ঢাকা সোমবার, ডিসেম্বর ৬, ২০২১
রাজবাড়ী জেলায় পানের চাহিদা না থাকায় ন্যায্য দাম না পেয়ে হতাশায় চাষীরা
  • সোহেল মিয়া
  • ২০২১-০৬-০৪ ০০:৪৩:২৯

রাজবাড়ী জেলা বালিয়াকান্দিতে ৮০টি পান এখন বিক্রি হচ্ছে মাত্র দুই টাকাতে। বাজারে পানের চাহিদা না থাকায় ন্যায্য দাম পাচ্ছেন না হাজারো পান চাষীরা। 

  ফলে চরম হতাশায় ভুগছেন তারা। পান চাষ করে  ক্রমাগত ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছেন এ সকল চাষীরা। অর্থনৈতিক ক্ষতির কারনে পরিবার-পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবন-যাপন করছেন তারা।

  এমন এক সময় ছিল বালিয়াকান্দির পান বিশ্বের বিভিন্ন দেশে রফতানি করা হতো। দেশের চাহিদা মিটিয়ে ভারত, পাকিস্তান, ভুটান, মালদ্বীপ, শ্রীলঙ্কা, নেপাল, সৌদি আরব, মালয়েশিয়ার মতো দেশগুলোতে  রফতানিও করা হতো। কিন্তু হঠাৎ করে বিদেশে পান রফতানি বন্ধ হয়ে যাওয়ায় চরম বিপাকে পড়েছে হাজারো পান চাষীরা।

  তবে সংশ্লিষ্টরা বলছেন- করোনার হিংস্র থাবায় পুরো পৃথিবী স্থবির। থমকে রয়েছে বিশ্বের অর্থনৈতিক চাকা। তারই প্রভাব এসে পড়েছে দেশে। তবে আশার কথা হলো খুব দ্রুতই বিদেশে পান রফতানি করা শুরু হবে। পান রফতানি করা শুরু হলে আবার পানের দাম বেড়ে যাবে।

  বালিয়াকান্দির মাটি ও আবহাওয়া পান চাষের উপযোগী হওয়ায় এ অঞ্চলের প্রায় ২০টি গ্রামের কয়েক হাজার কৃষক পান চাষের সাথে সরাসরি সম্পৃক্ত। তাদের অর্থনৈতিক মূল ফসল হলো পান। পান চাষই তাদের প্রধান কাজ। স্থানীয় ভাবে পানের চাহিদা মিটিয়ে তাদের উৎপাদিত পান যায় দেশের বিভিন্ন জেলাতে। 

  কৃষি বিভাগ থেকে জানা যায়, বালিয়াকান্দিতে এবার চলতি মৌসুমে ৯০ হেক্টর জমিতে পান চাষ হচ্ছে। এ অঞ্চলে  সাধারণত দুই ধরণের পান উৎপাদন হয়। মিষ্টি পান ও সাচি পান। এই দুই ধরণের পানেরই বেশ কদর রয়েছে। দেশের গন্ডি পেরিয়ে এই দুই জাতের পান বিদেশের মাটিতেও বেশ জনপ্রিয় অর্জন করেছে। রাজবাড়ীর পান খুবই সুস্বাদু ও মিষ্টি।

  সরেজমিন বালিয়াকান্দির বিভিন্ন পানের বরজে গিয়ে দেখা যায়, বাজারে পানের দাম না থাকায় অনেক পান চাষীই পান চাষ করা থেকে আগ্রহ হারাচ্ছে। ন্যায্য দাম থেকে বঞ্চিত হওয়ায় অনেকেই পানের বরজ আর তৈরি করছেন না। বরজ ভেঙে গেলেও সেটি তারা মেরামত করছেন না। কারণ- বরজ তৈরি করতে যে খরচ হয় সেটা তারা পাচ্ছেন না। 

  অনেক  আবার বলেছেন- পানের দাম ফাল্গুন-চৈত্র মাসে কিছুটা পাওয়া যায়। আর বাকী মাসগুলোতেই পানের দাম থেকে একেবারে নিম্ন। তবে চলতি বছরের মার্চ থেকে পানের দাম একেবারেই কম। ৮০টি পান ২ থেকে ৫টাকা পর্যন্ত। বরজ থেকে পান  ছিড়ে বাজারে নিতে যে খরচ হয় তার কিছুই আয় হয় না।

  স্বর্প বেতাঙ্গা গ্রামের পান চাষী মোঃ ওয়াজেদ আলী শেখ(৬৫) বলেন, প্রায় ৪০ বছর ধরে এই পান চাষের সাথে জড়িত। গত কয়েক মাস ধরে পানের দামের যে অবস্থা দেখছি তা আগে কখনো দেখিনি। যদি সরকার দ্রুতই পান রফতানি শুরু করেন তাহলে হয়ত পানের দাম আবার বাড়বে।

  বেতেঙ্গা গ্রামের সনাতন মজুমদার ও মিজানুর রহমান বলেন, বিভিন্ন পানের দোকানে এখনো একটি পান বিক্রি হচ্ছে পাঁচ টাকা। অথচ আমরা এক পণ পান অর্থ্যাৎ ৮০ টি পান বিক্রি করছি মাত্র দুই টাকাতে। আর পান একটু ভালো হলে ৪ থেকে ৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। তাও আবার অনেক সময় আড়তদাররা পান কিনতে চাননা।

  পানের আড়তদার উদয় পাল  বলেন, বাজারে এখন পানের চাহিদা কম। একে তো পান রফতানি বন্ধ তারপর আবার ভারত থেকে পান আমদানি করা হচ্ছে। ভারত থেকে পান আমদানি বন্ধ ও বিদেশে পান রফতানি চালু  করলে দাম পেত চাষীরা। 

  রাজবাড়ী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক এস এম শহীদ নূর আকবর  বলেন, নীতি নির্ধারকরা দেশের পান ইউরোপীয় দেশগুলোতে রফতানির সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। খুব দ্রুতই এটি বাস্তবায়ন হবে। আশার কথা হলো নীতি নির্ধারকরা যে জেলার পান রফতানি করবেন বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন সেই সিদ্ধান্তের মধ্যে রাজবাড়ী জেলা রয়েছে।

  রাজবাড়ী জেলা প্রশাসক দিলসাদ বেগম বলেন, আমি জানি রাজবাড়ীর পান খুবই সুস্বাদু ও মিষ্টি। এই জেলার পান এক সময় বিদেশে রফতানি করা হতো। এখন সেটি বন্ধ রয়েছে। রাজবাড়ীর পান অগ্রাধিকার ভিত্তিতে যাতে বিদেশে রফতানি করা হয় সেজন্য আমি বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত সচিব মহোদয়ের সাথে দ্রুতই যোগাযোগ করবো।

রাজবাড়ী জেলায় পানের চাহিদা না থাকায় ন্যায্য দাম না পেয়ে হতাশায় চাষীরা
গোয়ালন্দর সর্বত্র গাছে গাছে দুলছে সজিনা
টমেটোর দাম কম হওয়ায় হতাশ গোয়ালন্দের চাষীরা
সর্বশেষ সংবাদ