ঢাকা মঙ্গলবার, জুলাই ২৩, ২০২৪
রাজবাড়ী জেলা পুলিশের উদ্যোগে ২হাজার দুঃস্থ ও অসহায় পরিবারের মধ্যে ঈদ উপহার খাদ্য সামগ্রী বিতরণ
  • ইউসুফ মিয়া
  • ২০২০-০৫-২২ ১৯:০২:৩৯
রাজবাড়ী জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে গতকাল ২২শে মে কাজী হেদায়েত হোসেন স্টেডিয়ামে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করে দুস্থ ও অসহায় পরিবারের মধ্যে ঈদ উপহার হিসেবে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন পুলিশ সুপার মোঃ মিজানুর রহমান পিপিএম-বার -মাতৃকণ্ঠ।

রাজবাড়ী জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে ২হাজার দুস্থ ও অসহায় পরিবারের মধ্যে ঈদ উপহার হিসেবে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। গতকাল ২২শে মে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে রাজবাড়ীর কাজী হেদায়েত হোসেন স্টেডিয়ামে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করে এই খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়। 
  এ সময় পুলিশ সুপার মোঃ মিজানুর রহমান পিপিএম-বার, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অপরাধ) মোঃ সালাহ উদ্দিন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার(সদর) মোঃ ফজলুল করিম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার(সদর সার্কেল) শেখ শরীফ-উজ-জামান, রাজবাড়ী থানার ওসি স্বপন কুমার মজুমদার, ডিবি’র ওসি ওমর শরীফসহ জেলা পুলিশের বিভিন্ন ইউনিটের কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন। 
  স্টেডিয়ামে উপস্থিত থাকা রাজবাড়ী সদর উপজেলার তালিকাভুক্ত ১হাজার ও পৌর এলাকার ২শত পরিবারের মধ্যে বিতরণের পর বাকী ৪টি থানার (পাংশা, বালিয়াকান্দি, কালুখালী ও গোয়ালন্দ) ওসিদের কাছে ২শত করে মোট ৮শত পরিবারের খাদ্য সামগ্রী হস্তান্তর করা হয়। তারা স্ব-স্ব থানা এলাকায় সেগুলো বিতরণ করেন। বিতরণকৃত খাদ্য সামগ্রীর মধ্যে ছিল চাল, ডাল, তেল, সেমাই ও চিনি।
  খাদ্য সামগ্রী বিতরণকালে রাজবাড়ীর পুলিশ সুপার মোঃ মিজানুর রহমান পিপিএম-বার বলেন, ২০২০ সালে মুজিববর্ষে বাংলাদেশ পুলিশ জনতার পুলিশ হওয়ার জন্য আমরা করোনা ভাইরাস পরিস্থিতির শুরু থেকেই আমরা সাধারণ মানুষের পাশে রয়েছি। প্রথম দিকে হ্যান্ড স্যানিটাইজারের সংকটের সময় নিজেরাই ৫০ হাজার হ্যান্ড স্যানিটাইজারের বোতল তৈরী করে বিনামূল্যে বিতরণ করি। এর পাশাপাশি আমাদের নিজস্ব অর্থায়নে এবং দানশীল ব্যক্তিদের সহায়তায় বিপুল পরিমাণ মাস্ক বিতরণ করি। পরিস্থিতির গুরুত্ব অনুধাবন করে করোনার শুরুতেই দেশের সর্ববৃহৎ দৌলতদিয়া পতিতাপল্লীকে লকডাউন করে কয়েক হাজার যৌনকর্মীর মধ্যে কয়েক দফায় খাদ্য সহায়তা প্রদান করেছি। পুলিশ  সদস্যদের রেশন ও বেতনের থেকে কিছু কিছু করে অর্থ দিয়ে আরও কয়েকশত কর্মহীন দুস্থ অসহায় শ্রমজীবী পরিবারকে খাদ্য সহায়তা প্রদান করা করেছি। সাধারণ মানুষের পাশাপাশি সমাজের অবহেলিত তৃতীয় লিঙ্গের হিজড়া জনগোষ্ঠীর সদস্যদেরও খাদ্য সহায়তা প্রদান করেছি। পবিত্র রমজান মাসের শুরু থেকেই প্রতিদিন জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে রাজবাড়ী শহরের কেন্দ্রস্থলে শতাধিক ভাসমান, ছিণ্নমূল ও দুস্থ-অসহায় মানুষের মধ্যে ইফতার সামগ্রী বিতরণ করা হচ্ছে। এসবের পাশাপাশি গণপরিবহন নিয়ন্ত্রণ ও সামাজিক দূরত্ব রাখাসহ স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলার ব্যাপারে ব্যাপক প্রচারণা চালানো অব্যাহত রয়েছে। রাজবাড়ীর বাজারসহ গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন এলাকায় সিসি ক্যামেরা স্থাপনের মাধ্যমে সার্বক্ষণিক মনিটরিংয়ের ব্যবস্থা করেছি। 
  তিনি আরো বলেন, এসব কার্যক্রমের পাশাপাশি বিদেশ ফেরত ব্যক্তিদের হোম কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিতকরণ ও আক্রান্তদের এলাকার লকডাউনকৃত বাড়ীগুলোর উপর নজরদারীসহ বিভিন্ন কার্যক্রম চলমান রয়েছে। করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণকারীদের দাফনের ব্যবস্থা করেছি। সম্প্রতি রাজবাড়ী জেলার আত্মসমর্পনকৃত ৩২জন চরমপন্থী সদস্যদের মধ্যে জেলা পুলিশের ব্যবস্থাপনায় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দেয়া ৫০ হাজার টাকা করে অনুদানের চেক বিতরণ করেছি। সর্বশেষ পবিত্র ঈদ-উল-ফিতর উপলক্ষে আমাদের সামর্থ্য অনুযায়ী জেলার ২হাজার দুস্থ-অসহায় পরিবারের মধ্যে ঈদ উপহার হিসেবে এই খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করলাম, যাতে তারাও ঈদের সময় দু’মুঠো খেতে পারে। 

পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষ্যে পুলিশ সুপারের শুভেচ্ছ বাণী
মহান মে দিবস উপলক্ষ্যে পুলিশ সুপারের বাণী
নববর্ষ ১৪৩১ উপলক্ষ্যে রাজবাড়ীর পুলিশ সুপারের শুভেচ্ছা বাণী
সর্বশেষ সংবাদ