ঢাকা শনিবার, জুলাই ২, ২০২২
মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে মিড ডে মিল কেন জরুরী
  • মোহাম্মদ ইকবাল হাসান
  • ২০২২-০৫-২১ ০১:১৮:৪৫

টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা-৪ (এসডিজি) অর্জনের লক্ষ্যে মানসম্মত ও স্বাস্থ্যসম্মত মাধ্যমিক শিক্ষা নিশ্চিত করতে নির্দেশনা দিয়েছে সরকার। মানসম্মত শিক্ষার জন্য প্রয়োজন সুস্বাস্থ্যের অধিকারী শিক্ষার্থী। 

  বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, স্বাস্থ্য হচ্ছে ব্যক্তির শারীরিক, মানষিক, সামাজিক ও আবেগীয় সুস্থতা । স্বাস্থ্যই সম্পদ ও সকল সুখের মূল। সুস্বাস্থ্য ব্যক্তির নয়, পারিবারিক, সামাজিক, ও জাতীয় সম্পদ। সুস্বাস্থ্যের অধিকারি হতে হলে শরীরের অঙ্গ প্রত্যঙ্গের যত্ন নেয়া, পোশাক পরিস্কার পরিচ্ছন্ন রাখা, নিরাপদ খাদ্য গ্রহণ, স্বাস্থ্যসম্মত টয়লেট ব্যবহার, নিরাপদ পানি পানের প্রয়োজনীয়তা ইত্যাদি প্রতিটা বিষয় শিক্ষার্থিরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে শিক্ষা নিয়ে থাকে। বিষয়টির গুরুত্ব উপলব্ধি করে ইতোমধ্যে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর থেকে স্বাস্থ্যসম্মত খাদ্য তালিকার চার্ট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সরবরাহ করেছে। এর ধারাবাহিকতায় মাধ্যমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মিড ডে মিল চালুর নির্দেশনা প্রদান করেছেন মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক। ইতোমধ্যে দেশের অধিকাংশ মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে চালু হয়েছে মিড ডে মিল।

  কেন এই মিড ডে মিল তা, জানার আগে জানা প্রয়োজন মাধ্যমিক স্তরে গুনগত শিক্ষার অন্তরায় কি? শিক্ষার্থীর উপস্থিতির হার খুবই কম, যে সকল শিক্ষার্থী স্কুলে আসে তারাও টিফিনের পর পালিয়ে যায়, শিক্ষার্থীদের মনোযোগের ভীষণ অভাব, শিক্ষকদের আন্তরিকতার অভাব, অধিকাংশ শিক্ষার্থী অপুষ্টিতে ভোগে, ভোরবেলা প্রাইভেট থাকায় অনেক শিক্ষার্থী না খেয়ে স্কুলে আসে এবং ক্ষুদা লাগায় স্কুল ত্যাগ করে, অনেক শিক্ষার্থী ঝড়ে পড়ে। এই সবগুলি সমস্যার প্রায় সমাধান সম্ভব যদি মিড ডে মিল চালু করা যায়। শৈশবে যদি সুষম ও পুষ্টিকর খাবার থেকে কেউ বঞ্চিত হয়, তবে সারাজীবন এর বিরূপ প্রভাব তাকে বয়ে বেড়াতে হয়। উন্নত বাংলাদেশ বিনির্মাণের জন্য চাই সুস্থ প্রজন্ম-শারীরিক ও মানসিকভাবে যারা হবে স্বাস্থ্যবান। মিড ডে মিল চালু হলে স্কুলে শিক্ষার্থীর উপস্থিতি বৃদ্ধি এবং ঝরে পড়ার হার হ্রাস পাবে, শিশুরা শারীরিকভাবে সবল ও মানসিক ভাবে উৎফুল্ল থাকবে, অপুষ্টির হাত থেকে বাচবে, স্কুলের প্রতি আগ্রহ বাড়বে, যা শিক্ষার লক্ষ্য অর্জনে হবে অত্যন্ত কার্যকর পদক্ষেপ। মানসম্মত শিক্ষা বিস্তারে মিড ডে মিল কার্যকর ভূমিকা রাখবে।

