ঢাকা মঙ্গলবার, এপ্রিল ২৩, ২০২৪
কালুখালীতে প্রতিবন্ধী যুবক রুবেল হত্যা মামলায় তার পিতা গ্রেফতার
  • মীর সামসুজ্জামান সৌরভ
  • ২০২৩-০৯-১৭ ১৪:৫৭:৪২

রাজবাড়ী জেলার কালুখালীতে মানসিক প্রতিবন্ধী যুবক রুবেল মন্ডল ওরফে মোয়া(২৬) হত্যা মামলার রহস্য উদঘাটন হয়েছে। এ হত্যাকান্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে তার পিতা খলিলুর রহমান(৬৯) কে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

গত ১৬ই সেপ্টেম্বর রাত ১০ টায় ঢাকা জেলার আশুলিয়া থানার ডেন্ডাবর এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

গতকাল ১৭ই সেপ্টেম্বর অভিযুক্ত খলিলুর রহমানকে আদালতে পাঠানো হলে তিনি হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দি প্রদান করেন।

হত্যাকান্ডের রহস্য উদঘাটনসহ গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কালুখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) প্রাণবন্ধু চন্দ্র বিশ্বাস।

 গ্রেফতারকৃত খলিলুর রহমান কালুখালী উপজেলা বোয়ালিয়া গ্রামের মৃত তাছের মন্ডলের ছেলে। সে রুবেলের পিতা। 

এর আগে গত ২৪ শে আগস্ট ভোর ৬টায় কালুখালী উপজেলার মোহনপুর রাজবাড়ী-কুষ্টিয়া আঞ্চলিক মহাসড়ক সংলগ্ন কালুখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স রোডের দক্ষিণ পাশে জনৈক ধলু মন্ডলের ধান ক্ষেতের পানির মধ্যে থেকে মানসিক প্রতিবন্ধী রুবেল মন্ডল ওরফে মোয়া(২৬) এর মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

এ ঘটনায় রুবেল মন্ডল মোয়ার মামা দেলোয়ার হোসেন দিনু (৫৯) বাদী হয়ে কালুখালী থানায় অজ্ঞাতনামা আসামী করে মামলা দায়ের করেন।

পুলিশ জানায়, খলিলুর রহমানের দ্বিতীয় স্ত্রীর গর্ভে জন্ম নেয় রুবেল। তবে রুবেলকে সন্তান হিসেবে মেনে নেয়নি খলিলুর রহমান। এরপর খলিলুর রহমান দ্বিতীয় স্ত্রীকে তালাক দেন। দ্বিতীয় স্ত্রী আরেকটি বিয়ে করেন। এরপর থেকেই রুবেল তার নানীর কাছে বড় হতে থাকে। ১৫ বছর পর্যন্ত সুস্থ থাকলেও পরে মানসিক প্রতিবন্ধী হয়ে যায় রুবেল। এরপর রাস্তায় রাস্তায় ঘুরে বেড়াত রুবেল। প্রায় প্রতিদিন সকালে সে বাড়ী থেকে বের হয়ে রাতে ফিরত। গত ২৩ শে আগস্ট বিকেল থেকে খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না রুবেলের। পর দিন ২৪ শে আগস্ট ভোরে কালুখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এলাকার একটি ধানক্ষেতে অজ্ঞাত একটি মরদেহ দেখতে পায় স্থানীয়রা। পরে রুবেলের স্বজনরা মরদেহটি রুবেলের বলে শনাক্ত করে। এ ঘটনায় থানায় মামলা হলে পুলিশ নিবীড়ভাবে তদন্ত শুরু করে। তদন্তে বের হয়ে আসে হত্যাকান্ডের সাথে রুবেলের পিতা খলিলুর জড়িত। পরে অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

কালুখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রাণবন্ধু চন্দ্র বিশ্বাস বলেন, খলিলুর রহমান তার ছেলে রুবেলকে প্রথমে সেভেনআপের মধ্যে ঘুমের ঔষুধ মিশেয় অচেতন করে নেয়। রুবেল অচেতন হয়ে পড়লে তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে ধানক্ষেতের মধ্যে ফেলে রেখে যায় সে।

ওসি আরও বলেন, খলিলুর রহমানকে আদালতে পাঠানো হলে তিনি হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দি দেন।

নববর্ষ ১৪৩১ উপলক্ষ্যে রাজবাড়ীর পুলিশ সুপারের শুভেচ্ছা বাণী
পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষ্যে পুলিশ সুপারের শুভেচ্ছা বাণী
মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষ্যে পুলিশ সুপারের বাণী
সর্বশেষ সংবাদ