ঢাকা শনিবার, ডিসেম্বর ৫, ২০২০
মীর মশাররফ হোসেনের সাহিত্য সাধনা ও শিল্প নৈপুণ্য
  • প্রফেসর ডঃ ফকীর আবদুর রশীদ
  • ২০২০-১১-১৩ ০০:১৭:২৫

ঊনবিংশ শতকে যখন সমগ্র উপমহাদেশ বৃটিশ শাসনের অমানিশার অন্ধকারে আচ্ছন্ন, পরাধীনতার যাঁতাকলে নিষ্পেষিত এ দেশের মানুষ যখন স্বাধীনতার আলোকের আশায় হাসি মুখে জীবনের জয়গান গেয়ে চলেছে ফাঁসির মঞ্চে, এদেশের মুসলিম জনতা যখন শিক্ষা ও সংস্কৃতি ক্ষেত্রে সকলের পিছে সকলের নীচে দণ্ডায়মান হয়ে হা-হুতাশ করছে, ঠিক তেমনি এক দুঃসময়ের ক্রান্তিলগ্নে আবির্ভাব ঘটেছিল মীর মশাররফ হোসেনের (১৮৪৭-১৯১১) এক প্রতাপশালী জমিদার পরিবারে। সম-সাময়িককালে কিঞ্চিৎ পূর্বে আবির্ভূত হয়েছেন বাংলার সামন্ত যুগের সাহিত্যিক প্রতিনিধি তথা সাহিত্য সম্রাট বঙ্কিম চন্দ্র চট্টোপাধ্যায়(১৮৩৮-১৮৯৪)। বাংলার জমিদার শ্রেণীর তথা উচ্চ মধ্যবিত্ত পরিবারের জীবন প্রবাহ, চাল-চলন, আচার-আচরণ, সুখ-দুঃখ, প্রেম-বিরহ ইত্যাদি তাঁর উপন্যাস ও অন্যান্য গদ্য রচনায় বিধৃত হয়েছে। ইংরেজী শিক্ষায় উচ্চ শিক্ষিত এবং বৃটিশ সরকারে দায়িত্বশীল কর্মকর্তা হিসেবে তাঁর রচনায় তাঁর প্রতিচ্ছবি প্রতিবিম্বিত। তিনি প্রাচীন ধ্যান-ধারণার দ্বারা প্রভাবিত হয়ে সমাজ সংস্কারের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছেন, নব্য ভাবতীয় সমাজ রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার স্বপ্ন দর্শন করেছেন, কখনো শিল্পী বঙ্কিমের অপমৃত্যু ঘটেছে আদর্শবাদী ও প্রচারক বঙ্কিমের কাছে। ঠিক এমনি এক সময় যখন সারা উপমহাদেশে মুসলিম জাতি গভীর নিদ্রায় নিদ্রিত, অবিচার, বঞ্চনা ও লাঞ্ছনার শিকার; শিক্ষা, সংস্কৃতি ও সাহিত্য ক্ষেত্রে অনগ্রসর, ঠিক তেমনি এক অন্ধকার যুগে মীর মশাররফ হোসেনের আধুনিক বাংলা সাহিত্যাকাশে আবির্ভাব ভোরের উজ্জ্বল শুকতারার ন্যায়। তাঁর রচিত ৪২ খানা গ্রন্থের মধ্য দিয়ে বাঙালী মুসলিম সমাজে তথা বাংলা সাহিত্য ক্ষেত্রে এক অনন্য ও অনবদ্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেন, পরবর্তী প্রায় সব কবি-সাহিত্যিকই কম-বেশী তার পদাংক অনুসরণ করেছেন। তাঁর রচনায় জমিদারী প্রথার কুফল এবং জমিদার শ্রেণীর অত্যাচার, শোষণ ও অসংযমী চরিত্র এবং লোভ-লালসাপূর্ণ স্বভাবের চিত্র প্রতিবিম্বিত হয়েছে। তাঁর রচিত জমিদার দর্পণ (১৮৬৯) নাটক জমিদারী প্রথার বিরুদ্ধে এক বলিষ্ঠ পদক্ষেপ এবং সম-সাময়িককালের এক ব্যতিক্রমধর্মী ও বিদ্রোহাত্মক রচনা; এই নাটকটির প্রচার নিষিদ্ধ করার সপক্ষে বৃটিশ সরকারের কাছে বঙ্কিম চন্দ্রের আবেদন-এই কথার সত্যতা প্রমাণ করে। তাঁর রচিত ‘গাজী মিয়ার বস্তানী’ (১৮৯৯) তাঁর সমাজ সচেতন মনের গভীর পরিচয় বাহক। জমিদারদের অত্যাচার, জুলুম, সংযমহীন স্বভাব, আরাম-আয়েশ, অমিতব্যয়িতা ও দুশ্চরিত্রের প্রতিচ্ছবি, সমাজের অসৎ ব্যক্তিদের বিচিত্র জীবন চিত্র, ক্ষয়িষ্ণু উচ্চ মধ্যবিত্ত শ্রেণীর সমাজ ও জীবণাচারণ এবং অসংযমী জীবনের শেষ পরিণতি-এসবের বাস্তব ছবিগুলো প্রতিবিম্বিত হয়েছে এ গ্রন্থে। সাহিত্যে অসাম্প্রদায়িকতা, সাধারণ মানুষের জীবনের খণ্ড ছবি ও গণসাহিত্যের বীজ রোপণের কৃতিত্ব সমন্বয়পন্থী উদার সাহিত্যিক মীর মশাররফ হোসেনেরই প্রথম, এ কথা অনস্বীকার্য।