  স্কুলে রান্না করে অথবা বাড়ি থেকে খাবার নিয়ে এসে এর যে কোন একটি উপায়ে মিড ডে মিল চালু করতে হবে। প্রশ্ন হচ্ছে আমাদের দেশের জন্য কোনটা বেশী উপযোগী হবে। স্কুলে যখন রান্না করে ‘মিড ডে মিলের’ আয়োজন করা হয় তখন শিক্ষক ও স্থানীয় লোকজন এতে যুক্ত থাকে। যার কারণে পাঠদান ব্যাহত হয়। আবার খাবার রান্না করা, পরিবেশন করা ইত্যাদি নিয়েও থাকে নানান সমস্যা। এক জায়গায় এত সংখ্যক শিশুর উপস্থিতি হট্টগোলের সৃষ্টি করে এবং পরিবেশকেও নোংড়া করে। প্রতিদিন একই রকমের খাবার পরিবেশন করা হলে খাবারের প্রতি শিশুর অনীহা তৈরি করতে পারে যার দরুন অভুক্ত থাকার ফলে একদিকে যেমন শিশুর পুষ্টি গ্রহণ কার্যক্রম ব্যাহত হবে অন্যদিকে খাবারের ও অপচয় হবে। আবার কোন ভাবে যদি ঐ ‘মিড ডে মিলে’ জীবানু সংক্রমণ ঘটে তবে তা পুরো স্কুলের বাচ্চাদের একসাথে অসুস্থ্য করে তুলতে পারে। আবার শিশুরা সবসময় এক রকম খাবার খেতে পছন্দ করে না। একেক দিন একেক রকম খাবার খেতে পছন্দ করে। কেউ দেখা যায় শুকনো বা ভাজি ধরণের খাবার খায় কেউ আবার ঝোল বা রসালো খাবার খেতে মজাপায়। শিশুর এই পছন্দের ধরণটা কিন্তু মায়েরাই ভাল বুঝেন এবং আবদার বায়নাটাও শিশু মায়ের কাছেই করে। তাই এই কাজটি যদি কোন “মা” তার বাচ্চার জন্য করেন, দুপুরে খাওয়ার জন্য বাড়ি থেকে 

খাবার তৈরি করে দেন তাহলে সেটা যেমন- পুষ্টি করতে মনি স্বাস্থ্যকর হবে। মায়ের কাছে তার সন্তান সবার উর্ধ্বে, তাই সবদিক নজর রেখে ইতিনিতা তৈরি করবেন। এর ফলে বিদ্যালয়ে যেতে শিশুদের যেমন আগ্রহ তৈরি হবে তেমনি বন্ধুদের সাথেও তার মায়ের হাতের তৈরি খাবার ভাগাভগি করতে দ্বিধা করবে না। এর ফলে শিশুর মধ্যে শেয়ারিং-এর মনোভাব সৃষ্টি হবে। এই গুলি বিবেচনায় নিয়ে বাড়ী থেকে রান্না করা খাবার টিফিন বক্সে নিয়ে এসে টিফিন প্রিয়ডে সকল শিক্ষক শিক্ষার্থী এক সাথে খেলে এই কর্মসূচি বাস্তবায়ন সহজ হবে বলে মনে করি । 

  একটি দেশের টেকসই উন্নয়ন তখনই সম্ভব, যখন দেশের অর্থনৈতিক পাশাপাশি শিক্ষা ও মানব সম্পদের উন্নয়ন ঘটে। বিষয়টি মাথায় রেখে  মানসম্মত ও যুযোপযোগী শিক্ষা নিশ্চিত করতে নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছে বর্তমান সরকার। বছরের প্রথম দিনে বিনামূল্যে পাঠ্যপুস্তক পাচ্ছে শিক্ষার্থীরা, স্নাতক পর্যন্ত শিক্ষার্থীরা পাচ্ছে উপবৃত্তি, সকল প্রতিষ্ঠানে স্থাপন করা হয়েছে মাল্টিমিডিয়া ক্লাস, স্থাপন করা হয়েছে শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাব, শিক্ষক নিয়োগে এসেছে স্বচ্ছতা, শিক্ষকরা এখন অন লাইনে এম পি ও পাচ্ছে, শিক্ষার্থীরা অন লাইনে পরীক্ষার ফলাফল, ভর্তি এবং রেজিস্টেশন করতে পারছে, শিক্ষকরা পাচ্ছে নানা রকম প্রশিক্ষণ, নতুন নতুন ভবন তৈরী হচ্ছে। মোটাদাগে বলতে গেলে অতীতের যে কোন সময়ের থেকে শিক্ষা ক্ষেত্রে এখন অনেক বেশী উন্নয়ন হচ্ছে। এই উন্নয়নকে টেকসই করতে হলে মাধ্যমিক স্তরে মিড ডে মিল ভালোভাবে চালুর কোন বিকল্প নেই। এত ভালো ভালো উদ্যোগের পরও যদি শিক্ষার্থী উপস্থিতি হ্রাস পায়, শিক্ষার্থী যদি স্কুল থেকে পালায় সেটা হবে অত্যন্ত দুখঃজনক। সে কারণে শিক্ষার সাথে সংশ্লিষ্ট সবাইকে মিড ডে মিলের বিষয়ে আন্তরিক হতে হবে। (লেখক ঃ উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার, রাজবাড়ী সদর, রাজবাড়ী)। 

মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে মিড ডে মিল কেন জরুরী
বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতা ঘোষণা
বাংলাদেশের মৎস্য সম্পদের পরিচিতি-অর্জন ও সাফল্যসমূহ
সর্বশেষ সংবাদ