ঢাকা সোমবার, ডিসেম্বর ৬, ২০২১
রাজবাড়ীর গোদার বাজারে পদ্মা নদীতে ফের ভাঙন॥দেড়শ ১৫০ মিটার সিসি ব্লক নদীতে
  • স্টাফ রিপোর্টার
  • ২০২১-১০-২৭ ০১:০২:৪৪
রাজবাড়ী সদরের গোদার বাজার এলাকায় পদ্মা নদীতে গতকাল ২৬শে অক্টোবর সকালে ফের ভয়াবহ ভাঙনে প্রায় দেড়শ মিটার পাইলিং-এর সিসি ব্লক নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যায় -মাতৃকণ্ঠ।

রাজবাড়ী সদরের গোদার বাজার এলাকায় পদ্মা নদীতে গতকাল ২৬শে অক্টোবর সকালে ফের ভয়াবহ ভাঙনের সৃষ্টি হয়েছে। 

  ভাঙন শুরু হওয়ার মুহূর্তের মধ্যে নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যায় প্রায় দেড়শ মিটার পাইলিং এর সিসি ব্লক। এতে শহর রক্ষা বেড়ীবাঁধ ঘেঁষে থাকা বসতবাড়ীগুলো ভেঙ্গে অন্য স্থানে সরাতে ব্যস্ত হয়ে পড়ে স্থানীয় বাসিন্দারা। সকালেই সরিয়ে নিতে হয়েছে ১৫টি বসতবাড়ী। মারাত্মক ঝুঁকিতে পড়েছে শহর রক্ষা বেড়ীবাঁধ। ভাঙনের ঝুঁকিতে বহু বসতবাড়ী, মসজিদ ও প্রাথমিক বিদ্যালয়সহ বহু স্থাপনা।
  গোদার বাজার এলাকার বাসিন্দা সবুজ আহম্মেদ বলেন, গত জুন মাসে ৩৭৬ কোটি টাকা ব্যয়ে রাজবাড়ী শহর রক্ষা বাঁধের স্থায়ী পাইলিং এর কাজ শেষ হয়। কাজ শেষ হওয়ার এক মাস পর থেকে ৬দফার ভাঙনে নদীগর্ভে বিলীন হয়েছে ১হাজার মিটারেরও বেশী এলাকা। সরিয়ে নিতে হয়েছে অন্তত ২শত বসতবাড়ী। তাই প্রশ্ন উঠেছে কাজের মান ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের তদারকি নিয়ে।
  খায়রুল ইসলাম নামে স্থানীয় আরেক বাসিন্দা বলেন, রাজবাড়ী শহরকে রক্ষা করার জন্য শত শত কোটি টাকা ব্যয়ে যে কাজ হয়েছে তার কোন তদারকি ও কাজের মান ভালো না হওয়ায় আজকের এই ভাঙন। দুর্নীতিবাজরা লাভবান হয়েছে আর ক্ষতি হচ্ছে আমাদের। এখন শহর রক্ষা বাঁধের উপর আশ্রয় নিতে হবে। আর বাঁধ ভেঙ্গে গেলে পানি ঢুকে পড়বে শহরে। 
  স্থানীয় আরেক বাসিন্দা হাচিনা পারভীন বলেন, পদ্মার ভাঙনের তীব্রতা এতই বেশী যে আতংকিত না হয়ে উপায় নেই। বসতভিটা পরিবার-পরিজন নিয়ে মারাত্মক চিন্তায় আছি। এখন যাওয়ার মতো আর কোন জায়গা নেই। সরকার যদি এখনই ব্যাবস্থা গ্রহণ না করে তবে বড় ধরনের বিপর্যয় নেমে আসবে রাজবাড়ীবাসীর জন্য। 
  গোদার বাজার সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মোঃ মোকসেদুর রহমান খান মোমিন বলেন, যেভাবে ভাঙন শুরু হয়েছে তাতে এখনই ব্যবস্থা গ্রহণ না করলে আমাদের বিদ্যালয়, গোদার বাজার জামে মসজিদ, মাদ্রাসাসহ বহু বসতবাড়ী নদীগর্ভে বিলীন হবে। 
  রাজবাড়ী পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুল আহাদ বলেন, আমরা তিনবার সার্ভে করেছি। তিনবারই দেখেছি পদ্মা নদীর গতিপথ পরিবর্তন হয়েছে। হঠাৎ করে ভাঙন যে আকার ধারণ করেছে তাতে মনে হচ্ছে জিও ব্যাগে এই ভাঙন রক্ষা করা সম্ভব নয়। ফেলতে হবে জিও টিউব। জিও টিউব ফেলার জন্য পর্যাপ্ত মেশিন ও শ্রমিক প্রয়োজন। 

রাজবাড়ীতে ইলিশ সম্পদ উন্নয়ন ও ব্যবস্থাপনা প্রকল্পের আওতায় অবহিতকরণ কর্মশালা
রাজবাড়ী সদর উপজেলার নতুন নির্বাহী অফিসারের দায়িত্বভার গ্রহণ
রাজবাড়ী সদরের নবাগত ইউএনও’র সাথে অফিসার্স ক্লাবের সদস্যদের পরিচিতি সভা
সর্বশেষ সংবাদ