ঢাকা মঙ্গলবার, জানুয়ারী ২৬, ২০২১
স্মৃতিচারণ ঃ শহীদ বুদ্ধিজীবী অধ্যাপক মুুনির চৌধুরী
  • প্রফেসর ডঃ ফকীর আবদুর রশীদ
  • ২০২০-১২-১৬ ০২:০৬:৫১

অধ্যাপক মুনির চৌধুরী ছিলেন একাধারে শিক্ষাবিদ, লেখক ও প্রবন্ধকার, নাট্যকার এবং বক্তব্য উপস্থাপনের আকর্ষণীয় ব্যক্তিত্ব। বক্তৃতার বিষয়বস্তুর অপূর্ব উপস্থাপন শক্তি, সাবলীল ভাষা ও যথার্থ শব্দ প্রয়োগের কলাকৌশল, যাদুকরী কাব্যিক সুষমা ও মাধুর্যের আবহ ও মন্ত্রমুগ্ধ পরিবেশ সৃষ্টি ছিল অধ্যাপক ও ব্যক্তি মুনির চৌধুরীর কৃতিত্ব। তিনি ছিলেন প্রগতিশীল মানসের অধিকারী এবং অসাম্প্রদায়িক, কুসংস্কার ও কুপমন্ডুকতার ঊর্ধ্বে তাঁর চিন্তা-চেতনায় নিজ ভাষা ও স্বদেশের প্রতি ছিল তাঁর অসামান্য আকর্ষণ ও প্রেম। তিনি ছিলেন এক বিরাট প্রতিভার অধিকারী। প্রথমে তিনি ইংরেজী সাহিত্যে ১৯৪৬ সালে এম.এ পাস করেন। এরপর ভাষা আন্দোলনে সক্রিয় অংশগ্রহণ (১৯৫১-৫২) করার কারণে কারাভোগ করেন। কারাভ্যন্তরে থেকে তিনি পুনরায় ১৯৫৪ বাংলায় এম. এ পরীক্ষা দিয়ে ফার্স্ট ক্লাস ফার্স্ট হন। তাঁর এই কৃতিত্ব নিঃসন্দেহে অসামান্য, অভূতপূর্ব। ১৯৪৯ সালে তিনি খুলনার বি.এল কলেজে ইংরেজী ভাষা ও সাহিত্যের শিক্ষক পদে এবং পরে ১৯৫০ সালে জগন্নাথ কলেজে শিক্ষকতা পেশায় যোগদান করেন। কারামুক্তি পেয়ে তিনি ১৯৫৪ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক হিসাবে যোগদান করেন এবং মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত বাংলা বিভাগের অধ্যক্ষ/বিভাগীয় প্রধান ছিলেন। ১৯৫৮ সালে তিনি আমেরিকার হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ভাষা তত্ত্বে এম.এ করেন। তিনি ছোট গল্প ও নাটক রচনায় সিদ্ধহস্ত ছিলেন। তাঁর রচিত ‘কবর’ নাটকটি বিখ্যাত। এছাড়া ‘রক্তাক্ত প্রান্তর’; ‘মীর মানস’; ‘তুলনামূলক সমালোচনা’; ‘গদ্যরীতি’; ‘মুখরা রমনী বশীকরণ’ ইত্যাদি তাঁর শ্রেষ্ঠ রচনা। তিনি ১৯২৫ সালের ২৭শে নভেম্বর মানিকগঞ্জ জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পৈত্রিক বাড়ী ছিল নোয়াখালী। ১৯৭১ সালের ১৪ই ডিসেম্বর পাকিস্তানীদের দোসর ঘৃণ্য আল বদর বাহিনী তাঁকে অপহরণ করে নিয়ে যায় এবং নৃশংসভাবে হত্যা করে।

