ঢাকা মঙ্গলবার, মার্চ ৫, ২০২৪
ক্যান্সার মানেই মৃত্যু নয় : সঠিক সময়ে সঠিক চিকিৎসায় অনেক ক্যান্সার ভালো হয়
  • ডাঃ মোঃ কামরুজ্জামান
  • ২০২৪-০২-০৩ ১৪:১৭:৪০

বিশ্ব ক্যান্সার দিবস আজ। প্রতিবছর ৪ঠা ফেব্রুয়ারী বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্য দিয়ে দিবসটি পালন করা হয়। দিবসটি  উদযাপনের উদ্দেশ্য হল মারাত্মক ও প্রাণঘাতী এই কর্কট রোগ সম্পর্কে সচেতনতা ছড়িয়ে দেওয়া এবং এই রোগে আক্রান্ত রোগীদের সাহায্য করার জন্য মানুষকে উৎসাহিত করা। ক্যান্সার একটি বড় রোগ, যার সময়মত চিকিৎসা প্রয়োাজন। প্রতিবছর বাংলাদেশসহ সারা বিশ্বে বিপুল সংখ্যক মানুষ এই মারাত্মক রোগে আক্রান্ত হয়ে প্রাণ হারায়।

 শরীরে অনেক ধরনের ক্যান্সার হতে পারে। যেমন ঃ ১) সলিড ক্যান্সার(ব্রেইন, লাং, ব্রেস্ট, পাকস্থলি, কোলন, লিভার, কিডনি, জরায়ু, ওভারি, প্রস্টেট ক্যান্সার ইত্যাদি)।

২) ব্লাড ক্যান্সার(লিউকেমিয়া, লিম্ফোমা, মাল্টিপল মায়েলোমা ইত্যাদি)।

প্রশ্ন ঃ ব্লাড ক্যান্সার কি ও কেন হয়?

## সুনির্দিষ্ট কোন কারণ ছাড়াও ব্লাড ক্যান্সার হতে পারে। তবে রেডিয়েশন, ইন্ডাস্ট্রিয়াল কেমিক্যাল, কীটনাশক বা পেস্টিসাইড, ভেজাল খাবার, হেয়ার ডাই, লুব্রিকেন্টস, বার্ণিশ, কেমোথেরাপি ড্রাগস ও কিছু জেনেটিক অসুখ দায়ী থাকতে পারে।

 উপরোক্ত যে কোন কারনে অস্থিমজ্জার ভিতরের রক্তের মাদার সেল(স্টিমসেল) এর মিউটেশন বা অন্য কোনো পরিবর্তন হলে ক্যান্সার সেল বা অপরিপক্ক কোষ তৈরি হয় যা অস্থিমজ্জার ভিতরে অতিদ্রুত বৃদ্ধি হয় এবং রক্তে প্রবাহিত হয়। গ্লান্ড ও প্লীহা বৃদ্ধি পায়।

প্রশ্ন ঃ ব্লাড ক্যান্সার কাদের হয়?

## যেকোনো বয়সে, যেকোনো জেন্ডারেরই ব্লাড ক্যান্সার হতে পারে।

প্রশ্ন ঃ ব্লাড ক্যান্সারের উপসর্গ ও লক্ষণ কি কি?

১) রক্ত স্বল্পতার জন্য দূর্বলতা, খাবারের অরুচি, বুক ধড়ফড়, পায়ে পানি জমে যাওয়া, ফ্যাকাসে হয়ে যাওয়া ইত্যাদি।

২) দীর্ঘদিনের জ্বর বা ঘন ঘন জ্বর হওয়া।

৩) অস্বাভাবিক রক্তক্ষরণ (শরীরে র‌্যাশ, দাতের গোড়া- প্রসাব-পায়খানা-কাশির সাথে রক্ত পড়া, মাসিক বেশি হওয়া ইত্যাদি)।

৪) গ্লান্ড ফুলে যাওয়া, লিভার- প্লীহা বড় হওয়া।

৫) হাড়ে ব্যথা, কোমর ব্যথা।

প্রশ্ন ঃ উপসর্গ ও লক্ষণ গুলো কেন হয়?

## অস্থিমজ্জার ভেতর ক্যান্সার সেল(ব্লাস্ট) এত বেশি বেড়ে যায় যে লোহিত রক্তকনিকা ও অণুচক্রিকা বৃদ্ধি হওয়ার মতো জায়গা পায় না ফলে ঘাটতি দেখা দেয়। লোহিত রক্ত কনিকার ঘাটতিতে রক্ত স্বল্পতা, প্লেটলেট (অণুচক্রিকার) ঘাটতিতে রক্তক্ষরণ হতে থাকে। অস্বাভাবিক স্বেত রক্ত কনিকার কারনে ইনফেকশন বা জ্বর। অস্থিমজ্জার মধ্যে ক্যান্সার সেল ধারণ ক্ষমতার বাহিরে চলে গেলে হাড্ডির ভিতর অসহ্য ব্যথা শুরু হয়। অস্বাভাবিক রক্ত কনিকা(ক্যান্সার সেল) গ্লান্ড-লিভার-প্লীহায় জমতে বা ভাংতে থাকলে গ্লান্ড-লিভার-প্লীহা বড় হয়।

প্রশ্ন ঃ ব্লাড ক্যান্সার কি ছোয়াচে রোগ?

