ঢাকা মঙ্গলবার, জানুয়ারী ২৬, ২০২১
স্মৃতিচারণ ঃ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান
  • প্রফেসর ডঃ ফকীর আবদুর রশীদ
  • ২০২০-১২-০৬ ০০:৩৪:০৪

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান শুধু বাংলাদেশের স্রষ্টা ও জাতির জনকই ছিলেন না, তিনি হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালী। স্বাধীনতা মানুষের জীবনের সর্বশ্রেষ্ঠ প্রাপ্তি। ইতিহাস খুঁজলে দেখা যায় যে, এই বঙ্গভূমি কোনদিনই স্বাধীনতার স্বাদ পায়নি; আর্য, অনার্য, গুপ্ত, সেন, শক, হুণ, পাঠান, মুঘল প্রভৃতি দেশী ও বহিরাগতগণ এই সুজলা-সুফলা, শস্য-শ্যামলা বাংলাদেশকে শোষণ ও পরাধীন করে শাসন করেছে, করেছে নির্যাতন আর অত্যাচার। স্বাধীন ও সার্বভৌম দেশ উপহার দিয়েছেন একমাত্র বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান; তাইতো তিনি জাতির পিতা, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালী তথা বাঙালী জাতির কর্ণধার।

  এই মহান ব্যক্তিত্বের সাথে আমার প্রথম সাক্ষাৎ ঘটে ১৯৫৬ সালে, আমি তখন রাজবাড়ী সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেণীর ছাত্র। ওই সময় স্কুলটির নাম ছিল “দি গোয়ালন্দ মডেল হাই ইংলিশ স্কুল”, রাজবাড়ী। গোয়ালন্দ হাই স্কুল হিসেবেই স্কুলের পরিচিতি ছিল। তৎকালীন গোয়ালন্দ মহকুমার মধ্যে এই স্কুলটিই ছিল শ্রেষ্ঠ; লেখাপড়ায়, পরীক্ষার ফলাফল বিবেচনায়-সমস্ত দিক দিয়েই স্কুলটি ছিল মহকুমার মধ্যে শ্রেষ্ঠ স্কুল। রাজবাড়ীতে রেল লাইনের দক্ষিণ পার্শে¦ বর্তমানে রাজবাড়ী সরকারী কলেজ সংলগ্ন পূর্ব দিকে অবস্থিত ছিল আর একটি হাই স্কুল, তার নাম “রাজা সূর্য কুমার ইনস্টিটিউশন” বা আর.এস.কে ইনস্টিটিউশন। রাজা সূর্য কুমার রায় বাহাদুর এ স্কুলটি স্থাপন করেন। আর গোয়ালন্দ হাই স্কুল স্থাপন করেছিলেন রাজবাড়ীর পার্শে¦ই বানীবহের জমিদার মহাশয়। এই দুই জমিদারের মধ্যে ছিল একটা দ্বন্দ্ব ও ক্ষমতার রেষারেষি। দুই জমিদারের মধ্যে মোটেই মিল মহব্বত ছিল না। এই কারণেই দুই স্কুলের মধ্যেও ছিল একই অবস্থা। এক স্কুলের ছাত্ররা অন্য স্কুলের ছাত্রদের দেখতে পারতো না, বরং বিভিন্ন সময় নানা ব্যাপারে ঝগড়া-মারামারি ইত্যাদি করতো। বিশেষ করে ফুটবল খেলার সময় দুই স্কুলের মধ্যে যখন বা যেদিন খেলা হতো, সেদিন স্কুলের সব ছাত্র লাঠিসোটা নিয়ে খেলা দেখতে উপস্থিত থাকতো এবং ছোট-খাটো কোন তুচ্ছ কারণ নিয়ে গোলমাল ও মারামারি হতো। বলা বাহুল্য এসব ব্যাপার নিয়ে কোর্ট-কাচারীও করা লাগতো। 

