ঢাকা মঙ্গলবার, মার্চ ৫, ২০২৪
রাজবাড়ীতে তীব্র শীতে বোরো ধানের বীজতলা ক্ষতিগ্রস্ত॥কৃষকরা হতাশায়
  • চঞ্চল সরদার
  • ২০২১-০১-০৪ ১৩:২৬:২০
তীব্র শীতের কারণে রাজবাড়ী জেলার বিভিন্ন স্থানে বোরো ধান চাষের জন্য তৈরী করা বীজতলা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে -মাতৃকণ্ঠ।

তীব্র শীতের কারণে রাজবাড়ী জেলার বিভিন্ন স্থানে বোরো ধান চাষের জন্য তৈরী করা বীজতলা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এখন কৃষকদের বাড়তি টাকা খরচ করে চারা কিনতে হবে। এতে হতাশায় ভুগছেন কৃষকরা।

  রাজবাড়ীর কৃষকরা শীতের শুরুতেই বীজতলা তৈরী করেন। কিন্তু এ বছরের শুরুতেই শীতের তীব্রতা ও কুয়াশা ছিল অনেক বেশী। তাই বীজতলা ‘কোল্ড ইনজুরী’তে পড়ে। এতে ক্ষতিগ্রস্ত হয় বীজতলা।

  রাজবাড়ীর সদর উপজেলা মিজানপুর ইউনিয়নের দয়ালনগর গ্রামের কৃষক রওশন মোল্লা বলেন, আমি ২শতাংশ জমিতে বোরো ধানের জন্য বীজতলা তৈরী করেছিলাম। কিন্তু তীব্র শীত ও কুয়াশার কারণে সেটা হয়নি। আমার এখন চারা কিনে জমিতে ধান লাগাতে হবে। এতে চারা বাবদ খরচ বেড়ে যাবে দ্বি-গুনেরও বেশী।

  একই এলাকার কৃষক রহিম মন্ডল বলেন, অনেক চাষী একাধিকবার বীজতলা করলেও ভালো চারা জন্মেনি। এখন আর বীজতলা তৈরীর সুযোগ নেই। এখন বাজার থেকে বেশী দামে বোরো ধানের চারা কিনে চাষ করতে হবে। 

  এ ব্যাপারে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর, রাজবাড়ীর উপ-পরিচালক গোপাল কৃষ্ণ দাস বলেন, ‘চলতি বোরো মৌসুমে রাজবাড়ী জেলায় ১৩ হাজার ১৫০ হেক্টর জমিতে বোরো ধান আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে। এরই মধ্যে নীচু ১৯৭ হেষ্টর জমিতে বোরো ধান লাগানো হয়েছে। বোরো চাষের লক্ষ্যমাত্রা পূরণের জন্য এবার ৭৩০ হেক্টর জমিতে বীজতলা তৈরী করা হয়েছে। কুয়াশা ও তীব্র শীত থেকে বীজতলা রক্ষায় কৃষকদের দিনের বেলা বীজতলা পলিথিন দিয়ে ঢেকে রাখার এবং এক থেকে দুই ইঞ্চি পানি দিয়ে বিকাল থেকে পুরো রাত ভিজিয়ে রেখে সকালে পানি বের করে দেয়ার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। যেসব স্থানে বীজতলায় সমস্যা দেখা দিয়েছে সেসব স্থানে কীটনাশক প্রয়োগ করতে হবে।’

 
চলতি বছর ২হাজার ৭০০টন ৩৪টি দেশে আম রপ্তানি
রাজবাড়ী ও গোপালগঞ্জ জেলায় উচ্চ ফলনশীল তিলের বাম্পার ফলন
রাজবাড়ীতে মুড়িকাটা পেঁয়াজের ভালো ফলন হলেও দাম নিয়ে হতাশ কৃষকরা
সর্বশেষ সংবাদ