  এই অসামান্য প্রতিভাধর মহান নাট্যকার ও প্রবন্ধকার ছিলেন আমার(লেখক) এম.এ ক্লাসের শিক্ষক। ১৯৬১ সালে যখন আমি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বাংলা বিভাগে এম.এ ১ম পর্বে ভর্তি হলাম তখন অধ্যাপক মুনীর চৌধুরী আমাদের বাংলা সাহিত্যের ইতিহাস পড়াতেন। প্রথম দিনই তার পাঠদানের নিয়ম-কানুন ভাষা বিন্যাস ও অভূতপূর্ব উপস্থাপন শিল্প নৈপুণ্য আমাকে মুগ্ধ করেছিল। ক্লাসের প্রায় সবাই পাঠদানের সময় চুপ করে তাঁর বক্তৃতা শুনতাম। তাঁর সঙ্গে আমার প্রথম সরাসরি কথা হয় একটি টিউটোরিয়াল ক্লাসে। তিনি একটি প্রশ্নের উত্তর লেখার জন্য আমাদের যে সময় নির্ধারণ করে দিয়েছিলেন, তার মধ্যে আমার উত্তর লেখাটি শেষ হলো না বিধায় আমি সেই অসম্পন্ন  উত্তরের শেষে লিখেছিলাম ‘চলবে’। খাতাটি ফেরত দেয়ার দিন ক্লাসের মধ্যে সবাইকে ডেকে ডেকে খাতা ফেরত দিচ্ছেন। এ সময় আমাকে ডেকে বললেন, তোমার উত্তরপত্রে উত্তর শেষ না হলেও লেখাটির গতি ও তার লক্ষ্য উপলব্ধি করে তোমাকে পূর্ণ নম্বরই দিয়েছি; তবে বাঁকিটা আমাকে লিখে দেখাবে। স্যার আমাকে অ+ দিয়েছিলেন। পরে আমি বাঁকিটা লিখে তাঁকে দেখালে তিনি খুব খুশী হলেন। একদিন ক্লাসে অমর কথাসাহিত্যিক মীর মশাররফ হোসেনের উপর পড়াতে গিয়ে ছাত্রদের মধ্য থেকে একজন প্রশ্ন করেছিল মীর মশাররফের কবর বা মাজার কোথায় ? তিনি বললেন তাঁর কবর ফরিদপুর জেলার পদমদী নামক গ্রামে। এ সময় তিনি জানতে চাইলেন ফরিদপুর জেলার কোন ছাত্র আছে কি-না। এ কথার পরিপ্রেক্ষিতে আমি উঠে দাঁড়ালাম। বললাম স্যার আমার বাড়ী ফরিদপুর জেলার গোয়ালন্দ মহকুমায়। পদমদী গ্রামের পাশের দক্ষিণবাড়ী গ্রামে আমার বাড়ী। তিনি বললেন তুমি কি জানো মীর মশাররফ হোসেনের কবর কোন জায়গায় ? আমি বললাম স্যার আমি তো এই প্রথম জানলাম তাঁর মাজার পদমদীতে। এই সম্পর্কে আমাদের এলাকায় কেউ জানে না। আমার কথা শুনে অধ্যাপক মুনীর চৌধুরী স্যার কিছুটা অবাকই হলেন। তিনি বললেন তুমি ক্লাস শেষে আমার সঙ্গে এসো। ক্লাস শেষ হলে আমি অধ্যাপক মুনীর চৌধুরী স্যারের অনুসরণ করলাম। তিনি আমাকে সঙ্গে করে বাংলা বিভাগের অধ্যক্ষ প্রফেসর মোহাম্মদ আব্দুল হাই স্যারের চেম্বারে গেলেন। সেখানে অনেক কথার পর আমাকে দু’জনই বললেন, ‘তুমি দেশে গিয়ে এবারে মীর মশাররফ হোসেনের কবরটির খোঁজ করবে এবং এসে জানাবে’। আমি সম্মতি জানিয়ে চলে এলাম। এরপর দেশের বাড়ী এসে আমার ছোট ভাই ফকীর আবদুর রাজ্জাক(সদ্য প্রয়াত), সহপাঠী খন্দকার নজরুল ইসলাম, পিয়ারা এবং আরো অনেককে সঙ্গে নিয়ে কবরের খোঁজে লেগে পড়লাম। সেদিন ছিল শুক্রবার। নবাব বাড়ীর নবাব মীর মোহাম্মদ আলীর বাড়ী উত্তর দিকে গভীর জঙ্গলের মধ্যে গাছপালা লতাগুল্ম কেটে কেটে ভিতরে ঢুকলাম। এক স্থানে দেখা গেল বট-পাকুড়ের গাছ হয়েছে, সেখানে বেতের বন ও ছিল। অনেক কষ্টে আমরা সেগুলো কেটে পরিষ্কার করলাম। এ সময় দেখা গেল এখানে ভাঙ্গাচোরা একটি বাঁধানো কবর, তার মাঝে