  ইসলামের ইতিহাস ও ঐতিহ্য থেকে উপকরণ নিয়ে আপন মনের মাধুরী ও রূপ-রস-গন্ধ-বর্ণ মিশিয়ে এক অপূর্ব সুষমামন্ডিত তাজমহল নির্মাণ করেছেন ‘বিষাদ সিন্ধু’ (১৮৮৫-৯১) রূপ মহাকাব্যতে। বাংলা সাহিত্যের ইতিহাসে এ এক অভূতপূর্ব সৃষ্টি। বাংলার ঘরে ঘরে সর্বাধিক পরিচিত ও পঠিত গ্রন্থ হিসেবে ‘বিষাদ সিন্ধু’ এখনো শীর্ষে-এতে কোন সন্দেহ নেই। ৪২ খানা গ্রন্থ রচনার মধ্য দিয়ে আবির্ভূত হয়েছেন তিনি আধুনিক মুসলিম সাহিত্যের রূপকার ও দিশারীরূপে পথিকৃত ও জনক রূপে।

  এ কথা অবশ্যই শ্রদ্ধার সাথে স্মরণীয় যে, মীর মশাররফ হোসেন প্রথম মুসলিম ঔপন্যাসিক। তিনি প্রথম মুসলিম ঔপন্যাসিক হওয়ার গৌরব অর্জন করেন “রত্নাবতী” (১৮৭৩) উপন্যাস রচনা করে। তিনিই প্রথম মুসলিম নাট্যকার হওয়ার গৌরব অর্জন করেছেন ‘জমিদার দর্পণ’ (১৮৬৯) নাটক রচনা করে। দীনবন্ধু মিত্রের নীল দর্পণের চেয়েও এটি একটি অধিক শক্তিশালী গণমুখী চেতনায় সমৃদ্ধ নাট্য কর্ম। আরো স্মতর্ব্য যে, প্রথম মুসলিম প্রহসন রচয়িতাও মীর মশাররফ হোসেন। তাঁর প্রথম প্রহসন ‘এর উপায় কী?’ (১৮৭৬) রচনা করে তিনি প্রথম মুসলিম প্রহসন রচয়িতাদের পথিকৃৎ হয়েছেন। সর্বাধিক গৌরবজনক ব্যাপার হচ্ছে মীর মশাররফ হোসেনই মুসলিম সাংবাদিকতার জনক। তিনিই প্রথম মুসলিম সাহিত্য সাধক যিনি পত্রিকা সম্পাদক হিসেবে ‘আজিজন নেহার’ ও হিতকরী (১৮৯০) পত্রিকা সম্পাদনা করে ভবিষ্যৎকালের সাংবাদিকদের নিকট প্রাতঃস্মরণীয় হয়ে রইলেন।

