ঢাকা বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর ৩, ২০২০
রাজবাড়ী জেলা আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল নেতাদের বিরুদ্ধে ফেসবুকে অপপ্রচারের প্রতিবাদ ও নিন্দা
  • প্রেস বিজ্ঞপ্তি
  • ২০২০-০৬-১৯ ১৯:৩৫:৩৩
ছবিতে বামে রাজবাড়ী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কাজী ইরাদত আলী এবং ডানে রাজবাড়ী-২ আসনের এমপি ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ জিল্লুল হাকিমের পুত্র আশিক মাহমুদ মিতুল -মাতৃকণ্ঠ।

॥প্রেস বিজ্ঞপ্তি॥ রাজবাড়ী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কাজী ইরাদত আলী এবং রাজবাড়ী-২ আসনের এমপি ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ জিল্লুল হাকিমের পুত্র আশিক মাহমুদ মিতুলকে নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়া ফেসবুকে মহল বিশেষের উদ্দেশ্যমূলক অপপ্রচারের তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়েছেন বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ রাজবাড়ী জেলা শাখার বর্তমান সভাপতি ও জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি এডঃ গণেশ নারায়ণ চৌধুরী এবং রাজবাড়ী পৌর আ’লীগের সভাপতি এডঃ মোঃ উজির আলী শেখ ও সাধারণ সম্পাদক মোঃ শফিকুল ইসলাম সফি।
  গতকাল ১৮ই জুন এক বিবৃতিতে ও নিজের ফেসবুকে স্ট্যাটাসে এডঃ গণেশ নারায়ণ চৌধুরী বলেন, রাজবাড়ী জেলা আ’লীগের দায়িত্বশীল নেতাদের বিরুদ্ধে উদ্দেশ্যমূলক প্রচারণার হেতু কী!
  গত কয়েকদিন ধরেই রাজবাড়ী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কাজী ইরাদত আলী এবং রাজবাড়ী-২ আসনের এমপি ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোঃ জিল্লুল হাকিমের পুত্র আশিক মাহমুদ মিতুল হাকিমকে নিয়ে ফেসবুকে উদ্দেশ্যমূলক প্রচারণা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। 
  তিনি বলেন করোনার মধ্যে গোটা বিশ্ব যখন সংকটের মুখোমুখি, বাংলাদেশের হাজার হাজার শ্রমজীবী মানুষ যখন কর্মহীন-এ রকম পরিস্থিতিতে ব্যক্তি বিশেষের বিরুদ্ধে প্রচারণার বিষয়ে আওয়ামী লীগের একজন ক্ষুদ্র কর্মী এবং বঙ্গবন্ধুর আহ্বানে সাড়া দিয়ে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণকারী নগণ্য ব্যক্তি হিসেবে আমাকে আহত করেছে। জীবনের ৭২টি বছর পার করে এসেছি। ছাত্রলীগ, যুবলীগ, মহান মুক্তিযুদ্ধ এরপর আওয়ামী লীগ- দীর্ঘ ৫৬বছরের রাজনৈতিক জীবনে রাজবাড়ীতে মরহুম কাজী হেদায়েত হোসেন, মরহুম এডঃ আব্দুল ওয়াজেদ চৌধুরী, এডঃ সৈয়দ রফিকুছ সালেহীন, মোঃ জিল্লুল হাকিম, কাজী কেরামত আলী, কাজী ইরাদত আলীসহ অনেক নেতার সংস্পর্শে কাজ করেছি। ’৭১ এর উত্তাল সময়ে রাজবাড়ী কলেজ ছাত্র সংসদের ভিপি, তৎকালীন মহুকুমা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক এবং জেলা আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায় অতিক্রম করে বর্তমানে সহ-সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছি। এছাড়া বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ জেলা শাখার বর্তমান সভাপতি এবং রাজবাড়ী