ঢাকা শনিবার, মে ২৮, ২০২২
ফরিদপুর জেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে সভাপতি শামীম-সেক্রেটারী আরিফ
  • মাহবুব হোসেন পিয়াল
  • ২০২২-০৫-১৩ ০০:৫৫:৩৪

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, জনগণ মনে করে আন্দোলন ও নির্বাচনে ব্যর্থতার দায়ে মির্জা ফখরুলসহ বিএনপি’র টপ টু বটম নেতাদের পদত্যাগ করা উচিত।
  গতকাল ১২ই মে ফরিদপুর জেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে তার সরকারী বাসভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে উদ্বোধনী বক্তব্যে বিএনপি নেতাদের উদ্দেশে তিনি এ কথা বলেন।
  অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য কাজী জাফর উল্লাহ।
  সেতুমন্ত্রী বলেন, যারা টাকা বিদেশে পাচার করে, তারা চিহ্নিত, চিহ্নিত সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজ, মাদক ব্যবসায়ী,অবৈধ অর্থ পাচারকারীদের কোন ভাবেই দলে রাখা যাবে না।
  ত্যাগী নেতাকর্মীদের দলে মূল্যায়ন করতে হবে, বসন্তের কোকিলরা দুঃসময়ে থাকবে না উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, সুবিধাভোগীদের দুঃসময়ে হাজার পাওয়ারের বাতি জ্বালিয়ে খুঁজে পাওয়া যাবে না।
  গত ১৩ বছরের বাংলাদেশের সাথে বর্তমান বাংলাদেশের তুলনা করে তিনি বলেন, এতো উন্নয়ন- অর্জন, শুধু মাত্র শেখ হাসিনা ক্ষমতায় আছে বলেই সম্ভব হয়েছে।
  তিনি আরও বলেন, দেশের এতসব উন্নয়ন অর্জন বিএনপি চোখে দেখে না, তারা দিনের আলোয় রাতের অন্ধকার দেখতে পায়।
  দেশের গণতন্ত্র, মুক্তিযুদ্ধ তথা বাংলাদেশকে বাঁচাতে হলে আওয়ামী লীগকে বাঁচাতে হবে এমন বক্তব্য দিয়ে সড়ক পরিবহন মন্ত্রী দলের নেতাকর্মীদের উদ্দেশ করে আরও বলেন, দেশের চলমান উন্নয়ন অর্জন ধরে রাখতে হলে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আগামীতেও আওয়ামী লীগকে ক্ষমতা রাখতে হবে।
  আগামী জাতীয় নির্বাচন ও আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলনকে সামনে রেখে এখন থেকেই দলকে সুসংগঠিত ও স্মার্ট হিসেবে গড়ে তুলতে হবে, এমনটা জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে নৌকার বিজয় নিশ্চিত করতে হবে।
  বিএনপি’র শাসনামলে দেশে ২৪ ঘন্টাই লোডশেডিং ছিলো বিএনপি নেতাদের স্মরণ করে দিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, শেখ হাসিনা সারা দেশে আলোয় আলোকিত করেছেন। বিএনপি নেতাদের চোখে ঠুলি পড়েছে।
  সেতুমন্ত্রী বিএনপি মহাসচিবকে উদ্দেশ করে বলেন, হুংকার দিয়ে লাভ নেই। দেশের জনগণকে দেখাবার মতো আপনাদের এমন কোন উন্নয়ন নেই। তাই সরকারের পদত্যাগ দাবি না করে নিজেরা পদত্যাগ করুন।
  গতকাল ১২ই মে ফরিদপুর সরকারী রাজেন্দ্র কলেজের মাঠে ফরিদপুর জেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক এই সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। বেলা ১২টার দিকে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ভার্চুয়ালি সম্মেলনের উদ্বোধন করেন। 
  ফরিদপুর জেলা আওয়ামী লীগের বিদায়ী কমিটির সভাপতি এডঃ সুবল চন্দ্র সাহার সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ মাসুদ হোসেনের সঞ্চালনায় সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী জাফরউল্লাহ, বিশেষ অতিথি হিসেবে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ড. আব্দুর রাজ্জাক, লেঃ কর্নেল (অবঃ) ফারুক খান, জাহাঙ্গীর কবির নানক, আব্দুর রহমান, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক বাহাউদ্দিন নাসিম, সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল, শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক সিদ্দিকুর রহমান, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন, কার্যনির্বাহী সদস্য আনোয়ার হোসেন, শাহাবুদ্দিন ফরাজি, ইকবাল হোসেন অপু এমপি, সৈয়দ আব্দুল আউয়াল ও পানি সম্পদ উপমন্ত্রী এনামুল হক শামীম এমপি প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। 
  সম্মেলনে সভাপতি পদে ১০ জন ও সাধারণ সম্পাদক পদে ২১ জন প্রার্থী ছিলেন। তাদেরকে প্রথমে নিজেদের মধ্যে আলোচনা করে একক নামের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে বলা হয়। কিন্তু তারা সমঝোতায় পৌঁছাতে ব্যর্থ হলে দলীয় সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের সাথে আলোচনা করে সম্মেলনের প্রধান অতিথি আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী জাফরউল্লাহ সভাপতি হিসেবে শামীম হক ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে শাহ মোঃ ইশতিয়াক আরিফের নাম ঘোষণা করেন। তাদের মধ্যে শামীম হক বিদায়ী কমিটির সহ-সভাপতি এবং ইশতিয়াক আরিফ তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক ছিলেন। 

 

বিশ্ব পরিবেশ দিবস উপলক্ষ্যে ফরিদপুরে চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা
ফরিদপুরে চারটি জেলার পুরোহিত ও সেবাইতদের বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত
পদোন্নতি পেয়ে সচিব হলেন রাজবাড়ীর সাবেক ডিসি হাসানুজ্জামান কল্লোল
সর্বশেষ সংবাদ