মনে হলো কবর ৩টি। পরে অবশ্য জানলাম কবর ৩টিই বাঁধানো ছিলো সেখানে। একটি কবর মীর মশাররফের, অন্যটি তাঁর স্ত্রী বিবি কুলসুমের এবং আর একটি তাঁর ভাইয়ের কবর। ঐ দিন কবরের একটি ছবি তুললাম, পরে ঢাকায় গিয়ে অধ্যক্ষ আব্দুল হাই ও অধ্যাপক মুনির চৌধুরীকে সব জানালাম। তাঁরা উভয়েই পদমদীতে যাওয়ার ইচ্ছা পোষণ করলেন। এরপর মাঝে মাঝেই তিনি আমাকে ডাকতেন। বিভিন্ন সময় অনেক বিষয়েই তার উপদেশ গ্রহণ করতাম। আর একটি দিনের কথা খুবই মনে পড়ে। বাংলা বিভাগের অধ্যক্ষ প্রফেসর মোহাম্মদ আব্দুল হাই এঁর কক্ষে এম. এ শেষ বর্ষে মৌখিক পরীক্ষার বোর্ডে আছেন প্রফেসর মুনীর চৌধুরী, প্রফেসর ডক্টর আনিসুজ্জামান এবং বহিরাগত হিসাবে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ডক্টর মোহাম্মাদ এনামুল হক। ডক্টর মোহাম্মদ এনামুল হক আমি কোন পেপার ভালো পরীক্ষা দিয়েছি জিজ্ঞাসা করলেন। আমি বললাম সবই ইনশাল্লাহ্ ভালো দিয়েছি, তবে থার্ড পেপার বেশী ভালো লিখেছি। তিনি প্রশ্ন করলেন, কোন প্রশ্নটা বেশী ভালো লিখেছো ? আমি বললাম স্যার, মাইকেল মধুসূদন দত্তের ‘বীরাঙ্গনা কাব্যের’ সোমের প্রতি তারা পত্রের উপর প্রশ্নটি বেশী ভালো হয়েছে। তিনি বললেন, একটি অবৈধ প্রেম, ছাত্র হয়ে শিক্ষকের স্ত্রীর সঙ্গে পরকীয়া প্রেম এইটা তুমি পছন্দ করলে আর তাই লিখলে? ডক্টর এনামুল হকের প্রশ্নের উত্তর দিতে আমি ভ্যাবা-চ্যাকা খেয়ে যাচ্ছিলাম। এ সময় আমার মুখের কথা কেড়ে নিয়ে আমার অত্যন্ত প্রিয় শিক্ষক প্রফেসর মুনির চৌধুরী তাঁর সাথে একপ্রকার ঝগড়া শুরু করে দিলেন। আমরা সবাই চুপচাপ। হাই স্যারে ও আনিসুজ্জামান স্যার মিটিমিটি হাসছেন। হঠাৎ পর্দা ঠেলে ফার্সি বিভাগের প্রধান ডক্টর সাদানি হাসি মুখে বললেন, ‘মে আই কাম ইন স্যার’। প্রফেসর হাই হাসতে হাসতে বললেন, ইয়েস ইয়েস এবং এ সময় তিনি আমাকে বললেন, আবদুর রশীদ তুমি এসো। আমি সালাম জানিয়ে চলে এলাম বাইরে এবং হাঁফ ছেড়ে বাঁচলাম। কিন্তু চিন্তা হতে লাগলো ডক্টর মোহাম্মাদ এনামুল হক সাহেব অধ্যাপক মুনির চৌধুরী স্যারের সাথে যেভাবে কথা কাটাকাটি করলেন, তাতে মৌখিক পরীক্ষার নম্বর যে কী দিবে না দিবে-এই চিন্তা করতে করতেই একসময় দেখি মুনির চৌধুরী স্যার বাইরে এলেন। আমি প্রায় দৌড়ে তাঁর কাছে গেলাম, বিনয়ের সাথে বললাম- ‘স্যার, .... বলতেই তিনি টের পেলেন। বললেন, ‘তোমার চিন্তা নেই’। আমি যেন বাঁচলাম। 

