ঢাকা সোমবার, ডিসেম্বর ৬, ২০২১
যারা দুর্দিনে পাশে থেকে আওয়ামী লীগকে সুসংগঠিত করেছে তাদেরকে শেখ হাসিনা মূল্যায়ন করবে---ওবায়দুল কাদের
  • চঞ্চল সরদার
  • ২০২১-১০-১৭ ০০:১৪:৫১
গতকাল ১৬ই অক্টোবর রাজবাড়ী জেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে ছবিতে বামে ভার্চুয়ালি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এবং ডানে প্রেসিডিয়াম সদস্য লেঃ কর্ণেল(অবঃ) ফারুক খান এমপি বক্তব্য রাখেন -খোন্দকার আরাফ

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, সাম্প্রদায়িক অপশক্তি পরিকল্পিতভাবে হিন্দু সম্প্রদায়ের মন্দিরে হামলা চালিয়েছে।

  তিনি বলেন, ‘গত ১২ বছরে হিন্দু সম্প্রদায়ের দুর্গাপূজায় কোনো ধরনের সহিংসতা বা সমস্যা হয়নি। এবার পরিকল্পিতভাবে সাম্প্রদায়িক অপশক্তি এই অপকর্ম সৃষ্টি করেছে। যারা এই অপকর্মের সঙ্গে জড়িত কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না।’

  ওবায়দুল কাদের গতকাল ১৬ই অক্টোবর রাজবাড়ী জেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে তার রাজধানীর বাসভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে এসব কথা বলেন।

  হিন্দুদের মন্দিরে যারা হামলা করেছে তারা মুক্তিযুদ্ধের শত্রু উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, এই অপশক্তির বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হয়ে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। দেশের উন্নয়ন যাদের সহ্য হয় না, তাদের গাত্রদাহ হওয়াই স্বাভাবিক বলেও মনে করেন তিনি।

  ওবায়দুল কাদের বলেন, ধর্মবিশ্বাসকে পুঁজি করে একটি মহল ধর্মের মূল চেতনাবিরোধী তৎপরতার মাধ্যমে বারবার সহিংসতার সুযোগ খুঁজছে। তাদের আর ছাড় দেয়া হবে না। বিএনপি-জামাত নির্বাচনে ব্যর্থ হয়ে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করতে পরিকল্পিতভাবে কুমিল্লায় দেবীর পায়ের নিচে কোরআন শরীফ রেখেছে। এটা কোন হিন্দু করতে পারে না। এটা বিএনপি-জামাতের ষড়যন্ত্র। তারা বার বার এই ঘটনাগুলো ঘটাচ্ছে। তাদের এই ষড়যন্ত্রকে  আমাদের রুখে দাঁড়াতে হবে। যারা পূজা মন্ডপে হামলার সাথে জড়িত তাদের প্রত্যেককে আইনের আওতায় নিয়ে এসে শাস্তি নিশ্চিত করা হবে। ফেসবুকে আমাদের বিরুদ্ধে গুজব ছাড়ানো হচ্ছে। এ বিষয়ে আমাদের সজাগ থাকতে হবে।

  সরকার এসব তান্ডবে জড়িত, বিএনপি নেতাদের এমন অভিযোগ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, তারা শাক দিয়ে মাছ ঢাকতে চায় । সরকার দেশে স্থিতিশীলতা চায়। সরকার কোন দুঃখে এসব করতে যাবে।  

  ওবায়দুল কাদের বলেন, দেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টের মাধ্যমে অস্থিতিশীল তৈরির যে অপচেষ্টা হয়েছে বা হচ্ছে এবং এর পেছনে যারা মদদ দিচ্ছে, সঠিক ও নিরপেক্ষ তদন্তের মাধ্যমে অপরাধী ও নেপথ্যের কুশীলবদের বিচারের আওতায় আনা হবে। 

  প্রধান অতিথির বক্তব্যে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এমপি আরো বলেন, রাজবাড়ী একসময় সন্ত্রাসের জনপদ ছিল। কিন্তু শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর থেকে এই জনপদ আর সন্ত্রাসের জনপদ নাই। এখন একটি উন্নত জেলায় পরিণত হয়েছে। শান্তি ফিরে এসেছে। যারা দুর্দিনে পাশে থেকে আওয়ামী লীগকে সুসংগঠিত করেছেন তাদেরকে নিশ্চয়ই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মূল্যায়ন করবেন। কিন্তু ধৈর্য্য ধরতে হবে। 

  আওয়ামী লীগের এই ১৩ বছরে রাজবাড়ী জেলার সকল স্থানে উন্নয়ন হয়েছে। এই সরকার দেশের পদ্মা সেতু, মেট্রোরেলসহ বিভিন্ন উন্নয়ন করে যাচ্ছে। আপনাদের স্বপ্ন আছে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নিয়ে। আপনাদের সেই স্বপ্ন পূরণে আমরা সেখানে টানেল তৈরি করবো।

