ঢাকা মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ৬, ২০২২
আমার দেখা ৭১-এর গণহত্যা
  • বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ নজরুল ইসলাম জাহাঙ্গীর
  • ২০২২-০৫-২১ ০০:২৯:১৩

সেই ভয়াবহ দিনটি ছিল ১৯৭১ সালের ২১শে মে (৬ই জ্যৈষ্ঠ)। আমি তখন ৯ম শ্রেণীর ছাত্র। বয়স ১৫ এর কাছাকাছি। সেদিনের সেই মর্মান্তিক নৃশংস হত্যাযজ্ঞের কথা যখনই মনে পড়ে, তখনই চোখের সামনে ভেসে ওঠে ভয়ংকর কিছু ছবি। কেমন করে আশেপাশের অতি পরিচিত মানুষগুলোকে পাকিস্তানি হানাদাররা হত্যা করেছিল। ঘটনাটি যদিও সারা দেশে ঘটে যাওয়া ব্যাপক হত্যাযজ্ঞের একটি ক্ষুদ্র অংশ। 
  এলাকাটি ছিল রাজবাড়ী জেলার পাংশা উপজেলার মাছপাড়া ইউনিয়নের বাহাদুরপুর, রামকোল, মাছপাড়া, মথুরাপুর ও কালিনগর গ্রামসমূহে। মাছপাড়াতে পাকিস্তানী আর্মির অপারেশনের ঠিক এক মাস আগে ২১শে এপ্রিল রাজবাড়ীতে পাকিস্তানী আর্মিরা এসে ঘাঁটি গেড়েছিল। ঢাকা থেকে আসার পথে গোয়ালন্দ ঘাটে মুক্তিবাহিনী দ্বারা কিছুটা বাধাগ্রস্ত হয়েছিল বটে, কিন্তু সেই বাধা অতিক্রম করতে হানাদারদের খুব বেশী সময় লাগেনি। হানাদারদের আধুনিক অস্ত্র ও জনবলের কাছে মুক্তিযোদ্ধারা বেশী সময় টিকে থাকতে পারলো না। সব ধরনের খবরই প্রতি মুহূর্তে গ্রাম-গঞ্জে ছড়িয়ে পড়ছিল। রাজবাড়ীতে পাকিস্তানী সেনারা আসার পর থেকেই সমগ্র রাজবাড়ী জেলার (তৎকালীন গোয়ালন্দ মহকুমা) মানুষ ভীত ও সন্ত্রস্ত হয়ে পড়ে। সকল এলাকার মানুষের একই চিন্তা কখন কোথায় যেন হানাদাররা হামলে পড়ে। ঠিক এমনই অবস্থা ও পরিস্থিতির মধ্যেই মাছপাড়া এলাকার মানুষ দেখতে পেল সেই ভয়ংকর দিনটি। প্রত্যক্ষ করতে হলো ভয়াবহ সেই সকল ঘটনার, যা মনে পড়লে আজও শরীরের গ্রন্থিগুলো হিম হয়ে আসে। ৭১ এর ২০শে মে দিবাগত রাতের শেষ প্রহরে রাজবাড়ী থেকে হানাদার বাহিনীকে নিয়ে একটি বিশেষ ট্রেন ধীরে ধীরে মাছপাড়া  রেলওয়ে স্টেশনে গিয়ে থামলো। তখন ফজরের আজান হতে খুব একটা দেরী নেই। এলাকার অধিকাংশ মানুষই নিদ্রায়। তারা জানতো না আর কিছুক্ষণের মধ্যে তাদের ভাগ্যে কী ঘটতে যাচ্ছে। ইতিমধ্যেই এলাকার কিছু রাজনৈতিক নেতাকর্মী ও হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষ ভারতে চলে গেছে। আর অন্যরা বিশেষ করে হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষেরা যাই-যাচ্ছি এ রকম অবস্থার মধ্যে আছে। ঠিক সেই সময়ই মাছপাড়া এলাকায় সংঘটিত হলো পাকিস্তানী আর্মির অপারেশন। ভোর রাতে সবার ঘুম ভেঙে গেল গুলির শব্দে। ভয়ে ভয়ে কিছু মানুষ ঘর থেকে বেরিয়ে দেখলো আকাশের তারার মতো লাল আলো জ্বলছে। পথে পথে অস্ত্র উঁচিয়ে মারমুখী বিশালদেহী পাকিস্তানী আর্মির দল। (মুক্তিযুদ্ধে যাওয়ার পর জেনেছিলাম ভোর রাতের গুলির শব্দের পর আকাশে যে লাল তারার মতো আলো দেখেছিলাম সেটাকে সামরিক ভাষায় বলা হয় ‘বেরি লাইট’ যার অর্থ হলো আক্রমণ শুরু করো)। সাথে সাথে কয়েকটি গ্রামে পাকিস্তানী আর্মির আক্রমণ শুরু হয়ে গেল। প্রতিপক্ষ নিরীহ ও নিরস্ত্র হিন্দু-মুসলিম ও সম্মিলিত বাঙালী। তারা একই সাথে কয়েকটা গ্রাম ঘিরে ফেলেছে এবং এক এক গ্রাম এলাকা ভিত্তিক অপারেশন চালাচ্ছে। প্রতিটি বাড়ী যাচ্ছে। সন্দেহ হলে একেবারে ঘরের মধ্যে ঢুকে যাচ্ছে, যাকে সন্দেহ হচ্ছে ধরে নিয়ে যাচ্ছে। হানাদাররা জোরে জোরে বলছে ‘মালাউনকা ঘর কাহা’। বলতে বলতে আমাদের বাড়ীর দিকে আসছে দেখে বাবা জায়নামাজের পাটি নিয়ে নামাজে দাঁড়ালো, আর মা কোরআন শরীফ নিয়ে দরজার সামনে বসে জোরে জোরে তেলাওয়াত করতে লাগলো। আমি  দৌড় দিয়ে বাড়ীর পিছনে বাঁশ ঝাড়ে গিয়ে লুকালাম। আর্মিরা মাকে কোরআন পাঠ এবং বাবাকে নামাজরত দেখে সাচ্চা আদমি সাচ্চা আদমি বলতে বলতে চলে গেল। বাঁশ ঝাড়ে পালিয়ে থেকে রাস্তায় কী হচ্ছে সবই দেখতে পাচ্ছিলাম। কিছুক্ষণ পরই (১০-১৫ মিনিট বিরতিতে) দুইটি গুলির শব্দ শুনলাম। চোখ-কান খোলা রেখে রাস্তায় গেলাম। গ্রামের দক্ষিণ দিক থেকে একজন দৌড়ে আমাদের বাড়ীর দিকে আসছে। তার কথা বলার শক্তি নাই। ভয়ে কাঁপছে। কাঁপতে কাঁপতে বললো তারই সামনে দক্ষিণ পাড়ার আবুল হোসেন ও আফসার আলী বিশ্বাসকে পাকিস্তানী আর্মিরা হত্যা করেছে। আবুল হোসেন ছিলেন একজন নামাজী মানুষ। ফজরের নামাজ পড়বেন বলে ওজু করছিলেন, ঠিক সেই সময়ই পাকিস্তানী আর্মিরা তার বাড়ী ঢুকতে যাচ্ছে দেখে সে বাধা দিয়েছিল। এ কারণে তাকে গুলি করে হত্যা করা হয়। আর আফসার আলী আর্মি দেখে গোয়াল ঘরে আশ্রয় নিয়েছিল, কিন্তু আর্মিরা তাকেও হত্যা করলো। গ্রামে যাকে সন্দেহ করেছে তাকেই ধরে নিয়ে গেছে। আর