ঢাকা মঙ্গলবার, মে ১৮, ২০২১
হযরত মোরশেদ আলী আল কাদেরী (আঃ) এর ১২০তম পবিত্র ওরশ আজ
  • গ্রন্থনায় ঃ আলহাজ্ব গোলাম জিলানী কাদেরী
  • ২০২১-০২-১৭ ০০:৫২:০২

“আ’ওফে উরসে মুর্শেদ আলী মকামে হ্যায়
রহমত বরস রাহি হ্যায় ইহাঁ ফায়যে আমে হ্যায়”
                          -হযরত জামিল (আঃ)
হুজুর আকরাম (সাঃ) সমস্ত সৃষ্টির শ্রেষ্ঠ ও আধ্যাতিক জ্ঞান, দর্শনের মূল উৎস। আর তাঁরই আশরাফুল আওলাদ হযরত বড় পীর গওসুল আযম (আঃ) এ ধারার মহান সাধক এবং সুফীদের মহান পথিকৃত।
হুজুর গওসুল আযম (আঃ) এঁর সিলসিলা কাদেরীয়া তরিকা। তিনি পরিপুর্ণ জ্ঞানের ভান্ডার এবং পরবর্তি প্রজন্মের কাছে তিনি শ্রেষ্ঠ আদর্শ হিসাবে পরিচিত। 
আজ হুজুর বড় পীর হযরত গওসুল আযম (আঃ) এঁর সুযোগ্য বংশধর ও মহান কাদেরীয়া সিলসিলার ১৯তম মহান সাজ্জাদানসীন পীর সাহেব কেবলাহ্ সৈয়েদেনা ওয়া মওলানা হযরত আলি আব্দুল কাদের শামসুল কাদের মোরশেদ আলি আল্ কাদেরী আল্ হাসাইনী ওয়াল হোসাইনী আল্ বাগদাদী  আল্ মেদিনীপুরীর পবিত্র ওফাত শরীফ (ওরস শরীফ)। তিনি হুজুর ‘পূরনূর’ বলেও খ্যাত। ইং ১৮৫২ খৃঃ, ১২৬৮ হিঃ, ২৭শে রমযান শুক্রবার শবে কদরের রাতে মেদিনীপুরে জন্ম গ্রহন করেন।
তাঁর মহান পিতা সৈয়েদেনা ওয়া মওলানা হযরত আবু মুহম্মদ মেহের আলি আল্ কাদেরী (আঃ) এ মহান শিশুর জন্মের কিছুদিন আগে সৈয়েদেনা ওয়া মওলানা হযরত মওলা এ কায়েনাত হযরত আলি (আঃ) এঁর স্বপ্ন যোগে জিয়ারত পান। তিনি এ শিশুর নামকরন  তাঁর নামের সাথে সংপৃক্ত করে রাখার আদেশ দেন। এর কিছুদিন পর বড় পীর হযরত গওসুল আযম (আঃ) ও অনুরূপ আদেশ দেন যাতে এ শিশুর নামকরন তাঁর নামের সাথে জড়িয়ে রাখা হয়। তাই এ মহান শিশু ভুমিষ্ট হবার পর তাঁর পিতা তাঁকে নাম করন করেন “আলি আব্দুল কাদের শামসুল কাদের মোরশেদ আলি আল্ কাদেরী।” তারপর এই মহান শিশু তাঁর পিতার স্নেহে ও ভালবাসায় বড় হতে থাকেন।  তিনি বাল্য কাল হতেই পিতার ছায়া সঙ্গী হয়ে উঠেন। তাঁর বয়স যখন ছয় অথবা সাত বৎসর তখন থেকেই তিনি আল্লাহ তা’য়ালার ধ্যানে মেদিনীপুরের “গোপের গহীন জঙ্গলে” ধ্যানরত অবস্থায় মগ্ন থাকতেন। হিংস্র জীব-জন্তুর মাঝে একা খোদা তা’য়ালার ধ্যানে নিমগ্ন থাকা অবস্থায় সামান্যতম ভয়ভীতি তাঁকে কখনও স্পর্শ করতে পারে নি বা তিনি কখনও বিচলিত হতেন না।
