ঢাকা সোমবার, জানুয়ারী ১৭, ২০২২
পাকিস্তানে বাংলাদেশের মহান বিজয়ের সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন
  • স্টাফ রিপোর্টার
  • ২০২১-১২-১৭ ১২:১৬:৪৫
পাকিস্তানের ইসলামাবাদস্থ বাংলাদেশ হাইকমিশনে গতকাল ১৬ই ডিসেম্বর যথাযথ মর্যাদা ও উৎসাহ-উদ্দীপনার সাথে মহান বিজয় দিবসের সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপিত হয়েছে -মাতৃকণ্ঠ।

পাকিস্তানের ইসলামাবাদস্থ বাংলাদেশ হাইকমিশন যথাযথ মর্যাদা ও উৎসাহ-উদ্দীপনার সাথে গতকাল ১৬ই ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবসের সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন করেছে। 

  এ উপলক্ষে দূতালয়ে জাতীয় পতাকা উত্তোলন, জাতির পিতার প্রতিকৃতি ও অস্থায়ী জাতীয় স্মৃতিসৌধে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ, ১মিনিট নীরবতা পালন, বাণী পাঠ, আলোচনা, ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানও বিশেষ মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়। বাংলাদেশ হাইকমিশনের সকল কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ এবং তাদের পরিবারবর্গ উৎসব আনন্দে আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন। এ উপলক্ষে চ্যান্সারী প্রাঙ্গন বিজয় দিবসের ব্যানার, পোস্টার ও রঙীন বেলুন দিয়ে সজ্জিত করা হয়। 

  হাইকমিশনের সকল কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের উপস্থিতিতে চ্যান্সারী প্রাঙ্গণে মান্যবর হাই কমিশনার মোঃ রুহুল আলম সিদ্দিকী আনুষ্ঠানিকভাবে জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে বিজয় দিবসের অনুষ্ঠানের সূচনা করেন। পতাকা উত্তোলনের পর জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতি ও অস্থায়ী জাতীয় স্মৃতিসৌধে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করে বঙ্গবন্ধু ও শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন হাইকমিশনার ও হাইকমিশনে কর্মরত সকল কর্মকর্তা-কর্মচারী। 

  এরপর হাইকমিশনারের সভাপতিত্বে বিজয় দিবসের তাৎপর্য তুলে ধরে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। পবিত্র কোরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে আলোচনা পর্ব শুরু হয়। এরপর বঙ্গবন্ধু ও শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের স্মৃতির প্রতি সম্মান জানিয়ে দাঁড়িয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। বিজয় দিবস উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্র মন্ত্রী ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী প্রদত্ত বাণী পাঠ করা হয়।

  আলোচনা পর্বে হাইকমিশনের কর্মকর্তাগণ বাংলাদেশের স্বাধীনতা আন্দোলনের প্রেক্ষাপটসহ মহান মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস ও বাংলাদেশের জন্য এর তাৎপর্য তুলে ধরেন। 

  হাইকমিশনার মোঃ রুহুল আলম সিদ্দিকী তাঁর বক্তব্যে বলেন, এ বছর আনন্দ ঘন পরিবেশে আমরা উদযাপন করছি সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙ্গালি স্বাধীনতার স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ‘মুজিববর্ষ’ এবং স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী যা বাঙালির বিজয়োৎসবে যোগ করেছে অনন্য একমাত্রা। 

  তিনি গভীর শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করেন বাঙ্গালি জাতির মুক্তির মহানায়ক জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং মুক্তিযুদ্ধের আত্মোৎসর্গকারী বীর শহীদদের। তিনি কৃতজ্ঞতার সাথে স্মরণ করেন জাতীয় চার নেতাকে। গভীর শ্রদ্ধা জানান বীর মুক্তিযোদ্ধা, মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক, বিদেশী বন্ধু, যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা, শহীদ পরিবারের সদস্য ও সকলস্তরের জনগণকে যারা এ বিজয় অর্জনে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে অবদান রেখেছেন।

