ঢাকা সোমবার, জানুয়ারী ১৭, ২০২২
কালের বিবর্তনে হারিয়ে যাচ্ছে গ্রাম-বাংলার ঐতিহ্যবাহী ঢেঁকি
  • তনু সিকদার সবুজ
  • ২০২২-০১-১৫ ০০:১৯:২০
সময়ের আবর্তনে এবং কালের পরিবর্তনের বালিয়াকান্দি থেকে হারিয়ে যাচ্ছে আবহমান গ্রাম-বাংলার ঐতিহ্যবাহী ঢেঁকি -মাতৃকণ্ঠ।

সময়ের আবর্তনে এবং কালের পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে সারা দেশের মতো রাজবাড়ী জেলার বালিয়াকান্দি থেকেও হারিয়ে যাচ্ছে আবহমান গ্রাম-বাংলার ঐতিহ্যবাহী ঢেঁকি। এখন আর পৌষ-পার্বণ, নবান্ন উৎসব কিংবা বিশেষ কোন দিনে ঢেঁকিতে পা দিয়ে ধান ভানার শব্দ শোনা যায় না। 

  একসময় গ্রামীণ নারীরা ঢেঁকিতে ধান, চিড়া, চালের গুড়া, মশলাসহ নিত্য দিনের প্রয়োজনীয় নানান সামগ্রী তৈরী করতেন। কিন্তু কালের বিবর্তনে যন্ত্র নির্ভর সভ্যতার যুগে তা হারিয়ে যেতে বসেছে। বিয়ে উপলক্ষ্যে নারীরা সমবেত কণ্ঠে আঞ্চলিক গান ও গীতের সঙ্গে ঢেঁকিতে পাড় দিত। নবান্ন উৎসবে পিঠা খাওয়ার জন্য তো ঢেঁকির শব্দ জানান দিত নান্দনিকতার। ঢেঁকি দিয়ে চাল তৈরীর পাশাপাশি আটা, চিড়া, পিঠা-পায়েসের চালের গুড়া, পুরনো আমলের ক্ষীর তৈরীর চাল, কুমড়া বড়ি তৈরীর চালের গুড়া এই ঢেঁকিতেই হতো। সেসবের অধিকাংশই আজ হারিয়ে গেছে। এখন গ্রাম-গ্রামান্তর জুড়ে হাতে গোনা দু’একটা বাড়ীতেই কেবল দেখা যায় ঢেঁকি। নতুন প্রজন্মের ছেলে-মেয়েদের অধিকাংশই এখন আর এই ঢেঁকির সঙ্গে পরিচিত নয়। 

  ঢেঁকি তৈরী করা হয় বড় কাঠের গুঁড়ি দিয়ে। লম্বায় অন্ততঃ ৬ ফুটের মতো। এর অগ্রভাগে থাকে দেড় ফুট লম্বা মনাই। মনাইয়ের মাথায় পরানো হয় লোহার রিং। ঢেঁকিতে ধান বা চাল মাড়াই করতে কমপক্ষে ২জন মানুষের প্রয়োজন হয়। পিছনের লেজের মতো চ্যাপ্টা অংশে একজন পা দিয়ে তালে তালে চাপ দিলে মনাই সজোরে গর্তের ভিতরে রাখা ধান বা চালের ওপর আঘাত করে। মনাই ওঠা-নামার ছান্দিক তালে তালে আরও একজন ধান-চাল মাড়াই করতে সাহায্য করে। ঢেঁকিতে পাড় দেওয়ার মধ্যে সঠিক সমন্বয় না থাকলে ঘটতে পারে ছন্দপতন।

  ৬০ বছর বয়সী বিলকিস বানু বলেন, রাইস মিল হওয়ায় নারীদের কষ্ট দূর হয়েছে। এখন আর দীর্ঘ সময় ধরে ঢেঁকিতে কাজ করতে হয় না। ঢেঁকিতে এখন শুধু পিঠে-পুলির জন্য চালের গুড়া তৈরী করেন কেউ কেউ। অধিকাংশই এখন মিল থেকে চালের গুড়া করিয়ে আনেন। আমাদের সেই সময়ে ঢেঁকি মানে ছিল উৎসবের আরেক নাম। সকলে মিলে মজা করে ঢেঁকিতে কাজ করতাম।

  বালিয়াকান্দি সদরের পূর্ব মৌকুড়ী গ্রামের আমির পাগলের বাড়ীতে চালের গুড়া তৈরী করতে আসা গৃহবধূ বীনা সরকার বলেন, একসময় ঘরে ঘরে ঢেঁকি থাকলেও এখন আর তেমনটা নেই। সারা গ্রামে খোঁজ নিলে বড়জোর দু’একটি বাড়ীতে ঢেঁকি পাওয়া যায়। এখন আর আগের মতো ঢেঁকির ব্যবহার হয় না। তাই ঢেঁকি হারিয়ে যাচ্ছে। 

  গৃহবধূ স্বপ্না ঘোষ বলেন, নারীরা একসময় দৈনন্দিন ধান, গম ও যব ভাঙ্গার কাজ ঢেঁকিতেই করতেন। পাশাপাশি চিড়া তৈরীর মতো কঠিন কাজও ঢেঁকিতেই করা হতো। বিশেষ করে শবে বরাত, ঈদ, পূজা, নবান্ন উৎসব, পৌষ-পার্বণসহ বিশেষ বিশেষ দিনে পিঠা-পুলি খাওয়ার জন্য অধিকাংশ বাড়ীতেই ঢেঁকিতে চালের গুড়া তৈরী করা হতো। এর পাশাপাশি মরিচ, হলুদ, জিরা ইত্যাদি মশলার গুড়াও তৈরী করা হতো ঢেঁকিতে। সে সময় গ্রামের বধূদের ধান ভানার গান আর ঢেঁকির ছন্দময় শব্দে চারদিকে হৈ চৈ পড়ে যেত। এছাড়া ঢেঁকির তৈরী জিনিস দীর্ঘ দিন ধরে সংরক্ষণও করা যেত, যা মেশিনের তৈরী জিনিসে করা যায় না। এখন পৌষ সংক্রান্তি আসলেই কেবল ঢেঁকির খোঁজ পড়ে, তাছাড়া সারা বছর ঢেঁকি অযত্ন-অবহেলাতেই পড়ে থাকে। 

রাজবাড়ী সদরের আলীপুর আশ্রয়ন কেন্দ্রে প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলের কম্বল বিতরণ
উন্নত বাংলাদেশ গড়তে সমন্বিতভাবে কাজ করতে হবে ঃ রাজবাড়ীর নবাগত জেলা প্রশাসক
দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে লঞ্চে গাদাগাদি করে যাত্রী বহন॥স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষিত
সর্বশেষ সংবাদ