  মহান পিতার সাহচার্য্যে আধ্যাতিক জগতের সু-কঠিন পথের সকল স্তর তিনি আতি নিষ্ঠার সাথে অতিক্রম করে সফলকাম হন। গভীর রাতে তাঁর মহান পিতা ঘরের কড়ির সাথে দু পা বেঁধে প্রিয়তম পুত্রকে উল্টো করে ঝুলিয়ে দিতেন আর এ অবস্থায় তাঁর পবিত্র মুখমন্ডল হতে রক্ত টপটপ করে ঝরে নীচে রক্ষিত পাত্রে জমা হতো। এ অবস্থায় সারা রাত তিনি “সালাতে মাকুসা” এর জিকির করতেন।
মওলা পাকের বয়স যখন মাত্র ষোল বছর তখন তাঁর মহান পিতা আধ্যাত্ব শক্তির সব টুকুই তাঁকে অর্পন করে ইহলোক ত্যাগ করেন। প্রিয়তম পিতার তিরোধানের পর তাঁর মধ্যে এক অভাবনীয় ভাবান্তর লক্ষিত হয়। এক নাগাড়ে তিনি চল্লিশ দিন সূর্য্যাস্ত হতে সূর্য্যোদয় পর্যন্ত ইস্ত্রিগঞ্জের গভীর
  শ্বাপদসংকুল জংগলে রাতের পর রাত একাকী অবস্থান করতেন। পিতার মাজার পাকে দিনের পর দিন রাতের পর রাত অতিবাহিত করতেন। এভাবে তিনি চল্লিশ দিন মৌনতা অবলম্বন করে আহার, নিদ্রাহীন অবস্থায় গভীর জঙ্গলে একাকী নগ্ন পায়ে বিচরন করতেন। এভাবে আহার নিদ্রাহীনতার মধ্যে একটি বছর অতিক্রান্ত হয়।
  মওলাপাক ইস্ত্রিগঞ্জে অবস্থান করে বেশ কয়েক বার “গোরচিল্লায়” অতিবাহিত করেন। তিনি দীর্ঘ্যদিন যাবত শয়ন করতেন না। এবাদত বন্দেগীতেই দিনাতিপাত করতেন। তারপর তিনি ধীরে ধীরে লোকারন্যে আসতে শুরু করেন। পায়ে হেঁটে মওলাপাক সমগ্র ভারতবর্ষ পরিভ্রমন করেছেন। এই ভ্রমন কালে কোন বিদেহী আত্নার সমাধিস্থল অতিক্রম করার সময় সমাহিত ব্যক্তির আত্না এ মহান ওলি আল্লাহর কাছে করুনা লাভের জন্য প্রার্থনা করলে মওলাপাক তাদের প্রতি শুভবাক্য উচ্চারন করা মাত্র তারা শান্তি পেতো এবং তাদের আত্না ধন্য হতো।
  অবশেষে ১৮৮২/৮৩ সালে ৩২ বৎসর বয়সে তিনি মেদিনীপুর হতে কলকাতায় বসতি স্থাপন করেন। প্রথমে কলকাতার ৫১নং তালতলা লেনে এবং পরবর্তীতে ৯নং গার্ডেনার লেন বর্তমান ২২নং খানকা শরীফ লেনে স্থায়ী ভাবে বসবাস শুরু করেন। 
  উল্লেখ থাকে যে, তৎকালীন ইংরেজ সরকার ঐ রাস্তার নামকরন করেন- “খানকাহ্ শরীফ লেন।” কাল প্রবাহে এই স্থানই অর্থাৎ ২২ নং খানকাহ্ শরীফ লেন হয়ে উঠে এক মহা তীর্থস্থান। আবাল-বৃদ্ধ বনিতা, ধনী-নির্ধন সমস্ত কর্মের লোকজন এখানে তাঁর সান্নিধ্যে এসে ফায়েজ লাভ করতো এবং নিজেরা ধন্য হতো। আজ অবধিও ঐ ২২ নং খানকাহ্ শরীফে সকল ধর্মের লোকজন অতি ভক্তি সহকারে মাথা ছোঁয়ায়।  