ঢাকা মঙ্গলবার, মে ১৮, ২০২১
“রাজবাড়ী হেল্পলাইনের” বর্ষপূর্তিতে কিছু কথা, সাফল্য-ব্যর্থতা ও প্রত্যাশা
  • ডাঃ সুমন হুসাইন
  • ২০২১-০৫-০৪ ০০:০৮:৪৫

ঠিক এক বছর আগে ২০২০ সালের ১লা মে পথচলা শুরু আমাদের। করোনা মহামারীতে তখনও প্রিয় জন্মভূমি ধুঁকছে। শুরু থেকেই আমাদের পথচলাটা অনেক কঠিন ছিল। তবে সত্যি বলতে এই পথ চলাটা আমাদের কখনো নিঃসঙ্গ ছিলনা। আমরা সব সময় পাশে পেয়েছি একঝাঁক স্বপ্নবাজ তরুণ-তরুণীকে। যারা হার মানতে খুব কম জানে, যারা পাগলের মতো ভালোবাসতে জানে । 

  আমাদের প্রধান উদ্দেশ্য ছিলো রাজবাড়ীর মানুষ বুঝতে শিখুক, কোন বিপদে তারা একা নয়। উদ্দেশ্য ছিলো রাজবাড়ীর মানুষ অন্য কারো বিপদে এগিয়ে আসতে শিখুক। বিশ্বাস করতে ভালো লাগবে যে, আমাদের এই উদ্দেশ্যে আমরা অনেকাংশেই সফল । আর এসব সফলতার কৃতিত্ব এই গ্রুপের প্রতিটা মানুষের। ব্যর্থতার দায়ভারগুলো আমরা মাথা পেতে নিলাম । 

  গ্রুপটা শুরু হয়েছিলো কয়েকজন ডাক্তার আর মেডিকেলের শিক্ষার্থীদের হাত ধরে। একে একে আমরা পাশে পেয়েছি সকল পেশার মানুষকে। সবাই সবার জায়গা থেকে তাদের সর্বোচ্চ করেছেন, করে যাচ্ছেন। সবার প্রতি সশ্রদ্ধ কৃতজ্ঞতা।

  বর্তমান এডমিন, মডারেটর প্যানেলের বাইরেও আরো অনেক অনেক মানুষের অনেক রাত জাগা শ্রম আছে এই প্ল্যাটফর্মের জন্য। সবার প্রতি ভালোবাসা। আপনাকে আমরা ভুলিনি, ভালোবাসি। আপনি সব সময়ই আমাদের গর্বিত অংশ। রাজবাড়ী হেল্পলাইনের জন্য যারা কয়েক মিনিট শ্রম দিয়েছেন, তারাই রাজবাড়ী হেল্পলাইন এর গর্বিত পথচলায় অংশীদার । 

  সংগঠন চালানোয় আমাদের ব্যর্থতা অনেক। আমরা “রাজবাড়ী হেল্পলাইন” কে নিজেদের সন্তানের মতো ভালোবেসেছি। তিল তিল করে যত্ন করে বড় করেছি ওকে। যখনই ওকে কেউ কটাক্ষ করেছে, অনেক সময় আমরা সহ্য করতে পারিনি। কারণ, আমাদের উদ্দেশ্যে কোনো গলদ ছিলো না। অনেকেই হয়তো আমাদের ব্যবহারে কষ্ট পেয়েছেন তখন। সবার পক্ষ থেকে আমি ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি। হয়তো অনেক সময় আমাদের সিদ্ধান্ত, কিংবা তার প্রকাশ অনেককেই ব্যথা দিয়েছে। কিন্তু আমরা বিনয়ের সাথে বলছি-আমরা যা করেছি, তা রাজবাড়ীর ভালোর জন্যই করেছি। আমাদের ব্যর্থতা অনেক। কিন্তু এই সকল ব্যর্থতার বাইরে আমাদের কিছু অর্জন রয়েছে। আমরা চেষ্টা করেছি, করে যাচ্ছি সর্বোচ্চ। আমরা একটা বছর যা করতে পেরেছি এবং আমাদের প্রত্যাশা-