জেলা বার এসোসিয়েশনের ৬বার সভাপতি নির্বাচিত হয়েছি। বয়স ও রাজনৈতিক সময়কালে আমার চেয়ে কম থাকতে পারে কিন্তু রাজনৈতিক ও সামাজিক ক্ষেত্রে অবদান অনেক নবীণ ব্যক্তিরও বেশী থাকতে পারে। আমি যদি করোনা নামক এই মহামারীর কথা বলি তাহলে পুরো রাজবাড়ী জেলায় যাদের নিয়ে অপপ্রচার চালানো হচ্ছে তাদের ধারের কাছে কোন রাজনৈতিক, সামাজিক বা ব্যবসায়ী, সুশীল সমাজের কোন প্রতিনিধি, এমনকি ব্যক্তি উদ্যোগে কোন জনপ্রতিনিধির এমন কর্মকান্ড আমার চোখে পড়েনি। যদি শুধু বিরোধিতার খাতিরেই বিরোধিতা হয়, তাহলে আমার বলার কিছু নেই। কিন্তু যদি এই প্রচারণার সাথে কোন নেতার সম্পৃক্ততা থাকে তাহলে বঙ্গবন্ধুর আদর্শের একজন সৈনিক হিসেবে তাদের প্রতি ভেবে দেখার অনুরোধ রইল।
  এডঃ গণেশ নারায়ণ চৌধুরী আরো বলেন, আমি সাংবাদিকতায় (দৈনিক বাংলার বাণীর প্রতিনিধি/রাজবাড়ী প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি) একসময় কম-বেশী সম্পৃক্ত থাকার কারণে এতটুকু জ্ঞান আমার হয়েছে- গণমাধ্যম এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এক জিনিস নয়। সে কারণে বলবো যখন একজন সংবাদকর্মী কোন বিষয়ে সংবাদ তৈরী করবেন, সেখানে অনুসন্ধানী বক্তব্যের পাশাপাশি যার বিরুদ্ধে অভিযোগ তার এবং ভুক্তভোগীদের বক্তব্য তুলে ধরবেন। কিন্তু এর বাইরে যা হবে তা হবে নেহায়েত অপপ্রচার। 
  আর সমাজ সংস্কারের উদ্দেশ্যেই যদি এই ধরণের প্রচেষ্টা হয় তাহলে আমার প্রশ্ন- রাজবাড়ীর হত্যা, চাঁদাবাজী, ছিনতাই, মাদকসহ বহু অপকর্মের নায়ক এক পুত্রের গর্বিত পিতাকে স্বর্ণ পদকে ভূষিত করবেন, আবার আরেকজনকে ধিক্কার দিবেন, তা কী করে হয়? দীর্ঘদিনের রাজনীতিতে যা বুঝেছি তা হলো আপনি রাজনীতিক, সাংবাদিক, লেখক, বুদ্ধিজীবী, চিকিৎসক যেই হন না কেন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনার ছিটেফোঁটাও আপনার মধ্যে থাকলে দেশের এই ক্রান্তিলগ্নে আপনি বাংলাদেশের স্বাধীনতার স্বপ্নদ্রষ্টা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু ও তার হাতে গড়া সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের জন্য ক্ষতিকর কোন কাজ কেউই করবেন না-এমনটিই আমার বিশ্বাস। 
  তিনি বলেন, রাজবাড়ীর আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে মরহুম কাজী হেদায়েত হোসেনের যে অবদান, তার ধারাবাহিকতা ১৯৭৫ সাল থেকে বহন করে আসছে আজকের রাজবাড়ী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কাজী ইরাদত আলী। পরিবারের অন্য সদস্যদের অবদান থাকতেই পারে। কিন্তু পারিবারিক রাজনৈতিক ঐতিহ্য ধরে রাখতে মুখ্য ভূমিকা  তথা অবদান কাজী ইরাদত আলীরই।
  অপরদিকে গতকাল ১৮ই জুন রাজবাড়ী পৌর আ’লীগের সভাপতি এডঃ মোঃ উজির আলী শেখ ও সাধারণ সম্পাদক মোঃ শফিকুল ইসলাম সফি যুক্ত বিবৃতিতে রাজবাড়ী জেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক ও রাজবাড়ী চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজের সভাপতি কাজী ইরাদত আলী এবং রাজবাড়ী-২ আসনের এমপি ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোঃ জিল্লুল হাকিমের পুত্র আশিক মাহমুদ মিতুলের বিরুদ্ধে ফেসবুকে অপপ্রচারের নিন্দা জানিয়ে বলেন, আমরা সকলেই জানি সংবাদপত্র হচ্ছে সমাজের দর্পণ আর সাংবাদিক হচ্ছে জাতির বিবেক। একজন সাংবাদিক তার কাছে প্রাপ্ত তথ্য যাচাই-বাছাই করে সংবাদ মাধ্যমে তুলে ধরবেন এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু যখন সাধারণ ব্যক্তি বিশেষের মতো ফেসবুক ব্যবহার করে কেউ একের পর এক মিথ্যা বর্ণনা তুলে ধরেন তখন আর যাই হোক বিবেকের বিষয়টি প্রশ্নবিদ্ধ হয়। 
