ঢাকা বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারী ২৯, ২০২৪
যুক্তরাষ্ট্রের আদালতে বঙ্গবন্ধুর খুনী রাশেদ চৌধুরীর রাজনৈতিক আশ্রয়ের ফাইল তলব
  • যুক্তরাষ্ট্রের নিউজার্সি থেকে বিশ্বজিৎ দে বাবলু
  • ২০২০-০৭-২৫ ১৪:২৩:৪৮
জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আত্মস্বীকৃত খুনী ও ফাঁসির দন্ডপ্রাপ্ত আসামী রাশেদ চৌধুরী -মাতৃকণ্ঠ।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আত্মস্বীকৃত খুনী ও ফাঁসির দন্ডপ্রাপ্ত আসামী মেজর(বরখাস্ত) রাশেদ চৌধুরীর যুক্তরাষ্ট্রে রাজনৈতিক আশ্রয় লাভ চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছে। 
  প্রায় ১৫ বছর পর দেশটির আদালত তার রাজনৈতিক আশ্রয় লাভের ফাইল তলব করেছে। যুক্তরাষ্ট্রের অ্যাটর্নী জেনারেল বিল বার আগামী ৩১শে জুলাইয়ের মধ্যে এই আবেদনের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সব পক্ষকে তাদের প্রতিক্রিয়া জমা দেয়ার সময়সীমা নির্ধারণ করে দিয়েছেন।
  বিগত ১৫ বছর আগে বাংলাদেশের সেনাবাহিনীর সাবেক কর্মকর্তা রাশেদের রাজনৈতিক আশ্রয়ের আবেদন মঞ্জুর করেছিল যুক্তরাষ্ট্র। মিথ্যা তথ্য দিয়ে রাজনৈতিক আশ্রয় লাভ প্রমাণিত হলে খুনী রাশেদ চৌধুরীকে যুক্তরাষ্ট্র থেকে বহিষ্কার করা হতে পারে। সে ক্ষেত্রে তাকে বাংলাদেশেই ফেরত পাঠানোর সম্ভাবনা রয়েছে।   এদিকে রাশেদ চৌধুরীর রাজনৈতিক আশ্রয় লাভের মামলার ফাইল তলব হওয়াকে বাংলাদেশ সরকারের কূটনৈতিক প্রচেষ্টা ফল বলে মন্তব্য করেছেন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমান। তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় তিনি বলেন, রাশেদ চৌধুরী জাতির জনকের আত্মস্বীকৃত খুনী। মিথ্যা তথ্য দিয়ে তিনি যুক্তরাষ্ট্রের রাজনৈতিক আশ্রয় লাভ করেছেন। একজন আত্মস্বীকৃত খুনী যুক্তরাষ্ট্রের আইনে রাজনৈতিক আশ্রয় লাভের অযোগ্য। তার এ দেশে থাকার অধিকার নেই। 
  তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং পররাষ্ট্রমন্ত্রী একে আব্দুল মোমেন ও প্রধানমন্ত্রীর আইসিটি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় বিভিন্ন সময় রাশেদ চৌধুরীকে বাংলাদেশে ফেরত পাঠাতে নানান কূটনৈতিক প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছিলেন। সেই প্রচেষ্টা সফল হতে চলেছে।
  রাজনৈতিক আশ্রয়ে থাকা রাশেদ চৌধুরী বর্তমানে ক্যালিফোর্নিয়া অঙ্গরাজ্যের রাজধানী সেক্রামেন্টো থেকে প্রায় ১১০ কিলোমিটার দূরের শহর কনকর্ডের হ্যাকলবেরি ড্রাইভে বসবাস করছেন বলে জানা যায়। তবে দীর্ঘদিন তাকে জনসম্মুখে দেখা যাচ্ছে না। বারবার স্থান বদল করে ২০১৫ সাল থেকে তিনি কনকর্ডে বসবাস করছেন। এর আগে ক্যালিফোর্নিয়া, কলোরাডো, ইলিনয় এবং মিজৌরিসহ বেশ কয়েকটি রাজ্যে বসবাস করেছেন তিনি।
  ১৯৯৬ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার ক্ষমতায় আসার পর ১২ই নভেম্বর ইনডেমনিটি আইন বাতিল করে বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার করার পথ সুগম করে। তারপর বিচারের আয়োজন করা হয়। ২০০৯ সালে ইন্টারপোলের মাধ্যমে দন্ডিত আসামীদের বিরুদ্ধে রেড এলার্ট জারি করে বাংলাদেশ পুলিশ। নানান আইনী প্রক্রিয়া শেষে ২০১০ সালের ২৭শে জানুয়ারী ৫জনের মৃত্যুদন্ড কার্যকর করা হয়।
  রাশেদ চৌধুরীকে ফিরিয়ে দিতে যুক্তরাষ্ট্রের কাছে বারবার আবেদন জানিয়েছে বাংলাদেশ। সর্বশেষ ২০১৯ সালের ৫ই নভেম্বর এই বিচারের কাগজপত্র চায় যুক্তরাষ্ট্র সরকার। সেই ধারাবাহিকতায় রাশেদ চৌধুরীর রাজনৈতিক আশ্রয় লাভের ফাইল তলব করেছে আদালত।
  এদিকে রাশেদ চৌধুরীর রাজনৈতিক আশ্রয় লাভের মামলার ফাইল তলব হওয়ায় নিউইয়র্কে আনন্দ সমাবেশ করেছে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ। স্থানীয় সময় স্থানীয় সময় গত শুক্রবার সন্ধ্যায় নিউইয়র্কের জ্যাকসন হাইটসের ৭৩ স্ট্রিটে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমান। 
  এ সময় উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সামাদ আজাদ, প্রচার সম্পাদক হাজী এনাম, প্রবাসী কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক মোঃ সোলায়মান আলী, কার্যকরী সদস্য শাহানারা রহমান, নিউইয়র্ক স্টেট আওয়ামী লীগের নেতা হোসেন সোহেল রানা ও কানেকটিকাট স্টেট আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন আহমেদ চৌধুরী প্রমুখ।
   

পণ্যমূল্য সহনীয় রাখতে সরকারের পাশাপাশি জনগণেরও নজরদারি চাই : সংসদে প্রধানমন্ত্রী
জ্বালানি ঘাটতি প্রশমিত করতে সরকার অফশোর গ্যাস উত্তোলন বেছে নিয়েছে : প্রধানমন্ত্রী
জনগণের সেবা এবং সন্ত্রাস দমন করুন : পুলিশের প্রতি প্রধানমন্ত্রী
সর্বশেষ সংবাদ