ঢাকা বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারী ২৫, ২০২১
নিউইয়র্ক পুলিশের প্রথম দক্ষিণ এশীয় লেফটেন্যান্ট কমান্ডার হলেন বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত শামসুল হক
  • নিউইয়র্ক প্রতিনিধি
  • ২০২১-০২-০৩ ০২:৩৫:৫০

যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক পুলিশ ডিপার্টমেন্টের(এনওয়াইপিডি) প্রথম দক্ষিণ এশীয় লেফটেন্যান্ট কমান্ডার হয়েছেন বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত আমেরিকান নাগরিক শামসুল হক। এনওয়াইপিডি’র গোয়েন্দা স্কোয়াডে যুক্ত হয়ে ইতিহাস গড়েছেন তিনি। 

  গত ২৯শে জানুয়ারী কুইন্সে এনওয়াইপিডির পুলিশ একাডেমিতে এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে তার অভিষেক হয়। তিনি প্রথম সাউথ এশিয়ান লেফটেন্যান্ট কমান্ডার হিসেবে কুইন্সে এনওয়াইপিডির পুলিশ একাডেমিতে অভিষিক্ত হয়েছেন।

  জানা গেছে, ২০০৪ সালের জানুয়ারীতে এনওয়াইপিডি’তে যোগদান করেন শামসুল হক। ২০১০ সালে তিনি সার্জেন্ট পদে পদোন্নতি পান। ২০১৪ সালে লেফটেন্যান্ট পদে পদোন্নতি পেয়ে তিনি এনওয়াইপিডি’র অভ্যন্তরীণ বিষয়ক তদন্ত গ্রুপের দায়িত্ব নেন।

  শামসুল হক যুক্তরাষ্ট্রে এসেছেন ১৯৯১ সালে। এখানে এসে তিনি বাসবয়, ডেলিভারীম্যান, ম্যানেজারসহ নানা চাকরী করেন। চাকরীর পাশাপাশি ভবিষ্যতে ভালো কিছু করার দৃঢ় প্রতিজ্ঞা নিয়ে তিনি পড়াশোনা চালিয়ে যান। ১৯৯৭ সালে অর্জন করেন ডিপ্লোমা ডিগ্রী। এরপর লাগোয়ার্ডিয়া কমিউনিটি কলেজ থেকে এএস এবং বারুখ কলেজ থেকে বিবিএ সম্পন্ন করেন। বারুখ কলেজে অধ্যায়নকালে তিনি কলেজ স্টুডেন্ট গভর্নরের চেয়ারপার্সনের দায়িত্ব পালন করেন। পরে কলম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয় থেকে জনপ্রশাসনে স্নাতকোত্তর ডিগ্রী অর্জন করেন।

  লেফটেন্যান্ট শামসুল হক জানান, ২০০১ সালের ১১ই সেপ্টেম্বর নিউইয়র্কে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় মুসলমানদের দোষারোপ করার পর তিনি পুলিশ বিভাগে যোগদানের সিদ্ধান্ত নেন তিনি। এনওয়াইপিডি’তে যোগদানের পর বুঝতে পারেন যে, এ বিভাগে আরও বেশী সংখ্যক বাংলাদেশী আমেরিকানের প্রয়োজন। এ অভিপ্রায়েই এনওয়াইপিডি’তে কর্মরতদের নিয়ে প্রতিষ্ঠা করেন ‘বাংলাদেশী আমেরিকান পুলিশ অ্যাসোসিয়েশন(বাপা)’। তিনি সংগঠনটির প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। এই সংগঠনের পথ-নির্দেশনা ও পরামর্শক্রমে এখন চার শতাধিক বাংলাদেশী এনওয়াইপিডি’তে বিভিন্ন র‌্যাঙ্কে কাজ করছেন। এর বাইরে এনওয়াইপিডি’র অধীনে দেড় হাজারের মতো ট্রাফিক অ্যানফোর্সমেন্ট এজেন্ট রয়েছেন। অর্থাৎ বিশ্বের রাজধানী হিসেবে পরিচিত এবং জাতিসংঘের এই শহরের কোনায় কোনায় কর্ত্যবরত পুলিশ এবং ট্রাফিক এজেন্টের মধ্যে বাংলাদেশীরা জাগ্রত। 

  লেফটেন্যান্ট শামসুল হক বলেন, আমি প্রথম বাংলাদেশী হিসেবে এই পদোন্নতি পেয়েছি। তবে এই পদে ভবিষ্যতে আরও অনেক বাংলাদেশী থাকবে বলে আমি আশাবাদী। 

  লেফটেন্যান্ট শামসুল হক সিলেটের গোলাপগঞ্জ উপজেলার বাঘার গ্রামের মরহুম আব্দুল মুসাব্বির এবং মরহুম নুরুন নেছা দম্পতির সন্তান। স্ত্রী রুবিনা হক ও দুই ছেলে নিয়ে তিনি নিউইয়র্কের কুইন্সে বসবাস করছেন। তার সব ভাই-বোনও নিউইয়র্কে থাকেন। লেফটেন্যান্ট শামসুল হকের এই সাফল্যে বাংলাদেশী কমিউনিটির মানুষ খুব খুশী হয়েছেন। তারা তাকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানাচ্ছেন। 

জাতিসংঘ সদর দপ্তরে উদযাপিত হলো আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস
বাংলাদেশে রাষ্ট্রীয় নীতির মাধ্যমে পরিচালিত হচ্ছে কোভিড-১৯ প্রতিরোধ কার্যক্রম-- রাষ্ট্রদূত
আমেরিকায় করোনায় মৃত্যুর সংখ্যা ৫ লাখ ছাড়িয়ে গেছে
সর্বশেষ সংবাদ