  বিবৃতিতে তারা বলেন, রাজবাড়ীতে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে একজন ত্যাগী ও পরীক্ষিত রাজনীতিক কাজী ইরাদত আলী। এ অঞ্চলের অসংখ্য স্কুল-কলেজ, মসজিদ, মাদ্রাসা, মন্দির, হাসপাতাল নির্মাণসহ বহু জনহিতকর কাজ করেছেন তিনি। অনেক দরিদ্র ও অসহায় মানুষকে এবং আওয়ামী লীগের বেশ কয়েকজন নেতাকেও হার্ট অপারেশনসহ বড় ধরণের চিকিৎসা নিজ অর্থায়নে করিয়ে এনেছেন। বিশেষ করে করোনাকালীন তার যে অবদান তা রাজবাড়ীবাসী কখনোই ভুলে যাবে না।
  এরপরও তার বিরুদ্ধে ফেসবুকে একের পর এক কাল্পনিক প্রচারণায় আমরা বিস্মিত ও হতবাক হয়েছি। এ ধরণের প্রচারণার আমরা নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই। এসব প্রচারণার আদৌ কোন ভিত্তি নেই। ১৯৭৫ এর ১৫ই আগস্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদতের মাত্র ৩ দিন পর ১৮ই আগস্ট সাবেক গণপরিষদ সদস্য কাজী হেদায়েত হোসেনের (ইরাদত আলীর পিতা) মৃত্যুর পর থেকে আজ অবধি আওয়ামী লীগকে আগলে রেখে কাজী ইরাদত আলী রাজনীতিতে যে অবদান রেখে চলেছেন তা অস্বীকার করার কোন সুযোগ নেই। রাজবাড়ীবাসী অন্ধ নয়। আমাদের প্রিয় নেতা কাজী ইরাদত আলী সত্য ও ন্যায়ের পক্ষে তার সংগ্রাম অব্যাহত রেখেছেন।
  রাজবাড়ী পৌর আ’লীগের সভাপতি এডঃ মোঃ উজির আলী শেখ ও সাধারণ সম্পাদক মোঃ শফিকুল ইসলাম সফি আরো বলেন, রাজবাড়ী-২ আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ জিল্লুল হাকিমের নির্দেশে এলাকায় নিরলসভাবে মানবিক দায়িত্ব পালন করছেন তার পুত্র জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য আশিক মাহমুদ মিতুল। কর্মহীন মানুষের মাঝে তালিকা করে তিন দফায় খাদ্য সামগ্রী, হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও সাবান, অসহায় পরিবারের শিশুদের পুষ্টি সমৃদ্ধ খাদ্য বিতরণ, করোনা যোদ্ধা চিকিৎসকদের সুরক্ষায় পাংশা-কালুখালী ও বালিয়াকান্দি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্তব্যরত চিকিৎসকদের মাঝে পিপিই, এন-৯৫ মাস্ক, গগলস ও অন্যান্য স্বাস্থ্য সুরক্ষা সরঞ্জাম বিতরণসহ বিভিন্ন সামাজিক কার্যক্রম করে জেলাতে তিনি যখন(আশিক মাহমুদ মিতুল) মানবতার ফেরিওয়ালা বলে আখ্যায়িত হয়েছেন তখন তার বিরুদ্ধে একজন সাংবাদিক তার ফেসবুকে উদ্দেশ্যমূলক একের পর এক মিথ্যা বর্ণনা তুলে ধরে স্ট্যাটাস দিচ্ছে। আমার এ ধরনের মিথ্যাচারের তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানাচ্ছি।

 

রাজবাড়ী পৌরসভার ৪টি ওয়ার্ড ছাত্রলীগের কমিটির অনুমোদন
পাংশায় ঠিকাদারের লোকজন কর্তৃক প্রকৌশলীকে মারপিটের ঘটনায় জেলা আইডিইবি’র প্রতিবাদ
শোক বার্তা
সর্বশেষ সংবাদ