ঢাকা সোমবার, জানুয়ারী ১৭, ২০২২
শুভাকাঙ্খী আর স্বজন ভালোবাসায় চিরবিদায় নিলেন বালিয়াকান্দির সাংবাদিক রঘু শিকদার
  • স্টাফ রিপোর্টার
  • ২০২০-০৫-২৯ ০১:৪৩:০০

সহকর্মী, শুভাকাঙ্খী আর স্বজনদের ভালোবাসার অশ্রুজলে চির বিদায় নিলেন রাজবাড়ী জেলার বালিয়াকান্দি উপজেলা প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি দৈনিক মাতৃকণ্ঠ ও দৈনিক ইত্তেফাকের প্রতিনিধি প্রবীণ সাংবাদিক ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব রঘুনন্দন শিকদার(৬৭)। 
  গতকাল ২৮শে মে বৃহস্পতিবার সকাল ৭টায় তিনি বালিয়াকান্দি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। গত ২৬শে মে সকালে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। তিনি ডায়াবেটিসসহ বার্ধক্যজনিত বিভিন্ন জটিল রোগে ভুগছিলেন। 
  ধর্মীয় বিধি পালন শেষে বালিয়াকান্দি কেন্দ্রীয় মন্দির ও মহাশ্মশানে একইদিন দুপুরে তাকে সৎকার করা হয়। তিনি উক্ত কেন্দ্রীয় মন্দির ও মহাশ্মশান পরিচালনা কমিটির সভাপতি ছিলেন। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, ২পুত্র, ১পুত্রবধুসহ অনেক আত্মীয় স্বজন, ভক্ত ও গুণগ্রাহী রেখে যান।
  গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে সামাজিক যোগযোগ মাধ্যমে সাংবাদিক রঘুনন্দন শিকদারের মৃত্যুর সংবাদ জানতে পেরে শেষবারের মত তাকে এক নজর দেখার জন্য সামাজিক দূরত্ব বজায়ে রেখে জনপ্রতিনিধি, উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা, সাংবাদিক ও সাধারণ মানুষের ঢল নামে তার বালিয়াকান্দি ইউনিয়নের আমতলা গ্রামে বাড়ীতে।
  তাকে শেষবারের মত দেখার জন্য ছুটে যান বালিয়াকান্দি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ আবুল কালাম আজাদ, উপজেলা নির্বাহী অফিসার একেএম হেদায়েতুল ইসলাম, ভাইস চেয়ারম্যান মনিরুজ্জামান মনির, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান খোদেজা বেগম, জেলা পরিষদের সদস্য আব্দুস ছাত্তার খান, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোছাঃ নাসরিন সুলতানা, সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান আকমল হোসেন, উপজেলা শ্রমিক লীগের সভাপতি ইদ্রিস আলী ফকির, বালিয়াকান্দি ইউপি চেয়ারম্যান নায়েব আলী শেখ, জঙ্গল ইউপি চেয়ারম্যান নৃপেন্দ্র নাথ বিশ্বাস, ইসলামপুর ইউপি চেয়ারম্যান আবুল হোসেন খান, নবাবপুরের চেয়ারম্যান আবুল হাসান আলী, নারুয়া চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম, সদর ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান শাজাহান মিয়া টগর, খোন্দকার মশিউল আজম চুন্নু, এএসআই সোহেল রানা, এএসআই মোঃ আজিজুর রহমান, দলিল লেখক সমিতির সভাপতি বাবু খান, বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক  নেতৃবৃন্দ। 
