ঢাকা রবিবার, মে ১৯, ২০২৪
চন্দনীতে ঘোষণা : রাজবাড়ী-১ আসনে মনোনয়ন চাইবেন আকবর আলী মর্জি
  • স্টাফ রিপোর্টার
  • ২০২৩-১১-১৪ ১৬:২২:০২

রাজবাড়ী সদর উপজেলার চন্দনী ইউনিয়ন পরিষদের আয়োজনে চন্দনী টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজ মাঠে গত ১৩ই নভেম্বর বিকালে ইউনিয়নের আওতাধীন বর্তমান সরকারের বয়স্ক, বিধবা, প্রতিবন্ধী, মাতৃকালীন ভাতা, টিসিবিসহ সকল প্রকার উপকারভোগীদের নিয়ে মতবিনিময় সভায় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব কাজী কেরামত আলীর উপস্থিতে আসন্ন দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে রাজবাড়ী-১ আসনে দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী হওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও জেলা পরিষদের সাবেক প্রশাসক বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ¦ আকবর আলী মর্জি।
 মতবিনিময় সভায় তিনি বলেন, আসলে আমি রাজবাড়ীতে আইসিতো আওয়ামী লীগ করার জন্য, অন্য দল করার জন্য না। আপনারা দেখলে বুজবেন আজকের ঐ যে (মতবিনিময় সভার) ব্যানারটা আছে ঐখানে আমার নাম নাই। এই সভায় যারা উপস্থিত আছে, আওয়ামী লীগের সংগঠন অনুযায়ী সবার চেয়ে উর্দ্ধে আমার পদ(পোষ্ট) আছে। আমি আওয়ামী লীগের জাতীয় নির্বাহী পরিষদের সদস্য। কিন্তু এখানে ব্যানারে আমার নাম নাই। এতে আমি মাইন্ড করি নাই। আমি চাইছি আওয়ামী লীগ করতে, পদের বড়াই করতে আসি নাই।
 তিনি আরো বলেন, আমি আজকে শুনছি যে এখানে মিটিং হবে। যারা এই মিটিং-এর আয়োজক তারা কিন্তু আমাকে বলে নাই। আমি শুনছি চইলে আইছি। অনেক জায়গায় আমারে দাওয়াত দেয় না, আই ডন্ট কেয়ার। আমি এসব কিছু মনে করি না। রাজনীতি করার জন্য রাজবাড়ীতে আসছি। আপনারা জানেন এই স্কুল মাঠের এই শহীদ মিনার আমার করা, এই প্রাইমারী স্কুল আমার করা, এই হাই স্কুল আমার করা। এটা ছিনতাই করে নিয়ে যাওয়া হইছে ২০০১ সালে খৈয়মের মায়ের নামে, বলেন আপনারা, সত্যি নাকি মিথ্যা বলেন। আমরা সমাজের উপকার করার জন্য আইছি। আমি আওয়ামী লীগে থাইকাও বিরোধী দলের মত রোলারের তলে আছি। আগে ছিল মর্জি গ্রুপ, কেরামত গ্রুপ। এখন মর্জি গ্রুপ আর কেরামত গ্রুপ নাই। এখন গ্রুপ হল দুইটা। একটা হল ইরাদতের গ্রুপ আর একটা কেরামতের গ্রুপ। এই দুই গ্রুপের রোশাতলে আমরা যারা আওয়ামী লীগার আছি, না পারি মন খুলে কথা বলতে, না পারি যাবার। বহুত জায়গায় কেরামত সাহেবের সাথে গেছি। ভাই আপনি কন, অমুকের কাছে গেছন ক্যা। আপনি কন আপনার ভাইতো অমুকের কাছে গেছে কেন। আমরা তাহলে কোথায় যাব। এর উত্তর কেরামত সাহেবও দিতে পারে নাই।
 আকবর আলী মর্জি উপকারভোগীদের উদ্দেশ্যে বলেন, একটা কথা আপনাদের বলি, ভালো কাজ সেটা বিএনপি করুক, আওয়ামী লীগ করুক, সেটা ভালো কাজ। ভালো কে ভালো বলতে হবে, খারাপকে খারাপ বলতে হবে। তাইলে আপনি মানুষ, না হলে আপনি অমানুষ। তাই শেখ হাসিনা যে আপনাদের উপকার করছে নৌকায় ভোট না দিয়ে মোনাফেক হয়েন না। আমি আগেও বলছি আমি কোন ব্যক্তির জন্য ভোট চাইতে আসিনি। আমি নৌকার পক্ষে ভোট চাইতে আইছি। শেখ হাসিনার পক্ষে ভোট চাইতে আইছি। আওয়ামী লীগের পক্ষে ভোট চাইতে আইছি। আমি কইয়া দিলাম, বার বার দরকার শেখ হাসিনার সরকার। কিন্তু আমি কাজ করলাম না, তাহলে আমি মোনাফেক হইয়া গেলাম না।