অমানুষিক মারধরতো ছিলই। এবার অন্যান্য গ্রামে, বিশেষ করে হিন্দু পাড়াগুলোতে কী হয়েছিল চলুন দেখে আসি। আমাদের গ্রামের পশ্চিমে রামকোল হিন্দু পাড়া। প্রথমে পাকিস্তানী আর্মিরা আমাদের গ্রামে আক্রমণ করে বিশেষ উদ্দেশ্য নিয়ে, তা হলো আওয়ামী লীগ নেতা খন্দকার নুরুল ইসলাম ও আব্দুল মতিন মিয়াকে ধরবে বলে। কিন্তু মতিন মিয়া কয়েকদিন আগে আর খন্দকার নুরুল ইসলাম সেদিন রাত ১২টার পরপরই বাড়ী থেকে বের হয়ে ভারতের উদ্দেশ্যে রওয়ানা করেছিল। এর মধ্যে পার্শ্ববর্তী হিন্দু গ্রামগুলোতে অপারেশন শুরু হয়ে গেছে। পাকিস্তানী আর্মি আর বিহারীরা হত্যা ও বাড়ী-ঘরে আগুন দিয়েছে। চারিদিকে দাউ দাউ করে আগুন জ্বলছে। হিন্দু বাড়ীগুলো বেছে বেছে এক ধরনের পাউডার ছিটিয়ে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হচ্ছে। মুহূর্তের মধ্যে বাড়ীগুলো ভস্মীভূত হয়ে যাচ্ছে। শত শত বাড়ী পুড়ে ছাই হয়ে গেল। যে যেদিকে পারছে প্রাণ নিয়ে পালানোর চেষ্টা করছে। যারা ভাগ্যবান তারা পালিয়ে বাঁচতে পারলো, কিন্তু অনেকেই ধরা পড়ে গেল হানাদারদের হাতে। অভাগা সেই মানুষগুলোকে গরু-ছাগলের মতো দড়ি দিয়ে বেঁধে নিয়ে যাওয়া হলো মাছপাড়া রেল স্টেশনে, যেখানে হানাদাররদের বহনকারী ট্রেন অপেক্ষা করছিল। ইতিমধ্যে হানাদাররা হত্যা করেছে রামকোল গ্রামের কবিরাজ নগেন্দ্রনাথ বিশ্বাস ও তার সহধর্মিনী সুরবালা রাণী বিশ্বাসকে। বাড়ীর সবাই পালালেও তারা বাড়ী ছেড়ে যেতে চায়নি। পাকিস্তানী আর্মিরা যখন বাড়ীর কাছে এসে গেল তখন কবিরাজ দম্পতি বাড়ির পাশের তিল ক্ষেতে আত্মগোপন করলো। কিন্তু তাদের বাড়ীতে হানাদাররা যখন আগুন লাগিয়ে দিল তখন তারা দেখতে পেল দাউ দাউ করে আগুন জ্বলছে। কবিরাজ নগেন্দ্রনাথ তিল ক্ষেতের মধ্য থেকে মাথা উঁচু করে দেখতে চেষ্টা করলো তাদের বাড়ীর অবস্থা, কিন্তু পাশেই ছিল ঘাতক বাহিনীর সৈন্যরা। তারা তিল ক্ষেতে মানুষ দেখেই স্টেনগানের ব্রাশ টানলো। দুর্ভাগা কাবিরাজ দম্পতি সেখানেই গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা গেল। একই সাথে পাশের গ্রাম কালিনগরে আবুল কাশেম মৃধা, মজিবর মন্ডল, লায়লা বিবি, লটাই, জায়েদা খাতুন ও শেফালী খাতুনকে হত্যা করলো হানাদারা। হানাদারদের দ্বারা মাছপাড়ার কানুখালী