ঢাকা মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ৬, ২০২২
বালিয়াকান্দির খামারমাগুরা-হাতিমোহন খালে ব্রিজের অভাবে দুর্ভোগে কয়েক হাজার কৃষক
  • দেবাশীষ বিশ্বাস
  • ২০২২-১১-২৪ ০০:৫২:৫৫

রাজবাড়ী জেলার বলিয়াকান্দি উপজেলার জামালপুর ও বহরপুর ইউনিয়নের কয়েক হাজার কৃষক একটি ব্রিজের অভাবে অসহনীয় দুর্ভোগের শিকার হচ্ছেন । 
  কয়েক বছর ধরে স্থানীয়দের নিজস্ব অর্থায়নে বাঁশের ব্রিজ তৈরি করে কৃষিপণ্য, গবাদিপশু ও পাওয়ার ট্রাক্টর পারাপার করে আসছেন। বর্তমানে বাঁশের সেই ব্রিজটি ভেঙ্গে যাবার কারণে দুর্ভোগে পড়েছেন হাজার হাজার কৃষক। দীর্ঘদিন ধরে স্থানীয়রা বিভিন্ন জনপ্রতিনিধি ও সরকারী দপ্তরে ব্রিজের ব্যাপারে দাবি জানিয়ে আসলেও এখন পর্যন্ত কোন সুফল পায়নি।
  সরেজমিনে গিয়ে বালিয়াকান্দি উপজেলার জামালপুর ইউনিয়নের খামারমাগুরা-হাতিমোহন খালে গিয়ে দেখা যায়, স্থানীয়দের তৈরি বাঁশ দিয়ে নির্মিত ব্রিজটি ভেঙ্গে গিয়েছে। খালের দুই কিলোমিটার এলাকার কৃষকদের কৃষিপণ্য পারাপারের একমাত্র ভরসা বাঁশের এই সেতুটি। 
  সরেজমিনে প্রতিবেদনটি তৈরির সময় জামালপুর-কোলারহাট সড়ক থেকে নটাপাড়া বাজার থেকে ইটের রাস্তা ধরে করিম শেখের বাড়ী। সেখান থেকেই শুরু বিস্তর মাঠ। সেখান থেকে সরু রাস্তা দিয়ে যেতে হয় হাতিমোন-খামারমাগুরা খালে। খালের পূর্ব পাশে জামালপুর ইউনিয়ন। খাল পার হয়ে পশ্চিমপাশে বহরপুর ইউনিয়ন। ২০১৯ সালে পানি উন্নয়ন বোর্ড এই খাল খনন করে। সারা বছর খালে পানি থাকে। দুই ইউনিয়নের কয়েক হাজার কৃষকের জমি রয়েছে উভয় পাশে। ফলে কৃষিপণ্য ও কৃষিযন্ত্র পারাপার ব্যাহত হচ্ছে। ব্রিজের অভাবে জামালপুর ইউনিয়নের কৃষক তাদের পাওয়ার ট্রাক্টর নিয়ে বহরপুর ইউনিয়নে নিজ জমিতে যেতে পারছেন না। আবার খাল পাড়ি দিয়ে উৎপাদিত ফসল আনা-নেওয়া করতে চরম বিপাকের মধ্যে রয়েছে।
  নটাপাড়া গ্রামের কৃষক তাপস সরকার বলেন, আমাদের খালের ওপার অনেক জমি রয়েছে। আমার নিজস্ব ট্রাক্টর আমি ওপারে নিতে পারছি না। ফসল আনার সময় আমাদের চরম বিপাকে পড়তে হয়। গভীর খাল পার হতে কষ্ট করতে হয়।
  স্থানীয় কাসেদ শেখ বলেন, আমাদের ব্লক ছিল খালের ওপার। কত কষ্ট করে খাল পার হতে হয়। শুধু আমরাই জানি। কৃষকরা তাদের উৎপাদিত ফসল খালের মাঝে গলাপানি দিয়ে এপার-ওপার করেন।
  বহরপুর ইউনিয়নের কৃষক মনির শেখ বলেন, আমাদের একই সমস্যা। আসলে এখানে একটি ব্রিজ দরকার। শুধুমাত্র কৃষকদের উৎপাদিত ফলস, যন্ত্রপাতি পারাপারের জন্য। তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, বর্ষার সময় এখানে ফসল হয়না। শুস্ক মৌসুমে পেঁয়াজ, রসুন, গম সহ বিভিন্ন জাতের ফসল উৎপাদন করা হয়। কৃষকদের খাল পার হতে সবচেয়ে বেশি কষ্ট করতে হয়। সবাইকে খালের পানিতে ভিজে এপার-ওপার করতে হয়। এরপর ভেজা পোশাকে সরু পথ ধরে কৃষকেরা তাদের উৎপাদিত ফসল গন্তব্যে নিয়ে যায়।
  বালিয়াকান্দি উপজেলার উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মোঃ আকরাম হোসেন বলেন, আমি এই ইউনিয়নের কৃষকদের নিয়ে কাজ করি। বাংলাদেশ কৃষকদের জন্য যদি একটি ব্রিজ প্রয়োজন হয় সেটি হবে খামারমাগুরা-হাতিমোহন খালের ব্রিজটি। সরকারের উচিত দ্রুত ব্রিজটি করে দেওয়া।
  ব্রিজের ব্যাপারে বালিয়াকান্দি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল কালাম আজাদ বলেন, আমি কয়েক বছর আগে সেখানে গিয়েছিলাম। চেষ্টা করছি ব্রিজটি নির্মাণ করার।

 

ভ্রাম্যমাণ আদালতে রাজবাড়ীর দুইটি ইট ভাটাকে জরিমানা
দৌলতদিয়ায় পদ্মার চর থেকে অবৈধ মাটি-বালু উত্তোলন বন্ধ হচ্ছে না!
রাজবাড়ী জেলা মহিলা পরিষদের কার্যালয়ে শিশুদের চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণ
সর্বশেষ সংবাদ