ঢাকা মঙ্গলবার, মে ১৮, ২০২১
হেফাজতে ইসলামকে রাজবাড়ীতে ঐক্যবদ্ধভাবে মোকাবেলা করা হবে ঃ জেলা আ’লীগের নেতৃবৃন্দ
  • চঞ্চল সরদার
  • ২০২১-০৪-১১ ০১:০৬:৩৯
রাজবাড়ী জেলা আওয়ামী কার্যালয়ে গতকাল ১০ই এপ্রিল বেলা ১১টায় সাংবাদিক সম্মেলনে জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি এডঃ গণেশ নারায়ন চৌধুরী বক্তব্য রাখেন -মাতৃকণ্ঠ।

উগ্র মৌলবাদী সংগঠন হেফাজতে ইসলামের সরকার ও রাষ্ট্রবিরোধী সন্ত্রাসের প্রতিবাদে এবং করোনা ভাইরাসের প্রকোপ বৃদ্ধিতে করণীয় সম্পর্কে সাংবাদিক সম্মেলন করেছে রাজবাড়ীর জেলা আওয়ামী লীগ। 

  গতকাল ১০ই এপ্রিল বেলা ১১টার দিকে জেলা আওয়ামী কার্যালয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কাজী ইরাদত আলীর নির্দেশনায় এই সাংবাদিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। 

  জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি এডঃ গণেশ নারায়ন চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক এডঃ মোঃ শফিকুল আজম মামুনের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ফকীর আব্দুল জব্বার। 

  এ সময় লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন জেলা আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক এডঃ সফিকুল হোসেন। 

  লিখিত বক্তব্যে উল্লেখ করা হয়, ২০২১ সালের মার্চ মাস ছিলো বাঙ্গালি জাতির জন্য একটি তাৎপর্যপূর্ণ ঘটনাবাহুল মাস। ৭ই মার্চ ছিলো বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ভাষণ, ১৭ই মার্চ ছিলো জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ১০০তম জন্মদিন এবং ২৬শে মার্চ ছিলো মহান স্বাধীনতার ৫০বছর পূর্তিতে স্বাধীনতার সুর্বণজয়ন্তী। বাঙ্গালী জাতির স্বাধীনতার সুর্বণ জয়ন্তী যথাযোগ্য মর্যাদায় পালনের জন্য বাংলাদেশ সরকার,বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সহ স্বাধীনতার স্বপক্ষের বিভিন্ন রাজনৈতিক সংগঠন,পেশাজীবী সংগঠন ব্যাপক কর্মসূচি গ্রহণ করেছিলো। এতে পৃথিবীর অনেক দেশের রাষ্ট্র প্রধান ও সরকার প্রধান বাংলাদেশে এসেছে এবং অনেকেই আবার শুভেচ্ছা বার্তা প্রেরণ করেছে। 

  কিন্তু আপনারা দেখেছেন আমাদের প্রতিবেশী দেশ ভারতের সরকার প্রধানের আগমনকে কেন্দ্র করে উগ্র মৌলবাদী সংগঠন হেফাজত ইসলাম, বিএনপি-জামাতের প্রত্যেক্ষ মদদে ভারত সরকারের আসা বন্ধ করতে উস্কানীমূলক বক্তব্য ও ধ্বাংত্নক কার্যকলাপ শুরু করে। তাদের উদ্দের্শ ছিলো স্বাধীনতার সূবর্ণ আয়োজন পন্ড করা। হেফাহত ইসলাম উস্কানী দিয়ে সারা দেশে যে তান্ডব চালিয়েছে সেটা ১৯৭১ সালের পাকিস্থানী হানাদার বাহিনীর তান্ডবকেও হার মানাবে। তারা ব্রাম্মনবাড়িয়াসহ সারা বাংলাদেশে পরিকল্পিতভাবে ধ্বংসযজ্ঞ চালালো। এছাড়াও তারা আওয়ামী লীগের অফিসসহ অনেকের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পুড়িয়ে দিলো। তারা কিন্তু এই বাংলাদেশের চলমান অগ্রগতি ও সাফল্যকে ধ্বংস করতে চায়। আপনাদের সামনে হেফাজতের নেতা মামুনুল হকের চরিত্র পরিষ্কার হয়েছে। তারা দেশের ভালো চায় না।  তারা দেশের ক্ষতির জন্য কাজ করছে।

  লিখিত বক্তব্যে আরো উল্লেখ করা হয়, রাজবাড়ী জেলা একটি শান্ত জেলা। এই শান্ত জেলাকে অশান্ত করার সুযোগ খুঁজছে তারা। আমরা বলতে চাই জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ইরাদত কাজীর নির্দেশনা দিয়েছে। রাজবাড়ীর জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে দেশপ্রেমিক সকল রাজনৈতিক দল, সামাজিক-সাংস্কৃতিক ও পেশাজীবী সংগঠনসহ স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনার সকল শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ করে আমরা এই অপশক্তিকে কঠোরহস্তে মোকাবেলা করবো।

  এছাড়া করোনার প্রথম ধাপে শেখ হাসিনার নির্দেশনার আলোকে সরকারী সহায়তার পাশাপাশি রাজবাড়ী-২ আসনের এমপি ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোঃ জিল্লুল হাকিম ও সাধারণ সম্পাদক কাজী ইরাদত আলী তাদের ব্যক্তিগত অর্থায়নে রাজবাড়ী সকল উপজেলাতে খাদ্য ও চিকিৎসাসহ সব ধরণের সহায়তা প্রদান করেছে। এছাড়াও করোনার দ্বিতীয় ধাপেও জেলা আওয়ামী লীগ কাজ করে চলছে বা সামনের দিনে কাজ করবে বলেও তারা জানান।

  সাংবাদিক সম্মেলনে জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ফকুরুজামান মুকুট, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক এডঃ মোঃ রফিকুল ইসলাম, সদর উপজেলার আওয়ামী লীগের সভাপতি রমজান আলী খান, সাধারণ সম্পাদক শেখ ওহিদুজ্জামান, রাজবাড়ী পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সফিকুল ইসলাম সফিসহ, জেলা আওয়ামী লীগ, পৌর আওয়ামী লীগ, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগ, যুব লীগ, কৃষক লীগ, যুব মহিলা লীগ, শ্রমিক লীগ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

  উল্লেখ্য, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কাজী ইরাদত আলী করোনায় আক্রান্ত হয়ে বর্তমানে ঢাকায় নিজ বাসায় চিকিৎসাধীন থাকায় তার নির্দেশনায় এই সাংবাদিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। 

রাজবাড়ীতে হেফাজতের কার্যকরী কোন কমিটি নেই
রাজবাড়ীতে আওয়ামী লীগের উদ্যোগে সীমিত আকারে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালন
হেফাজতে ইসলামকে রাজবাড়ীতে ঐক্যবদ্ধভাবে মোকাবেলা করা হবে ঃ জেলা আ’লীগের নেতৃবৃন্দ
সর্বশেষ সংবাদ