  রাজবাড়ীতে ডাঃ শেখ মোহাম্মদ এহিয়া নামে একজন খ্যাতিমান হোমিওপ্যাথিক ডাক্তার ছিলেন; তিনি ছিলেন গোপালগঞ্জের টুঙ্গীপাড়ার বাসিন্দা এবং তৎকালীন উদীয়মান জননেতা শেখ মুজিবুর রহমানের চাচাতো ভাই। শেখ মুজিবুর রহমান দলীয় কার্যকলাপ পরিচালনা করতে মাঝে মাঝে তখনকার গোয়ালন্দ মহকুমার মূল কেন্দ্র রাজবাড়ীতে ডাঃ শেখ মুহাম্মদ এহিয়া সাহেবের বাড়ীতে এসে থাকতেন। মূলতঃ গোয়ালন্দ মহকুমার দলীয় কার্যকলাপ ডাক্তার এহিয়া সাহেবের মাধ্যমেই পরিচালিত হতো। ঐ সময় (১৯৪৯-১৯৫৪ খ্রিঃ) শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন প্রথম আওয়ামী মুসলীম লীগের সহ-সম্পাদক, পরে সাধারণ সম্পাদক এবং পরবর্তী পর্যায়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পদ অলংকৃত করেন। ১৯৫৪ সনের জাতীয় নির্বাচনে বিপুল ভোটে মুসলিম লীগকে পরাজিত করে মুসলিম লীগ বিরোধী ধর্ম নিরপেক্ষ রাজনৈতিক দল যুক্তফ্রন্ট তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানে জয়লাভ করে এবং মন্ত্রীসভা গঠন করে। সেই সভার সর্বকনিষ্ঠ মন্ত্রী ছিলেন উদীয়মান জননেতা শেখ মুজিবুর রহমান। কিন্তু অল্প দিনের মধ্যেই ওই মন্ত্রীসভা ভেঙ্গে দিয়ে পাকিস্তানের দস্যুরা বিভিন্নভাবে পূর্ব পাকিস্তান তথা বাঙালীদের উপর শোষণ, নির্যাতন ও জুলুমের স্টীমরোলার চালানো শুরু করে। এ সময় বাংলার জাতীয়তাবাদ, অর্থনৈতিক মুক্তি, সাংস্কৃতিক চেতনা তথা রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতার মুক্তিদাতা ও ত্রাণকর্তা রূপে সম্মুখ সমরে এগিয়ে এসেছিলেন দেশের জনগণের বন্ধু প্রাণপ্রিয়তম ভাই আপামর জনগণের মুজিব ভাই, বাংলার সিংহ শেখ মুজিবুর রহমান।

  ১৯৫৬ সালে ফরিদপুর রাজেন্দ্র কলেজের ছাত্র মোশারফ হোসেন রাজবাড়ীতে এসে জানতে পারেন রাজবাড়ীর ছাত্রদের সম্পর্কে। তিনি মূলতঃ ছাত্রলীগ সংগঠনের ছাত্রনেতা হিসেবে সবকিছুর খোঁজ-খবর নেয়ার পর আমাদের রাজবাড়ীর দুই স্কুলের বিশেষ বিশেষ ছাত্রদের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করে রাজবাড়ীতে একটা আলোচনা সভা আহ্বান করেন। সভার স্থান ছিল চিত্রা সিনেমা হল। সভায় তৎকালীন গোয়ালন্দ মডেল হাই স্কুল ও আর.এস.কে ইনস্টিটিউশনের উচ্চ শ্রেণীর (বিশেষত নবম ও দশম শ্রেণী) ছাত্ররাই সেখানে উপস্থিত ছিল। ছাত্রদের মধ্যে গোয়ালন্দ হাই স্কুলের আবদুল হাকিম (দশম শ্রেণী), আবদুর রউফ রাজা (দশম শ্রেণী), ফকীর আবদুর রশীদ (দশম শ্রেণী) এবং আর.এস.কে ইনস্টিটিউশন থেকে শহীদুর রহমান সাদী (দশম শ্রেণী), আলতাফ হোসেন (দশম শ্রেণী) ও চিত্ত রঞ্জন গুহ (নবম শ্রেণী) এবং আরো কয়েকজন ছাত্র বক্তৃতা করেন। শেষ দিকে ফরিদপুর থেকে আগত মোশারফ হোসেন ভাইসহ কয়েকজন বক্তৃতা করার পর তারা আমাদের দুই স্কুলের ছাত্রদের নিয়ে শহরের শান্তি-শৃংখলা রক্ষার্থে সর্বসম্মতিক্রমে একটি কমিটি গঠন করলেন। 