  হাইকমিশনার উল্লেখ করেন, আমাদের স্বাধীনতার লক্ষ্য ছিল রাজনৈতিক স্বাধীনতার পাশাপাশি অর্থনৈতিক মুক্তি। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু ক্ষুধা, দারিদ্র ও শোষণমুক্ত ‘সোনার বাংলা’ বিনির্মাণে সারাজীবন উৎসর্গ করেছেন। বঙ্গবন্ধু মাত্র সাড়ে ৩বছরে যুদ্ধ-বিধ্বস্ত দেশকে পুনর্গঠন করেন। জাতির পিতার সেই স্বপ্নবাস্তবায়নে তাঁর সুযোগ্য কন্যা বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মানুষের ভাগ্যোন্নয়নে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন এবং মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার চেতনাকে ধারণ করে বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত কাজকে পরিপূর্ণতা দানের লক্ষ্যে ‘রূপকল্প ২০২১ সফলভাবে বাস্তবায়নের মাধ্যমে বাংলাদেশকে একটি মধ্যম আয়ের জ্ঞানভিত্তিক দেশে রূপান্তর করেছেন। ইতোমধ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ‘রূপকল্প-২০৪১ বাস্তবায়নের কাজ শুরু হয়েছে। তিনি বিশ্বে প্রথমশতবর্ষ মেয়াদি ‘ব-দ্বীপ পরিকল্পনা-২১০০’ বাস্তবায়ন শুরু করেছেন।

  হাইকমিশনার বলেন, অর্থনৈতিক উন্নয়নে বাংলাদেশ এখন বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেল। বাংলাদেশ স্বল্পোন্নত দেশ থেকে মর্যাদাশীল ‘উন্নয়নশীল’ দেশে উন্নীত হওয়ার জাতিসংঘের চূড়ান্ত অনুমোদন লাভ করেছে। কৃষি, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, যোগাযোগ, তথ্য-প্রযুক্তি, শিল্প ব্যবসা বাণিজ্যসহ আর্থ সামাজিক উন্নয়নের প্রতিটি ক্ষেত্রে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। নিজস্ব অর্থায়নে নির্মাণাধীন পদ্মা সেতু সমাপ্তির পথে। বাস্তবায়িত হচ্ছে মেট্রোরেল, পায়রা গভীর সমুদ্র বন্দর, কর্ণফুলী বহুমুখী টানেল, এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে ও রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের মতো মেগাপ্রকল্প। অবকাঠামো, বিদ্যুৎ, গ্রামীণ অর্থনীতি  ও কূটনীতিসহ প্রতিটি ক্ষেত্রে ঈর্ষণীয় উন্নয়ন ঘটেছে। হাইকমিশনার আরও বলেন, উন্নয়নের এই গতিধারা অব্যাহত থাকলে বাংলাদেশ অবশ্যই ২০৪১ সালের মধ্যে বঙ্গবন্ধুর ক্ষুধা, দারিদ্র্যমুক্ত ও উন্নত সমৃদ্ধ সোনার বাংলাদেশে পরিণত হবে।

  হাই কমিশনার বলেন, ‘সকলের সাথে বন্ধুত্ব, কারো সাথে বৈরিতানয়’ জাতির পিতার ঘোষিত মূলমন্ত্রকে ধারণ করে দেশের পররাষ্ট্র নীতি পরিচালিত হচ্ছে। মায়ানমার থেকে বিতাড়িত ও নির্যাতিত ১১ লক্ষ রেহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়ে বাংলাদেশ বিশ্ব দরবারে এক অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। তিনি মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস নতুন প্রজন্মের কাছে তুলে ধারার জন্য সবাইকেঅনুরোধ জানান।  

  তিনি বিজয়ের সুবর্ণজয়ন্তীর মাহেন্দ্রক্ষণে শোষণহীন, বঞ্চনাহীন, সমৃদ্ধ ও জ্ঞাননির্ভর জাতির পিতার স্বপ্নের ‘সোনার বাংলা’ বিনির্মানে সকলকে যার যার অবস্থানে থেকে একসাথে কাজ করার জন্য আহ্বান জানান।

  আলোচনা পর্বের পর  শিশু-কিশোরদের অংশগ্রহণে বিভিন্ন ইভেন্টে ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। ক্রীড়া প্রতিযোগিতা শেষে শিশু-কিশোরদের সংক্ষিপ্ত  সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের পর হাইকমিশনার বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর অনুসরণে উপস্থিত সকলকে সুরর্ণ জয়ন্তী ও মুজিববর্ষের শপথ পাঠকরান। অনুষ্ঠানের শেষ পর্যায়ে প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের ও সকল শিশু-কিশোরদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়। 

  পরে জাতির পিতা ও মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের আত্মার মাগফেরাত এবং দেশ ও জাতির সমৃদ্ধি, অগ্রগতি ও কল্যাণ কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়। 

ইউএন উইমেন নির্বাহী বোর্ডের সভাপতি নির্বাচিত হলেন রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা
করোনার নতুন ধরণ ওমিক্রনকে মৃদু ভাবা বোকামি ঃ ডব্লিওএইচও
জাতিসংঘে বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনে মহান বিজয় দিবস উদযাপন
সর্বশেষ সংবাদ