ঢাকা মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ৬, ২০২২
দেশব্যাপী দলীয় নেতাকর্মীদের উপর হামলার প্রতিবাদে রাজবাড়ীতে বিএনপির বিক্ষোভ সমাবেশ
  • শিহাবুর রহমান/আশিকুর রহমান
  • ২০২২-০৫-১৫ ০০:৪৮:৫৮

বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির বিশেষ সম্পাদক ড. আসাদুজ্জামান রিপন বলেছেন, একদিকে শেখ হাসিনা বিরোধী দলকে নির্বাচনে আনতে চান। অপরদিকে বিরোধী দলের সভা ভাঙতে চান। আজকে আমার জনসভার আগে কেন মাইক বন্ধ করে দেওয়া হলো। এই সভাকে বানচাল করার জন্য বিনা উস্কানিতে যেভাবে আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সদস্যদের কেউ কেউ চেষ্টা করেছেন এটা নিন্দনীয়। দেশের অন্য জেলাতেও আমাদের সভা হচ্ছে কিন্তু কোথাও মাইক বন্ধ করা হয়নি। কিন্তু রাজবাড়ীতে কেন মাইক বন্ধ করা হলো।  
  গতকাল ১৪ই মে বিকেলে রাজবাড়ী জেলা বিএনপি কার্যালয়ের সামনে বিএনপিসহ বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের উপর আওয়ামী সন্ত্রাসীদের হামলার প্রতিবাদে আয়োজিত বিক্ষোভ সমাবেশ চলাকালে পুলিশ মাইক বন্ধ করে দিলে তিনি এ কথা বলেন।
  তিনি বলেন, এটা কি নির্বাচিত সরকারের নমুনা। নাকি সামরিক শাসকের নমুনা। আমরা শেখ হাসিনাকে বলতে চাই, আসলে কি আপনার পুলিশ বাহিনীর কেউ কেউ কি চায়না যে বিএনপি নির্বাচনে আসুক।
  আসাদুজ্জামান রিপন বলেন, আজ টেলিভিশন টকশোতে লাখো মানুষের সামনে আমি এ কথা বলবো। আমি এ ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত দাবি করছি। 
  তিনি বলেন, আজকে শাসক দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের সাহেব বলছেন দর কষাকষি করে কোন লাভ নেই। কার সাথে আমরা দর কষাকষি করবো। আমাদের দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে অন্যায়ভাবে ও বেআইনীভাবে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানকে কারাদন্ড দেওয়া হয়েছে। এ সরকার আমাদের লক্ষ লক্ষ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়েছে। সুতরাং কার সাথে দর কষাকষি, কিসের আপোস আপনাদের সাথে আমাদের। হ্যা দর কষাকষি হবে। সেটা হলো কিভাবে আপনারা ক্ষমতা থেকে নামবেন, কবে নামবেন। অন্তবর্তীকালীন সরকারের উপরে থাকতে হবে। কিভাবে ক্ষমতা ছাড়বেন সেটা নিয়ে আলোচনা হতে পারে। আমরা স্পষ্ট ভাষায় বলতে চাই পৃথিবীতে কোন জুলুমবাজ সরকার ক্ষমতায় থাকতে পারেনি। এ সরকারকেও ক্ষমতা থেকে নামতে হবে।
  আপনারা সিদ্ধান্ত নেন যে সম্মানের সাথে ক্ষমতা থেকে নামবেন নাকি অসম্মানের সাথে ক্ষমতা থেকে নামবেন।  
  বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির বিশেষ সম্পাদক ড. আসাদুজ্জামান রিপন আরো বলেন, আমরা এই বর্তমান অবৈধ সরকারের অধীনে বিএনপি কোন নির্বাচনে যাবে না। নির্বাচনে যাবো কি যাবো না এটা আমাদের গণতান্ত্রিক অধিকার। মানুষ ভোট বর্জন করবে কি করবে না, ইভিএমে ভোট দিবে কি দিবে না এটা মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার। মানুষ কেন ইভিএমে ভোট কাটার সুযোগ দিবে। কিন্তু এ সরকার জোর করে ইভিএমে ভোট নিতে চায়। কারণ তারা জানে যে ইভিএম ছাড়া তাদের নির্বাচনের কোন সুযোগ নাই।
  জেলা বিএনপির আহ্বায়ক এডঃ লিয়াকত আলী বাবু’র সভাপতিত্বে এবং যুগ্ম-আহ্বায়ক রেজাউল করিম সিকদার পিন্টুর সঞ্চালনায় বিক্ষোভ সমাবেশে জেলা বিএনপি’র সাবেক সাধারণ সম্পাদক হারুন-অর রশিদ, পাংশা উপজেলা বিএনপির সভাপতি চাঁদ আলী খান, বালিয়াকান্দি উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক গোলাম শওকত সিরাজ, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান লিখন, জেলা যুবদলের সদস্য সচিব আমিনুর রহমান ঝন্টু ও জেলা ছাত্রদলের আহ্বায়ক আরিফুল ইসলাম রোমানসহ অন্যান্যরা বক্তব্য দেন।
  প্রসঙ্গত, দলীয় কার্যালয়ের সামনে আয়োজিত সমাবেশে স্থানীয় নেতাকর্মীদের বক্তব্য চলাকালে পুলিশ সেখানে গিয়ে মাইক বন্ধ করে দিতে বলেন। এ সময় কর্মীরা শ্লোগান দিলে পুলিশ তাদের ওপর টপকে যায়। এক পর্যায়ে আয়োজকরা সংক্ষেপে সমাবেশ শেষ করে দিবেন বলে পুলিশকে অনুরোধ করেন। এরপর কেন্দ্রীয় নেতা ড. আসাদুজ্জামান রিপন বক্তব্য শুরু করলে পুলিশ মাইক বন্ধ করে দেন। পরে মাইক ছাড়াই বক্তব্য দিয়ে সমাবেশ শেষ করেন আসাদুজ্জামান রিপন।

 

ছাত্রদল-যুবদলের ১৪ জন নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলার ঘটনায় সাবেক এমপি খৈয়মের নিন্দা
জেলা পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যানকে মহিলা আওয়ামী লীগ নেত্রীর ফুলেল শুভেচ্ছা
সম্মেলনের ১বছরেও রাজবাড়ী জেলা আওয়ামী লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি হয়নি
সর্বশেষ সংবাদ