  উক্ত কমিটি ছিল নিম্নরূপ ঃ সভাপতি-মুহাম্মদ আবদুল হাকিম, ১০ম শ্রেণী, গোয়ালন্দ মডেল হাই স্কুল; সহ-সভাপতি(১) শহীদুর রহমান (সাদী) ১০ম শ্রেণী, আর.এস.কে ইনস্টিটিউশন; সহ-সভাপতি(২) আবদুর রউফ রাজা, ১০ম শ্রেণী, গোয়ালন্দ মডেল হাই স্কুল; সাধারণ সম্পাদক -ফকীর আবদুর রশীদ, ১০ম শ্রেণী, গোয়ালন্দ মডেল হাই স্কুল; কোষাধ্যক্ষ- তোফাজ্জল হোসেন, ১০ম শ্রেণী, গোয়ালন্দ মডেল হাই স্কুল এবং উভয় স্কুলের আরও বেশ কয়েকজন ছাত্রকে সদস্য করা হয়। সভাপতি আব্দুল হাকিম ছিলেন ঐ সময়ের ১৯৫৪ সালের যুক্তফ্রন্টের নির্বাচনে রাজবাড়ী থেকে নির্বাচিত এডভোকেট আব্দুল ওয়াজেদ চৌধুরীর একান্ত সহযোগী ছাত্রনেতা এবং তিনি তখন এমএলএ (প্রাদেশিক পরিষদের সদস্য) আব্দুল ওয়াজেদ চৌধুরীর বাড়ীতেই থাকতেন। আবদুর রউফ(রাজা) ছিলেন হোমিওপ্যাথিক ডাক্তার আব্দুর রহমান সাহেবের ছেলে এবং রাজবাড়ীর নাট্য আন্দোলনের সংগঠক ও নাট্য কর্মী। শহীদুর রহমান সাদী ছিলেন আর,এস,কে ইনস্টিটিউশনের ১০ম শ্রেণীর ফার্স্ট বয়। ফকীর আবদুর রশীদ(এই নিবন্ধের লেখক) ছিলেন গোয়ালন্দ মডেল হাই স্কুলের জুনিয়র স্কলারশীপ হোল্ডার ১০ম শ্রেণীর ফার্স্ট বয়। চিত্ত রঞ্জন গুহ ছিলেন রাজনীতি ও সংস্কৃতি সচেতন ছাত্র এবং তোফাজ্জল হোসেন ছিলেন সংস্কৃতিভাবাপন্ন মেধাবী ছাত্র।

  রাজবাড়ী ছাত্র কমিটি গঠন করার পর মোশারফ হোসেন ফরিদপুর ভাটিয়াপাড়া ট্রেনে ঐ রাতেই ফরিদপুরের উদ্দেশ্যে চলে যান। আমরা রাজবাড়ীর ছাত্ররা সবাই মিলিতভাবে রাজবাড়ী রেলওয়ে স্টেশনে গিয়ে তাঁকে ট্রেনে তুলে দিয়ে বিদায় জানিয়ে আসলাম। রাজবাড়ীতে সবাই এসব জানার পর আমাদের দুই স্কুলের ছাত্রদের অনেক ধন্যবাদ জানিয়েছিলেন। বিশেষ করে আমাদের শিক্ষকগণ, অভিভাবক ও অভিভাবকতূল্য ব্যক্তিবর্গ আমাদেরকে সাধুবাদ জানিয়েছিলেন। 

  এই ঘটনার অল্প কিছু দিন পরই রাজবাড়ীতে এলেন সেই সময়ের উদীয়মান যুবনেতা ও সদ্য যুক্তফ্রন্ট থেকে নির্বাচিত এমএলএ শেখ মুজিবুর রহমান তথা আমাদের আপামর জনগণের অত্যন্ত প্রিয় ব্যক্তিত্ব মুজিব ভাই। তিনি রাজবাড়ীতে মাঝে-মাঝেই আসতেন তাঁর চাচাতো ভাই ডাক্তার শেখ এহিয়া সাহেবের বাড়ীতে। এবার তিনি রাজবাড়ীর সদ্য এমএলএ হওয়া এডভোকেট আবদুল ওয়াজেদ চৌধুরীর বাড়ীর দোতলায় কিছু দিন আগে গঠিত ছাত্র কমিটিসহ অন্যান্য ছাত্রদের সাথে ঘরোয়া বৈঠকে বসলেন। এর পূর্বে শেখ মুজিবুর রহমানের নাম বহুবার শুনলেও এবারই সর্বপ্রথম তাঁকে কাছ থেকে দেখার ও একান্তভাবে কথা বলার সুযোগ হলো। দোতলার বড় কক্ষে আমাদের সবাইকে তিনি বসতে বললেন, আমরা সবাই সালাম জানিয়ে বসে পড়লাম। 