গ্রামের মন্ডল শেখ ও পঞ্চানন দাশকেও জীবন দিতে হলো। বরুরিয়া গ্রামের সদানন্দ ভৌমিক রেহাই পেল না আর্মিদের হাত থেকে। দশটি গ্রাম ধরে চললো পাকিস্তানি ঘাতকদের তান্ডব। মানুষ হত্যা আর অগ্নি সংযোগে সমগ্র এলাকা পরিণত হলো জাহান্নামে। তাতেও ওদের পৈশাচিকতার শেষ হলো না। এর মধ্যে যে সকল হিন্দু মানুষগুলো ওদের হাতে বন্দি তাদের নিয়ে চললো মাছপাড়া রেল স্টেশনে। বন্দীদের  মধ্যে একজন নিভা এনায়েতপুরের হরেন্দ্রনাথ সরকারকে স্টেশনের নিকট ইদারার(কুয়ো) কাছে নিয়ে হুকুম জারি করলো ইদারার মধ্যে মাথা রাখতে। হরেন্দ্রনাথ সরকার কেবলই ইদারার কাছে  একটুখানি মাথা নীচু করেছে সঙ্গে সঙ্গে এক ঘাতক তার তরবারী দিয়ে আল্লাহু আকবর বলে তার ঘাড়ে কোপ মারলো। দেহ হতে মাথাটি বিচ্ছিন্ন হয়ে কূপের মধ্যে মধ্যে পড়ে গেল। মস্তক বিহীন বিশাল দেহটি সামান্য একটু নড়াচড়া করলো। দুইজন ঘাতক দেহটাকে ইদারার মধ্যে ফেলে দিল। বাকি ১৭ জন মৃত্যুর অপেক্ষায় প্রহর গুনছে। তারা দেখলো কেমন করে হরেন্দ্রনাথকে হত্যা করা হলো। অভাগা ১৭ জন ভগবানের মধ্যে কেই কেউ বাঁচাও, ভগবান বাঁচাও বলে চিৎকার করছে। কেউ কেউ পাথরের মতো নিশ্চুপ হয়ে গেছে। সবাই বুঝতে পারছে আর হয়তো অল্প সময় তারা বেঁচে আছে। তারপর সব শেষ হয়ে যাবে। নিকষ ঘন অন্ধকার তাদের চোখে-মুখে। স্থানীয় মুসলিম লীগ নেতা ও স্বাধীনতা বিরোধী কয়েকজন, যারা হানাদারদের সাহায্যকারী তারা বীরদর্পে এদিক থেকে সেদিক ঘুরে বেড়া"েছ। মৃত্যু পথযাত্রী মানুষগুলো তাদের কাছে আকুতি মিনতি করছে বাঁচার জন্য। কিন্তু না, সেইসব দালালরা মহাবিপদগ্রস্ত এ সকল মানুষগুলোকে যেন চিনতেই পারছে না। বন্দীদের কান্না-আহাজারিতে ঘাতক দল এবং দালালদের কারো মনেই এতটুকু দয়া-মায়া হলো না। একই সঙ্গে একই  এলাকায় বেড়ে ওঠা মানুষগুলো আজ দুই মেরুতে। ততক্ষণে রেলগাড়ীর ইঞ্জিন চালু হয়ে গেছে। মেজর নির্দেশ দিল সকল বন্দীদের ট্রেনের কামরায় উঠাতে। সবাইকে ট্রেনের বগিতে উঠানো হলো, কিন্তু পশুপতি দাস কোনক্রমেই ট্রেনে উঠলো না। তার মুখে একই কথা, বড় দাদাকে বলে দেব কিন্তু। তার বড় দাদা ছিলেন পল্লী চিকিৎসক। এলাকার সম্মানীত ব্যক্তি। তার (পশুপতি দাস) সম্পর্কে একটু বলে রাখি। সে ছিল মানসিক রোগী। সারা দিন ঘুরে বেড়াতো আর