  ১। করোনায় টেলিমেডিসিন সেবা ঃ করোনায় সারাদেশ ব্যাপী যখন লকডাউন সেই তুমুল অসহায়ত্বের সময়ের মাঝে রাজবাড়ী হেল্পলাইন-এর চিকিৎসকেরা নিজেদের কর্মস্থলের বাইরেও নিজের জেলার মানুষের বিপদে ভার্চুয়ালি চিকিৎসা দিয়েছেন। ছোট্ট পরিসরে হলেও এখন পর্যন্ত যা চলছে । 

  ২। গ্রুপে নিয়মিত লাইভ প্রোগ্রাম ঃ করোনার ক্রান্তিকালে করোনাসহ গুরুত্বপূর্ণ স্বাস্থ্যসেবা ও পরামর্শ নিয়ে বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের লাইভ ও রাজবাড়ীর গুণীজনদের নিয়ে লাইভ প্রোগ্রাম, যা রাজবাড়ীর মানুষের মাঝে ব্যাপক সাড়া ফেলেছিলো। 

  ৩। বন্যায় ত্রাণ ও মেডিক্যাল ক্যাম্পিং ঃ নিজ উদ্যোগে নিজেদের অর্থায়নে ত্রাণ ও ফ্রি মেডিকেল সেবা দিয়ে গোয়ালন্দ এবং দৌলতদিয়া সংলগ্ন বন্যা কবলিত মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছিল রাজবাড়ী হেল্পলাইন। 

  ৪। শীতবস্ত্র বিতরণ ঃ শীতের সময় রাজবাড়ীর ৫টি উপজেলায়ই আমরা শীতার্ত মানুষের মাঝে আমাদের ভালোবাসা তুলে দিয়েছে। 

  ৫। স্বেচ্ছায় রক্তদান এবং ফ্রি ব্লাড গ্রুপিং ক্যাম্পিং ঃ আমরা দেখেছি এবং বিশ্বাস করি, গত এক বছরে রাজবাড়ীর মানুষের প্রয়োজনে সিংহভাগ রক্তের যোগানে আমরা ছিলাম আপনাদের সাথে। এক্ষেত্রে রাজবাড়ী ব্লাড ডোনার্স ক্লাবসহ রক্ত নিয়ে কাজ করা রাজবাড়ীর সকল স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনকে আমাদের কৃতজ্ঞতা। আমরা আপনাদের সর্বোচ্চ সহযোগিতা পেয়েছি । 

  ৬। বই বিনিময় প্রোগ্রাম ঃ রাজবাড়ী হেল্পলাইন ই রাজবাড়ী জেলায় প্রথম একটি ভিন্নধর্মী প্রোগ্রাম এর আয়োজন করে ' বই বিনিময় প্রোগ্রাম’ নামে। যেখানে পাঠক চাইলে তার পড়ে ফেলা পুরাতন বইটি পরিবর্তন করে নতুন একটা নিতে পারবেন। আমরা রাজবাড়ীকে একটা মডেল জেলা হিসেবে দেখতে চাই। যার জন্য শিক্ষার দিক থেকেও রাজবাড়ীর মানুষ এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে।  

  ৭। অসহায় রোগীদের পাশে দাঁড়ানো ঃ আমরা বিভিন্ন সময় বিভিন্ন অসহায় রোগীর পাশে দাঁড়িয়েছি। আর্থিকভাবে, বিভিন্ন হাসপাতালে শারীরিকভাবে তাদের পাশে দাঁড়ানো, রক্ত ম্যানেজ করে দেওয়া।

  ৮। ফ্রি  ইফতার বিতরণ কর্মসূচি ঃ রমজানের ১ম দিন থেকেই চলছে আমাদের মাসব্যাপী হতদরিদ্র, প্রতিবন্ধী ও ভাসমান মানুষদের মাঝে ফ্রি ইফতার বিতরণ কার্যক্রম। 

