ঢাকা বৃহস্পতিবার, জুলাই ২৫, ২০২৪
টিসিবি’র পণ্য পেয়ে খুশি ক্রেতারা
  • মাহফুজুর রহমান
  • ২০২৩-০৯-২৭ ০১:১৯:১৮

দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির বাজারে রাজবাড়ী সদর উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলের সাধারণ জনগণ স্বল্প দামে টিসিবি’র পণ্য ক্রয় করতে পেরে যেন স্বস্তি ফিরে পেয়েছে।  
 দেশব্যাপী ভোক্তা পর্যায়ে ভর্তুকি মূল্যে এ পণ্য বিক্রি করছে সরকার। এমন কার্যক্রম সারা বছর চালু রাখার দাবী উপকার ভোগী নি¤œআয়ের মানুয়ের।
 রাজবাড়ী সদর উপজেলা পরিষদ অফিস সূত্রে, রাজবাড়ী সদর উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নে ১৫ হাজার ৮১৮টি পরিবার ফ্যামিলি কার্ডে টিসিবির পণ্য ক্রয় করে থাকেন। প্রতি মাসে একবার করে এ পণ্য প্রত্যেক ইউনিয়নে ভিন্ন ভিন্ন ডিলারগণ বিক্রি করে থাকেন।
 বসন্তপুর ইউনিয়ন পরিষদ ঘুরে দেখা গেছে, বাজারে মসুর ডাল, তেল ও চালের দাম প্রতিনিয়ত বেড়ে যাওয়ায় নি¤œ ও মধ্যম আয়ের মানুষ এখন টিসিবি’র পণ্যের জন্য অপেক্ষায় থাকেন। সকাল ৯টা থেকেই টিসিবি’র ফ্যামিলি কার্ডধারীরা নারী ও পুরুষরা আলাদা আলাদা লাইনে দাঁড়িয়ে রয়েছেন। প্রত্যেকের হাতে টিসিবি’র ফ্যামিলি কার্ড এবং চাল, ডাল ও তেল ক্রয়ের জন্য ৪৭০ টাকা। কেউ বা পণ্য ক্রয় করে নিজ নিজ ব্যাগে ভর্তি করে প্রতিবেশীর জন্য দাঁড়িয়ে রয়েছেন।
 বসন্তপুর ইউনিয়ন পরিষদের হলরুমে টিসিবির পণ্য গুদামজাত করে ক্রয় করছেন ঐশী এন্টার প্রাইজের প্রোপাইটার হেলেনা বেগমের প্রতিনিধিরা। পণ্য বিক্রির সময় বসন্তপুর ইউনিয়ন পরিষদের ট্যাগ অফিসারের দায়িত্ব পালন করছেন মোঃ আব্দুল গফুর। এ সময় বসন্তপুর ইউনিয়ন পরিষদের সচিব মোঃ জহির উদ্দিনসহ ইউপি সদস্য-সংরক্ষিত মহিলা সংসদ্য বৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
 গতকাল ২৫শে সেপ্টেম্বর দিনব্যাপী রাজবাড়ী সদর উপজেলার বসন্তপুর ইউনিয়নে ফ্যামিলি কার্ডধারী ১৬০৭টি পরিবারের মাঝে টিসিবি’র পণ্য বিক্রি করা হয়। এবার প্রত্যেক পরিবারকে ভোজ্য তেল ১০০ টাকা দরে দুই লিটার, চাল ৩০ টাকা কেজি দরে পাঁচ কেজি, ডাল ৬০ টাকা দরে দুই কেজি দেয়া হয়। এ পণ্য পেয়ে খুশি উপকার ভোগীরা। একইভাবে রাজবাড়ী সদর উপজেলা ১৪টি ইউনিয়নে পর্যায়ক্রমে ভিন্ন ভিন্ন ডিলারের মাধ্যমে এ পণ্য বিক্রয় করা হবে।
 বসন্তপুর ইউনিয়নের কোলা গ্রামের আঃ রাজ্জাক মোল্লা, বাজিতপুরের আঃ কুদ্দুস মোল্লা, মহারাজপুরের মোছাঃ মমেনা বেগম, উদয়পুরের মোছাঃ তানজিলা বেগম টিসিবির পণ্য হাতে পেয়ে জানান, বর্তমানে জিনিসের দাম অনেক বেশি। সরকার আমাদের কথা চিন্তা করে এই স্বল্প মূল্যে তেল, ডাল ও চাল দিয়ে অনেকটা উপকার হয়েছে। তারা সরকারের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। স্বল্প দামে এ পণ্য কিনতে পেরে খুব উপকৃত হয়েছি। এটা বাজার থেকে কিনতে গেলে প্রায় ৪০০ টাকা বেশি দিয়ে কিনতে হতো। কোন ধরনের ভোগান্তি ছাড়াই তারা ৪৭০ টাকার প্যাকেজে পণ্য নিতে পেরেছি।
ফ্যামিলি কার্ড চালু হওয়ার সুবিধার কথা তুলে ধরে ক্রেতারা বলেন, ফ্যামিলি কার্ড চালু করায় দুর্ণীতি অনেকটা দূর হয়েছে। আগে অনেকে ৩/৪বার পণ্য ক্রয় করে নিতো। এখন আর তারা সেটি করতে পারছেন না। এই ঊর্ধ্বগতি বাজারে স্বল্প মূল্যে তেল, ডাল ও চাল পেয়ে তারা অনেক খুশি। সরকার সব সময় যেনো এই স্বল্প মূল্যে আমাদের নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস প্রদান করে, সরকারের কাছে এই দাবী জানাই।
 টিসিবির ডিলারের প্রতিনিধিরা বলছেন, সুষ্ঠ ও নিরবিচ্ছিন্নভাবেই পণ্য বিক্রি হচ্ছে। ফ্যামিলি কার্ডধারীদের মধ্যে নারী ও পুরুষরা আলাদা আলাদা লাইনে দাঁড়িয়ে পণ্য ক্রয় করে নিচ্ছেন।
 বসন্তপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ জাকির হোসেন সরদার বলেন, ইউনিয়নে প্রতি মাসে ১৬০৭টি টিসিবির ফ্যামিলি কার্ডধারী পরিবারের কাছে এ পণ্য বিক্রি করা হয়। ইউনিয়নের ট্যাগ অফিসারের দায়িত্ব পালনকারী সদর উপজেলা পরিসংখ্যান কর্মকর্তা মোঃ আব্দুল গফুর এর উপস্থিতিতে এ বিক্রি কার্যক্রম করা হয়। স্বল্প দামে চাল, ডাল ও তেল পেয়ে প্রত্যন্ত অঞ্চলের জনগণ যেন স্বস্তি ফিরে পায়।

 

 রাজবাড়ীতে পবিত্র আশুরা উপলক্ষ্যে আঞ্জুমান-ই-কাদেরীয়ার শোক মিছিল
রাজবাড়ীতে বিএনপি কার্যালয়ে কোটা সংস্কার আন্দোলনে সহিংসতায় নিহত শিক্ষার্থীদের গায়েবী জানাযা অনুষ্ঠিত
রাজবাড়ীতে ছাত্রদলের মিছিলে পুলিশের বাঁধা
সর্বশেষ সংবাদ