মানুষকে পান বানিয়ে খাওয়াতো। ধনী পরিবারের সন্তান তাই তার টাকা-পয়সার অভাব ছিল না। তার ভাই ও আত্মীয়-স্বজনরা তাকে টাকা-পয়সা দিতো। সে পান-সুপারী কিনে ছোট একটা ব্যাগে ভরে ঘুরে বেড়াতো। কোন লোক পান খেতে চাইলে তাকে নিজ হাতে পান বানিয়ে খাওয়াতো। আমরা অনেক সময় দুষ্টুমি করে তার হাতের ব্যাগ কেড়ে নিতে চাইতাম। তখন সে আমাদের ভয় দেখাতো, দাদাকে বলে দেবো। কিন্তু এই হতভাগা মানসিক রোগী পশুপতিকেও সেদিন পাকিস্তানী আর্মিরা ধরে ট্রেনে তুলতে গেলো। তখনও সে ওই কথাই বার বার বলছিল-‘আমাকে ছেড়ে দে নাহলে বড় দাদাকে বলে দেব। কিন্তু পশুপতি জানতো না যাদেরকে সে বড় দাদার ভয় দেখাচ্ছিল তারা তাকে পেলেও একইভাবে বেঁধে গাড়ীতে তুলতো। হানাদাররা যখন কোন মতেই পশুপতিকে ট্রেনে তুলতে পারছিল না তখন এক ঘাতক এসে পশুপতির পেটে ছুরি চালিয়ে দিল। সঙ্গে সঙ্গে ফিনকি দিয়ে রক্ত উঠলো, পেটের ভুড়ি বেরিয়ে এলো। পশুপতির দেহের গরম রক্তে ঘাতকের শরীর রক্তবর্ণ হলো আর পশুপতির দেহ কিছুক্ষণ কাঁপতে কাঁপতে নিথর হয়ে গেল। বাকি ১৬ জনকে নিয়ে ট্রেন রাজবাড়ীর উদ্দেশ্যে ছেড়ে গেল। যাদেরকে নিয়ে গেল তারা হলো-মহরাপুর গ্রামের বিজয় কুমার দাস, ভৈরব চন্দ্র দাস, পুতুল চন্দ্র দাসম আবোল চন্দ্র, কুমারেশ চন্দ্র দাস, যষ্টি চন্দ্র দাস, রবীন্দ্রনাথ দাস, অনুকূল চন্দ্র দাস (২), রতন কুমার দাস, তারাপদ দাস, মাছপাড়া গ্রামের অজিত কুমার দাস, যুগল চন্দ্র দাস, নগেন্দ্রনাথ দাস, হরে চন্দ্র দাস প্রমুখ। ট্রেনের বিকট শব্দে চারিদিকে কালো ধোঁয়া ছাড়তে ছাড়তে মাছপাড়ার চার মাইল পূর্বে পাংশা রেল স্টেশনের এক মাইল পশ্চিমে তিন তারা রেল ব্রিজের কাছে থেমে গেল। মেজর নির্দেশ দিল সবাইকে নামাতে। হানাদার বাহিনী চোখ বাঁধা ১৬ জনকে (যাদের সবাই হিন্দু সম্প্রদায়ের) গুণে গুণে ট্রেন থেকে নামালো। হুকুম হলো ব্রিজের নীচে লাইন ধরে দাঁড় করাতে। চোখবন্দী মানুষগুলো হুকুমের ভয়ংকর শব্দ শুনতে পাচ্ছিল ভালোমতোই, কিন্তু দেখতে পাচ্ছিল না কিছুই। এর মধ্যে কয়েকজন ঘাতক তাদের হাতের স্বয়ংক্রিয় স্টেনগান প্রস্তুত করে ফেলেছে ফায়ার করার জন্য। শেষ আদেশের অপেক্ষায় কিছু বিধর্মী মালাউনকে হত্যা করার পুণ্য অর্জনের প্রতিযোগিতা চলছে। তাদের মধ্যে এই মহান কাজটি