  অধ্যাপক মুনির চৌধুরী শিক্ষা ও পেশাগত জীবনে বামপন্থী রাজনীতি ও প্রগতিশীল সাংস্কৃতিক আন্দোলনের সঙ্গে জড়িত ছিলেন। ঢাকার প্রগতি লেখক ও শিল্পী সংঘ, ভাষা আন্দোলন ইত্যাদির সঙ্গে জড়িত ছিলেন। ১৯৪৮ সালে তিনি কোলকাতার প্রগতি লেখক ও শিল্পী সংঘের সম্পাদক নির্বাচিত হন। ১৯৫২ সালে ভাষা আন্দোলনের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে তিনি কারাবন্দী হন  ও পরে তাঁকে চাকুরীচ্যুত করা হয়। ১৯৫৩ সালে তিনি ‘কবর’ নামে বিখ্যাত একাঙ্কিকাটি(নাটক) লেখেন। এরপর তিনি ‘রক্তক্ত প্রান্তর’ (১৯৫৯) নাটকটি রচনা করেন। ‘ছিঃ ছিঃ’ নামে তাঁর আরো একটি মৌলিক নাটক প্রকাশ হয়েছিল ১৯৬৬ সালে। এ ছাড়া তিনি বিদেশী নাটক অনুবাদ করে অসাধারণ কৃিতত্ব দেখিয়েছেন। তার মধ্যে ‘কেউ কিছু বলতে পারে না’ (১৯৬৭), ‘রূপার কৌটা’ (১৯৬৯), ‘মুখরা রমণী বশীকরণ’ (১৯৭০) ইত্যাদি নাটকে তার প্রমাণ পাওয়া যায় । সাহিত্য সমালোচনার ক্ষেত্রে তিনি এক নতুন পথের সন্ধান দিয়েছিলেন। ‘মীর মানস’ (১৯৬৫) ও ‘তুলনামূলক সমালোচনা’ (১৯৬৯) গ্রন্থেও পরিচয় পাওয়া যায়। মুুনীর চৌধুরীর একটি বিশেষ কীর্তি বাংলা টাইপরাইটারের ‘কী বোর্ড’ (১৯৬৫), যা ‘মুনির অপটিমা’ নামে পরিচিত। তিনি বাংলা একাডেমী পুরস্কার (১৯৬২), দাউদ পুরস্কার (১৯৬৫) লাভ করেন। তাছাড়া তাঁর স্মরণে ১৯৮৯ সাল থেকে ‘মুনির চৌধুরী সম্মাননা’ পদক প্রবর্তন করা হয়। ১৯৬৬ সালে তিনি ‘সিতারা-ই-ইমতিয়াজ’ পুরস্কার লাভ করেন, কিন্তু জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আহ্বানে তৎকালীন অসহযোগ আন্দোলনের সাথে একাত্মতা ঘোষণা করে অধ্যাপক মুনির চৌধুরী পাকিস্তান সরকারের দেয়া ‘সিতারা-ই-ইমতিয়াজ’ খেতাবটি বর্জন করেন।

  অধ্যাপক মুনির চৌধুরী স্যার যেমন ছিলেন দয়ালু, তেমনি মহান। জীবনেও তাঁর দয়া, মহানুভবতা এবং মীর মশাররফ হোসেনের কবরস্থান জঙ্গল কেটে জনসম্মুখে তুলে ধরার ঘটনা কোনদিনই ভুলবো না। মুনীর চৌধুরী স্যারের কাছে আমি চিরদিনের জন্যে ঋণী ও কৃতজ্ঞ। এই মহান বুদ্ধিজীবী গুণী শিক্ষক ১৯৭১ সালের ১৪ই ডিসেম্বর পাকিস্তানী বাহিনীর দোসর ঘৃণ্য রাজাকার-আল বদরদের হাতে নৃশংসভাবে শহীদ হন। মহান আল্লাহ্র কাছে তাঁর বিদেহী আত্মার মাগফেরাতের জন্য মোনাজাত করি। 

লেখক পরিচিতি ঃ প্রফেসর ড. ফকীর আবদুর রশীদ, অবসরপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ, রাজবাড়ী সরকারী কলেজ এবং বিশিষ্ট লেখক ও গবেষক।    

বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের দিকপাল-কিংবদন্তী উজ্জ্বল নক্ষত্রের অবসান-যেভাবে দেখেছি তাঁকে
স্মৃতিচারণ ঃ শহীদ বুদ্ধিজীবী অধ্যাপক মুুনির চৌধুরী
স্মৃতিচারণ ঃ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান
সর্বশেষ সংবাদ