  অমর এই সাহিত্য শিল্পীর আবির্ভাব ও প্রতিষ্ঠা সত্য সত্যই উনিশ শতকের বাংলা সাহিত্য ক্ষেত্রে এক বিস্ময়কর ও অভূতপূর্ব ঘটনা। প্রতিভার গুণে ও শিল্প নৈপুণ্যের কারণে তিনি সমকালীন সাহিত্যাঙ্গনে পাঠক-সমালোচকদের সপ্রশংস মনোযোগ আকর্ষণে সক্ষম হন। তাঁর জীবন ও সাহিত্য সাধনা তৎকালীন বাঙালী মুসলিমদের জীবন সাধনা, মন-মানসিকতা ও চিন্তা-চেতনার সঙ্গে গভীরভাবে সম্পৃক্ত। তাঁর রচনার বিষয় বৈচিত্র্য, প্রকাশ নৈপুণ্য, সমাজ মনস্কতা, সর্বোপরি অসাম্প্রাদায়িক চেতনা ও অকপট স্বীকারোক্তি তাঁকে শিল্পী হিসেবে এক স্বতন্ত্র মর্যাদার আসনে অধিষ্ঠিত করেছে। তাঁর বিভিন্ন রচনার মধ্য দিয়ে যে শিল্প নৈপুণ্যের পরিচয় পরিস্ফুট হয়ে উঠেছে, তা অনন্য, অসাধারণ ও অভূতপূর্ণ। তাঁর এহেন সাধনা ও প্রয়াসের মাধ্যমেই বাংলা শিল্প-সাহিত্য চর্চার মূল ধারার সাথে প্রথম মুসলিম সমাজের যোগসূত্র স্থাপিত হয়। কাজী নজরুল ইসলামের পূর্বে মীর মশাররফ হোসেনই প্রথম মুসলিম সাহিত্য শিল্পী, যিনি আপন মহিমায় আপন প্রতিভার গুণে এবং স্বকীয় শিল্প নৈপূণ্যে বাংলা সাহিত্যে এক সম্মানজনক আসন লাভ করেন এবং আগামী দিনের সাহিত্যিকদের জন্য রেখে যান অনুকরণীয় আদর্শ। তাঁর পূর্বে মুসলিম কবি লেখকবৃন্দ দোভাষী পুঁথির মধ্যেই আবদ্ধ ছিলেন। মীর মশাররফ হোসেনই প্রথম সেই বেড়াজাল ছিণ্ন করে সাহিত্যকে শিল্পের মানদণ্ডে উন্নীত করে আধুনিকতার বিশাল পরিমণ্ডলের সন্ধান প্রদান  করেন- যা পরবর্তীকালেও অনুকৃত-অনুসৃত হয়েছে। মীর মশাররফ হোসেন কেবল যে মুসলিম সম্প্রদায়েরই অন্যতম শ্রেষ্ঠ লেখক তা নয়, বাংলা সাহিত্যের সামগ্রিক প্রেক্ষাপটেও তিনি একজন স্মরণীয় ও বরণীয় শিল্প স্রষ্টা। তিনি তাঁর রচনা শৈলীর বলিষ্ঠতায় ও শিল্প নৈপুণ্যে কালোত্তীর্ণ বাংলা সাহিত্যের এক উল্লেখ্যযোগ্য ও স্মরণীয় ব্যক্তিত্ব।

  ১৮৬৫ থেকে ১৯১০ সাল পর্যন্ত প্রায় ৪৫ বছর তাঁর শিল্প-সাহিত্য সৃষ্টির সময়কাল। তিনি ছিলেন বিচিত্রধর্মী লেখক। সাহিত্যের প্রায় সকল শাখাতেই তাঁর বিচরণ লক্ষণীয়। উপন্যাস, উপাখ্যান নকশা, নাটক, প্রহসন, পদ্য কবিতা সঙ্গীত প্রবন্ধ, জীবনী, আত্মজীবনী, পাঠ্যপুস্তক, ধর্মপুস্তক প্রভৃতি সকল ক্ষেত্রেই তিনি লেখনী চালনা করেছেন। তাঁর গ্রন্থ সংখ্যা ৪২। তার মধ্যে সমধিক উল্লেখযোগ্য গ্রন্থ ঃ বিষাদ সিন্ধু, জমিদার দর্পণ, রত্নাবতী, বসন্ত কুমারী নাটক, গাজী মিয়ার বস্তানী, উদাসীন পথিকের মনের কথা ও আমার জীবনী। 