  তিনি আমাদের দুই স্কুলের ছাত্রদের আলাদা আলাদা করে দাঁড়াতে বললেন এবং পরে বসতে বলে আমাদের উদ্দেশ্যে কিছু উপদেশমূলক বক্তব্য রাখলেন। 

  তাঁর কথাগুলো ছিল নিম্নরূপ ঃ “আমার ছোট ভাইয়েরা, তোমরা আমার কথা মন দিয়ে শোন। এই রাজবাড়ী মূলতঃ আমার বাড়ী। তোমরা আমার ছোট ভাই। আমি শুনলাম, তোমরা দুই স্কুলের ছাত্ররা নাকি মারামারি করো, গোলমাল করো, তোমাদের মধ্যে কোন মিল-মহব্বত নাই। দুই স্কুলের ছাত্রদের মধ্যে নাকি শুধু শত্রুতা। পথে-ঘাটে খেলার মাঠে সব জায়গাতেই তোমরা মারামারি করো, গোলমাল করো। এ সময় শেখ সাহেব সবাইকে উদ্দেশ্য করে আবারো বললেন, তোমরাই বলো এটা কি ঠিক? এ সময় আমরা ছাত্ররা প্রায় সবাই বললাম, “না না ঠিক না”। 

  তিনি এবারে বললেন, “তাহলে শোন, তোমরা আমার ভাই, তোমরা দুই স্কুলের ছাত্ররা আর কখনো মারামারি করবা না, ঠিকতো ?” আমরা সবাই এক বাক্যে বললাম, “হ্যাঁ ঠিক ঠিক”। এরপর তিনি বলতে লাগলেন, এখন থেকে তোমরা সবাই শান্তি-শৃঙ্খলার মধ্যে থাকবা। মনে রাখবা আমরা এখন পর্যন্ত পুরোপুরিভাবে স্বাধীনতা পাই নাই। তা না হলে পশ্চিম পাকিস্তানীরা আমাদের পূর্ব বাংলার মানুষের উপর গুলি চালায় কী করে? আমাদের মায়ের ভাষা বাংলা ভাষা, আমরা তো সেইটাই বলেছিলাম-বাংলা ভাষাকে রাষ্ট্র্রভাষা করা হোক-এটাই কী আমাদের অপরাধ? আমরা যে পাট জন্মাই তা পশ্চিম পাকিস্তানীরা করাচীতে নিয়ে যায়, আমরা তার কিছুই পাই না; আমাদের কাগজের কলের কাগজ নিয়ে যায় ঐ পশ্চিমারা আর সেই কাগজ ডাবল দামে আমাদের ছাত্রদের কিনতে হয়; আমাদের ফসলের ন্যায্য দাম আমরা পাই না। আরো অনেক কিছুই সেসবের ন্যায্য অধিকার আদায় করে নিতে হবে। আজ যদি তোমরা গোলমাল-মারামারি করো, তাহলে পশ্চিম পাকিস্তানীদের এসব শোষণ থেকে দেশের মানুষের অধিকার কীভাবে আমরা আদায় করবো ? তোমরা রাজবাড়ীর ছাত্ররা আমার ভাই, আমার বন্ধু, আজ থেকে তোমরা একসাথে চলবা, দেশের জন্যে একসাথে হাতে হাত ধরে সামনে এগিয়ে চলবা। জয় আমাদের হবেই হবে।” এভাবেই সে সময়ের (১৯৫৬) সবার মুজিব ভাই যুবনেতা শেখ মুজিবুর রহমান, যিনি সদ্য এমএলএ হয়েছেন এবং এরপর পরই মন্ত্রী হয়েছিলেন তিনিই আমাদের সর্বশ্রদ্ধেয় মুজিব ভাই, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালী জাতির জনক বঙ্গবদ্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। মহান এই নেতা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু রাজবাড়ীতে আরো কয়েকবার এসেছিলেন। আমরা ছাত্ররা আওয়ামী লীগ নেতাদের সঙ্গে গিয়ে তার সাথে দেখা করেছি। তখন বৃহত্তর ফরিদপুর জেলা একটা জেলাই ছিল। এ সময় আমরা সবাই ছিলাম বৃহত্তর ফরিদপুর জেলার অধিবাসী। শেখ মুজিবের চাচাতো ভাই ডাক্তার শেখ মুহাম্মদ এহিয়া সাহেব রাজবাড়ী ছাত্রলীগের ১৯৫৬ প্রথম সম্পাদক হওয়ার কারণে আমাকেসহ অন্য সবাইকে খুবই ভালো জানতেন। এমনকি তিনি আমাদের নিকট থেকে ওষুধের পয়সা এবং ভিজিট নিতেন না।

