ঢাকা বৃহস্পতিবার, জুলাই ১৮, ২০২৪
রাজবাড়ী জেলা পরিষদের নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেলেন আরুজ
  • সুশীল দাস
  • ২০২২-০৯-১০ ১২:০০:১৬

আগামী ১৭ই অক্টোবর রাজবাড়ীসহ সারা দেশের ৬১টি জেলা পরিষদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। রাজবাড়ী জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন পেয়েছেন পাংশা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি, পাংশা সরকারী কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ এবং জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন পরবর্তী প্রস্তাবিত কমিটির অন্যতম সহ-সভাপতি একেএম শফিকুল মোরশেদ আরুজ।

  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে আজ ১০ই সেপ্টেম্বর বিকাল ৪টায় প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে আওয়ামী লীগের সংসদীয় বোর্ড ও স্থানীয় সরকার জনপ্রতিনিধি বোর্ডের যৌথসভা শুরু হয়।

  দেশের মোট ৬১টি জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ও জাতীয় সংসদের গাইবান্ধা-৫ আসনের উপনির্বাচনে চূড়ান্ত দলীয় মনোনয়ন দেয়া হয়।  

  মনোনয়ন বোর্ডের সভায় রাজবাড়ী জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন পেয়েছেন পাংশা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি একেএম শফিকুল মোরশেদ আরুজ।

  উল্লেখ্য, একেএম শফিকুল মোরশেদ আরুজের পিতা মরহুম গওহার উদ্দিন মন্ডল ছিলেন মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক এবং পাংশা উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাকালীন সভাপতি ও তৎকালীন গোয়ালন্দ মহকুমা আওয়ামী লীগ ও রাজবাড়ী জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-সভাপতি হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন। 

  এছাড়াও তিনি পাংশা সরকারী কলেজসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও সামাজিক প্রতিষ্ঠানের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। 

  শফিকুল মোরশেদ আরুজের বড় ভাই মরহুম মনজুর মোরশেদ সাচ্চু মুক্তিযুদ্ধের সময় মুজিব বাহিনীর গোয়ালন্দ মহকুমার প্রধান ছিলেন। পরবর্তীতে পাংশা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। 

  পাংশা উপজেলার ঐতিহ্যবাহী আওয়ামী পরিবারের সন্তান একেএম শফিকুল মোরশেদ আরুজ ছাত্রলীগের সক্রিয় কর্মী হিসেবে রাজনৈতিক জীবন শুরু করেন। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদতের পর দলের চরম দুঃসময়ে তিনি পাংশা কলেজ ছাত্রলীগের আহ্বায়ক হিসেবে সাহসিকতার সাথে দায়িত্ব পালন করেন। পরবর্তীতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সূর্য সেন হল শাখা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি উক্ত হল ছাত্র সংসদ নির্বাচনে জি.এস পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। এরপর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সমাজবিজ্ঞান বিষয়ে অনার্স-মাস্টার্স (স্নাতকোত্তর) সম্পন্ন করেন। ১৯৮৫ সালে তিনি পাংশা কলেজে সমাজবিজ্ঞান বিষয়ের প্রভাষক পদে যোগদান করেন এবং একই সঙ্গে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে সক্রিয় হন। ১৯৯২ সাল থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত একটানা ২৩ বছর পাংশা উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি হিসেবে এবং ২০১৫ থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত অত্যন্ত দক্ষতার সাথে সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। বর্তমানে তিনি জেলা ও পাংশা উপজেলা আওয়ামী লীগের অন্যতম সদস্য এবং জেলা আওয়ামী লীগের প্রস্তাবিত কমিটির অন্যতম সহ-সভাপতি। 