মীর মশাররফ হোসেনের গ্রন্থপঞ্জি ঃ প্রকাশিত গ্রন্থ- 

১। রত্নাবতী (উপন্যাস) প্রকাশকাল ঃ ২ সেপ্টেম্বর ১৮৬৯। 

২। গোরাই ব্রিজ অথবা গৌরী সেতু (পদ্য)। প্রকাশকাল ঃ ২৫ জানুয়ারী, ১৮৭৩। 

৩। বসন্ত কুমারী নাটক। প্রকাশকাল ঃ ২ ফেব্রুয়ারী, ১৮৭৩। 

৪। জমিদার দর্পণ। নাটক। প্রকাশকাল ঃ ১ মে ১৮৮৩। 

৫। এর উপায় কী ? প্রহসন। প্রকাশকাল ঃ ১৮৭৫। 

৬। বিষাদ সিন্ধু। ইতিহাসাশ্রয়ী উপন্যাস। প্রকাশকাল ঃ ১ মে ১৮৮৫। 

৭। সঙ্গীয় লহরী। ১ম খণ্ড। সংগীত সংকলন। প্রকাশকাল ঃ ৪ আগস্ট ১৮৮৭। 

৮। গো-জীবন। প্রবন্ধ। প্রকাশকাল ঃ ৮ মার্চ ১৮৮৯। 

৯। বেহুলা গীতাভিনয়। নাটক। প্রকাশকাল ঃ ২ জুন ১৮৮১। 

১০। উদাসীন পথিকের মনের কথা। ইতিহাসাশ্রয়ী উপন্যাস। প্রকাশকাল ঃ ২৯ আগস্ট ১৮৯০। 

১১। মৌলুদ শরীফ। গদ্যে পদ্যে রচিত ধর্মপুস্তক। প্রকাশকাল ঃ ২ নভেম্বর ১৮৯৪। 

১২। গাজী মিয়ার বস্তানী। ১ম অংশ। নকশাধর্মী উপন্যাস। প্রকাশকাল ঃ ১৮৯৯। 

১৩। মুসলমানের বাঙ্গলা শিক্ষা। শিশু শিক্ষা পাঠ্যপুস্তক। প্রকাশকাল ঃ ১ অক্টোবর ১৯০৩। 

