ঢাকা শনিবার, এপ্রিল ২০, ২০২৪
পদ পদবী কোন চাঁদাবাজী টেন্ডারবাজী বা অবৈধ উপার্জনের হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করবেন না--- শেখ পরশ
  • শিহাবুর রহমান/আসাদুজ্জামান নুর
  • ২০২৩-০৩-০৪ ১৮:৫২:০২

বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস্ পরশ বলেছেন, সাংগঠনিক পদ পদবী ব্যক্তিগত পকেট ভারী করার বস্তু নয়। ব্যক্তিগত স্বার্থ হাসিল করার জন্য না। আমার নির্দেশ আপনারা এই পদ পদবী কোন চাঁদাবাজী টেন্ডারবাজী বা অবৈধ উপার্জনের হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করবেন না। নিজের কথা ভাবার আগে দলের কথা ভাববেন। ভুলে যাবে না। ব্যক্তির চেয়ে দল বড়, দলের চেয়ে দেশ বড়। ব্যক্তি স্বার্থে উর্দ্ধে থেকে রাজনীতি করতে হবে। নিজের জন্য না, আমরা সমাজের জন্য রাজনীতি করি।

  গতকাল ৪ঠা মার্চ দুপুরে রাজবাড়ী শহরের শহীদ খুশি রেলওয়ে মাঠে জেলা যুবলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, মার্চ মাসের ২৬ তারিখ জন্ম হয়েছিল একটা চেতনার। জন্ম নিয়েছিল একটা ব্রত। একটা স্বপ্ন। সেই চেতনা আর ব্রত ছিল স্বাধীনতার চার মূলনীতি। গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ, ধর্মনিরপেক্ষ সমাজ, সমাজতান্ত্রিক সমাজ কাঠামো এবং উদার ও অসম্প্রদায়ী জাতীয়তাবোধ। শুধু নতুন নেতৃত্ব সৃষ্টি করাই আমাদের প্রধান উদ্দেশ্যে না। একই সাথে রাজনীতি সংস্কৃতি পরিবর্তনে প্রত্যয় নিতে হবে। আত্মকেন্দ্রিক রাজনৈতিক নিজের পকেটভারী রাজনীতি পরিহার করে সার্বজনীন রাজনীতিতে আত্মস্থ করতে হবে। রাজনীতিকে সমাজ উন্নয়নের ব্রত হিসেবে গ্রহণ করে দুর্নীতিমুক্ত রাজনীতি গড়ার শপথ নিতে হবে। চাঁদাবাজী দখলদারী বন্ধ করতে হবে। আমি স্বপ্ন দেখি কারণ আপনাদের এই অনন্য কৃত্বিতের কারণে অন্ধকার কাটিয়ে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ মানবিক যুবলীগে আবর্তিত হয়ে সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। আপনারাই কোন একদিন বাংলাদেশকে নেতৃত্ব দিবেন। তাই আজকে যুবলীগের কয়েকটি প্রধান দায়িত্ব পালন করতে হবে। প্রথমত রাজপথে লড়াকু সৈনিকের পদে অবত্তীর্ণ হয়ে স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি বিএনপি জামায়াত শিবিরকে পরাস্ত করার মাধ্যমে যুবলীগকে যেকোন মূল্যে বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনাকে সকল ষড়যন্ত্র থেকে রক্ষা করে আগামী নির্বাচনে জয়ী করে সর্বোচ্চ আত্মদান দিতে হবে। দ্বিতীয়ত গণমানুষের পাশে যেতে হবে এবং মানুষের পাশে থাকতে হবে। শুধু নেতাকর্মীদের দ্বারা আবর্তিত থাকলে চলবে না। সাধারণ মানুষের পাশে যেতে হবে এবং বঙ্গবন্ধু কন্যার উন্নয়নের সুফল সাধারণ মানুষের কাছে পৌছায় দিতে হবে। মনে রাখবেন এদেশের সাধারণ মেহনতি মানুষ আমাদের উন্নয়নের সুফল যতদিন না ভোগ করবে ততদিন আমাদের সকল সফলতা, সকল উন্নয়ন প্রকৃত স্বার্থকতা পাবে না। তৃতীয়ত জননেত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে সম্মান এনে দিয়েছেন। তিনি বাংলাদেশকে সফলতা এনে দিয়েছেন বিভিন্ন ক্ষেত্রে। বহিবিশে^ বঙ্গবন্ধুর কন্যার অর্জিত সম্মান আমাদের ধরে রাখতে হবে। আমাদেরই নির্ধারণ করতে হবে কিভাবে আমরা এই বাংলাদেশকে আমাদের প্রাণের এই বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবো। তার অন্যতম উপায় আমাদের দক্ষতা বৃদ্ধি করতে হবে। মনে রাখবেন এই দিন, দিন না। সামনে যে দিন আসছে সেখানে দক্ষতার কোন বিকল্প নাই।