  তিনি স্বৈরাচার এরশাদ বিরোধী আন্দোলনসহ দলের সকল আন্দোলন-সংগ্রামে সম্মুখ সারিতে থেকে নেতৃত্ব দেন। এছাড়াও তিনি জেলা আওয়ামী লীগের বর্তমান সভাপতি রাজবাড়ী-২ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ জিল্লুল হাকিমের ৪টি সংসদ নির্বাচন পরিচালনা কমিটির (১৯৯৬, ২০০৮, ২০১৪ ও ২০১৮) আহ্বায়ক হিসেবে সফলভাবে দায়িত্ব পালন করেন। বিএনপি-জামাত জোট সরকারের সময় ২০০৪ সালের ২১শে আগস্টের গ্রেনেড হামলার পর তিনি জীবনের ঝুঁকি উপেক্ষা করে পাংশায় বিক্ষোভ মিছিলের আয়োজন করেন এবং ২০০৭ সালে সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকার কর্তৃক জননেত্রী শেখ হাসিনাকে গ্রেফতারের পর তার মুক্তির দাবীতে বৃহত্তর পাংশায় আন্দোলন-সংগ্রামে সামনে থেকে নেতৃত্ব দেন। বর্তমানেও তিনি দলীয় সকল কর্মসূচীতে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণের পাশাপাশি বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নত-সমৃদ্ধ দেশ গড়ার ভিশন বাস্তবায়নে নিরলসভাবে কাজ করে চলেছেন। জেলা আওয়ামী লীগের কান্ডারী বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ জিল্লুল হাকিম এমপির নেতৃত্বে দীর্ঘদিন ধরে তিনি সকল রাজনৈতিক কর্মকান্ড পরিচালনা করে আসছেন।  

  একেএম শফিকুল মোরশেদ আরুজ ১৯৫৮ সালের ৩১শে অক্টোবর বর্তমান পাংশা পৌর শহরের ৩নং ওয়ার্ডের গুধিবাড়ী গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অনার্স-মাস্টার্স করার পূর্বে পাংশার বাঁশআড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে প্রাথমিক, পাংশা জর্জ হাই স্কুল থেকে মাধ্যমিক ও পাংশা কলেজ থেকে কৃতিত্বের সাথে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। ১৯৮৫ সালে পাংশা কলেজে প্রভাষক হিসেবে যোগদানের পর ২০০২ সালে সহকারী অধ্যাপক পদে পদোন্নতি পান এবং ২০০৮ সালে একই কলেজের উপাধ্যক্ষ ও ২০০৯ সাল থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত সফলভাবে অধ্যক্ষের দায়িত্ব পালন শেষে অবসর গ্রহণ করেন। ব্যক্তিগত জীবনে তিনি ২পুত্র ও ১কন্যা সন্তানের জনক। বড় ছেলে তানজিম মোরশেদ অন্তু বিডিএস ডিগ্রী অর্জনের পর বর্তমানে ডেন্টিস্ট (দন্ত চিকিৎসক) হিসেবে ইন্টার্নী করছেন। ছোট ছেলে তানজীদ মোরশেদ অমি রাজধানীর ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ে এবং একমাত্র মেয়ে তানজিলা মোরশেদ অবন্তী ঢাকার হলি ক্রস কলেজে অধ্যয়নরত। স্ত্রী লুবনা নাসরিন বাঁশআড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক হিসেবে কর্মরত রয়েছেন। ৬ ভাই ও ৯ বোনের সবাই স্ব-স্ব ক্ষেত্রে সুপ্রতিষ্ঠিত। ছোট ভাই আমিরুল মোরশেদ খসরু স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য শিক্ষা বিভাগের মহাপরিচালক। ছোট বোন উম্মে সালমা তানজিয়া বর্তমানে পাসপোর্ট অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক(যুগ্ম-সচিব) এবং ফরিদপুরের সাবেক সফল জেলা প্রশাসক। তার (তানজিয়া) স্বামী মোঃ মোখলেছুর রহমান ঢাকা সেন্ট্রাল মেডিকেল স্টোরের পরিচালক(যুগ্ম-সচিব) এবং গোপালগঞ্জের সাবেক জেলা প্রশাসক। আরেক ছোট ভাই শরিফুল মোর্শেদ রঞ্জু পাংশা সরকারী কলেজের সহকারী অধ্যাপক এবং কলেজ শিক্ষক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক। অন্যান্য ভাই-বোনদের মধ্যে প্রকৌশলী রফিকুল মোরশেদ সুরুজ বেসরকারী প্রতিষ্ঠানে উচ্চ পদে কর্মরত, বোন সাজেদা খাতুন অবসরপ্রাপ্ত ব্যাংক