ঢাকা মঙ্গলবার, মার্চ ৫, ২০২৪
শ্রীলংকার প্রধানমন্ত্রীর অংশগ্রহণে কলম্বোতে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত
  • বিশেষ প্রতিনিধি
  • ২০২৩-০২-২১ ০৮:৩১:০৭

শ্রীলংকার বাংলাদেশ হাইকমিশনের আয়োজনে আজ ২১শে ফেব্রুয়ারী সকালে কলম্বোর ঐতিহাসিক স্বাধীনতা চত্বরে প্রধানমন্ত্রী দীনেশ গুনাবর্ধনে ও শ্রীলংকার বিভিন্ন জেলা থেকে আগত শতাধিক স্কুল ছাত্র-ছাত্রীদের উপস্থিতিতে বহুভাষাভাষী বর্ণাঢ্য এক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে “আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস” পালন করেছে।
  শ্রীলঙ্কার উচ্চ শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী ডঃ সুরেশ রাগাভান, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী থারাকাবালাশুরিয়া, শিক্ষা সচিব, সংস্কৃতিক বিষয়ক সচিব, বিদেশী রাষ্ট্রদূতবৃন্দ ও জাতিসংঘের বিভিন্ন সংস্থার প্রতিনিধিরাও এতে উপস্থিত ছিলেন। রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব, বুদ্ধিজীবী, সাংবাদিক, শিক্ষকসহ সর্বস্তরের মানুষের অংশগ্রহণে শ্রীলংকার স্বাধীনতা চত্বর বিভিন্ন ভাষাভাষীদের এক মিলনমেলায় পরিনত হয়।  
প্রধানমন্ত্রী ও অন্যান্য অভ্যাগতরা রং আর তুলির আঁচড়ে স্ব স্ব মাতৃভাষায় তাঁদের অনুভূতি চত্বরে রক্ষিত ক্যানভাসে ফুটিয়ে তোলেন। ভাষা শহীদের স্মরণে ১মিনিট নীরবতা ও বাংলাদেশ হাইকমিশন পরিবারের সদস্যদের সমবেত ভাবে গাওয়া অমর একুশের “আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারী” গানটির মাধ্যমে অনুষ্ঠানের সূচনা হয়।
  দিবসটি উদযাপনের অংশ হিসাবে দূতাবাস দু’মাস ব্যাপী শ্রীলংকা জুড়ে স্কুল ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে চিত্রাকংন, রচনা ও কবিতা প্রতিযোগিতার আয়োজন করে। এর প্রতিপাদ্য ছিল ঃ “মাতৃভাষা ঃ বৈচিত্র্যে-ঐক্য”। আজকের অনুষ্ঠানে উক্ত প্রতিযোগিতায় চুড়ান্তভাবে বিজয়ী ১৫ জন ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে সার্টিফিকেট ও পুরস্কার প্রদান করা হয়।
  অনুষ্ঠানের বিশেষ আকর্ষণ ছিল ভিন্ন ভাষাভাষী একটি মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক পরিবেশনা। কলম্বোস্থ স্বামী বিবেকানন্দ সাংস্কৃতিক কেন্দ্র, রাশিয়ান সাংস্কৃতিক কেন্দ্র, মালদ্বীপ শিক্ষা ও সাংস্কৃতিক কেন্দ্র, সার্ক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র,   শ্রীলংকার স্থানীয় শিল্পী ও বাংলাদেশ হাই কমিশনের শিশুরা তাঁদের স্ব স্ব দেশের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য ও মাতৃভাষার প্রতি তাঁদের ভালোবাসা- নৃত্য, সংগীত ও আবৃত্তির মাধ্যমে তুলে ধরে। অন্ততঃ ৮টি বিভিন্ন ভাষায় উক্ত পরিবেশনা গুলো সাজানো ছিল। একটি জনপ্রিয় কোরিয়ান কে-পপ পরিবেশনার মাধ্যমে অনুষ্ঠানটি শেষ হয়। সকল পরিবেশনা উপস্থিত দর্শকের মাঝে ভীষণ ভাবে প্রশংসিত হয়।
  রাষ্ট্রদূত তারেক মোঃ আরিফুল ইসলাম তাঁর সূচনা বক্তব্যে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালনে বাংলাদেশের নেতৃত্ব দেওয়ার ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপট তুলে ধরেন এবং এর তাৎপর্য বর্ণনা করেন। তিনি একটি অন্তর্ভুক্তিমূলক সমাজ ব্যবস্থা এবং একটি শান্তিপূর্ণ বিশ্বের জন্য মাতৃভাষার ভূমিকার ওপর জোর দেন। উচ্চ শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী ডঃ সুরেশ রাগাভান শ্রীলংকার ৩টি ভাষাতে(ইংরেজি, সিংহলী ও তামিল) বক্তব্য দেন। তিনি মাতৃভাষার গুরুত্ব  ও ভাষার বৈচিত্রের প্রয়োজনীয়তার  উপর আলোকপাত করেন।  
  শ্রীলংকার শিক্ষা মন্ত্রণালয়, জাতিসংঘের স্থানীয় দপ্তর ও শ্রীলংকা স্কাউটস এসোসিয়েশনের সহযোগিতায় বাংলাদেশ দূতাবাস বর্ণাঢ্য এ আয়োজন করে।  
স্যার জন কোটেলাওয়ালা ডিফেন্স ইউনিভার্সিটি হাসপাতালে শ্রীলঙ্কা স্কাউট অ্যাসোসিয়েশনের সহযোগিতায় হাইকমিশন একটি রক্তদান শিবিরেরও আয়োজন করে।
  বাংলাদেশ হাই কমিশনে আনুষ্ঠানিকভাবে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত করার মাধ্যমে দিবসের সূচনা হয়। অতঃপর ভাষা শহীদের উদ্দেশ্যে একমিনিট নীরবতা পালন এবং তাঁদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে বিশেষ দোয়া এবং এই দিবস উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্র মন্ত্রী ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর প্রদত্ত বাণী পাঠ করা হয়।  
 

রমজানে মুসলমানদের আল আকসায় নামাজ পড়ার অনুমতি দিতে ইসরায়েলের প্রতি আহ্বান যুক্তরাষ্ট্রের
নিউইয়র্কে মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন
মিউনিখ নিরাপত্তা সম্মেলনের ফাঁকে জেলেনস্কির সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর বৈঠক
সর্বশেষ সংবাদ