যুবলীগ চেয়ারম্যান বলেন, আমাদেরকে উৎপাদনীমূখী কাজে অবদান রাখতে হবে। একদিকে আমাদের যেমন রাজপথে লড়াকু সৈনিক দরকার একই সাথে আমাদের মেধাবী উদ্যোক্তা দরকার। বুদ্ধিদীপ্ত ও মেধা সম্পন্ন কৃষিবিদ দরকার। সৃজীনশীল প্রতিভার দরকার। দক্ষ কারিগর দরকার। এই রাজবাড়ী বাংলার আপামর মেহনতি মানুষের রাজবাড়ী। এখানে বাংলার কামার, কুমার, জেলে, তাঁতীর বসবাস। ওই সকল মানুষের ভাগ্যের উন্নয়নে এবং অধিকার আদায়ে আপনাদেরই দায়িত্ব নিতে হবে। জাতির পিতার জন্ম ও স্বাধীনতার মাসে আপনাদের প্রত্যয় একটা শোষণ মুক্ত সমাজ। মানুষকে শোষণ নির্যাতন করা যাবে না। আমাদের সামনে অনেক প্রতিকুলতা। একদিকে আমাদের বঙ্গবন্ধুর কন্যার বিরুদ্ধে সকল ষড়যন্ত্র প্রতিহত করতে হবে। রাজপথে আন্দোলন সংগ্রামে অবর্তিন হতে হবে। অন্যদিকে আমাদের আগামীর বাংলাদেশ গড়ার জন্য যুব সমাজকে যুব শক্তিকে রুপান্তর করতে হবে। যুবশক্তি এমন একটা শক্তি যেটা শুধু পেশী নির্ভর শক্তি না। এটা এমনই একটা শক্তি যেটা পেশীর সাথে সাথে মেধা ও দক্ষতা দ্বারাও বলিয়ান। আপনাদের কাছে আমার আরো কিছু প্রত্যাশা আশা করি আপনারা সেগুলো পালন করতে পারবেন। প্রথমত সাংগঠনিক পদ শুধুমাত্র সাংগঠনিক কাজেই ব্যবহার করবেন।

 শেখ ফজলে শামস্ পরশ বলেন, গত বছর করোনার সময় যুবলীগ প্রশংসনীয় মানবিকতার নিদর্শন রেখেছে। আওয়ামী যুবলীগের নেতাকর্মীরা সমগ্র বাংলাদেশে আশ্রয়হীন মানুষকে দুই শতাধিক ঘর বানিয়ে দিয়েছেন। বিনামূল্যে অক্সিজেন দিয়েছে। ৭৫লক্ষ মানুষের খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেছে। কৃষকদের ধান কেটে দিয়েছে। এই শীতে (২০২২) সাড়ে ৩লক্ষ শীতবস্ত্র বিতরণসহ বিভিন্ন সমাজসেবা মূলক কর্মকান্ডে সম্পৃক্ত হয়ে ইতোমধ্যেই জনগণের প্রশংসা ও আস্থার জায়গা করে নিয়েছে। যতদিন বাংলাদেশে দুটি রহিত মানুষ থাকবে ততদিন এই সকল কর্মকান্ড অব্যাহত রাখতে হবে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব আমাদেরকে সেই শিক্ষাই দিয়েছেন। রাজনীতি মানে অধিকার বঞ্চিত মানুষের অধিকারের কথা বলা এবং নিপীড়িত মানুষের অধিকার রক্ষা করা। এজন্য যেকোন মূল্য দিতে আপনাদের প্রস্তুত থাকতে হবে। আমি আশা করি আপনারা আমাদের ত্যাগী ও অর্জিত সাংগঠনিক অভিজ্ঞতা সম্পন্ন নেতাকর্মীদের নির্বাচন করবেন। যারা দলের দুঃসময়ে সংগ্রাম করেছে, জেল জুলুম ত্যাগ তিতিক্ষা করেছে। বিবেচনা করবেন বিগত দিনগুলোতে তাদের কর্মকান্ড কার্যকলাপ ও অবদান আমলে নিবেন ছাত্র রাজনীতিতে তাদের ভূমিকা এবং সাম্প্রতিক দূর্যোগের সময় তাদের অবদান ও কার্যকলাপ ইত্যাদি বিবেচনা করে আপনারা ভবিষ্যতে যুবলীগ নির্বাচন করবেন। 