  ১৯৭৩ সালে বঙ্গবন্ধু রাজবাড়ী এলেন। ওই সময় তিনি সদস্য স্বাধীন দেশের প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্বে ছিলেন। রাজবাড়ী সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠে এসে সবার সাথে দেখা করলেন। রাজবাড়ী কলেজ থেকে অধ্যক্ষ এম.এম কায়েম উদ্দীন সাহেব ও একমাত্র অধ্যাপক ফকীর আবদুর রশীদ (লেখক) কড়াকড়ি ও প্রোটোকল রক্ষা করে সেই মহাপুরুষের সাথে সাক্ষাৎ করার অনুমতি পেয়েছিলাম। আমরা রাজবাড়ীর সাক্ষাৎ প্রার্থীরা স্কুলের মাঠে সারিবদ্ধভাবে দাঁড়িয়ে থাকার পর তিনি ধীরে ধীরে এগিয়ে এলেন এবং সবার সাথেই কুশল বিনিময় করলেন। এ সময় তাঁর সাথে ছিলেন রাজবাড়ীর বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ ও রাজবাড়ী আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ, সঙ্গে কয়েকজন জাতীয় নেতা ও মন্ত্রীবর্গ। পরিচয় করিয়ে দিচ্ছিলেন আমার ছাত্র জীবনের সহপাঠী বন্ধু কে.এম ওবায়দুর রহমান। সাদা ধবধবে পায়জামা-পাঞ্জাবী পরা, সাদা আলোয়ান কাঁধের উপর দিয়ে দু’দিকে ঝুলিয়ে ও কালো চশমা পরিহিত, বাঁহাতে চুরুট আর ডান হাত দিয়ে সবার সঙ্গে হাসিমুখে করমর্দন। ওবায়দুর রহমান সাহেব আমার সাথে পরিচয় করাতেই তিনি আমাকে চিনে ফেললেন। জিজ্ঞাসা করলেন, ‘কেমন আছো ?’ তুমি এখনকি শুধু প্রফেসারিই করো নাকি দেশের কাজ কিছু করছো ? আমি বললাম,  আমি আগেও যেভাবে ছিলাম, এখনো সেভাবেই আপনার সঙ্গেই আছি। তিনি হাতে হাত ধরে জোরে জোরে আমার সঙ্গে করমর্দন করলেন। এখনো মনে আছে তাঁর হাতের আঙ্গুলগুলো কী নরম আর কী পেলব। স্কুলের দোতলায় অন্যান্য শিক্ষিক, মহিলাবৃন্দ ও আমার স্ত্রী রাজবাড়ী সরকারী উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের শিক্ষিক ফিরোজা সুলতানা রশীদ নীচে তাকিয়ে তাকিয়ে সব দেখছিলেন। আমি পরে বঙ্গবন্ধুকে সব কথাই বললাম। এরপর বঙ্গবন্ধুর সাথে আরো কয়েকবার সাক্ষাৎ হয়েছে, তবে তেমন কথা হয়নি। শুধু রাজবাড়ীতে বঙ্গবন্ধু আসলে রাজবাড়ী রেলের মাঠে বড় একটা মঞ্চ তৈরি করে তাকে যে সংবর্ধনা জানানো হয়, সেখানে বন্ধুবর কে.এম ওবায়দুর রহমানের সঙ্গে গিয়ে বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে দেখা করে সালাম করেছিলাম। এখনো ভেবে অবাক লাগে, বঙ্গবন্ধুর মতো অতবড় ব্যক্তিত্বশীল মহাপুরুষের সঙ্গে সেই ছাত্র জীবন থেকে আমি ঘনিষ্ঠ হয়েছিলাম এবং তাঁর নজরে কিছুটা হলেও ছিলাম। এটাই আমার জীবনের সবচেয়ে বড় পাওয়া এবং আমার অহংকার।

  জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বৃহত্তর ফরিদপুর জেলার গোপালগঞ্জের (বর্তমানে জেলা) টুঙ্গিপাড়া গ্রামে ১৯২০ খ্রিস্টাব্দের ১৭ই মার্চ জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতা শেখ লুৎফর রহমান ছিলেন সরকারী চাকুরীজীবী এবং মা সায়েরা খাতুন। বাল্যকাল হতেই বঙ্গবন্ধু ছিলেন বন্ধুবৎসল ও জনদরদী, ফুটবল প্লেয়ার এবং ছাত্রদের নেতা বা মুখপাত্র। ছোটবেলায় তার ডাক নাম ছিল খোকা। খোকার শৈশবকাল কাটে গ্রামের বাড়ী টুঙ্গিপাড়া গ্রামে। ১৯২৭ সালে ৭বছর বয়সে গিমাডাঙ্গা প্রাইমারী স্কুলে পড়াশোনা শুরু করেন। অতঃপর ১৯২৯ সালে ৯বছর বয়সে গোপালগঞ্জ পাবলিক স্কুলে ৩য় শ্রেণীতে ভর্তি হন। এরপর তিনি স্থানীয় মিশনারী স্কুলে ভর্তি হন। ১৯৩৪ সালে ১৪ বছর বয়সে বেরিবেরি রোগে আক্রান্ত হলে তার একটি চোখ কলকাতায় অপারেশন করা হয়। অসুস্থতার কারণে ৪ বছর তাঁর লেখাপড়া ব্যাহত হয়। এরপর তিনি পুনরায় স্কুলে ভর্তি হন। ১৯৩৪ সালে তিনি মাদারীপুর ইসলামিয়া হাই স্কুলে ভর্তি হন। এ সময় তাঁর পিতা চাকুরী সূত্রে মাদারীপুরে বদলী হয়েছিলেন বিধায় তিনি ঐ সময় পিতার কাছে থেকে পড়াশোনা করতেন। ১৯৩৮ সালের ১৬ই জানুয়ারী বাংলার প্রধানমন্ত্রী এ.কে ফজলুল হকের সঙ্গে তাঁর পরিচয় হয় গোপালগঞ্জ মিশন স্কুল পরিদর্শনকালে। এ বছরেই ১৮ বছর বয়সে শেখ ফজিলাতুন্নেসার সাথে তাঁর বিবাহ হয়। পরে তাঁরা দুই কন্যা শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা এবং তিন পুত্র শেখ কামাল, শেখ জামাল ও শেখ রাসেলের জনক-জননী হন। ১৯৩৯ সালে সরকারী নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে স্কুল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে একটি প্রতিবাদ সভা করার কারণে বঙ্গবন্ধু প্রথম কারাবরণ করেন। ১৯৪২ সালে শারীরিক অসুস্থতার কারণে একটু বেশী বয়সে বঙ্গবন্ধু এন্ট্রান্স পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন এবং ঐ বছরেই কলকাতা ইসলামিয়া কলেজে ভর্তি হন। ওই সময় কলেজের বেকার হোস্টেলের ২৪ নম্বর কক্ষে তিনি থাকতেন (বর্তমানে সেখানে জাদুঘর বানিয়ে তাঁর স্মৃতি সংরক্ষণ করা হয়েছে)। ১৯৪৪ সালে কুষ্টিয়ায় অনুষ্ঠিত নিখিল বঙ্গ মুসলিম ছাত্রলীগের সম্মেলনে তিনি যোগদান করেন এবং ওই বছরেই তিনি ফরিদপুর এসোসিয়েশনের সম্পাদক নিযুক্ত হন। এরপর তিনি ১৯৪৬ সালে কলকাতা ইসলামিয়া কলেজের ছাত্র সংসদের সাধারণ সম্পাদক নিযুক্ত হন। এ সময় তিনি হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর সহকারী নিযুক্ত হন। এরপর তিনি কলকাতা বিশ^বিদ্যালয়ের অধীনে ইসলামিয়া কলেজ থেকে বি.এ পাস করেন। অতঃপর ১৯৪৮ সালে তিনি ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের  আইন বিভাগে ভর্তি হন। ১৯৪৮ সালে তৎকালীন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী উর্দুকে পাকিস্তানের একমাত্র রাষ্ট্রভাষা হিসাবে ঘোষণা করলে তাৎক্ষণিকভাবে এর প্রতিবাদ করেন তিনি। এর পরপরই ওই বছরেই বঙ্গবন্ধুর প্রস্তাবে সর্বদলীয় রাষ্ট্রভাষা সংগ্রাম পরিষদ গঠিত হয়। ১৯৪৮ সালের ১২ই মার্চ রাষ্ট্রভাষা বাংলার দাবীতে সাধারণ ধর্মঘট আন্দোলনের জন্যে বঙ্গবন্ধু গ্রেফতার হন। ১৯৪৯ সালে ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের ৪র্থ শ্রেণীর কর্মচারীদের দাবী-দাওয়া আদায়ের উদ্দেশ্যে ধর্মঘট করলে বঙ্গবন্ধু তাদের প্রতি সমর্থন জানান এবং সে কারণে তাঁকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার করা হয়। ওই