## না, ব্লাড ক্যান্সার কোনো ছোয়াচে রোগ নয়।

প্রশ্ন ঃ ব্লাড ক্যান্সারগুলো কি কি?

## লিউকেমিয়া, লিম্ফোমা, মাল্টিপল মায়েলোমা হচ্ছে ব্লাড ক্যান্সার।

লিউকেমিয়া মুলতঃ দুই ধরনের। একিউট লিউকেমিয়া ও ক্রনিক লিউকেমিয়া।

একিউট লিউকেমিয়া আবার দুই ধরনের যথা ১) একিউট মায়েলোব্লাস্টিক লিউকেমিয়া বা এএমএল এবং ২) একিউট লিম্ফোব্লাস্টিক লিউকেমিয়া বা এএলএল.

ক্রনিক লিউকেমিয়াও দুই ধরনের যেমনঃ ১) ক্রনিক মায়েলোয়েড লিউকেমিয়া বা সিএমএল ও ২) ক্রনিক লিম্ফোসাইটিক লিউকেমিয়া বা সিএলএল।

লিম্ফোমা নামক ব্লাড ক্যান্সার দুই ধরনের যেমন ঃ হজকিনস লিম্ফোমা ও নন হজকিনস লিম্ফোমা।

 মাল্টিপল মায়েলোমাও ব্লাডের স্বেত রক্ত কনিকা “বি লিম্ফোসাইট” থেকে তৈরি প্লাজমা সেল ক্যান্সার। এতে রক্তস্বল্পতা, কোমর ব্যথা, হাড় ক্ষয় ও কিডনির সমস্যা হয়ে থাকে।

প্রশ্ন ঃ কিভাবে ব্লাড ক্যান্সার নির্ণয় করা হয়?

## ব্লাড ক্যান্সারের উপসর্গ ও লক্ষণ গুলোর সাথে সাথে রক্তের সিবিসি পরীক্ষায় অস্বাভাবিকতা দেখা দেয় যেমনঃ হিমোগ্লোবিন,  ডব্লিউবিসি এবং প্লেটলেট কমে যাওয়া অথবা বেড়ে যাওয়া।

 বোনম্যারো টেস্ট, ফ্লোসাইটোমেট্রি, মলিকুলার সাইটোজেনেটিক টেস্ট এবং এনজিএস টেস্ট করে ব্লাড ক্যান্সার নির্ণয় করা হয়ে থাকে।

 লিম্ফোমা নামক ব্লাড ক্যান্সারের ক্ষেত্রে গ্লান্ড বা টিস্যু বায়োপসি এবং পরবর্তীতে  ইমিউনোহিস্টোকেমিস্ট্রি করা লাগে।

প্রশ্ন ঃ ব্লাড ক্যান্সারের চিকিৎসা কি?

সাধারণত কেমোথেরাপি, মলিকুলার টার্গেটেড থেরাপি, ইমিউনো থেরাপি এবং কিছু ক্ষেত্রে অস্থিমজ্জা প্রতিস্থাপন (বিএমটি) করে ব্লাড ক্যান্সারের চিকিৎসা করা হয়। কি ধরনের ঔষধ বা থেরাপি দিতে হবে এবং ফলাফল কি হবে তা জানার জন্য লিউকেমিয়া, লিম্ফোমা, মায়েলোমাকে নির্ভুল পরীক্ষার মাধ্যমে বিভিন্ন উপভাগে ভাগ করা হয়।

প্রশ্ন ঃ ব্লাড ক্যান্সার কি ভালো হয়?