কর্মকর্তা, মরহুমা সাহিদা আহমেদ পাংশা উপজেলা পরিষদের দুই দুইবার নির্বাচিত মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান, আনজু মনোয়ারা খাতুন ঢাকার মোহাম্মদপুরে মায়ের নামে প্রতিষ্ঠিত রাবেয়া গওহার স্কুলের অধ্যক্ষ, শাহনাজ বেগম কুষ্টিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক, আসমাউল হুসনা বরিশাল বিএম কলেজের সহযোগী অধ্যাপক এবং মমতাজ বেগম গৃহিনী। বোন শাহনাজ বেগমের স্বামী তৌহিদুল ইসলাম আইএফআইসি ব্যাংকের খুলনা রিজিওনাল ম্যানেজার, আসমাউল হুসনার স্বামী আব্দুল বাতেন চৌধুরী বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের বিভাগীয় প্রধান, সাজেদা খাতুনের স্বামী সিদ্দিকুর রহমান অবসরপ্রাপ্ত ব্যাংক কর্মকর্তা, সাহিদা আহমেদের স্বামী নাজিম উদ্দিন আহমেদ অবসরপ্রাপ্ত সরকারী কর্মকর্তা(বিসিএস  ফিশারিজ), মমতাজ বেগমের স্বামী আবুল বাশার অবসরপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ এবং আনজু মনোয়ারা খাতুনের স্বামী মরহুম প্রকৌশলী সাইদুর রহমান জনতা ব্যাংকের ডিজিএম ছিলেন। ভাগ্নে-ভাগ্নিদের মধ্যে মরহুমা বড় বোন খুরশিদা বেগমের বড় ছেলে জগলুল পাশা অবসরপ্রাপ্ত ব্রিগেডিয়ার জেনারেল, মেয়ে সেলিনা নাহার ইডেন মহিলা কলেজের সহকারী অধ্যাপক, আরেক ছেলে আজমল আল বাহার বিশ্বাস পাংশা উপজেলার সরিষা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান (পর পর ২বার নির্বাচিত), আরেক মেয়ে শামীমা নাহার সোনালী ব্যাংকের পাংশা শাখার সিনিয়র অফিসার; সাজেদা খাতুনের ছেলে তানভীর সিদ্দিক মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের প্রকৌশলী, মেয়ে সুমি মার্কেন্টাইল ব্যাংকের সিনিয়র অফিসার; সাহিদা আহমেদের মেয়ে সায়লা নওশাদ ওষুধ নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক, ছেলে ডাঃ সুপ্রভ আহমেদ দ্বীপ পাংশা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার; আরেক বোন মমতাজ বেগমের মেয়ে মুনতাহিনা পিথুলা সহকারী কমিশনার (বিসিএস প্রশাসন)। চাচাতো ভাই আব্দুল আলিম মন্ডল হাবাসপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি এবং ওই ইউনিয়ন পরিষদের ৩বারের সাবেক নির্বাচিত চেয়ারম্যান। অন্যান্য ভাতিজা-ভাতিজী, ভাগ্নে-ভাগ্নিরা বিভিন্ন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়, বুয়েট, সরকারী মেডিকেল কলেজসহ বিভিন্ন পর্যায়ের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অধ্যয়নরত রয়েছে। 

  রাজনৈতিক কর্মকান্ডের পাশাপাশি একেএম শফিকুল মোরশেদ আরুজ বিভিন্ন শিক্ষা, সামাজিক, সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠানসহ সমাজসেবামূলক কর্মকান্ডের সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িত রয়েছেন। তিনি পাংশা শাহ জুঁই কামিল মাদ্রাসা, হাবাসপুর কে.রাজ উচ্চ বিদ্যালয়, চর ঝিকরী মকবুল হোসেন দাখিল মাদ্রাসা, পাংশা সৈয়দ বায়তুল্লাহ কিন্ডার গার্টেন ও পাংশা পুরাতন বাজার বাইতুন নূর জামে মসজিদের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিচালনা পর্ষদের সাথে জড়িত।   

রাজবাড়ী-১ আসনে অনলাইনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন ফরম জমা দিলেন এস এম নওয়াব আলী
সংসদ নির্বাচনের তফসিল বিষয়ে ইসির ব্রিফিং আজ
রাজবাড়ী জেলা পরিষদের নির্বাচন আগামীকাল॥প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ২৮ জন প্রার্থী
সর্বশেষ সংবাদ