  ওবায়দুল কাদের বলেন, আসন্ন ইউপি নির্বাচনে বিতর্কিত লোকদের নাম নৌকা প্রতীকের জন্য পাঠাবেন না। তারা আওয়ামী লীগকে নানাভাবে ক্ষতি করবে। আপনারা সবাই ঐক্যবদ্ধ থাকুন। ঐক্যবদ্ধ থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করুণ।

  সম্মেলনে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য লেঃ কর্ণেল(অবঃ) ফারুক খান এমপি বলেন, আজকে যারা দায়িত্ব পাচ্ছেন তারা সকলে মিলেমিশে কাজ করবেন। ত্যাগী নেতাকর্মীদের মূল্যায়ন করবেন। আমরা করোনাকালীন ২বছর মানুষের পাশে থেকে কাজ করে গেছি। বিএনপি শুধু পারে ষড়যন্ত্র করতে। আজকে প্রমানিত হয়েছে মন্দিরে বিএনপি-জামাতের নেতাকর্মীরা হামলা করেছে। তারা সেখানে কোরআন শরীফ রেখে দেশে অশান্তি তৈরি করতে চেয়েছিল। কিন্তু তাদের সেই আশা পূর্ণ হবে না। আমরা সবাই ঐক্যবদ্ধ থেকে তাদেরকে মোকাবেলা করবো।

  প্রেসিডিয়াম সদস্য আব্দুর রহমান বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যার পর তৎকালীন শাসকরা এ দেশের ইতিহাস পাল্টাতে চেয়েছিল। কিন্তু তারা পারে নাই। বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা শেখ হাসিনা ভালো কাজের জন্য বিশ্ব দরবারে একটি রোল মডেল। করোনাকালে তিনি তিনি অসহায় মানুষের জন্য সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন। তিনি ৬৮ হাজার গ্রামকে বিদ্যুতের আলোয় আলোকিত করেছেন। যারা এই দেশে এখনো ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছে তাদের কঠিন বিচারের সামনে দাঁড়াতে হবে। যদি দল সুংগঠিত থাকে তাহলে শেখ হাসিনা বার বার ক্ষমতায় আসবেন।

  যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ এমপি বলেন, এ দেশের সকল অর্জন আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে হয়েছে। ৯ মাস যুদ্ধের পর যখন দেশ স্বাধীন হলো তখন বঙ্গবন্ধু স্বপ্ন দেখেছিলেন দেশকে অনেকদূর এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার। কিন্তু সেটা সম্ভব হয়নি। তার আগেই তাকে হত্যা করা হলো। এই সরকারের ১২ বছরের যে উন্নয়ন হয়েছে অন্য কোন সরকারের আমলে সেটা হয়নি। আমাদের মাথাপিছু আয় থেকে শুরু করে এমন কোন স্থান নেই যেখানে উন্নয়ন সাধন হয়নি। কুমিল্লাসহ বিভিন্ন স্থানে পরিকল্পিতভাবে মন্দিরে হামলা করা হয়েছে। তারা ব্যাগে করে রেললাইনের পাথর নিয়ে সেখানে হামলা করেছে। ১৯৭১ সালের পরাজিত শক্তিই এই ঘটনাটি ঘটিয়েছে। এদের সকলকে রুখে দিতে আমাদেরকে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে। 

  সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম এমপি বলেন, ৬বছর পর অনেক মানুষের উপস্থিতিতে রাজবাড়ী জেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। সবাইকে মনে রাখতে হবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র অতীতেও ছিল, বর্তমানেও আছে। তাই আমাদের সকলকে সজাগ থাকতে হবে যে কোন পরিস্থিতি মোকাবেলা করার জন্য। প্রধানমন্ত্রী দেশের মানুষের যে আশ্বাস দিয়েছেন সেটা তিনি পূরণ করেছেন। সামনের দিনেও তিনি সবার সুখে-দুঃখে পাশে থাকবেন। 

  শিক্ষা ও বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক সিদ্দিকুর রহমান বলেন, প্রধানমন্ত্রী এই দেশটাকে উন্নয়নের রোল মডেল তৈরি করেছেন। ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ দিয়েছেন। এই করোনা মহামারীতে অনেক দেশ যেখানে করোনার ভ্যাকসিন পায়নি সেখানে আমাদের সরকার ভ্যাকসিন এনে জনগণকে দিয়েছে। তাই আমরা প্রধানমন্ত্রীর হাতকে শক্তিশালী করে দলকে তার নেতৃত্বে এগিয়ে নিয়ে যাবো।

  বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন বলেন, রাজবাড়ী জেলায় ১২ বছর আগে কি ছিল আর এখন কি হয়েছে আপনারা সবাই জানেন। এই যে উন্নয়ন-এটা সম্ভব হয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে।  

   কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সদস্য সানজিদা খানম বলেন, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকা অবস্থায় এই জেলার মানুষ সুখে-শান্তিতে আছে। নতুন কমিটিতে যারা আসবেন তারা দলকে শক্তিশালী করবেন। সংগঠনের জন্য কাজ করবেন। ত্যাগী নেতাকর্মীদের পাশে থাকবেন।  

  আনোয়ার হোসেন বলেন, রাজবাড়ী জেলায় একসময় বিএনপি-জামাত, ফ্রিডম পার্টিসহ স্বাধীনতা বিরোধীতে ভরপুর ছিল। কিন্তু আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর সেগুলো কমে গেছে। এই করোনাতে যখন মানুষ খাদ্যের জন্য কষ্ট করছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তখন সকল মানুষের সহযোগিতায় হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন। সকলকে সহযোগিতা করেছেন।

  শাহাবুদ্দিন ফরাজী বলেন, আওয়ামী লীগের ক্ষমতায় থাকা অবস্থায় বিএনপি-জামাতের অনেকেই চেষ্টা করছে আওয়ামী লীগের ঢুকতে। তাই আমাদের সকলের সজাগ থাকতে হবে। বিএনপি আজও আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছে। শেখ হাসিনার অগ্রগতিতে নষ্ট করতে তারা পূজা মণ্ডপে হামলা করে ভাংচুর করেছে। আমরা বঙ্গবন্ধুর আদর্শের রাজনীতি করে শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করবো।

  সৈয়দ আব্দুল আউয়াল শামীম বলেন, আওয়ামী লীগে অনুপ্রবেশকারীদের ঠাঁই দেয়া হবে না। দলের ত্যাগী নেতাকর্মীদের মূল্যায়ন করতে হবে। যারা অন্যায় করবে-দুর্নীতি করবে আমরা তাদের সাথে থাকবো না। 

   ইকবাল হোসেন অপু এমপি বলেন, আজকের এই সম্মেলনে এত নেতাকর্মীদের উপস্থিতিই বলে দিচ্ছে রাজবাড়ীর মাটি আওয়ামী লীগের ঘাঁটি। নতুন কমিটিতে যারা পদ পাবে আমার বিশ্বাস তারা সংগঠনকে শক্তিশালী করতে কাজ করবে।

  রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব কাজী কেরামত আলী বলেন, আজকে এই সম্মেলনের মাধ্যমে অসুস্থ রাজবাড়ী জেলা আওয়ামী লীগকে সুস্থ করতে হবে। আমরা সবাই মিলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করবো। 

  সংরক্ষিত মহিলা আসনের সংসদ সদস্য সালমা চৌধুরী রুমা বলেন, আওয়ামী লীগের কারণেই আজ দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। সকল স্থানে উন্নয়ন হচ্ছে।

  জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কাজী ইরাদত আলী বলেন, যদি দলের নেতাকর্মীরা সুসংগঠিত হয় তাহলে দল সংগঠিত হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের উন্নয়নে দিন-রাত কাজ করে যাচ্ছেন। পদ্মা সেতুসহ ১০ লক্ষাধিক রোহিঙ্গাকে দেশের আশ্রয় দিয়েছেন। ৭১ এর পরাজিত শক্তি আমাদের দেশটাকে সবসময় পিছিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য নানা ধরনের ষড়যন্ত্র করছে। আমরা সবাই ঐক্যবদ্ধ থেকে অপশক্তির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াবো।  

  সভাপতির বক্তব্যে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও রাজবাড়ী-২ আসনের সংসদ সদস্য মোঃ জিল্লুল হাকিম বলেন, আমরা সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদ পাওয়ার পর থেকে দলকে ঢেলে সাজিয়েছি। আমাদের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানী করেছে। আমরা তাদের পাশে থেকে লড়াই করেছি। সবসময় জনগণের পাশে থেকেছি। আমরা সবাই মিলে দলকে শক্তিশালী করবো। সকল বিভেদ ভুলে একসাথে কাজ করবো। 

  উল্লেখ্য, ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনের দ্বিতীয় পর্বে রাজবাড়ী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ জিল্লুল হাকিম এমপি তৃতীয় মেয়াদে সভাপতি এবং কাজী ইরাদত আলী সাধারণ সম্পাদক মনোনীত করে আংশিক কমিটি ঘোষণা করা হয়।

রাজবাড়ীতে নৌকার বিপক্ষের বিদ্রোহীদের প্রার্থীতা প্রত্যাহারের আহবান, অন্যথায় দল থেকে বহিষ্কার
কালুখালীর ৮জন বিদ্রোহী ইউপি চেয়ারম্যান প্রার্থীকে আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কার
রাজবাড়ী জেলা আওয়ামী লীগের সেক্রেটারীকে জাসদের নেতাকর্মীর ফুলেল শুভেচ্ছা
সর্বশেষ সংবাদ