## ব্লাড ক্যান্সার মানেই মরণ ব্যাধি নয়। সঠিক সময়ে সঠিকভাবে রোগ নির্ণয় করে সঠিক চিকিৎসা নিলে অনেক ব্লাড ক্যান্সার ভালো হয় ও নিয়ন্ত্রনে রাখা যায়।

একিউট লিউকেমিয়া খুবই মারাত্মক। দ্রুত চিকিৎসা শুরু করতে হয়।

একিউট মায়েলোব্লাস্টিক লিউকেমিয়া(এএমএল) মূলত আট প্রকারের যেমন ঃ এম-০,১,২,৩,৪,৫,৬ ও ৭।

 এদের মধ্যে এএমএল এম-৩ বা এপিএল নামক ব্লাড ক্যান্সারকে পর্যায় বুঝে কেমোথেরাপি না দিয়ে শুধু ঔষধ দিয়ে চিকিৎসা করলে সম্পুর্ন সুস্থ হওয়ার সম্ভবনা শতকরা ৯৫ ভাগের বেশি।

 অন্যান্য এএমএল কেমোথেরাপি দিয়ে টানা ৪ মাস চিকিৎসা করলে ভাল হওয়ার সম্ভবনা থাকে কিন্তু ব্যয় বহুল।

যে প্রকারেরই একিউট লিম্ফোব্লাস্টিক লিউকেমিয়া (এএলএল) হোক না কেন, চিকিৎসা অত্যন্ত ব্যয়বহুল এবং দীর্ঘমেয়াদি। শুধু কেমোথেরাপি দিয়ে চিকিৎসা করলে দুই থেকে আড়াই বছর চিকিৎসা নিতে হয়।

 ক্রনিক লিউকেমিয়ারও প্রকারভেদ আছে। চিকিৎসার ধরণও ভিন্ন ভিন্ন। ক্রনিক লিউকেমিয়ার রুগী সঠিক চিকিৎসা নিয়ে অনেকদিন ভালোভাবে জীবন যাপন করতে পারে।

 মলিকিউলার টার্গেটেড থেরাপি আবিষ্কার হওয়ায় অনেক ক্যান্সার কিউর হয়। ক্রনিক মায়েলোয়েড লিউকেমিয়া (সিএমএল) মলিকুলার টার্গেটেড থেরাপি দিয়ে চিকিৎসা করলে ভালো হওয়ার সম্ভবনা শতকরা ৮৫ ভাগের বেশি।

 কিছু একিউট লিউকেমিয়া(এএমএল/এএলএল) এবং লিম্ফোমা নামক ব্লাড ক্যান্সারের জন্য  অস্থিমজ্জা প্রতিস্থাপন (বিএমটি) ছাড়া কার্যকর কোন চিকিৎসা নাই যা অত্যন্ত ব্যয় বহুল ও অপ্রতুল। 

প্রশ্ন ঃ বাংলাদেশে ক্যান্সার চিকিৎসার প্রতিবন্ধকতা কি?

১) গুনগত মানের ল্যাব ও দক্ষ জনবলের অভাব দূর করতে হবে কারণ ক্যান্সার চিকিৎসার পূর্ব শর্ত হলো সঠিকভাবে রোগ নির্ণয়।

২) রাষ্ট্রীয়ভাবে ক্যান্সার রোগীর আর্থিক সহায়তা বাড়ানো দরকার কারণ ক্যান্সার চিকিৎসা দীর্ঘমেয়াদি ও ব্যয়বহুল।

৩) ওয়ান স্টপ সার্ভিস ঃ বাংলাদেশে ক্যান্সার চিকিৎসার ওয়ান স্টপ সার্ভিস নাই। স্বাস্থ্য অব্যবস্থাপনা কমিয়ে আনতে হবে।

৪) টীম ওয়ার্ক ঃ দক্ষ টেকনোলজিষ্ট, নার্স ও চিকিৎসক ক্যান্সার নির্ণয় ও চিকিৎসার জন্য অত্যাবশ্যক। সরকারী বেসরকারী পর্যায়ে ভালো টীম ওয়ার্ক বাড়াতে হবে। চিকিৎসার জন্য শুধু চিকিৎসক একমাত্র উপাদান নয়।

 জাতীয় হেমাটোলজি ইনস্টিটিউট প্রতিষ্ঠা করে ওয়ান স্টপ সার্ভিস দেওয়া যেতে পারে।

 লেখক ঃ ডাঃ মোঃ কামরুজ্জামান, রক্তরোগ মেডিসিন, ব্লাড ক্যান্সার ও বিএমটি ফিজিশিয়ান, সহযোগী অধ্যাপক ও বিভাগীয় প্রধান স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ মিটফোর্ড হাসপাতাল। চেম্বার ঃ ১) পপুলার ডায়াগনস্টিক সেন্টার, ধানমন্ডি-২, ঢাকা। শনি-বৃহস্পতিবার। মোবাইল ঃ ০১৯১৯-৩৪৪৩০৮ এবং ২) নুর স্পেশালাইজড হাসপাতাল ফরিদপুর(শুক্রবার), মোবাইল ঃ ০১৯১২-৪২৪১৪২।

 

জেলা প্রশাসনের উগ্যোগে রাজবাড়ীতে জাতীয় স্থানীয় সরকার দিবস পালিত
পবিত্র শবে বরাতের রাত বা ভাগ্য রজনী
বাঙালীর ২১শে ফেব্রুয়ারী ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস
সর্বশেষ সংবাদ