তিনি সবাইকে সর্তক করে বলেন, বিএনপি-জামায়াত ভন্ড ও প্রতারকদের সংগঠন। তাদের নেত্রী খালেদা জিয়া এতিমদের টাকা আত্মসাৎ করে আজ দন্ডিত আসামী। তাদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক জিয়া মানি লন্ডারিং মামলার সাজাপ্রাপ্ত আসামী। তাদের এই মামলার সাক্ষী এফবিআই। তারা সাক্ষী প্রদান করে গেছে এবং সেই লন্ডারিং এর মানি টাকা পয়সা বিদেশ থেকে উদ্ধার করে দেশে ফেরত আনা হয়েছে। সুতরাং এ বিষয়ে কোন সংশ্রয় নাই। ব্যাপারটা দিবালোকের মতো পরিস্কার। দুর্নীতি না করলে তো টাকা ফেরত আনতে পারতাম না। দুর্নীতি করেছে সেই জন্যই বিদেশী সরকার টাকা ফেরত দিয়েছে। এখন শুনি দুর্নীতিতে চ্যাম্পিয়ানরা আমাদের দুর্নীতির ছবক দেওয়ার চেষ্টা করে। দুর্নীতির ব্যাপারে আমাদের দায়ী করার কোন নৈতিক অধিকার তাদের নাই। তারা আন্তর্জাতিক স্বীকৃতিপ্রাপ্ত দুর্নীতিবাজ। শেখ হাসিনার আমলে দুর্নীতি হলে দলমত নির্বিশেষে বিচার হয়। কেউই রেহাই পায় না। তার প্রমাণ অনেক আছে। বিএনপি জামায়াত এদেশের মানুষের ভাগ্য নিয়ে ছিনিমিলি খেলতে চায়। আজকে বাংলাদেশে মানুষের যখন জীবনমানের উন্নতি হয়েছে, মাথা পিছু আয় বৃদ্ধি পেয়ে ২৮শত ডলারে উপনীত হয়েছে। নারীর ক্ষমতায়ন ও স্বাক্ষরতার বৃদ্ধির হার, খাদ্য নিরাপত্তা ইত্যাদি সূচকে বাংলাদেশ অভাবনীয় সাফল্য অর্জন করেছে তখন তারা এদেশের মানুষকে তাদের সেই অন্ধকার ও দুঃশাসনের সময়ে নিতে মাঠে নেমেছে। এদেশের মেহনতি কর্মজীবি মানুষের মুখের হাসি তাদের পছন্দ না। তারা চায়, এদেশের মানুষকে দমন শোষণ এবং নীপিড়ন করতে। তাদের একমাত্র বাঁধা বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা। শেখ হাসিনার জন্য তারা এদেশের মানুষকে তাদের প্রতারণা ভাউতাবাজী এবং দমন নীপিড়নের শিকার বানাতে পারছে না। এখনো তাদের প্রচেষ্টা এদেশের মানুষকে সন্ত্রাসের শিকার বানানো। 

