ঢাকা মঙ্গলবার, জানুয়ারী ২৬, ২০২১
বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের দিকপাল-কিংবদন্তী উজ্জ্বল নক্ষত্রের অবসান-যেভাবে দেখেছি তাঁকে
  • লাইলী নাহার
  • ২০২১-০১-০৯ ০০:০৯:২৭

২০২১ সাল নতুন বছর। ভেবেছিলাম নতুন উদ্দীপনা নিয়ে শুরু করবো নতুন পথ চলা। ৯দিন বাড়ীর বাইরে ছিলাম। ১লা জানুয়ারী দীর্ঘ ১৮ ঘন্টার পথ পাড়ি দিয়ে রাত ৩টায় বাড়ী ফিরলাম। সকাল ৮টায় ফোন পেয়ে ঘুম ভাঙ্গলো। কোন সুখবর নয় বরং কঠিন অকল্পনীয় এক দুঃসংবাদ। ‘আমাদের সকলের প্রাণপ্রিয় আয়শা আপা আর নেই।’ স্তব্ধ হলাম। মুহূর্তেই বিদ্রুপ করলো আমাকে ৯ দিনের ঐ ‘আনন্দ ভ্রমণ’। সুখ, দুঃখ, আনন্দ-বেদনা পাশাপাশি থাকে জানি। কোনটাই চিরস্থায়ী নয়, তাও জানি। কিন্তু আমার জন্য এই আনন্দ, এই বেদনা মিশে গেল একাকার হয়ে।
  স্মৃতিতে ভেসে উঠলো পরিপাটি বেশের অনন্য অসাধারণ এক ব্যক্তিত্ব ‘আয়শা খানম’। ১৯৬৯ সালে আমি ঢাকা ভার্সিটিতে মাস্টার্স-এ ভর্তি হয়েছি মাত্র। কয়েকদিন পরে রোকেয়া হলে অবস্থান নিয়েছি। কিন্তু এক বছরের মাথায় বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের কারণে আমাকে হল ছেড়ে বাড়ী ফিরতে হলো। যোগাযোগ বিছিন্ন হলো। কিন্তু ঐ অল্প দিনেই আয়শা আপার মৃদু মধুর বাক্য, স্নিগ্ধ সুন্দর অবয়ব, নির্লোভ, নিরহঙ্কার মার্জিত ভদ্র রুচিশীল ব্যক্তিত্ব, কবিতায় পড়া সেই বনলতা সেনের মতো জীবনানন্দ হয়ে সংসারে সমাজে সবখানে আজও তিনি প্রকাশিত হন। তিনি বলতেন ‘নারীবাদ হচ্ছে একটা নকশী কাঁথা, সবাইকে এখানে বুনে যেতে হবে- কিছু না কিছু দাগ রাখতে হবে সবাইকে। আমি একা পারবো না; তুমিও একা পারবে না’। তিনি আরও বলতেন ‘এই আন্দোলন হচ্ছে মশাল হাতে রিলে রেসের মতো। একজনের হাত থেকে অন্য জনের হাতে’।
  নারী আন্দোলনের ক্ষেত্রে তিনি একজন পরীক্ষিত সফল সংগঠক। তিনি বুঝেছিলেন নারীর অগ্রগতিই সমাজের অগ্রগতি। সারা বিশে^, পূর্বে কী পশ্চিমে, সমাজ বিকাশের ধারায় মানবাধিকার ও ক্ষমতায়নের সংগ্রাম একই শ্রোতে বহমান। সেই একই ধারায় নারী-পুরুষের সমান অংশগ্রহণ ও সমান সুযোগ অর্জনের জন্যে দেশীয় ও  আন্তর্জাতিকভাবে আয়শা খানম সক্রিয়, অভিজ্ঞ ও বলিষ্ঠ এক শীর্ষস্থানীয় নেত্রী। চিন্তা-চেতনা ও বিশ্লেষণের অগ্রণী সংগঠক হিসাবে, বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের সভাপতি হিসাবে তিনি দীর্ঘকাল আঞ্চলিক, জাতীয় ও আন্তর্জাতিক-সকল পর্যায়ের নানা কর্মসূচীতে সফল ভূমিকা রেখেছেন, যা চিরদিন অনুস্মরণীয়। ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়েও তিনি বসে থাকেন নাই। সংগঠনের এবং নারী আন্দোলনের স্বার্থে নিজেকে শেষ দিন পর্যন্ত নিবেদন করেছেন। তার চলে যাওয়া নারী সমাজ এবং সংগঠনের জন্য অপূরণীয় ক্ষতি। তাঁর বিকল্প কাউকে মনে করতে পারি না। তিনি ছিলেন একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা।
  মুক্তিযুদ্ধের তিন দশক পরে আবার দেখা পেলাম আমার সেই পছন্দের প্রিয় আয়শা আপাকে। রাজবাড়ীতে এসেছিলেন জেলা শাখার সম্মেলনে। আমি তখনও রাজবাড়ী মহিলা পরিষদে যুক্ত হই নাই। এডঃ দেবাহুতি চক্রবর্তীর আমন্ত্রণে আমি ঐ সম্মেলনে উপস্থিত হয়েছিলাম। প্রখর-তীব্র স্মরণ শক্তি তাঁর, আমাকে দেখেই চিনেছেন, আমি তাঁর কাছে কৃতজ্ঞ। বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ রাজবাড়ী জেলা শাখার সাবেক সভাপতি এডঃ দেবাহুতি চক্রবর্তীর আন্তরিক ইচ্ছায় তাঁর হাত ধরেই এই সংগঠনে আমি যুক্ত হয়েছি। এ জন্য দেবাহুতির কাছে আমি কৃতজ্ঞ। সেই থেকেই সংগঠনের বিভিন্ন কর্মকান্ডের মধ্য দিয়েই আয়শা আপাকে নিবিড় করে পেয়েছি। উপলব্ধি করেছি, তাঁর জীবন আমাদের কাছে অমূল্য এক ইতিহাস। তাঁর মরণ বিরল এক কাহিনীর মতো। 
হে বিজয়ী বীর জয়ো তব ব্রত 
ওগো ঘুম ভাঙ্গানিয়া
দুঃখ জাগানিয়া
তোমায় নমস্কার ।
তোমার আত্মার শান্তি কামনায়
নশ্বর এই ধারাধামে দিলাম
শ্রদ্ধার্ঘ্যসহ শেষ বিদায়॥ 
(লেখক পরিচিতি ঃ সভাপতি, জেলা মহিলা পরিষদ, রাজবাড়ী)

 

বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের দিকপাল-কিংবদন্তী উজ্জ্বল নক্ষত্রের অবসান-যেভাবে দেখেছি তাঁকে
স্মৃতিচারণ ঃ শহীদ বুদ্ধিজীবী অধ্যাপক মুুনির চৌধুরী
স্মৃতিচারণ ঃ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান
সর্বশেষ সংবাদ