সময় পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী মুসলিম লীগ গঠিত হলে বঙ্গবন্ধুকে যুগ্ম-সম্পাদক নির্বাচিত করা হয়। ১৯৫২ সালের ১৪ই ফেব্রুয়ারী তাঁকে গ্রেফতার করা হয় এবং ২১শে ফেব্রুয়ারী ভাষা আন্দোলনের দাবীতে ও ছাত্র হত্যার প্রতিবাদে তিনি জেলখানায় অনশন শুরু করেন। ঐ সময় রাষ্ট্রভাষা বাংলার দাবীতে ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের প্রতিবাদ মিছিলে গুলি করলে শহীদ হন সালাম, রফিক, বরকতসহ আরো অনেকে। ওই ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে বঙ্গবন্ধু একটানা ৩ দিন অনশন করেন। এরপর ১৯৫৩ সালে প্রাদেশিক আওয়ামী লীগের কাউন্সিল অধিবেশনে তিনি দলের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ১৯৫৪ সালে যুক্তফ্রন্ট নির্বাচিত হলে বঙ্গবন্ধু মন্ত্রীসভায় সর্বকনিষ্ঠ মন্ত্রী হিসাবে শপথ গ্রহণ করেন। অতঃপর তিনি পূর্ব পাকিস্তানের স্বায়ত্বশাসনের জন্যে জোর দাবী উত্থাপন করেন এবং বার বার কারাবরণ করেন। ১৯৬৬ সালে জুন মাসে তিনি জাতির সামনে ৬ দফা প্রস্তাব উত্থাপন করেন, যা ছিল বাংলাদেশের স্বায়ত্বশাসন তথা স্বাধীনতার মূল কথা। এসব বিভিন্ন কারণে তৎকালীন পাকিস্তান সরকার তাঁকে আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা নামে এক মিথ্যা মামলার ১নং আসামী করে তাঁকে কারারুদ্ধ করা হয়। ১৯৬৯ সালে বাংলাদেশের আপামর ছাত্র জনতার রুদ্র রোষের কাছে পাকিস্তানী শাসকগোষ্ঠী বঙ্গবন্ধুকে মুক্তি দিতে বাধ্য হয় এবং ঐ দিনই ছাত্র-জনতা তাঁকে ‘বঙ্গবন্ধু’ উপাধীতে ভূষিত করে। এরপর ১৯৭০ সালের জাতীয় নির্বাচনে বঙ্গবন্ধুর দল আওয়ামী লীগ নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে জয়লাভ করে; কিন্তু পাকিস্তানীরা ক্ষমতা হস্তান্তরে রাজি হয় না। ১৯৭১ সালের ৭ই মার্চ ঢাকা রেসকোর্স ময়দানে বঙ্গবন্ধু লক্ষ লক্ষ জনগণের উপস্থিতিতে তাঁর সেই ঐতিহাসিক ও দিক-নির্দেশনা মূলক ভাষণ দেন (ইউনেস্কো কর্তৃক বিশ্বঐতিহ্য হিসেবে স্বীকৃতিপ্রাপ্ত), যার শেষ কথা ছিল-“এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম।” তারপর ২৫শে মার্চ দিবাগত রাতে পাকিস্তানী জান্তার হাতে বন্দী হওয়ার পূর্ব মুহূর্তে ২৬শে মার্চের প্রথম প্রহরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করেন এবং সেটি বিভিন্ন স্থানে ইপিআরের ওয়্যারলেসের মাধ্যমে পাঠানো হয়। চট্টগ্রাম থেকে ওই ঘোষণা পাঠ করেন চট্টগ্রামের আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল হান্নান এবং ২৭ তারিখ বিকালে ওই ঘোষণা পাঠ করেন ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্টের মেজর জিয়াউর রহমান। এ সময় থেকেই শুরু হয় পাকিস্তানীদের বাঙালী নিধনযজ্ঞ। তারা পুরো ৯ মাস ধরে ৩০ লক্ষ নিরীহ ও নিরস্ত্র বাঙালীকে হত্যা এবং ২ লক্ষ মা-বোনের সম্ভ্রম লুট করে। ২৬শে মার্চ রাতেই বঙ্গবন্ধুকে বন্দী করে করাচীতে নিয়ে যাওয়া হয়। ১৭ই এপ্রিল মুজিব নগরে (মেহেরপুরের বৈদ্যনাথতলা আম্রকাননে) অনাড়ম্বর অনুষ্ঠানে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের নতুন মন্ত্রীসভা গঠিত হয়। তাতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে রাষ্ট্রপতি (তাঁর অনুপস্থিতিতে সৈয়দ নজরুল ইসলাম ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রপতি) এবং প্রধানমন্ত্রী হন তাজউদ্দীন আহমদ। অনেক আত্মত্যাগ ও রক্তের বিনিময়ে ১৬ই ডিসেম্বর হানাদার পাকিস্তানীরা কাছে আত্মসমর্পণ করে এবং আমরা বিজয় ছিনিয়ে আনি। 

