে ভয় পায় বলেই পুলিশ দিয়ে আন্দোলন থামানোর চেষ্টা করছে। কিন্তু জনগণ আজ জেগে উঠেছে। অবৈধ সরকারের দিন শেষ হয়ে আসছে। তীব্র গণআন্দোলনের মাধ্যমে সরকারের পতন ঘটিয়ে জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা করা হবে।

  ফরিদপুর মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক এ.এফ.এম কাইয়ুম জঙ্গীর সভাপতিত্বে ও জেলা বিএনপির সদস্য সচিব এ.কে.এম কিবরিয়া স্বপনের সঞ্চালনায় সমাবেশে দলের স্থায়ী কমিটি সদস্য মঈন খান, আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, গণসমাবেশের প্রধান সমন্বয়কারী বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান এ জেড এম জাহিদ হোসেন, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার শাহজাহান ওমর, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা জহিরুল হক শাহজাদা মিয়া, বিএনপির ফরিদপুর বিভাগীয় গণসমাবেশের সমন্বয়কারী ও কেন্দ্রীয় বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক শামা ওবায়েদ, বিএনপির দুই সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক মাশুকুর রহমান ও মোঃ সেলিমুজ্জামান, কৃষক দলের সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম বাবুল, বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও রাজবাড়ী-১ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য আলী নেওয়াজ মাহমুদ খৈয়ম, ফরিদপুর জেলা বিএনপির সদস্য সচিব একেএম কিবরিয়া স্বপন, মহিলা দলের সহ-সভাপতি ইয়াসমিন আরা হক, যুবদলের সাবেক সহ-সভাপতি মাহবুবুল হাসান ভুইয়া পিংকু, জেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-আহবায়ক আফজাল হোসেন খান পলাশ, রাজবাড়ী জেলা বিএনপির আহ্বায়ক এডঃ লিয়াকত আলী ও যুগ্ম-আহ্বায়ক এডঃ আসলাম মিয়া, ফরিদপুর কোতয়ালী থানা বিএনপির সভাপতি রউফ-উ-নবী, মহানগর যুবদলের সভাপতি বেনজির আহমদ তাবরীজ, জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর হোসেনসহ কেন্দ্রীয়, আঞ্চলিক ও স্থানীয় নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন।

  উল্লেখ্য, ফরিদপুরে বিএনপির বিভাগীয় গণসমাবেশ উপলক্ষ্যে গত ১০ই নভেম্বর রাতেই ফরিদপুর শহর থেকে প্রায় ৬ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত কোমরপুরের আব্দুল আজিজ ইনস্টিটিউটের মাঠ কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে যায়। শরীয়তপুর, মাদারীপুর, রাজবাড়ী, গোপালগঞ্জ থেকে নেতাকর্মীরা এ সমাবেশে যোগদান করে।

ভ্রাম্যমাণ আদালতে মাদারীপুর সদরের  ৩টি ইট ভাটাকে ৯ লক্ষ টাকা জরিমানা
ফরিদপুরে ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলা শুরু
খেজুরের খাঁটি রস ও গুড়ের ঐতিহ্য রক্ষার্থে চৌগাছায় গাছিদের শপথ
সর্বশেষ সংবাদ