বাড়ীটির তৃতীয় তলায় এ মহান ওলি আল্লাহ কতৃক একটি মসজিদ শরীফ নির্মিত হয় এবং তার সংলগ্ন কক্ষে ও দ্বিতীয় তলায় তাঁর হুজরা শরীফ বিদ্যমান আছে। তাঁর অধঃস্তন মহান বংশধর ঐ ২২ নং খানকাহ্ শরীফে অবস্থান করছেন। এ ছাড়াও পরবর্তীতে তাঁর মহান বংশধরগন ৪ নম্বর ও ৬ নম্বর মহসীন স্কয়ার(কলকাতা) এ অবস্থান করছেন এবং ৪ নম্বর মহসীন স্কয়ার খানকাহ্ শরীফে কাদেরীয়া তরিকার বর্তমান ২৩তম সাজ্জাদানসীন বড়হুজুর কেবলাহ্ সহ তাঁর পূন্যবান ভাই ও ভাতিজা বসবাস করছেন। সেখান হতেই কাদেরীয়া তরিকা ভুক্ত সকল পীর ভাই-বোন সকলেই ফায়েজ ও বরকত লাভ করছেন আর তা তীর্থস্থান হিসাবে ফায়েজ বরকত লাভেরই স্থান বটে। সোবহান আল্লাহ্। আলহামদোলিল্লাহ্ এই ৪ ও ৬ নং মহসীন স্কয়ার খানকাহ্ শরীফকে কেন্দ্র করে আলে রাসুল (সাঃ)দের জিয়ারত পাবার আশায় অসংখ্য ভক্তের সমাবেশ হয় এবং ভক্তগন এ মহান ওলি এ কামেল পীর সাহেবগনদের সশ্রদ্ধয় সালাম নিবেদন করে আসছেন।
  হুজুর মওলাপাক ধর্মীয় জ্ঞান গরিমায় ছিলেন অগ্রগন্য। আরবি, ফারসি ও উর্দু ভাষায় এ মহান ওলির দক্ষতা অপরিসীম। বিশুদ্ধ ব্যাকরণ সমৃদ্ধ উর্দু , ফারসি ভাষায় রচিত তাঁর কবিতা, গদ্য প্রকাশে কৃতিত্ব তুলনাহীন। তাঁর অসাধারন জ্ঞান উত্তরাধিকার সূত্রে সুফী ভাব ধারায় প্রকাশিত হয়েছে লেখনীর মাধ্যমে। তিনি তাঁর মহান পূর্ব পুরুষ সৈয়েদেনা হযরত গওসুল আযম(আঃ) এঁর প্রেমে মগ্ন থাকতেন সর্বক্ষন। তাঁর সব কবিতাই রচিত হয়েছে গওসপাককে কেন্দ্র করে। অধিকাংশ কবিতা ৫০/৬০ পংতিতে রচিত। এখানে উলেখ্য তাঁর স্ব-রচিত কবিতাগুলি কাউকে পড়ে শুনাতেন না। অতি 
  সংগোপনে সংরক্ষন করতেন। ওজিফা, তসবীহ্-তাহলিলের মাঝে কিছু কিছু লিখে রাখতেন যা তাঁর পবিত্র খানদানের সদস্যদের কাছ থেকে জানা যায়। তাঁর রচিত ‘দেওয়ানে’ প্রায় দশ হাজার সের (যূগল পংক্তি) আছে। এ মহান ওলি এ কামেলের বেসাল শরীফের পর ১৩১৯ হিঃ তে এই ‘দেওয়ান পাক’ প্রথম প্রকাশিত হয়।
  মহান কাদেরীয়া সিলসিলা স¤র্পকীয় চর্চা কালে হুজুর মওলাপাক বা হুজুর ‘পূরনুর’ পাকের প্রসংগ অবশ্যই আমলে আনতে হবে, নইলে তা অসম্পূর্ন থেকে যাবে। কারণ তাঁর মহান পূর্ব পুরুষ মওলায়ে কায়েনাত, তাঁর মহান দুই পুত্র এবং হুজুর গওসুল আযম(আঃ) এঁর মাধ্যমে প্রাপ্ত আধ্যাত্বিক শক্তি ও সুফী দর্শন-চর্চা তিনি অত্যন্ত আন্তরিকতার সাথে গ্রহন করেছিলেন। তিনি আধ্যত্ববাদের এমন এক মহান সূর্য্য যার কালজয়ী যুগ উজ্জ্বল আলোকে এ দেশের প্রতিটি জনপদ হয়েছে আলোকিত। তিনি হুজুর গওসুল আযম(আঃ) এঁর বাগিচার ফুটন্ত ফুল যার মধুর সুবাসে বাংলাদেশ তথা ভারতবর্ষের আবাল-বৃদ্ধ-বনিতা সকল শ্রেনীর নর-নারী সে মধুর ঘ্রাণে বহু মানুষ আমোদিত ও সু-পথ প্রাপ্ত হয়েছে।