১৪। উপদেশ। হযরত লোকমানের উপদেশের পদ্যানুবাদ। প্রকাশকাল ঃ আশ্বিন ১৩২২। 

১৫। বিবি খোদেজার বিবাহ। কবিতা। প্রকাশ কাল ঃ ২৫ মে ১৯০৫। 

১৬। হজরত ওমরের ধর্ম জীবন লাভ। কবিতা। প্রকাশ কাল ঃ ১১ আগস্ট  ১৯০৫। 

১৭। হজরত বেলালের জীবনী। কবিতা। প্রকাশকাল ঃ ২৫ সেপ্টেম্বর ১৯০৫। 

১৮। হজরত আমীর হামজার ধর্ম জীবন লাভ। কবিতা। প্রকাশকাল ঃ ১০ নভেম্বর ১৯০৫। 

১৯। মদিনার গৌরব। কবিতা। প্রকাশকাল ঃ ১৫ ডিসেম্বর ১৯০৬। 

২০। মোস্লেম বীরত্ব। কবিতা। প্রকাশকাল ঃ ২০ জুলাই ১৯০৭। 

২১। এসলামের জয়। ইতিবৃত্ত। প্রকাশকাল ঃ ০৪ আগস্ট ১৯০৮। 

২২। আমার জীবনী। আত্মচরিত। প্রকাশকাল ঃ ১৯ সেপ্টেম্বর ১৯০৮। 

২৩। বাজীমাৎ। কবিতা। প্রকাশকাল ঃ ডিসেম্বর ১৯০৮। 

২৪। ঈদের খোতবা। আরবী খোতবার পদ্যানুবাদ। প্রকাশকাল ঃ ১২ জুলাই ১৯০৯। 

২৫। বিবি কুলসুম। জীবনী। প্রকাশকাল ঃ ৯ মে ১৯১০। 

বিজ্ঞাপিত গ্রন্থ ঃ

২৬। প্রেম পারিজাত/হযরত ইউসুফ। 

২৭। ভাই ভাই এইত চাই। প্রহসন। 

২৮। এ কী ? প্রহসন। 

২৯। টালা অভিনয়। প্রহসন। 

৩০। পঞ্চনারী পদ্য। কবিতা। 

৩১। রাজিয়া খাতুন। উপন্যাস। 

৩২। তহ্মিনা। উপন্যাস। 

৩৩। বাঁধা খাতা। উপন্যাস। 

৩৪। নিয়তি কী অবনতি। সম্পূর্ণ সত্য ঘটনামূলক জীবন্ত উপন্যাস। 

৩৫। গাজী মিয়ার গুলি। রম্য রচনা। 

৩৬। বৃহৎ হীরক খনি। শিশুতোষ পাঠ্য পুস্তক।  

অপ্রকাশিত রচনাঃ

৩৭। আমার জীবনী। আত্মচরিতের খণ্ডাংশ। 

৩৮। দিনলিপি। ডায়েরী। 

৩৯। চোরের উপর বাটপারি। কাহিনী ধর্মী রচনা। 

৪০। ওফাতে রসুল। পদ্য রচনা। 

৪১। শবে মেরাজ। পদ্য রচনা। 

৪২। আক্কাসের বিবরণ। পদ্য রচনা। 

সম্পদিত পত্রিকা ঃ 

১। আজিজন নেহার (১৮৯০) 

২। হিতকরী (১৮৯০) 

  মূলত মীর মশাররফ হোসেন অসাম্প্রদায়িক ও প্রগতিশীল চেতনায় লালিত ছিলেন। মুক্তবুদ্ধির প্রেরণা তাঁর লেখক সত্ত্বাকে সুতীব্রভাবে প্রভাবিত করেছে। ধর্মনিষ্ঠ ও স্বজাতি বৎসল হলেও তিনি ভিন্ন ধর্ম বা জাতির প্রতি বিরূুপ মনোভাব পোষণ করেননি। সম্প্রদায় সম্প্রীতির জন্য তাঁর গভীর আগ্রহ ও একান্ত প্রচেষ্টা ছিল উদার ও আন্তরিক। বাঙালী হিন্দু এবং মুসলমান এর মধ্যে কোন বিরোধ তিনি কখনো স্বীকার করেননি। ভাষা ব্যবহারে তিনি যে উদার ও মুক্তমনের পরিচয় প্রদান করেছেন, তা যথার্থই অপূর্ব ও দৃষ্টান্তমূলক। 

  এই মহান ও অমর সাহিত্যিক ১৮৪৭ সালে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের নদীয়া জেলার (বর্তমানে কুষ্টিয়া জেলা) লাহিনীপাড়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন এবং ১৯১১ সালে ফরিদপুর জেলার (বর্তমানে রাজবাড়ী জেলার) বালিয়াকান্দি উপজেলার পদমদী গ্রামে দেহত্যাগ করেন এবং পদমদী নবাব মীর মোহাম্মদ আলীর বাড়ীর উত্তর পার্শ্বে সমাধিস্থ হন। অথচ পরিতাপের বিষয় এই যে, ১৯৬১ সাল পর্যন্ত পদমদী ও তার পার্শ্ববর্তী এলাকাবাসীরা ‘বিষাদ সিন্ধু’র অমর লেখক মীর মশাররফ হোসেনের মাজার যে পদমদীতে অবস্থিত তা জানতো না। শুধু তাই নয়, মাজারটি অবহেলিত অবস্থায় গভীর জঙ্গলের মধ্যে পড়ে ছিল, বট-পাকুর ও অন্যান্য গাছপালা ও লতাপাতা দ্বারা এমনভাবে ভেঙ্গেচুরে নষ্ট হয়ে গিয়েছিল যে, তা জনসম্মুখে বের করে আনাই ছিল দুরূহ ব্যাপার।