সম্পন্ন করার দায়িত্ব ৫ জন সেনা সদস্য পেল। তার আনন্দ দেখে কে! কারণ এতোগুলো মালাউন হত্যা করার সুযোগ কোনক্রমেই হাতছাড়া করা যাবে না। এক একটি বিধর্মী হত্যা করার মানে বেহেস্তের পথে এক কদম এগিয়ে যাওয়া। মেজর তার পিস্তল আকাশের দিকে তাক করেছে। এবার হুকুম হবে আকাশ পানে পিস্তলের গুলি ছুড়ে। সূর্য সেদিন মধ্যে গগনে হয়তো একটু বেশীই আলো ছড়াচ্ছিল। দুপুর একটা চল্লিশ মিনিট, ঘাতক সরদার মেজরের পিস্তলের গুলি শব্দ করে আকাশর পানে ছুটে গেল। সঙ্গে সঙ্গে পাঁচটি স্টেনগান কড়কড় আওয়াজ তুলল। মুহূর্তেই ১৬টি জীবন শেষ হয়ে গেল। সাধের  পাকিস্তান ও ইসলামকে রক্ষা করতে পাকিস্তান বিরোধী মালাউন নিধন করে বিজয়ের আনন্দে অট্টহাসি দিতে দিতে হানাদার পাকিস্তান বাহিনীর গর্বিত(!) সৈনিকরা ট্রেনে উঠলো। বিকট শব্দে কয়লার ইঞ্জিন চালু হয়ে গেল ট্রেন রাজবাড়ীর উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করলো। চারিদিকে কালো ধোঁয়ায় অন্ধকার হয়ে গেল। পিছনে পড়ে থাকলো নিরীহ-নিষ্পাপ কিছু মানুষের প্রাণহীন নিথর দেহ। দুই দিন লাশগুলো পড়ে থাকলো। শত শত মানুষ আসলো, দেখলো, আহাজারি করলো কিন্তু ভয়ে কেউ লাশগুলির সৎকার করতে এগিয়ে এলো না। কোন হিন্দু আর এলাকাতে নাই। হিন্দু ধর্মমতে সৎকার করবার মানুষ খুঁজে পাওয়া গেল না। লাশের গায়ে পচন ধরেছে। আকাশে শুকুন উড়ছে। অবশেষে এলাকার মানুষ ব্রিজের দক্ষিণ দিক হতে লাশগুলি নিয়ে উত্তরে বিশাল গর্ত খুড়ে লাশগুলি মাটি চাপা দিয়েছে। পবিত্র ইসলামের নামে সাধের পাকিস্তান রক্ষা করতে গণহত্যা, অগ্নি সংযোগ ও নারী ধর্ষণের মতো যে জঘন্য কর্ম পাকিস্তান হানাদার বাহিনীরা করেছিল তার জন্য তাদের পতন ছিলো অনিবার্য। সেটাই হয়েছিল। সবশেষে অনেক কষ্ট আর বুক ভরা ব্যথা নিয়ে বলতেই হচ্ছে স্বাধীনতা অর্জনের এত বছর পরও এ সকল বধ্যভূমিগুলো সংরক্ষণ ও যথাযথ সম্মান জানাতে আমরা ব্যর্থ হলাম। জাতি হিসেবে এটা আমাদের জন্য কলংকের এবং লজ্জার। (লেখক ঃ সাবেক অধ্যক্ষ, মৃগী শহীদ দিয়ানত কলেজ, কালুখালী, রাজবাড়ী)।

 

কবি সুফিয়া কামাল
ডাঃ আবুল হোসেন ঃ একজন আলোকিত মানুষ এবং মহৎ প্রাণের প্রতিকৃতি
মীর মশাররফ হোসেন ঃ অসাম্প্রদায়িক চেতনায় শাণিত বাংলা ভাষা ও সাহিত্য প্রেমিক
সর্বশেষ সংবাদ