  এছাড়াও রাজবাড়ী প্রেসক্লাবের সভাপতি ও রাজবাড়ী জেলা টেলিভিশন সাংবাদিক সমিতির সভাপতি এডঃ খান মোঃ জহুরুল হক, রাজবাড়ী প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ও দৈনিক মাতৃকণ্ঠ পত্রিকার সম্পাদক খোন্দকার আব্দুল মতিন, রাজবাড়ী রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি মোঃ ইউসুফ মিয়া, সাধারণ সম্পাদক শিহাবুর রহমান, রাজবাড়ী প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এম.দেলোয়ার হোসেন, পাংশা প্রেসক্লাবের সভাপতি মোঃ মোক্তার হোসেন, রাজবাড়ী সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি খন্দকার রবিউল ইসলাম, কালুখালী উপজেলা প্রেসক্লাব, কালুখালী প্রেসক্লাব, বালিয়াকান্দি প্রেসক্লাব ও বালিয়াকান্দি উপজেলা রিপোর্টার্স ক্লাবের নেতৃবৃন্দ, মধুখালী উপজেলার সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ, দৈনিক ইত্তেফাকের রাজবাড়ী প্রতিনিধি মোঃ মাহফুজুর রহমান, রঘু নন্দন সিকদারের মৃত্যুর খবর পেয়ে তার বাড়ীতে ছুটে যান ও শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান।
  এ সময় তার মরদেহে ফুলেল শ্রদ্ধা জানান দৈনিক মাতৃকণ্ঠ পত্রিকার সম্পাদক খোন্দকার আব্দুল মতিনসহ পত্রিকার সাংবাদিকবৃন্দ, রাজবাড়ী রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি মোঃ ইউসুফ মিয়া, সাধারণ সম্পাদক শিহাবুর রহমান ও ডিবিসি নিউজের প্রতিনিধি দেবাশীষ বিশ্বাস এবং বালিয়াকান্দি উপজেলা প্রেসক্লাবের নেতৃবৃন্দ।    
  জনপ্রতিনিধি, প্রশাসনিক কর্মকর্তা ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের শোক বিবৃতি ঃ সাংবাদিক রঘুনন্দন শিকদারের মৃত্যুতে তার আত্মার শান্তি কামনা ও শোকার্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন বিবৃতি দিয়েছেন রাজবাড়ী-২ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ জিল্লুল হাকিম, অর্থ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব ড. শেখ মোঃ রেজাউল ইসলাম, গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম-সচিব ও রাজবাড়ীর সাবেক জেলা প্রশাসক মোঃ শওকত আলী, রাজবাড়ী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও চেম্বার-অব কমার্সের সভাপতি কাজী ইরাদত আলী, রাজবাড়ী-২ আসনের এমপি পুত্র ও জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য আশিক মাহমুদ মিতুল, রাজবাড়ী সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এডঃ ইমদাদুল হক বিশ্বাস, পাংশা পৌরসভার মেয়র আব্দুল আল মাসুদ বিশ্বাস, ফরিদপুর সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাসুম রেজা, বালিয়াকান্দি থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) একেএম আজমল হুদা ও সাবেক ওসি আবু শামা মোঃ ইকবাল হায়াৎ, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা কাজী এজাজ কায়ছার, স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ শাফিন জব্বার, দৈনিক মাতৃকণ্ঠের উপদেষ্টা সম্পাদক ও সিপিবি’র জেলা শাখার সাবেক সভাপতি আবুল কালাম, বালিয়াকান্দি পাইলট মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কুতুব উদ্দিন মোল্লা।
