ঢাকা সোমবার, জানুয়ারী ১৭, ২০২২
দৌলতদিয়ায় পদ্মা নদীর বদ্ধকোলে তরুণদের খাঁচায় মাছ চাষের নিয়মাবলী দেখালেন ডিএফও
  • স্টাফ রিপোর্টার
  • ২০২০-০৯-২৩ ০১:৪৮:৪৪
গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়ার বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়াসহ একদল তরুণকে গতকাল ২২শে সেপ্টেম্বর সরেজমিনে খাঁচায় মাছ চাষ দেখিয়েছেন জেলা মৎস্য কর্মকর্তা জয়দেব পাল -মাতৃকণ্ঠ।

রাজবাড়ী জেলার গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়ার বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়াসহ একদল তরুণকে খাঁচায় মাছ চাষের রাস্তা দেখিয়েছেন জেলা মৎস্য কর্মকর্তা জয়দেব পাল। 
  তিনি জানান, করোনকালীন সময়ে শিক্ষিত যুবকদের স্বাবলম্বী হওয়ার সুযোগ করে দেওয়ার জন্য মৎস্য অধিদপ্তর কর্তৃক দৌলতদিয়া এলাকার ৩জন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীসহ ২০জনের একটি গ্রুপ করে তাদেরকে খাঁচায় মৎস্য চাষের প্রশিক্ষণ দেয়া হয়। এরপর তারা পদ্মা নদীর উজানচর বদ্ধ কোল-এর দৌলতদিয়া অংশের সাইনবোর্ড এলাকায় ১১টি খাঁচার(স্টিল, কাঠ ও নেটের তৈরী) মাধ্যমে মৎস্য চাষ শুরু করেন। প্রতিটি খাঁচার দৈর্ঘ্য ২০ ফুট, প্রস্থ ১০ ফুট ও গভীরতা ৭ ফুট করে। ৫৫ দিন আগে তারা প্রতিটি খাঁচায় ৯৫০টি তেলাপিয়া মাছের পোনা ছাড়ে। 
  গতকাল ২২শে সেপ্টেম্বর সরেজমিনে গিয়ে মাছের ওজন ও স্বাস্থ্য পরীক্ষা করে দেখা যায়, ইতিমধ্যে মাছগুলোর গড় ওজন হয়েছে ৬০-৭০ গ্রাম করে। আর এক মাসের মতো মাছগুলোকে ঠিকমতো পরিচর্যা করলে ৪-৬টিতে এক কেজি করে হবে। এর মাধ্যমে প্রায় ২ মেট্রিক টন মাছ উৎপাদিত হবে, যার মূল্য প্রায় ৪ লক্ষ টাকা। খাঁচা তৈরী, মাছের পোনা ও খাদ্যসহ আনুষঙ্গিক খরচ মিলিয়ে তাদের ব্যায় হবে পৌনে ২ লক্ষ টাকার মতো। ফলে প্রথম বারেই তাদের সোয়া ২ লক্ষ টাকার মতো লাভ হবে। পরবর্তীতে তাদের খরচ অনেক কমে যাবে এবং লাভও বেশী হবে। কারণ নতুন করে আর খাঁচা তৈরী করতে হবে না। ওই খাঁচাতেই তারা মাছ চাষ করতে পারবে। 
  উল্লেখ্য, জেলা মৎস্য কর্মকর্তা জয়দেব পালের খাঁচায় মৎস্য চাষ কার্যক্রম পরিদর্শনকালে গোয়ালন্দ উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা(ভারপ্রাপ্ত) রেজাউল শরীফ এবং রাজবাড়ীর উপ-সহকারী প্রকৌশলী ফিরোজ আহম্মেদ তপু এবং মৎস্য চাষ গ্রপের দলনেতা হোসেন আলীসহ অন্যান্য সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। 

রাজবাড়ীতে মুড়িকাটা পেঁয়াজের দাম না পাওয়ায় বিপাকে কৃষক
রাজবাড়ী জেলায় সরিষার বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা
রাজবাড়ী জেলায় পানের চাহিদা না থাকায় ন্যায্য দাম না পেয়ে হতাশায় চাষীরা
সর্বশেষ সংবাদ