 আলহাজ¦ আকবর আলী মর্জি বলেন, আমি আমার পরিচয়টা দেই। আমি আকবর আলী মর্জি। আমি রাজবাড়ীতে ১৯৮৭ সালে আসছি। রিক্সা মার্কা চেনেন। ঐ রিক্সা মার্কায় ইলেকশন করেছিলাম। ঐ রিক্সা মার্কায়ই আছি। আজকে বেল নাই। কাজী কেরামতের সাথে আগামী দিনে যদি নমিনেশন পাই তবে এক ডায়েসে বক্তৃতা হবে। তবে কাজী কেরামত আলী যদি ব্যক্তিগত ডায়েস মনে করে আমি আকবর আলী মর্জি ঐ ডায়েসে উঠব না, আসব না, বক্তৃতাও দিব না। আজকে আমি এখানে বক্তৃতা দিচ্ছি, এখন এখান থেকে বলা হয় সময় নাই বক্তৃতা সংক্ষিপ্ত করেন। এখানে আমি আর কাজী কেরামত আলী ছাড়া অন্য কোন বক্তা নাই। এখানকার কিডা বক্তা। এখানে অন্য যারা বক্তৃতা দেবেন তারা কেউ কাজী কেরামত আলীর দালাল, কেউ মর্জির দালাল। তারা পক্ষে কথা বলে। তারাতো বঙ্গবন্ধু, শেখ হাসিনার কথা বলবে না।
 আমি সবার সামনে বলে গেলাম চন্দনীবাসী শুনে রাখেন, যতদিন সিলেক্ট না হবে, জননেত্রী শেখ হাসিনা যতদিন মার্কা না দেবে। সেই মার্কা আমার শত্রুরে দেক, বন্ধুরে দেক, কাজী কেরামত আলীকে দেক, আমারে দেক, আমি সেই ডায়াসে বক্তৃতা দেব। কেরামত কাজীর এই ডায়াসে আমি আর আসব না। সাথে আরেকটা ঘোষণা দিয়ে যাই, ইনশাল্লাহ হে আল্লাহ ৩৬বছর এখানে রাজনীতি করতেছি। রাজনীতিতে অনেকেই কিছু পায় নাই, এর আগে শেখ হাসিনা আমাদের সাথে ওয়াবদ্ধ, এই বার কাজী কেরামত করুক পরের বার তোমরা কর। লিখিত আছে। কাজী কেরামত জানে এই ডায়াসে বসা। আমি বলে গেলাম আমি ক্যানডিটেট। চন্দনীবাসীর থেকে শুরু করে গেলাম। আমি ক্যানডিডেট, সিরিয়াস ক্যানডিডেট। আমি ডায়েসে বসে থাকব আর আপনারা বলবেন অমুক পাবেনই পাবেন। আমি এটা শোনার জন্য আসি নাই। এটা শোনার জন্য কাজী কেরামতের সাথে আর মিটিং-এ আসব না। আমি কাজী কেরামতের সাথে আসছিলাম, কাজী কেরামত ও কাজী ইরাদত দুই ভাইয়ের যে গ্রুপিং তার মধ্যে আমি মনে করছি কেরামত পোলাইট। কিন্তু সে যে রোল করে, আমি তারে বহুতবার বলছি, ফোন করলে ফোন ধরবেন। আমি আজ চার দিন তারে ফোন করি, গত পরশুদিনও ফোন করছি, আজকে যে এখানে মিটিং সে আমারে জানায় নাই।
 মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি আলহাজ¦ কাজী কেরামত আলী বক্তব্য রাখেন।
 চন্দনী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ আব্দুর রবের সভাপতিত্বে জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আলহাজ¦ আকবর আলী মর্জি, সহ-সভাপতি হেদায়েত আলী সোরহাব, জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান মোঃ আজম মন্ডল, সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ রকিবুল হাসান পিয়াল, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক ও গোয়ালন্দ উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ আসাদুজ্জামান চৌধুরী আসাদ, চন্দনী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মোঃ মিজানুর রহমান শাহীনুর, সহ-সভাপতি সোলায়মান মিয়া সূর্য, মোঃ আলাউদ্দিন শেখ, সাবেক সভাপতি মোঃ আকরাম হোসেন ও জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ জাহিদুল ইসলাম বক্তব্য রাখেন।

 

 

রাজবাড়ী-১ আসনে নৌকা প্রত্যাশী ফ্রান্স প্রবাসী আশরাফুলের পক্ষে দলীয় মনোনয়ন ফরম দাখিল
চন্দনীতে ঘোষণা : রাজবাড়ী-১ আসনে মনোনয়ন চাইবেন আকবর আলী মর্জি
রাজবাড়ী জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি রাজীব-সেক্রেটারী আসাদ
সর্বশেষ সংবাদ