  উল্লেখ্য, মফস্বল সাংবাদিক হিসেবে রঘুনন্দন সিকদারের সাথে ছিল এলাকার জনগণের নাড়ির বাঁধন। উপজেলার নিভৃত এলাকার নির্যাতিত ও শোষিত মানুষগুলো যখন কোন অবলম্বন না পেয়ে দিশেহারা হয়ে যায় তখন এ রকম মানুষদেরই আশ্রয় হতো রঘুনন্দন সিকদারের কাছে। তিনি ধর্ম বর্ণ জাত নির্বিশেষ কাছে টেনে নিতেন, পাশে দাঁড়াতেন- দিতেন বল ভরসা। তাদের আকুতির কথা তুলে ধরতেন পত্রিকায়- জানাতেন প্রশাসনের কাছে। প্রশাসনের সংশ্লিষ্ট দপ্তরের কর্মকর্তা হয়তো একটু বিরক্ত হয়ে বলতেন, রঘু দা উনি কি আপনার আত্মীয়। রঘু দা সেই পুরোনো হা-হা হাসি হেসে বলতেন, হা, আমার আত্মীয়। এ রকম শত শত উদাহরণ আছে।
  রাজবাড়ী-২ আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ জিল্লুল হাকিম তো যে কোন অনুষ্ঠানে গেলে বলতেন, রঘু দাকে তো দেখছি না। সহকর্মী অনেক সাংবাদিক সে সময় বলতেন, আরে রঘু দাকে তোরা চিনিস না! উনি আমাদের এমপি সাহেবের দাদা। এমপি সাহেবও রঘু দা কে দাদা বলতেন। 
  আলোর নীচে অন্ধকারও থাকে। ঠিক তেমনি মফস্বল সাংবাদিকতা করে জীবন যাপন খুবই কঠিন। রঘুনন্দন সিকদার ছিলেন একজন সফল মফস্বল সাংবাদিক।
  তরুণ বয়সে রঘুনন্দন সিকদার জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ)-এর রাজনীতির সাথে যুক্ত ছিলেন। এরপরই কর্মজীবনে তার আর রাজনীতিতে দেখা যায়নি। তিনি খুব অমোদমোদী মানুষ ছিলেন। একসময় আমাদের দেশের একটি খ্যাতনামা যাত্রা দলের ম্যানেজার হিসাবে দেশের বিভিন্ন এলাকা ঘুরেছেন। তৎকালীন সময়ে দেশের খ্যাতনামা অভিনয় শিল্পীদের সঙ্গে তার সখ্যতা হয়েছিলো। কিন্তু ভাগ্যবিড়ম্বিত! একসময় স্থির হলেন। ঘর সংসারে মনোযোগ দিলেন। পিতা নিখিল সিকদার ভিটায় ফিরে এলেন। কিন্তু সেই গ্রামীণ সাংস্কৃতির ঐতিহ্য ছাড়তে পারলেন না। বিভিন্ন সময়ে যাত্রা, নাটক, সার্কাস নিয়ে এসে এলাকার মানুষকে আনন্দ দিতেন। এসব প্রতিষ্ঠানের মালিকরাও রঘু দাকে সমীহ করতেন। পরবর্তীতে রঘু দা সাংবাদিকতা শুরু করেন। তিনি বালিয়াকান্দিতে প্রতিষ্ঠা করেন প্রেসক্লাব। কিছু উদ্যোমী তরুণকে নিয়ে তার সাংবাদিকতা কাজ শুরু হয়। তিনি আমৃত্যু উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি ও জেলার জনপ্রিয় দৈনিক মাতৃকন্ঠ এবং দৈনিক ইত্তেফাক পত্রিকার বালিয়াকান্দি উপজেলা প্রতিনিধি হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছেন।
  সাংবাদিকতা করতে গিয়ে তিনি নিভৃত পল্লীর মানুষের সঙ্গে মিশেছেন। পল্লীর মানুষও রঘু দাকে আপন করে নিয়েছিলো। বয়স বাড়তে থাকে রঘু দা’র। একটু ধর্মে-কর্মে মনোনিবেশ করেন। মানুষের সাথে মেশা ছিল তার রক্তের নেশা। এ  নেশা থেকে তিনি এলাকার বিভিন্ন হিন্দু সম্প্রদায়ের উৎসবে প্রতিনিধিত্ব করতে থাকেন। দীর্ঘদিন ডায়েবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ ও গ্যাস্ট্রিকের সমস্যায় ভুগছিলেন। কিন্তু তার আমৃত্যু সঙ্গী এসব অসুখকে পরোয়া না করেই তিনি ছুটে যেতেন ধমীয় অনুষ্ঠান সফল করতে। আজ সেই রঘুনন্দন সিকদার আর আমাদের মাঝে নেই। তার আত্নার শান্তির জন্য সবার কাছে দোয়া কামনা করছি।

 

যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটন দূতাবাসে প্রেস মিনিস্টার পদে নিয়োগ পেলেন বাসসের সাজ্জাদ হোসেন
জাতীয় প্রেসক্লাবের নির্বাচনে প্রথম নারী সভাপতি ফরিদা ইয়াসমিন॥সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াস খান
সাংবাদিক শাবান মাহমুদ ভারতের নয়া দিল্লীর নতুন প্রেস মিনিস্টার
সর্বশেষ সংবাদ