  ৯। ফ্রি অক্সিজেন সেবা ঃ “একটি নতুন ভোরের প্রতীক্ষায় রাজবাড়ী হেল্পলাইন ফ্রি অক্সিজেন সেবা” -এই ব্যানারে চলছে রাজবাড়ী হেল্পলাইন এর অক্সিজেন সরবরাহ কর্মসূচি। দুস্থ, করোনা রোগীসহ জরুরী প্রয়োজন এ রাজবাড়ী হেল্পলাইন আছে রাজবাড়ীর পাশে। ইতোমধ্যে আমরা কয়েকজন রোগীর জরুরী প্রয়োজনে অক্সিজেন সরবরাহ করতে পেরেছি। আমরা সব সময় প্রস্তত আছি আপনাদের জন্য।

  ১০। রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দিতে অসহায় এক বুড়িমাকে এডমিন প্যানেলের পক্ষ থেকে নতুন দোচালা টিনের ঘর তুলে দিয়েছি। যা ঐ সময় সবাই ব্যাপক প্রশংসা করেছিল।

  ১১। রাজবাড়ী হারানো গৌরবজ্জ্বল ইতিহাস ও ঐতিহ্য তুলে ধরাঃ নতুন প্রজন্মের কাছে আমাদের হারানো ঐতিহ্য আমরা সংরক্ষণ করবো আমাদের নির্মাণাধীন ওয়েব সাইটে। 

১২। তথ্য সেবা ঃ দেশে, দেশের বাইরে, রাজবাড়ী এবং রাজবাড়ীর বাইরের অনেকেই গ্রুপে ডাক্তার, হাসপাতাল, ট্রান্সপোর্টসহ বিভিন্ন ধরনের তথ্য চেয়ে পোস্ট দিয়ে থাকেন এবং সবার প্রয়োজনে সবাই যেভাবে এগিয়ে আসছেন। আমরা এটাকেই সবচেয়ে বড় পাওয়া বলে মনে করছি । 

  রাজবাড়ীর মানুষ ভালোবাসতে জানে, একজনের পাশে আরেকজন ভাই হয়ে দাঁড়াতে জানে, বিপদে কখনো ঢাল হয়ে কখনো বা সান্ত্বনা হয়ে পাশে দাঁড়িয়ে যায়- রাজবাড়ী হেল্পলাইন তা আমাদের চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়েছে।

  আমাদের পথচলার এক বছর পূর্ণ হয়েছে গত পহেলা মে। আমাদের পথ চলায় সঙ্গী, সঙ্গী নন, আমাদেরকে ভালোবাসেন কিংবা প্রচন্ড রকম ঘৃণা করেন- সকলকে এবং সকলের প্রতি আমাদের শ্রদ্ধা, কৃতজ্ঞতা এবং ভালোবাসা। সবাইকে শুভেচ্ছা জানাই।

  আমরা আপনাদের পাশে সব সময় এভাবেই থাকতে চাই, চাই আপনারাও থাকুন পুরো রাজবাড়ীর পাশে। আপনাদের পরামর্শ, আপনাদের গঠনমূলক সমালোচনা সব সময়ই কাম্য। সামনের বছরগুলোতে আমরা সুগঠিত হবো, আরো সুন্দর হবো- আমাদের চেষ্টা থাকবে সর্বোচ্চ। আমরা চাই-“রাজবাড়ী হেল্পলাইন” হোক দল-মত-পেশা সব নির্বিশেষে সব “মানুষের”, আমাদের সবার। চলো রাজবাড়ী একসাথে, দাঁড়াও তোমার রাজবাড়ীর পাশে। লেখক ঃ ডাঃ সুমন হুসাইন, প্রতিষ্ঠাতা, রাজবাড়ী হেল্পলাইন।

গোয়ালন্দ পৌরসভার ওয়ার্ড কাউন্সিল শাহিন গ্রেফতার
জীবনের ঝুঁকি নিয়েই কর্মস্থলে ফিরছে ওরা!
দৌলতদিয়া ফেরী ঘাটে স্বাস্থ্যবিধি না মানায় ভ্রাম্যমান আদালতে জরিমানা
সর্বশেষ সংবাদ