ঢাকা রবিবার, আগস্ট ১, ২০২১
রাজবাড়ীতে র‌্যাপিড অ্যান্টিজেন্টে মাধ্যমে ১৭জনের করোনা শনাক্ত
  • স্টাফ রিপোর্টার
  • ২০২১-০৭-২১ ০২:৩৫:৪২

রাজবাড়ী জেলায় গতকাল ২০শে জুলাই র‌্যাপিড অ্যান্টিজেন্টের মাধ্যমে নমুনা পরীক্ষা করে আরো ১৭ জনের শরীরে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে।  

  গতকাল ২০শে জুলাই বিকালে রাজবাড়ীর সিভিল সার্জন ডাঃ মোহাম্মদ ইব্রাহিম টিটন বলেন, র‌্যাপিড অ্যান্টিজেন্টের মাধ্যমে ৫২টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। তার মধ্যে ১৭ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এদের মধ্যে রাজবাড়ীর সদর উপজেলার ১৫ জন ও পাংশার ২জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে।  

  এ জেলাতে এ পর্যন্ত মোট ৭ হাজার ৫৭৭ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। তার মধ্যে রাজবাড়ী সদর উপজেলার ৩ হাজার ৯ শত ৬১ জন, পাংশায় ১ হাজার ৬ শত ৭২ জন, কালুখালীতে ৫ শত ১ জন, বালিয়াকান্দিতে ৫ শত ৬৩ জন ও গোয়ালন্দ উপজেলার ৮ শত ৮০ জন। 

  তার মধ্যে থেকে সুস্থ হয়েছে ৫ হাজার ৯ শত ৬৪ জন। সদর উপজেলার ৩ হাজার ৩ শত ৫ জন, পাংশায় ১ হাজার ১ শত ৭৭ জন, কালুখালীতে ৩৫৯ জন, বালিয়াকান্দিতে ৪৪৩ জন ও গোয়ালন্দ উপজেলার ৬ শত ৮০ জন। 

  এছাড়াও এ পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ৬১জনের। সদর উপজেলার ৩৫ জন, পাংশায় ১৭ জন, কালুখালীতে ৫ জন, বালিয়াকান্দিতে ২ জন ও গোয়ালন্দ উপজেলার ২ জন। 

  করোনায় আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে হোম আইসোলেশনে চিকিৎসাধীন আছে ১ হাজার ৪ শত ৯৮ জন। হাসপাতালে ভর্তি আছে ৫৭ জন।

  এদিকে গত ২০২০ সালের ৭ই এপ্রিল রাজবাড়ী জেলাতে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয়। সেই সময় থেকে গতকাল ২০শে জুলাই পর্যন্ত আরটি পিসিআরের মাধ্যমে ২২ হাজার ৭৯ জনের করোনার নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এছাড়াও র‌্যাপিড অ্যান্টিজেন্টের মাধ্যমে ৬ হাজার ৬২৫ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে।

  উল্লেখ্য, গত ১৮ই জুলাই রাজবাড়ী সদর হাসপাতালের করোনা ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মোহাম্মদ মোকলেছুর রহমান(৬৫) মারা যান।

  তিনি সদর উপজেলার মাটিপাড়া গ্রামের বাসিন্দা। এরআগে ১৬ই জুলাই মোকলেছুর করোনার উপসর্গসহ অন্যান্য জটিলতা নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়। পরে র‌্যাপিড অ্যান্টিজেন্টের মাধ্যমে নমুনা পরীক্ষা করা হলে তিনি করোনায় পজিটিভ বলে শনাক্ত হয়। 

  এছাড়াও গত ১৭ই জুলাই রাজবাড়ী সদর উপজেলার চরলক্ষীপুর এলাকার রওশন আরা(৬০) নামে একজন করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করে।

  তিনি করোনা উপসর্গ নিয়ে ১৫ই জুলাই হাসপাতালে ভর্তি হন। পরে তার করোনার নমুনা পরীক্ষা করা হলে তিনি কোভিড-১৯ আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়। গত ১৭ই জুলাই তার শরীরিক অবস্থার অবনতি ঘটলে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রেফার করা হলে পথেই তার মৃত্যু ঘটে।

রাজবাড়ীর গোদার বাজারে ৬শ মিটার নদী তীর প্রতিরক্ষার প্রকল্পে ২শ মিটার বিলীন॥কাজের মান নিয়ে প্রশ্ন
গোদার বাজারে পদ্মা নদী ভাঙ্গন রোধের কাজ পরিদর্শনে এমপি কাজী কেরামত আলী
রাজবাড়ীতে নদী ভাঙ্গন ঠেকাতে আমাদের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে--- এমপি সালমা চৌধুরী রুমা
সর্বশেষ সংবাদ