  হুজুর মওলাপাকের বহুমুখী গুনাবলীর মধ্যে উল্লেখ যোগ্য গুন হলো তাঁর ভূবণ মোহিনী ব্যক্তিত্ব। তাঁর মধুর সান্নিধ্যে এসে মানুষ মন্ত্রমুগ্ধের ন্যায় বশীভুত হতো। কারন তাঁর মধ্যে হুজুর আকরাম(সাঃ), হুজুর গওসুল আযম(আঃ), মওলায়ে কায়েনাত(আঃ), বড় ইমাম পাক ও শহীদে কারবালা(আঃ) এঁর ন্যায় আচার ব্যবহার বিদ্ধমান। উর্দু, ফারসি সুফী সাহিত্য ছিল তাঁর অতি প্রিয় বিষয় তাঁর লেখনী(কবিতা) আরবী, উর্দু, ফারসি ভাষার সংমিশ্রনে হয়ে উঠেছে অত্যন্ত প্রানবন্ত। অপরূপ ছন্দময় লেখনীর মাধ্যমে তাঁর আলে রাসুল প্রেম, গওস প্রেম যেন ঝর্না ধারার মত অবিরাম বর্ষিত হতো। অসংখ্য ছন্দময় কবিতার মধ্য হতে তাঁর মহান পূর্ব পুরুষ বেলায়েতের বাদশাহ্, ওয়াসিয়ে রাসুল(সাঃ) সৈয়েদেনা ওয়া মওলানা হযরত ইমাম আলি(আঃ) এঁর প্রশংসা মূলক ও অলংকার সমৃদ্ধ অত্যন্ত উঁচু স্তরের ভাব ধারায় লিখিত দু’টো চরন উল্লেখ করা হলো ঃ
“খাক্ পাকে পায়ে মওলা ছে তু হো কর খাক্ খাক্
খাক্ আপনি পাক করলে খাক্ছারে বু তোরাব।”
মওলাপাক বা ‘হুজুর পূরনুর’ ছিলেন অসম্প্রাদায়িক। সকল শ্রেনীর লোক ধনী, নির্ধন, নর-নারী, হিন্দু, মুসলিম, জৈন, খৃষ্টান সবার প্রতি ছিল তাঁর মেহেরবানীর দৃষ্টি। তিনি অত্যন্ত সাধারন ভাবে বা অনাড়ম্বর জীবন যাপন করতেন। তিনি মাটির পাত্রে আহার করতেন। শয্যা বলতে তিনি মেঝেতেই শয়ন করতেন। সামান্য কয়খানা লুঙ্গি আর এক/দুই খানা পিড়হান ছিল তাঁর ব্যবহারের বস্ত্র। সারা বছরই তিনি রোজা রাখতেন কয়টি নির্দিষ্ট দিন ব্যতীত। ইফতার করতেন এক গ্লাস শরবত এবং সামান্য একটু ভিজানো ছোলা দ্বারা। রাতে সামান্য তরকারী যোগে আহার করতেন, আবার কোন কোন দিন তাও করতেন না। প্রায়ই উপবাসে দিন কাটতো। তিনি তাঁর মুরিদদের মনে সর্বদা আধ্যাত্বভাবের উদয় হওয়ার জন্য চেষ্টা করতেন। তিনি ফরমাতেনÑ“সংসারের সকল কাজের মধ্যে খোদা তা’য়ালার সন্তষ্টি বিধান করাই হলো মূল বিষয়। আধ্যাত্ব চিন্তা সর্বদা হৃদয়ে ধরে রাখবে।”
  তিনি ছিলেন অত্যন্ত ব্যক্তিত্ব সম্পন্ন অথচ সবার জন্য উদার। তাঁর সীমাহীন ভালবাসায় আবাল-বৃদ্ধ, বনিতা সকলেই হতো মুগ্ধ। তাঁর পবিত্র মুখমন্ডল সর্বক্ষন থাকতো নূরের জ্যোতিতে উদ্ভাসিত। তিনি ছিলেন ধনী, দরিদ্র সকলেরই আপন জন। তিনি ছিলেন অন্তর্যামী মহান ওলিয়ে কামেল। তাঁর সামান্য সহচরকে ‘আহ্বাব’ বা প্রিয় সহচর বলে ডাকতেন। এক কথায় তিনি ছিলেন পাক পাঞ্জাতন পাক তথা হুজুর গওসুল আযম (আঃ) এঁর অনুকৃতি। তিনি অভাব গ্রস্থ ব্যক্তিকে অভাব মোচন করতেন। হুজুর গওস পাকের ন্যায় কোন মুরিদ যদি বিপদে তাঁকে স্মরণ করে, তার ডাকে তিনি তৎক্ষনাৎ সাড়া দিয়ে তার বিপদ দূর করে দিতেন।
