ঢাকা শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২১
স্মরণ ঃ গণমানুষের নেতা ছিলেন এডভোকেট আঃ ওয়াজেদ চৌধুরী
  • আসজাদ হোসেন আজু
  • ২০২১-০৭-৩১ ০০:৪৫:৪৪

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুুজিবুর রহমানের অন্যতম ঘনিষ্ঠ রাজনৈতিক সহচর রাজবাড়ী জেলার কৃতি সন্তান এডভোকেট আব্দুল ওয়াজেদ চৌধুরী তার আপন গুনাবলীর মাধ্যমে রাজবাড়ী তথা এ অঞ্চলের গণমানুষের নিকট অত্যন্ত আস্থাভাজন হয়ে উঠেছিলেন। গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে আজীবন সংগ্রামী এ সিংহ পুরুষ এ অঞ্চলের মানুষের কাছে এখনো একটি প্রিয় নাম।

  রাজবাড়ী জেলার গোয়ালন্দ উপজেলার কাটাখালী গ্রামের সম্ভ্রান্ত মুসলিম চৌধুরী পরিবারে তিনি জন্ম গ্রহন করেন। তৎকালীন গোয়ালন্দ হাই স্কুল(বর্তমানে রাজবাড়ী জেলা স্কুল) থেকে ম্যাট্রিক ও কলিকাতা ইসলামিয়া কলেজ থেকে আই.এ পাশ করার পর ১৯৫০ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আইন বিভাগে ভর্তি হন। ১৯৫২ সালে মাতৃভাষা বাংলার দাবীতে যখন ক্যাম্পাসসহ সারা দেশ উত্তাল সে সময় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র হিসেবে ওই আন্দোলনে অন্যতম সংগঠক ও প্রত্যক্ষ অংশগ্রহণ করে আহত হন তিনি। ১৯৫৪ সালে যুক্তফ্রন্টের প্রার্থী হয়ে জাতীয় নির্বাচনে অংশ নিয়ে এ এলাকা থেকে তিনি প্রাদেশিক পরিষদ সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৬০ সালে তিনি যশোর জেলা মুন্সেফ পদে হিসেবে চাকুরীতে যোগ দেন। কিন্তু ১৯৬৬ সালে বঙ্গবন্ধুর ডাকে সাড়া দিয়ে চাকুরী ছেড়ে আবার প্রত্যক্ষ রাজনীতিতে চলে আসেন। ওই সময় রাজবাড়ী জেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতির দায়িত্ব পান। ১৯৭১ সালে জেলার প্রত্যন্ত এলাকায় ঘুরে মুক্তিযোদ্ধাদের সংগঠিত করেন এবং সরাসরি স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। যুদ্ধ পরবর্তী সময়ে তিনি জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়ে শুরু করেন দলকে সংগঠিত করার কাজ। এ ক্ষেত্রেও তিনি আশাতিত ভাবে সফল হন। সাথে সাথে চলে তার আইন পেশা। 

  অল্প সময়ে এ পেশার মাধ্যমে তিনি জেলায় জনপ্রিয় হয়ে ওঠেন। নিজ দল এবং দলের বাইরে কারো আইনী সহায়তা দিতে কোন টাকা-পয়সার চিন্তা তিনি করতেন না। অসহায় দরিদ্র মানুষকে তিনি একদম বিনা পয়সায় মামলা চালিয়ে দিতেন। দীর্ঘদিন রাজবাড়ী জেলা বার এসোসিয়েশনের সভাপতি হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন।

  ১৯৭৫-এর ১৫ই আগস্টের বাংলাদেশের রাজনৈতিক পটপরিবর্তনের পর সামরিক শাসকেরা অনেক লোভনীয় সুবিধার প্রস্তাব দিলেও তিনি কখনো গণতান্ত্রিক সংগ্রামের আন্দোলন থেকে পিছু হটেননি। এমনকি এরশাদ সরকারের মন্ত্রীত্ব পাওয়ার সুযোগ গ্রহণ না করে তিনি এক কঠিন দৃষ্টান্ত স্থাপন করেন। ১৯৭৫ সাল থেকে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন তিনি। তার নেতৃত্বেই রাজবাড়ীতে ১৯৯০ সালে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে আন্দোলন সফল হয়। এরপর ১৯৯১ সালে আওয়ামী লীগের মনোনয়নে বিপুল ভোটে রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। এ এলাকার মানুষ মনেই করত আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় গেলে তিনি মন্ত্রী হবেন। কিন্তু সে সময় সরকারে আসে বিএনপি। সংসদ সদস্য থাকাকালে ১৯৯২ সালের ৩১শে জুলাই হৃদযন্ত্রের ক্রীড়া বন্ধ হয়ে তিনি ইন্তেকাল করেন। 

  তার জন্মস্থান কাটাখালীতে স্থানীয় জনতা ওয়াজেদ চৌধুরী স্মৃতি সংসদ নামে একটি ক্লাব গড়ে তুলেছে। এই ক্লাবের উদ্যোগে প্রতি বছর ৩১শে জুলাই কাটাখালীতে এলাকাবাসী তার স্মরনে দোয়া ও আলোচনা সভার আয়োজন করে। আজ তার ২৯তম মৃত্যু বার্ষিকী। তিনি দলের ও মানুষের জন্য আজীবন কাজ করে গেছেন। তবে তিনি জীবদ্দশায় দলমত নির্বিশেষে মানুষের যে সেবা দিয়ে গেছেন তা জেলাবাসী আজও শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করে। লেখক ঃ- সাংবাদিক আসজাদ হোসেন আজু, গোয়ালন্দ, রাজবাড়ী। লেখাটি পুনঃ মুদ্রণ। 

স্মরণ ঃ গণমানুষের নেতা ছিলেন এডভোকেট আঃ ওয়াজেদ চৌধুরী
রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী ইস্যুতে সরকারের মানবিকতা
বিয়ের আগে করলে পরীক্ষা রক্ত; সন্তান থাকবে থ্যালাসেমিয়া মুক্ত
সর্বশেষ সংবাদ