তিনি বলেন, ২০১৪ সালে তারা আগুন দিয়ে মানুষ পুড়িয়েছিল। এখনতারা পদযাত্রার নামে পথ খুঁজছে কিভাবে এদেশের মানুষকে সন্ত্রাস ও নৈরাজ্যের শিকার বানানো যায়। তারা আরেকটা জিনিস করছে তারা লাশের রাজনীতি করতে অভ্যস্ত। তাই তারা দেশে ত্রাস সৃষ্টি করে একটা ঘোলােেট পরিস্থিতি সৃষ্টির মাধ্যমে নির্বাচন বানচাল করতে চাই। কারণ নির্বাচনের যাওয়ার পথও তাদের অনেক সংকচিত। কারণ তাদের রাজরানী বেগম খালেদা জিয়া ও যুবরাজ তারেক রহমান অক্ষম ও অযোগ্য নির্বাচন করতে। দুর্নীতি করে তারা ফাঁইস্যা গেছে। তাদের অপকর্মের জন্য পুরো সংগঠনটাই এখন বিপর্যস্ত। তারপর আবার গত নির্বাচনে এক আসনে দুই বা ততোধিক নমিনেশন বিক্রি করে সেই টাকাও মানি লন্ডারিং করে বিলাতে নিয়ে গেছে। সম্প্রতি তারেক জিয়া কিশোর গ্যাং, শিবির কর্মী এবং সহজ সরল তরুণ কিশোরদের মিথ্যা আশ^াস দিয়ে রাজপথে নামিয়ে ব্যবহার করছে। খুব শীঘ্রই ওর প্রতারণার সতত্যা উম্মোচিত হবে এবং ওই দিন বেশি দূরে না। তাদের প্রতারণার জন্য তারা নিজদলের নেতাকর্মীদের হাতে লাঞ্ছিত হবে এবং গণধোলাই খেয়ে ঘরে ফেরত যাবে। 

যুবলীগ চেয়ারম্যান নেতাকর্মীর কাছে স্বাধীনতার মাসে শেষ বার্তা দিয়ে বলেন, আমাদের শহীদদের রক্তের মূল্য দিতে হবে। লাখো শহীদের রক্তে অর্জিত মহান স্বাধীনতা আমাদের অনেক দায়িত্ব দিয়েছে। সেই দায়িত্ব কাঁধে নিয়ে আগাতে হবে সামনের দিকে। আগামীর যুবলীগ উন্নত দেশ গড়ার কাজে মনোনিবেশ করতে হবে। 

      এর আগে, জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন এবং বেলুন ও পায়রা উড়িয়ে সম্মেলনের উদ্বোধন করেন যুবলীগের চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস্ পরশ।

জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক মোঃ জহুরুল ইসলামের সভাপতিত্বে সম্মেলনের ১ম অধিবেশনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য শাজাহান খান এমপি, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ মাইনুল হোসেন কান নিখিল, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও রাজবাড়ী-২ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ জিল্লুল হাকিম, সহ-সভাপতি ও রাজবাড়ীÑ১ আসনের সংসদ সদস্য কাজী কেরামত আলী, সহ-সভাপতি আকবর আলী মর্জি, সহ-সভাপতি ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান একেএম শফিকুল মোরশেদ আরুজ, সহ-সভাপতি মোঃ রেজাউল হক রেজা, সহ-সভাপতি মহিলা এমপি সালমা চৌধুরী রুমা, মহিলা এমপি এডঃ খোদেজা নাসরিন আক্তার হোসেন, কেন্দ্রীয় যুবলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সুব্রত পাল, সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ শহীদুল হক চৌধুরী রাসেল, কার্যনির্বাহী সদস্য ডাঃ আওরঙ্গজেব আরু, এডঃ ইয়াছির আরাফাত রামিম, এডঃ মোঃ রেজা ই রাব্বি ও এস এম আশরাফুল ইসলাম রতন বক্তব্য দেন। এছাড়াও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন তার ছেলে রাকিবুল হোসেন শান্তনু।

সম্মেলনে উপস্থাপনা করেন জেলা যুবলীগের যুগ্ন আহ্বায়ক শাহ্ মোঃ জাহাঙ্গীর জলিল ও আবুল হোসেন শিকদার।

প্রসঙ্গত, দীর্ঘ ২৬বছর পর রাজবাড়ী জেলা যুবলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হলো। 

রাজবাড়ী-১ আসনে নৌকা প্রত্যাশী ফ্রান্স প্রবাসী আশরাফুলের পক্ষে দলীয় মনোনয়ন ফরম দাখিল
চন্দনীতে ঘোষণা : রাজবাড়ী-১ আসনে মনোনয়ন চাইবেন আকবর আলী মর্জি
রাজবাড়ী জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি রাজীব-সেক্রেটারী আসাদ
সর্বশেষ সংবাদ