  কিন্তু তখনো আমরা বিজয়ের স্বাদ পরিপূর্ণভাবে পাই নাই; কারণ জাতির পিতা যাঁর নির্দেশে ৯ মাস ধরে রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ ও আত্মত্যাগ সেই মহান সেনাধ্যক্ষ ও মহাপুরুষ তখনো পাকিস্তানের কারাকক্ষে মৃত্যুর প্রহর গুনছেন। অতঃপর ১৯৭২ সালের ৮ই জানুয়ারী মুক্ত হয়ে ১০ই জানুয়ারী বাংলার মাটিতে পা রাখলেন এবং লক্ষ লক্ষ আপামর জনগোষ্ঠীর মাঝে এসে আবেগঘন মুহূর্তে কান্নাবিজড়িত কণ্ঠে ভাষণ দিলেন। ওই সময়ই সত্যিকারের বিজয় অর্জিত হয়ে তা পরিপূর্ণতা লাভ করলো।

  এরপর থেকে শুরু হলো বঙ্গবন্ধুর সারা জীবনের স্বপ্ন ও আকাঙ্খা পূরণের স্বপ্নসাধ। ওই সময় যুদ্ধ বিধ্বস্ত দেশের পুনর্গঠন ও পুনঃ নির্মাণের কাজ শুরু হয়। ১৯৭২ সালে মাত্র ৯ মাসের মধ্যে নতুন শাসনতন্ত্র বঙ্গবন্ধু জাতিকে উপহার দেন। এর পরপরই দেশী ও আন্তর্জাতিক চক্রান্ত ও ষড়যন্ত্র শুরু হয়। একপর্যায়ে বেশ কিছু পাকিস্তানপন্থী চক্রান্তকারীরা ১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে শহীদ করে। শহীদ হন তাঁর পত্নী বঙ্গমাতাসহ তাঁর সন্তান-সন্ততি, আত্মীয়-স্বজনসহ আরো অনেকে। এভাবেই হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালী জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান চিরনিদ্রায় নিদ্রিত হয়ে রইলেন তাঁর প্রিয় জন্মস্থান গোপালগঞ্জের সুজলা-সুফলা শস্য-শ্যামলা টুঙ্গিপাড়া গ্রামের মাতৃস্নেহে ভরা পবিত্র মৃত্তিকার ক্রোড়ে। বঙ্গবন্ধুর রচিত গ্রন্থ ঃ (১) অসমাপ্ত আত্মজীবনী (২) আমার দেখা নয়া চীন ও (৩) কারাগারের রোজ নামচা। মহান আল্লাহ তাঁকে বেহেস্তের উচ্চাসনে আসীন করুণ, আমীন। জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু। (লেখক পরিচিতি ঃ প্রফেসর ড. ফকীর আবদুর রশীদ, বিশিষ্ট কবি, লেখক ও গবেষক এবং প্রাক্তন অধ্যক্ষ, রাজবাড়ী সরকারী কলেজ)।

বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের দিকপাল-কিংবদন্তী উজ্জ্বল নক্ষত্রের অবসান-যেভাবে দেখেছি তাঁকে
স্মৃতিচারণ ঃ শহীদ বুদ্ধিজীবী অধ্যাপক মুুনির চৌধুরী
স্মৃতিচারণ ঃ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান
সর্বশেষ সংবাদ