  মওলাপাক হুজুর গওস পাকের শাণে অসংখ্য কাসিদা শরীফ রচনা করেছেন। তাঁর রচিত অসংখ্য কেতাবের মধ্যে “দেওয়ানে আলিয়া” বিশেষ ভাবে উল্লেখ যোগ্য। আরবী, ফার্সি ও উর্দু ভাষায় তিনি অত্যন্ত উঁচু মানের কাসিদা শরীফ তাঁর পূর্বপুরুষ হুজুর আকরাম(সাঃ) হতে হুজুর গওসুল আযম (আঃ) এঁর ফজিলতে রচনা করেছেন। এ সকল উঁচু মানের কাসিদা পাক আজ অবধি সকলের ঘরে ঘরে এবং মিলাদ মাহফিলে পাঠ করা হয়।
  আমরা আজ মওলাপাকের ওরস শরীফে হাজির হয়েছি। ১৭ই ফেব্রুয়ারী, ৪ঠা ফাল্গুন, ২৭শে শওয়াল ১৩১৮ হিজরী, শনিবার রাত ২টা ১১মিনিটে কলকাতার ‘খানকায়ে কাদেরীয়া আলিয়ায়’ নিজ বাসভবনে সকলকে কাঁদিয়ে পরলোক গমন করেন।
  শনিবার অর্থাৎ বেসাল শরীফের আগের দিন রাত ২টার সময় তাঁর খাদেম মুন্সি আব্দুল লতিফকে নির্দেশ দেনÑ“মেরা সামানে সফর লে আউ।” মুন্সি আব্দুল লতিফ সাহেব অন্যান্য সফরে যাবার প্রাক্কালে যে সকল পোষাক-আসাক বা জামা-কাপড় ইত্যাদি নিতে হয় সেই রূপ সে দিনও তিনি সেই সকল জিনিষ পত্র নিয়ে হুজুরে হাজির হলেন। মওলাপাক এ সব দেখে হেঁসে বললেন- “ইয়ে সফর আখেরী সফর হ্যায়। মেরা কাফন লে আউ।” উল্লেখ্য মওলাপাক তাঁর কাফনের কাপড় সর্বক্ষনই প্রস্তুত রাখতেন।
  আর পূর্ব ঘোষনা অনুযায়ী আমাদের মওলাপাক এই দিন রাতেই অগনিত ভক্তবৃন্দকে চোখের পানিতে ভাসিয়ে পরলোক গমন করেন। এ মহান ওলি আল্লাহ্ যখন বেসাল শরীফের দিন ক্ষন ঘোষনা দেন তখন অসংখ্য ভক্তবৃন্দ কেঁদে বুক ভাসাতে লাগলো। ক্রন্দনের রোল ঘরে ঘরে এমন ভাবে হচ্ছিল যেন কেয়ামতের আলামত। সবাই আরজ করলো এখন ভক্তদের কি উপায় হবে ? হুজুর তাদেরকে এই বলে অভয় দেন- “বেসালের পরও পরজগত হতে আমার ভক্তদের আন্তরিক শুভেচ্ছা কামনা করবো।”
  রাত ২টা ১১মিনিটে হুজুর বালিশে ঠেস দেওয়া অবস্থা হতে সরিয়ে পবিত্র মাথা বালিশে রেখে শুয়ে পড়েন এবং হুজুর গওস পাককে স্মরণ করতে করতে দুনিয়া থেকে চলে যান। রেল যোগে এ মহান ওলির পবিত্র দেহ পূর্ব নির্দেশ মত মেদিনীপুরে তাঁর মহান পিতার পাশে সমাহিত করা হয়। হাজার হাজার ভক্ত তাঁর সমাধি প্রাঙ্গনে প্রতি বছর এসে দোয়া কামনা করে যে ভাবে জীবদ্দশাতে ফায়েজ পেতো, ঠিক তেমনি অনুরূপ ভাবে তাঁর মাজার পাক হতে প্রতি নিয়তই ফায়েজ পাচ্ছে। আলহামদুলিল্লাহ্। ওয়াস সালাম।

বিআরডিবি’র সাড়ে ৭হাজার পরিবার অভূক্ত ঃ প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা
শুকরিয়া/না-শুকরিয়া
আবার আসিল করোনা মহামারী
সর্বশেষ সংবাদ