  ১৯৬১ সালে পার্শ¦বর্তী গ্রামে দক্ষিণবাড়ীর ফকীর আব্দুর রশীদ (পরবর্তীতে সরকারী কলেজের অধ্যাপক ও অধ্যক্ষ ডঃ ফকীর আব্দুর রশীদ) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতকোত্তর শ্রেণীতে অধ্যয়নকালে প্রফেসর আব্দুল হাই ও প্রফেসর মুনীর চৌধুরীর নির্দেশক্রমে পদমদীর গভীর জঙ্গল থেকে ভঙ্গুর ও অবহেলিত অবস্থায় পড়ে থাকা মাজারটির সন্ধান পান এবং জঙ্গল পরিষ্কার করে সেটিকে জনসমক্ষে আনেন। এ কাজে তাঁর সাথে যারা সম্পৃক্ত হন, তাঁরা হলেন ঃ তদীয় কনিষ্ঠ ভ্রাতা ফকীর আব্দুর রাজ্জাক (পরবর্তীতে যুব আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সভাপতি এবং দৈনিক বাংলার বাণী পত্রিকার সিনিয়র সহ-সম্পাদক), খন্দকার নজরুল ইসলাম (পরবর্তীতে স্থানীয় গ্রাম্য চিকিৎসক) খন্দকার আমজাদ আলী, শেখ কমির উদ্দিন, সৈয়দ শাজাহান, সৈয়দ মঞ্জুরুল হক, পিয়ারা মিয়া, হানিফ শেখ এবং আরো কয়েকজন স্থানীয় ছাত্র-যুবক। পদমদী নবাববাড়ী হাটের উপর এ সময় তারা ‘মীর মশাররফ হোসেন ক্লাব’ গঠন করেন। পরে নবাব স্কুলের নামকরণ করা হয় মীর মশাররফ হোসেন বিদ্যালয়। লক্ষণীয় যে পদমদী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে একসময় মীর মশাররফ হোসেন ও ছাত্র ছিলেন। এ বিদ্যালয়টি রাজবাড়ী জেলার প্রাচীনতম বিদ্যালয় এবং এটি প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল ১৮৪৫ সালে। 

  ১৯৬৬ সালে ফরিদপুর সাহিত্য ও সংস্কৃতি উন্নয়ন সংস্থার অর্থানুকূল্যে মীর মশাররফ হোসেনের মাজারটির সংস্কার করা হয়। রাজবাড়ী সাহিত্য মজলিস, রাজবাড়ী সাহিত্য পরিষদ, রাজবাড়ী থেকে প্রকাশিত (১৯৬৫-১৯৬৮) মাসিক ‘চন্দনা’ পত্রিকা ও ‘মীর মশাররফ হোসেন স্মৃতি পরিষদের মাধ্যমে মাজার সম্পর্কে সরকারের দৃষ্টি আকর্র্ষণ করা হয়। দু’বার স্মারকলিপিও প্রদান করা হয়। রাজবাড়ীতে স্মৃতি পরিষদের মাধ্যমে মীর মশাররফ হোসেন ক্লাব ও পাঠাগার এবং জনগণের প্রচেষ্টায় সোনাপুরে মীর মশাররফ হোসেন কলেজ প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। সরকারী অর্থানুকূল্যে বাংলা একাডেমীর উদ্যোগ ও পরিচালনায় মীর মশাররফ হোসেন স্মৃতি কমপ্লেক্স প্রতিষ্ঠিত হয় এবং ২০০১ সালের ১৯শে এপ্রিল এটি উদ্বোধন করেন তৎকালীন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা শেখ হাসিনা। প্রতি বছর বাংলা একাডেমীর উদ্যোগ ও পরিচালনায় এবং জেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় পদমদীর মাজার কমপ্লেক্স প্রাঙ্গণে তাঁর জন্ম ও মৃত্যু বার্ষিকীতে মিলাদুন্নবী, আলোচনা সভা ও অন্যান্য অনুষ্ঠানাদী পালন করা হয়। বাংলা সাহিত্যের আধুনিক যুগের সেই প্রাতঃকালে মাত্র কয়েকজন সাহিত্য কর্মী যখন সবেমাত্র পদচারণা শুরু করেছেন, সেই কাকডাকা ভোরের পিচ্ছিল পথে একমাত্র মুসলিম সাহিত্যিক মীর মশাররফ হোসেন আবেগময়ী ভাষায় ও সুললিত ছন্দে ঘুমন্ত জাতিকে জেগে ওঠার জন্য জানিয়েছিলেন আহ্বান, দিয়েছিলেন পথের দিশা। আধুনিক বাংলা সাহিত্যের আকাশে তিনি ছিলেন শুকতারা, আধুনিক মুসলিম বাংলা সাহিত্যের জনক। (লেখক ঃ প্রফেসর ড. ফকীর আব্দুর রশীদ, সাবেক অধ্যক্ষ, রাজবাড়ী সরকারী কলেজ)

মীর মশাররফ হোসেনের সাহিত্য সাধনা ও শিল্প নৈপুণ্য
এক নক্ষত্রের পতন
হযরত ইমাম হোসাইন(আঃ) এঁর শাহাদত স্মরণে
সর্বশেষ সংবাদ