ঢাকা রবিবার, এপ্রিল ১১, ২০২১
ইসলামাবাদে বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও জাতীয় দিবস উদযাপন
  • বিশেষ প্রতিনিধি
  • ২০২১-০৩-২৮ ০৪:৩৬:২২
পাকিস্তানের ইসলামাবাদস্থ বাংলাদেশ হাইকমিশন গত ২৬শে মার্চ যথাযোগ্য মর্যাদা, উৎসব ও আনন্দের মধ্যে দিয়ে বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও জাতীয় দিবস উদযাপন করা হয় -মাতৃকণ্ঠ।

পাকিস্তানের ইসলামাবাদস্থ বাংলাদেশ হাইকমিশন গত ২৬শে মার্চ যথাযোগ্য মর্যাদা, উৎসব ও আনন্দের মধ্যে দিয়ে বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও জাতীয় দিবস উদযাপন করেছে। 

  করোনা অতিমারির ফলে সৃষ্ট অবস্থার কারণে প্রথাগতভাবে সান্ধ্যকালীন জাতীয় দিবসের রিসেপশন আয়োজন করা না হলেও স্থানীয় স্বাস্থ্যবিধি মেনে দূতালয় প্রাঙ্গনে দিনব্যাপী বিভিন্ন অনুষ্ঠানমালার মাধ্যমে দিবসটি উদযাপন করা হয়।

  হাইকমিশনের কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ ও ইসলামাবাদে বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশীগণ এ অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন। এ উপলক্ষে দূতালয় প্রাঙ্গন বর্ণাঢ্য ব্যানার, ফেস্টুনও পোস্টারে সুসজ্জিত করা হয়। 

  জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ও মহান স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদ্্যাপন উপলক্ষে সকালে দূতালয় প্রাঙ্গনে সকল কর্মকর্তা-কর্মচারী ও প্রবাসী বাংলাদেশীদের উপস্থিতিতে আনুষ্ঠানিকভাবে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন হাইকমিশনার মোঃ রুহুল আলম সিদ্দিকী। 

  এ সময় সমবেতকন্ঠে জাতীয় সঙ্গীত গাওয়া হয়। জাতীয় পতাকা উত্তোলনের পর হাইকমিশনার সকলকে নিয়ে বঙ্গবন্ধুর প্রমাণাকৃতি প্রতিকৃতিতে পুস্পস্তবক অর্পণ করে জাতির পিতার প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

  পবিত্র কোরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে আলোচনা পর্ব শুরু হয়। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান,মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে শহীদ বীর মুক্তিযোদ্ধা ও ৩০ লক্ষ শহীদ বাঙ্গালীর প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানিয়ে দাঁড়িয়ে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়। দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি, মাননীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রী ও মাননীয় পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী কর্তৃক প্রদত্ত বাণী পাঠ করা হয়। প্রধানমন্ত্রীর ভিডিও বার্তাটি প্রচার করা হয়। 

  আলোচনা পর্বে বিভিন্ন বক্তাগণ স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবসের তাৎপর্য, গুরুত্বও বাঙ্গালী জাতির স্বাধীকার আন্দোলনে জাতির পিতার অবদান তুলে ধরেন।

  হাইকমিশনার মোঃ রুহুল আলম সিদ্দিকী তাঁর বক্তব্যে স্বাধীনতা অর্জনে মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, বীর মুক্তিযোদ্ধা ও মহান মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন।

  এছাড়াও তিনি বলেন, বাংলাদেশ সময়ের আগেই সহস্রাদ্ধ লক্ষমাত্রাও ‘রূপকল্প-২০২১’ বাস্তবায়ন করেছে। টেকসই উন্নয়ন লক্ষমাত্রা অর্জনের মাধ্যমে ‘রূপকল্প-২০৪১’ বাস্তবায়নে জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা বির্নিমানে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। তিনি সকল ভেদাভেদ ভুলে যার যার অবস্থানে থেকে একযোগে কাজ করে একটি সমৃদ্ধ ও জ্ঞাননির্ভর বাংলাদেশ বিনির্মানের আহবান জানান। 

  আলোচনা শেষে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও দেশের স্বাধীনতার জন্য আত্মোৎসর্গকারী বীর শহীদদের আত্মার মাগফেরাত এবং দেশ ও জাতির কল্যাণ ও সমৃদ্ধি কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়। 

  এরপর হাইকমিশনার সকলকে নিয়ে জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী, মহান স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও জাতীয় দিবসের কেক কাটেন। 

করোনার সংক্রমণ তীব্র রূপ নেয়ায় মুম্বাইয়ে লকডাউন॥টিকায় ঘাটতি
শ্রীলংকায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ
জাতিসংঘে বিশ্ব অটিজম সচেতনতা দিবস পালন
সর্বশেষ সংবাদ